X
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

মমি শোভাযাত্রায় ফিরছেন মিসরের প্রাচীন রাজা-রানিরা

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২১, ২২:৩১

প্রাচীন মিসরীয় শাসকদের একটি অভাবনীয় ও ঐতিহাসিক শোভাযাত্রা রাজধানী কায়রোতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, শোভযাত্রা দেখতে কায়রোর রাজপথে শনিবার জনতার ঢল নামতে পারে। জাঁকজমকপূর্ণ ও ব্যয়বহুল এই শোভাযাত্রায় অংশ নেবেন কয়েক হাজার বছর আগের ২২ জন শাসক। তাদের মধ্যে ১৮ জন রাজা ও চারজন রানি রয়েছেন। সাজানো গোছানো গাড়িতে করে এসব প্রাচীন শাসকের মমি নিয়ে যাওয়া হবে তাদের নতুন ঠিকানায়। রাজা রানিদের এই শোভাযাত্রা অনলাইনেও সরাসরি সম্প্রচার করা হবে।

খবরে বলা হয়েছে, এতদিন তারা ছিলেন মিসরীয় জাদুঘরে। তাদেরকে রাখা হবে পাঁচ কিলোমিটার দূরে মিসরীয় সভ্যতার ওপর নির্মিত নতুন একটি জাদুঘরে, যার নাম ন্যাশনাল মিউজিয়াম অব ইজিপশিয়ান সিভিলাইজেশন। এখন থেকে তারা সেখানেই থাকবেন। শোভাযাত্রা করে এই দূরত্ব পাড়ি দেবেন রাজা রানিরা। এতে খরচ হবে কয়েক মিলিয়ন ডলার।

রাজ পরিবারের রক্ত ও মর্যাদার কথা বিবেচনা করে এই শোভাযাত্রা উপলক্ষে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। মিসরে এসব মমিকে বিবেচনা করা হয় জাতীয় সম্পদ হিসেবে। শোভাযাত্রায় এই সব রাজা রানির কাকে কোথায় রাখা হবে সেটা নির্ভর করবে তাদের শাসনকালের ওপর। বলা হচ্ছে শাসনকালের ক্রম অনুসারে তাদের মমি নিয়ে যাওয়া হবে।

এসব রাজা রানির মধ্যে রয়েছেন সপ্তদশ শতাব্দীর রাজা দ্বিতীয় সেকেনেনরে থেকে শুরু করে খৃস্টপূর্ব দ্বাদশ শতাব্দীর রাজা নবম র‍্যামসেসও। বলা হচ্ছে, শোভাযাত্রায় প্রধান আকর্ষণ রাজা দ্বিতীয় র‍্যামসেস। তাকে নিয়েই মানুষের বেশি আগ্রহ। তিনি ৬৭ বছর শাসন করেছেন এবং নিউ কিংডমে তিনিই সবচেয়ে জনপ্রিয় ফারাও। বলা হয় যে তিনিই প্রথম কোনও শান্তি চুক্তিতে সই করেছিলেন। আরেকজন রানি হাটসেপসুট। তার সময়ে কোনও নারীর ফারাও হওয়ার প্রথা না থাকলেও তিনি শাসক হয়েছিলেন।

মমি-বাহী প্রত্যেকটি গাড়ি সুন্দর করে সাজানো হবে। এছাড়াও রাস্তায় চলার পথে এগুলো যাতে ঝাঁকুনি না খায় সেজন্য বিশেষ কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া যে পথে মমিগুলো নিয়ে যাওয়া হবে সেগুলোও মসৃণ করে তোলার জন্য মেরামত করা হয়েছে। তাদেরকে ঘিরে থাকবে মোটরগাড়ির বহর ও ঘোড়ায় টানা রথের রেপ্লিকা।

ফারাওদের মৃতদেহ মমি করে রাখার পদ্ধতি আবিষ্কৃত হয়েছে প্রাচীন মিসরে। কিন্তু এই শোভাযাত্রার সময় এসব রাখা হবে নাইট্রোজেন-ভর্তি বিশেষ কিছু বাক্সর ভেতরে। বাইরের আবহাওয়া থেকে মমিগুলোকে রক্ষার জন্যই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

