X
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বাইডেনকে চ্যালেঞ্জ মিয়ানমার সেনাপ্রধানের, আস্থা চীনে

আপডেট : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২২:০৪

সোমবার মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাপ্রধান এশিয়ায় চীনের স্বৈরতান্ত্রিক মডেলের বিরোধিতা মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে একটি পরীক্ষায় ফেলে দিয়েছেন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ এক বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদনে এ কথা তুলে ধরেছে।

এই বছর বাধ্যতামূলক অবসরে যাবেন জেনারেল মিন অং হ্লাং। রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা পরিচালনার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। কিন্তু চীন তাকে সম্মান জানিয়েছে। গত মাসে এক ৬৪ বছরের জেনারেলের সঙ্গে এক বৈঠকে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই উভয় দেশকে ‘ভাই’ বলে উল্লেখ করেন এবং মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ‘জাতীয় পুনরুজ্জীবনের’ প্রশংসা করেছেন।

‘ড্রাগন’স শ্যাডো: সাউথইস্ট এশিয়া ইন দ্য চাইনিজ সেঞ্চুরি’ বইয়ের লেখক সেবাস্টিয়ান স্ট্রাঞ্জিও বলেন, নিশ্চিতভাবে অভ্যুত্থানের মূল্য দিতে হবে। কিন্তু সেনাবাহিনী মনে করছে তা শোধ করতে পারবে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাম্প্রতিক ঘটনাবলি দেখিয়ে দিয়েছে চীনের ক্রমবর্ধমান শক্তি, পশ্চিমে গণতান্ত্রিক বিপথগামিতা এবং যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর এ অঞ্চলে অর্থনৈতিক বা রাজনৈতিক অর্থে এজেন্ডা প্রণয়নের নৈতিক কর্তৃত্ব আর নেই।

চীনের উত্থান মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের কৌশলের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো এশিয়ায় বেইজিংয়ের একদলীয় শাসনের বিপরীতে মুক্ত ও স্বাধীন গণতন্ত্রের পক্ষে ফেরি করা। তবু গণতন্ত্রের ফেরিওয়ালার মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডের মতো দেশে প্রভাব হারিয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শাসনামলে। যার নির্বাচনে হারের ফলে মার্কিন কংগ্রেস ভবনে ভয়াবহ হামলা হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনী নিপীড়ন সমর্থন করে উৎখাত হওয়া মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি’র গণতন্ত্রের প্রতীক বড় ধাক্কা খেয়েছে। তবু এখন মার্কিন কংগ্রেসের গুরুত্বপূর্ণ মিত্ররা রয়েছে। দলের অপর নেতাদের সঙ্গে বন্দি হওয়া সু চি দেশটির ৫ কোটি ৫০ লাখ জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ‘সামরিক স্বৈরশাসনের’ বিরোধিতা করার জন্য।   

এখন ব্যাপক জনগণকে ক্ষতিগ্রস্ত না করে মিয়ানমারের জেনারেলদের শাস্তি দেওয়ার ক্ষেত্রে উভয় সংকটে পড়েছেন জো বাইডেন। দেশটি নব্বইয়ের দশকে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর নিষেধাজ্ঞায় ছিল। হোয়াইট হাউজ এরইমধ্যে হুমকি দিয়েছে আগের অবস্থায় ফিরে না গেলে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবে। এছাড়া পদক্ষেপ নিতে আরও চাপে পড়বে মার্কিন প্রশাসন। সিনেট ফরেন রিলেশন্স কমিটির সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর বব মেন্ডেজ সামরিক নেতাদের বিরুদ্ধে কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছেন।

সামরিক অভ্যুত্থান নিয়ে চীনের প্রতিক্রিয়া ছিল নীরব। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন মিয়ানমারকে বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশী হিসেবে উল্লেখ করে সব পক্ষকে যথাযথভাবে পার্থক্য ঘুচানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

গত বছরের শেষ পর্যন্ত চীন ছিল মিয়ানমারের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিনিয়োগকারী। দেশটির এক-তৃতীয়াংশ বাণিজ্যও বেইজিংয়ের সঙ্গে। যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় তা দশগুণ বেশি। এরপরও চীন সু চি’র সমর্থকদের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া এড়ানোর সতর্ক চেষ্টা করবে। গত মাসে সর্বশেষ সফরে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং সু চি’র সঙ্গে বৈঠক করেন এবং আলোচনা করেন কীভাবে ভারত মহাসাগরে বিভিন্ন বিনিয়োগ প্রকল্পে সহযোগিতা করা যায়।

স্টিমসন সেন্টারের চায়না প্রোগ্রামের পরিচালক ইয়ুন সুন বলেন, চীনাদের জন্য বার্মার (মিয়ানমার) রাজনীতি ভঙ্গুর ও বড় ধরনের অনিশ্চয়তায় ভরা। চীন আগেও ভুগেছে।

অপর এশীয় দেশগুলোও নিজেদের অবস্থান পুনর্বিবেচনা করবে। আর যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিয়ানমারকে নিন্দা জানাতে যুক্তরাষ্ট্রের পাশে অবস্থান নিয়েছে। সামরিক শাসন থাকাকালেও বেশিরভাগ এশীয় দেশ মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বজায় রেখেছে। সম্প্রতি জাপান ও কয়েকটি দেশ পণ্য উৎপাদনে থাইল্যান্ডের বিকল্প হিসেবে নেপিদোতে বিনিয়োগ করছে।

প্রায় এক দশক আগে ক্ষমতা ছাড়লেও দেশ পরিচালনা কর্তৃত্ব ধরে রাখে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। সোমবার সেনাবাহিনী বলেছে, ক্ষমতা দখল সংবিধান সম্মত। যাতে বলা হয়েছে, জরুরি প্রয়োজনে জেনারেলরা ক্ষমতা গ্রহণ করতে পারবে।

/এএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ৫ ফিলিস্তিনি নিহত

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩১

দখলকৃত পশ্চিম তীরে অভিযান চালিয়ে ৫ ফিলিস্তিনিকে গুলি করে হত্যা করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। রবিবার রামাল্লাহ এবং জেনিন শহরের কাছে পাঁচটি আলাদা স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ইসরায়েল।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর দাবি, ফিলিস্তিনি নিহতের জবাবে গাজা উপত্যকা থেকে রকেট হামলার পরিকল্পনা করছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস।

খবরে বলা হয়েছে, তিন ফিলিস্তিনি নিহত হন কাফর বিদু এলাকায়। তাদের মরদেহ আটকে রেখেছে ইসরায়েলি বাহিনী। বাকিজনকে বুরকিনে হত্যা করা হলেও তাকে ইতোমধ্যে দাফন করা হয়েছে।

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে যাওয়ার পথে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেন্নেট দাবি করেন, ইসরায়েলি বাহিনী পশ্চিম তীরে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছে। তারা রকেট হামলা চালানোর চেষ্টা করছিল। এ বিষয়ে এখনও হামাসের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

/এলকে/

সম্পর্কিত

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

ইয়েমেনে তুমুল লড়াইয়ে সরকারি বাহিনী ও হুথির ১৪০ যোদ্ধা নিহত

ইয়েমেনে তুমুল লড়াইয়ে সরকারি বাহিনী ও হুথির ১৪০ যোদ্ধা নিহত

বর্ণবাদবিরোধী সম্মেলনে জায়নবাদকে নিশ্চিহ্নের অঙ্গীকার ইরানের

বর্ণবাদবিরোধী সম্মেলনে জায়নবাদকে নিশ্চিহ্নের অঙ্গীকার ইরানের

আফগানিস্তানের দরজায় দুর্ভিক্ষ: জাতিসংঘ

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩৯

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানে দুর্ভিক্ষ ‘আসন্ন’ উল্লেখ করে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। করোনাভাইরাস এবং শীতকাল পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলবে বলে উদ্বেগ জানিয়েছে জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপি)।

সংস্থাটির পরিচালক নাটালিয়া কানেম বলেন, তালেবান ক্ষমতায় আসায় পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। বিশেষ করে সামনের শীতে দুর্ভিক্ষ মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে। নিউ ইয়র্ক থেকে ফরাসি সংবাদমাধ্যম এএফপিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি আশঙ্কা করেন, আফগান জনগণের তিন ভাগের এক ভাগ লোক দুর্ভিক্ষের মুখে পড়বে। যার সংখ্যায় প্রায় ৩৩ লাখ মানুষ। 