কায়রোতে আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়ে মিসর-বিদ্যার অধ্যাপক সালিমা ইকরাম বলেন, মমিগুলো যাতে অক্ষত, স্থিতিশীল থাকে এবং সেগুলোর কোনও ক্ষতি না হয় সেজন্য এগুলোকে নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে রাখার সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পর্যটন ও প্রাচীনকালের নিদর্শন সংক্রান্ত মন্ত্রণালয়।

এসব মমিকে ১৮৮১ সালে থেকে ১৮৯৮ সালের মধ্যে প্রাচীন মিসরের রাজধানী থিবস থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। আধুনিককালে এই জায়গাটি লাক্সর নামে পরিচিত।

ড. ইকরাম বলেন, এর আগেও এসব মমিকে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় স্থানান্তর করা হয়েছিল। লাক্সর থেকে রাজধানী কায়রোতে আনা হয়েছে নীল নদ দিয়ে নৌকায় করে। কিছু মমিকে আনা হয়েছে ট্রেনের প্রথম শ্রেণির বগিতে।

কর্মকর্তারা আশা করছেন, নতুন জাদুঘরে স্থানান্তর করার পর এগুলো সারা বিশ্ব থেকে প্রচুর পর্যটক আকর্ষণ করবে। এর ফলে চাঙ্গা হয়ে উঠবে পর্যটন শিল্প যা মিসরের রাজস্ব আয়ের অন্যতম প্রধান উৎস।

এর আগে রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং সাম্প্রতিককালে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এই শিল্পটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এক বছর আগে মিসরে করোনাভাইরাসের বড় ধরনের সংক্রমণ দেখা গিয়েছিল। কিন্তু এর পর ধীরে ধীরে সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঘটনা কমে আসার পর জনসমাগমের ওপর জারি করা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

/এএ/

সম্পর্কিত

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৯

দেশ পরিচালনায় আফগানিস্তানে ১৯৬৪ সালে গৃহীত সংবিধান সাময়িক সময়ের জন্য গ্রহণ করতে যাচ্ছে তালেবান। মঙ্গলবার তালেবানের ভারপ্রাপ্ত আইনমন্ত্রী এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছেন। ওই সংবিধানে নারীদের ভোটের অধিকার দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু ভিন্নমতধারীদের নির্মূল করার বলা হয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এখবর জানিয়েছে।

তালেবানের আইনমন্ত্রী জানান, আফগানিস্তানের স্বল্পস্থায়ী গণতন্ত্রের স্বর্ণযুগে যে সংবিধান অনুসারে দেশ পরিচালনা হয়েছে তা ফিরিয়ে আনা হবে। কিন্তু তা হবে স্বল্প মেয়াদে এবং সংশোধন সহকারে।

মৌলভী আবদুল হাকিম শারায়ি বলেন, ইসলামি আমিরাত সাবেক বাদশাহ মোহাম্মদ জহির শাহ-এর সময়কালের সংবিধান সাময়িক সময়ের জন্য গ্রহণ করবে।

তিনি আরও বলেন, কিন্তু শরিয়াহ আইন ও ইসলামি আমিরাতের নীতি বিরোধী কিছু থাকলে তা বর্জন করা হবে।

প্রায় ছয় দশক আগে, আফগানিস্তানে পরাশক্তিদের হস্তক্ষেপের পূর্বে আফগানিস্তানে অল্প কিছু সময়ের জন্য সাংবিধানিক রাজতন্ত্র ছিল। তখন ক্ষমতায় ছিলেন বাদশাহ মোহাম্মদ জহির শাহ।

১৯৬৩ সালে ক্ষমতায় আসার এক বছর পর এই সংবিধান অনুমোদন করেন জহির শাহ।  এর ফলে ১৯৭৩ সালে উৎখাত হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রায় এক দশক দেশটিতে সংসদীয় গণতন্ত্র চালু ছিল।