আফগানিস্তানের বর্তমান স্বাস্থ্য সেবা নিয়েও বেশ উদ্বেগ প্রকাশ কানেম। বলেন, 'সামনের দিনগুলোতে দেশটিতে কীভাবে খাদ্যের যোগান আসবে তার নিশ্চিয়তা নেই। ইতোমধ্যে নারী ও কিশোরীরা নানা সমস্যা ভুগছেন। আফগানিস্তানে প্রসবের সময় এবং গর্ভাবস্থায় মৃত্যুর হার অনেক বেড়ে গেছে’। এ অবস্থায় আফগান জনগণের জরুরিভিত্তিতে সাহায্যের প্রয়োজন মনে করেন জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের এই পরিচালক।

গত ১৫ আগস্ট আশরাফ গণি সরকারের পতন ঘটিয়ে ক্ষমতা দখল করে তালেবান গোষ্ঠী। এরপর থেকেই আফগানিস্তানে সংকট বাড়ছে।

/এলকে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫০
আফগানিস্তানের দরজায় দুর্ভিক্ষ: জাতিসংঘ
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২৫
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:২৯
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১৮

সম্পর্কিত

তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি আলোচনার টেবিলে নেই: রাশিয়া

তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি আলোচনার টেবিলে নেই: রাশিয়া

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে ২০ বছরে পাঁচ খুন

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৫১

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে গত ২০ বছরে পরিবারের পাঁচ সদস্যকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে লীলু ত্যাগী নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। ভারতের উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদে এমন নৃশংস ঘটনায় তাকে আটক করেছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে সে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করেন তিনি।

পুলিশ জানিয়েছে, গত ১৫ আগস্ট ব্রিজেশ ত্যাগী নামের এক ব্যক্তি থানায় অভিযোগ করেন, এক সপ্তাহ ধরে তার ছেলে রেশুর খোঁজ মিলছে না। ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে সম্পত্তি নিয়ে ব্রিজেশের সঙ্গে বিবাদ চলছে তার ছোট ভাই লীলুর। পরে মুরাদনগর থেকে গত বুধবার আটক করা হয় লীলুকে।

পুলিশের তথ্যমতে, জিজ্ঞাসাবাদে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করেছে অভিযুক্ত লীলু। সে জানায়, ভাইপোকে অপহরণ করে তার পর তাকে বিষ খাইয়ে খুন করে খালে ফেলে দেয়।

পুলিশের সামনে এছাড়াও চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি দেয় লীলু। সে জানায় ২০ বছর আগে ২০০১ সালে প্রথমে দাদা সুধীর ত্যাগীকে বিষ খাইয়ে খুন করে। তার কয়েক মাস পরে সুধীরের আট বছর বয়সী মেয়ে পায়েলকেও একই ভাবে খুন করে সে। জোড়া খুনের তিন বছর বাদে সুধীরের বড় মেয়ে ১৬ বছর বয়সি পারুলকে খুন করে লীলু। এখানেই সে থামেনি। ২০১২ সালে ব্রিজেশের আর এক ছেলে নিশুকেও সে খুন করে।

জানা গেছে, গাজিয়াবাদের একটি জমি রয়েছে যার মূল্য পাঁচ কোটি টাকা। সেই জমি হাতিয়ে নেওয়ার জন্যই একের পর এক খুন করেছে লীলু। লীলুর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনায় লীলুকে সাহায্য করার অভিযোগে আরও চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সূত্র: দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, আনন্দবাজার

/এলকে/

সম্পর্কিত

সন্ধ্যায় ভারতীয় উপকূলে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

সন্ধ্যায় ভারতীয় উপকূলে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

জার্মানিতে সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১৭

জার্মানির ২০তম জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। নতুন চ্যান্সেলর পেতে স্থানীয় সময় সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোট গ্রহণ শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টায়। ১৬টি অঙ্গরাজ্যে একযোগে চলছে ভোটগ্রহণ। এরমধ্যে দিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছরের আঙ্গেলা ম্যার্কেল-এর শাসনামলের পর নতুন চ্যান্সেলর পেতে যাচ্ছে জার্মানরা। নির্বাচনকে কেন্দ্র দেশজুড়ে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। 

প্রার্থীরা নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন জনগণকে

করোনা মহামারির মধ্যে নির্বাচন আয়োজনের ফলে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই নিজের পছন্দের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থীকে ভোট দিচ্ছেন সাধারণ মানুষ। যেকোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে জার্মানিজুড়ে নেওয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