১৯৬৪ সালের সংবিধানে প্রথমবারের মতো নারীদের ভোটের অধিকার দেওয়া হয়েছিল এবং রাজনীতিতে তাদের অংশগ্রহণের সুযোগ তৈরি হয়। ধারণা করা হচ্ছে, নারী অধিকারের এই অংশটুকু তালেবানের কট্টরপন্থী মতের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হতে পারে।

আশির দশকে সোভিয়েত দখলদারিত্বের পর আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ে। পরে আসে তালেবানের কঠোর শাসন। ২০০১ সালে মার্কিন নেতৃত্বাধীন অভিযানের পর দেশটিতে নতুন সংবিধান প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু এতে আগের রাজতন্ত্র ফিরিয়ে আনা হয়নি। ২০০৪ সালে গৃহীত সংবিধানে প্রেসিডেন্ট শাসন ও নারীদের সমান অধিকার রাখা হয়েছিল।

/এএ/

সম্পর্কিত

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:২৬

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন হুঁশিয়ারি জানিয়ে বলেছেন, আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ তালেবান নেওয়ার পর পাকিস্তানও জঙ্গিদের হাতে চলে যাওয়ার হুমকি ও আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এর অর্থ হলো তালেবান হয়ত ১৫০টি পারমাণবিক অস্ত্রের দখল পেতে পারে। রবিবার এক সাক্ষাৎকারে বোল্টন এই আশঙ্কার কথা জানান।

সাক্ষাৎকারে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন জন বোল্টন। তিনি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শাসনামলে ২০১৮ সালের এপ্রিল থেকে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার দায়িত্বে ছিলেন।

বোল্টন বলেন, পাকিস্তানের ওপর চীনের প্রভাব এরইমধ্যে অনেক, এটি আরও বাড়বে এবং যা ভারতকে বেশি চাপে ফেলবে। বিশ্বের ওই অংশে এটি অনেক বড় ঘটনা।

বাইডেন বিশ্ব দরবারে যুক্তরাষ্ট্রকে বিব্রত করেছেন বলে দাবি করেছেন এই সাবেক উপদেষ্টা। তার মতে, এখন মার্কিন মিত্ররা ভাবছে, নিজের প্রশাসনের পররাষ্ট্রনীতিতে বাইডেনের কোনও নিয়ন্ত্রণ আছে কিনা।

তবে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বাইডেনের পারমাণবিক সাবমেরিন চুক্তি প্রশংসা করেছেন তিনি। তার কথায়, ভারত মহাসাগর ও প্রশান্ত মহাসাগরে এটি আমাদের বড় অগ্রগতি। এটি চীনে প্রতি স্পষ্ট বার্তা যে, আমরা তাদের যা খুশি করতে দেব না এবং এই বিষয়ে আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

অবশ্য চীনের দ্বারা সৃষ্ট হুমকি মোকাবিলায় বাইডেন প্রশাসন যথেষ্ট মনোযোগী না বলে মনে করার কথা উল্লেখ করেছেন তিনি। সূত্র: নিউ ইয়র্ক পোস্ট

/এএ/

সম্পর্কিত

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

দিল্লির দাঙ্গা পূর্ব পরিকল্পিত: হাই কোর্ট

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪৮

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে দিল্লিতে ঘটে যাওয়া দাঙ্গা কোনও আকস্মিক ঘটনার ফল নয়, পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই তা ঘটানো হয়েছে বলে মনে করে আদালত। সোমবার দাঙ্গায় অভিযুক্ত এক ব্যক্তির জামিন আবেদন বাতিলের সময় দিল্লি হাই কোর্ট এই পর্যবেক্ষণ দিয়েছে।

৫০ জনেরও বেশি নিহত ও দুই শতাধিক মানুষ আহত হওয়ার দাঙ্গা প্রসঙ্গে আদালত বলেছে, ‘২০২০ সালের ফেব্রুয়ারির দাঙ্গা একটি ষড়যন্ত্র, পরিকল্পিত এবং ঘটানো। আকস্মিক কোনও ঘটনা থেকে এটা হয়নি।’

আদালত বলেছে, প্রসিকিউশনের উপস্থাপন করা ভিডিও ফুটেজ থেকে স্পষ্ট যে বিক্ষোভকারীদের আচরণে প্রমাণ হয় স্বাভাবিক জীবন যাত্রা এবং সরকারি কাজে বিঘ্ন ঘটাতেই দাঙ্গার পরিকল্পনা করা হয়।

বিচারপতি সুব্রামনিয়াম প্রসাদ বলেন, ‘সংঘবদ্ধভাবে সিসিটিভি ক্যামেরার সংযোগ বিচ্ছিন্ন এবং ধ্বংস করা থেকে এটাও প্রমাণিত হয় যে শহরের আইনশৃঙ্খলায় বিঘ্ন ঘটাতেই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ষড়যন্ত্র করা হয়।’ বিচারপতি বলেন,  দাঙ্গার সময় সাধারণ মানুষের উপর লাঠি, ব্যাট, লোহার রড দিয়ে হামলা করা হয়। এর থেকেই প্রমাণিত যে শহরের আইন-শৃঙ্খলায় বাধা দেওয়ার জন্যই এই ঘটনা ঘটানো হয়েছিল।

দিল্লির দাঙ্গায় ৫০ জনের বেশি মানুষ প্রাণ হারান। আহত হন ২০০ জনের বেশি। এই ঘটনায় গত বছর ডিসেম্বরে মহম্মদ ইব্রাহিম নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। দিল্লি পুলিশের হেড কনস্টেবল রতন লালকে খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত তিনি। আদালতে তিনি দাবি করেন পরিবারের সুরক্ষার জন্যই অস্ত্র রেখেছিলেন। অবশ্য তাকে জামিন দেয়নি আদালত। যদিও আর এক ধৃত মহম্মদ সেলিম খানকে জামিন দিয়েছে দিল্লি হাই কোর্ট।

/জেজে/

সম্পর্কিত

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

ভবানিপুরের উপনির্বাচন চলবে: উচ্চ আদালত

ভবানিপুরের উপনির্বাচন চলবে: উচ্চ আদালত

ভবানিপুরে আক্রান্ত বিজেপির দিলিপ ঘোষ, পাল্টা অভিযোগ তৃণমূলের

ভবানিপুরে আক্রান্ত বিজেপির দিলিপ ঘোষ, পাল্টা অভিযোগ তৃণমূলের

কৃষকদের ধর্মঘটে অচল ভারত

কৃষকদের ধর্মঘটে অচল ভারত

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:২৪

মাত্র কয়েকদিন আগেই পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হওয়া নভোজিৎ সিং সিধু পদত্যাগ করেছেন। মঙ্গলবার তিনি কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর কাছে পদত্যাগপত্র পাঠান। এতে তিনি উল্লেখ করেছেন, সভাপতির পদ হতে পদত্যাগ করলেও তিনি কংগ্রেসে কাজ করবেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস এখবর জানিয়েছে।

পদত্যাগপত্রে সিধু লিখেছেন, আমি পাঞ্জাব কংগ্রেসের ভালো চাই। রাজ্যে দলের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমি কোনও আপস  করতে পারব না। তাই আমি সব ভেবেচিন্তে কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি কংগ্রেসের জন্যেই কাজ করে যাব।

তবে তিনি কোন ধরনের বা কোন আপোসের কথা বলছেন তা চিঠিতে উল্লেখ করেননি।

সম্প্রতি পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব হতে পদত্যাগ করেছেন ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। নতুন মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন চরণজিৎ সিং চান্নি। সিধুর ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাতে হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, অমরিন্দর সিং পদত্যাগ করার পর মুখ্যমন্ত্রী না করায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সিধু।

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতি হিসেবে সিধুর সময়কাল ছিল খুব সংক্ষিপ্ত। ২৩ জুলাই তাকে এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। অমরিন্দর সিংয়ের তার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ রয়েছে।

 

 

 

 