এবারের জাতীয় নির্বাচনে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী চ্যান্সেলর পদে লড়ছেন না অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল। তার দল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) থেকে লড়ছেন দলটির বর্তমান চেয়ারম্যান আরমিন লাশেট। সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি) থেকে চ্যান্সেলর পদে লড়ছেন জার্মানির ভাইস চ্যান্সেলর ও অর্থমন্ত্রী ওলাফ শলৎস। জনমত জরিপে এখন পর্যন্ত এগিয়ে আছেন তিনি। আর পরিবেশবাদী দল গ্রিন পার্টি থেকে নির্বাচনে অংশ লড়ছেন আনালেনা বেয়ারবক।

এবারের জাতীয় নির্বাচনে চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী ল্যাশেট-এর প্রতি পূর্ণ সমর্থনের কথা জানান দিয়েছেন ম্যার্কেল। দুটি শেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, সিডিইউ এবং সিএসইউ থেকে ২৬ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে স্যোশাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি)। ভোট শেষে আগামী সোমবারের মধ্যে কিছু ফল পাওয়া যেতে পারে।

এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ৬ কোটি ৪০ লাখ। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সবাই বুথে এসে সরাসরি ভোট দেবেন না। মেইলের মাধ্যমে অনেকেই নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়া সুযোগ থাকছে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

জার্মানির নির্বাচন: চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের উত্তরসূরি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কারা

জার্মানির নির্বাচন: চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের উত্তরসূরি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কারা

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

'সতর্ক বার্তা', পারমাণবিক সাবমেরিন ইস্যুতে ফ্রান্সের পাশে জার্মানি

'সতর্ক বার্তা', পারমাণবিক সাবমেরিন ইস্যুতে ফ্রান্সের পাশে জার্মানি

সন্ধ্যায় ভারতীয় উপকূলে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৮

সন্ধ্যায় ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ, উড়িষ্যা ও কালিঙ্গপত্তনামে আঘাত হানতে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানার সময় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৯৫ কিলোমিটার। রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় আবহাওয়া দফতর।

আবহাওয়া দফতরের সবশেষ তথ্যমতে, ঘূর্ণিঝড়টি উড়িষ্যার গোপালপুর থেকে প্রায় ২৭০ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণপূর্বে এবং অন্ধ্রপ্রদেশের কলিঙ্গানাপত্তম থেকে ৩৩০ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থান করছে। 

ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় এবং উদ্ধারকাজ চালাতে উড়িষ্যা এবং অন্ধ্রপ্রদেশে কয়েকভাগে মোতায়েন করা হয়েছে জরুরি বিভাগের কর্মীদের। এরমধ্যে উপকূলের ট্রেন পরিষেবা বাতিল করেছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে গুলাবের প্রভাবে গঙ্গা নদীর তীরবর্তী পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলোতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। বেশি প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরে। কলকাতাতে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাংলাদেশের সমুদ্রবন্দর ও নদীবন্দরে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ জন্য সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত এবং নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর সর্তকতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। একই কারণে ঢাকাসহ সারা দেশেই মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে ২০ বছরে পাঁচ খুন

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে ২০ বছরে পাঁচ খুন

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

তালেবানের রাজনৈতিক এজেন্ডা সম্পর্কে যা জানা গেলো

তালেবানের রাজনৈতিক এজেন্ডা সম্পর্কে যা জানা গেলো

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

হুয়াওয়ের নির্বাহীর মুক্তির বদলে দুই কানাডিয়ানকে ছেড়ে দিলো চীন

হুয়াওয়ের নির্বাহীর মুক্তির বদলে দুই কানাডিয়ানকে ছেড়ে দিলো চীন

সর্বশেষ

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

সাংবাদিক নির্যাতনডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

ইভ্যালির প্রতারণা বোঝাই যায়নি: বাণিজ্যমন্ত্রী

ইভ্যালির প্রতারণা বোঝাই যায়নি: বাণিজ্যমন্ত্রী

পদ্মায় কম থাকলেও বাজার ভরে গেছে ‘পদ্মার ইলিশে’

পদ্মায় কম থাকলেও বাজার ভরে গেছে ‘পদ্মার ইলিশে’

এবার মিউজিক অ্যাওয়ার্ড চালু করছে আরটিভি

এবার মিউজিক অ্যাওয়ার্ড চালু করছে আরটিভি

বিদেশে অপ্রচারকারীর দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে: শিক্ষা উপমন্ত্রী

বিদেশে অপ্রচারকারীর দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে: শিক্ষা উপমন্ত্রী

© 2021 Bangla Tribune