/এএ/

সম্পর্কিত

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

দিল্লির দাঙ্গা পূর্ব পরিকল্পিত: হাই কোর্ট

দিল্লির দাঙ্গা পূর্ব পরিকল্পিত: হাই কোর্ট

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

পাকিস্তানে এক পিয়ন পদে ১৫ লাখ মানুষের আবেদন

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১২

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দেশটিতে বেকারতহার সাড়ে ছয় শতাংশ দাবি করলেও পরিসংখ্যান ভিন্ন কথা বলছে। পাকিস্তান ইন্সটিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট ইকনোমিক্স (পিআইডিই)-এর তথ্য অনুসারে, দেশটির বেকারত্বের হার ইমরানের দাবির চেয়ে বেশি, ১৬ শতাংশ। বর্তমান সময়ে শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর অন্তত ২৪ শতাংশ বেকার।

পাকিস্তানে বেকারত্ব যে চরম আকার ধারণ করেছে সেটির চিত্র ফুটে উঠেছে ডন পত্রিকার একটি প্রতিবেদনে। সিনেটের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটিকে দেওয়া ব্রিফিংয়ে ইন্সটিটিউটটি উল্লেখ করেছে, আন্ডারগ্র্যাজুয়েট ও গ্র্যাজুয়েটদের ৪০ শতাংশ বেকার। অনেকে ভালো চাকরি না পেয়েছে নিজেদের এমফিল শিক্ষায় নিয়োজিত করছে।

সিনেট কমিটিকে জানানো হয়েছে, সম্প্রতি পাকিস্তানের একটি হাই কোর্টে একজন পিয়ন নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। ওই শূন্যপদে নিয়োগ পাওয়ার জন্য আবেদন করেছেন অন্তত ১৫ লাখ মানুষ। পিয়ন পদে আবেদনকারীদের মধ্যে রয়েছেন এমফিল ডিগ্রিধারীরা।

পিআইডিই কর্মকর্তারা জানান, দেশের বেকারত্ব নিয়ে সরকারি পর্যায়ে কোনও গবেষণা হয়নি। যা হয়েছে তা বিদেশ থেকে। অনেক গবেষণা ইন্সটিটিউট সক্রিয় থাকলেও এগুলোর গবেষণার লক্ষ্য অর্জিত হয়নি।

/এএ/

সম্পর্কিত

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

পাঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতির পদ থেকে সিধুর পদত্যাগ

ধর্ম অবমাননায় পাকিস্তানে নারী প্রিন্সিপালের মৃত্যুদণ্ড

ধর্ম অবমাননায় পাকিস্তানে নারী প্রিন্সিপালের মৃত্যুদণ্ড

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত হলেন ‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরো’

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত হলেন ‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরো’

গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন জোহানেসবার্গের নতুন মেয়র

গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন জোহানেসবার্গের নতুন মেয়র

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা, বড় সাফল্য বলছে ফ্রান্স

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা করেছে ফ্রান্স

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

গিনিতে অভ্যুত্থান চেষ্টা: সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের দাবি

গিনিতে ক্ষমতা দখলের দাবি সেনাদের

গিনির রাজধানীতে প্রচণ্ড গোলাগুলি

গিনির রাজধানীতে প্রচণ্ড গোলাগুলি

সর্বশেষ

চামড়া ব্যবসায়ীদের ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো

চামড়া ব্যবসায়ীদের ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো

রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগ সহ-সভাপতিকে ছুরিকাঘাত

রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগ সহ-সভাপতিকে ছুরিকাঘাত

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া স্থগিত

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া স্থগিত

শ্রীলঙ্কা-আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচ কবে কখন

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ওয়ার্ম-আপশ্রীলঙ্কা-আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচ কবে কখন

প্রধানমন্ত্রী জীবনকে উৎসর্গ করেছেন মানুষের কল্যাণে: ধর্ম-প্রতিমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী জীবনকে উৎসর্গ করেছেন মানুষের কল্যাণে: ধর্ম-প্রতিমন্ত্রী

© 2021 Bangla Tribune