X
মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

রেসিপি : ইফতারে হয়ে যাক ভেজিটেবল গ্রিল স্যান্ডউইচ

আপডেট : ০১ মে ২০২১, ১৮:২১

স্বাস্থ্যকর খাবারের কথা বললে সবার আগে বাদ পড়ে ‘বাইরের খাবার’ কিংবা যাবতীয় ফাস্টফুড। সেইসঙ্গে চলে আসে একগাদা সবজির নামও। তবে দুটোর ফিউশন ঘটিয়েও বানিয়ে ফেলতে পারেন স্বাস্থ্যকর কিছু। ভেজিটেবল গ্রিল স্যান্ডউইচই হতে পারে সেটার মোক্ষম উদাহরণ।

 

যা যা লাগবে

২ স্লাইস বাদামি পাউরুটি

পরিমাণমতো পুদিনা পাতা

একটি ছোট টমেটো

একটি ছোট আধাসেদ্ধ আলু

১/৪ চা চামচ চাট মসলা

১/৪ কাপ পানি

২ টেবিল চামচ ধনিয়া পাতা কুচি

দুটো কাঁচা মরিচ

একটি ছোট শসা

একটি ছোট পেঁয়াজ

২ টেবিল চামচ মাখন

পরিমাণমতো শেডার চিজ (না হলেও চলবে)

 

যেভাবে বানাবেন

টমেটো ও শসাকে গোল গোল করে কেটে ফেলুন। ধনিয়া পাতা, পুদিনা পাতা, কাঁচা মরিচ ও লবণ ব্লেন্ড করে চাটনি তৈরি করে ফেলুন। তবে পানি দেবেন সাবধানে। পেস্টটা যেন ঘন হয়।

পাউরুটিকে ট্রিম করে তাতে মাখন মেখে নিন। এরপর একটি টুকরোর ওপর মেখে দিন সবুজ চাটনি। এরপর একে একে শসা, টমেটো ও পেঁয়াজের টুকরো বসিয়ে দিন। আধাসেদ্ধ আলুটিকে গোল করে কেটে বসিয়ে দিন। সবশেষে লবণ ও চাট মসলা ছিটিয়ে দিন। চিজ দিতে চাইলে গ্রেট করে ছড়িয়ে দিন।

পাউরুটির বাকি স্লাইসটা বসিয়ে গ্রিল স্যান্ডউইচ মেকারে ২-৩ মিনিট গ্রিল করুন। খাওয়ার আগে চার টুকরো কেটে নিতে পারেন।

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

রেসিপি : পুষ্টিতে ভরা সাউথ-ওয়েস্ট পাস্তা

রেসিপি : পুষ্টিতে ভরা সাউথ-ওয়েস্ট পাস্তা

বোয়াল মাছের কালিয়া

বোয়াল মাছের কালিয়া

ঈদ রেসিপি: একদিন খেলে কিছু হবে না!

ঈদ রেসিপি: একদিন খেলে কিছু হবে না!

নাস্তায় হোক পাস্তা

নাস্তায় হোক পাস্তা

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে ঢাকা রিজেন্সি হোটেল এন্ড রিসোর্ট দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজন করতে যাচ্ছে ‘ঢাকা রিজেন্সি ট্যুরিজম ফেস্ট-২০২১’। ১০ দিন ব্যাপী চলবে এ উৎসব।

হোটেলের গ্রান্ডিওস রেস্তোরাঁয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে উৎসবটি শুরু হতে যাচ্ছে ২৩ সেপ্টেম্বর। চলবে ২ অক্টোবর পর্যন্ত। উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে থাকছে বাংলাদেশের আঞ্চলিক খাবার এবং ৪৪৪৪ টাকায় একটি বুফের মূল্যে তিনটি বুফে ডিনার উপভোগের সুযোগ। একইসঙ্গে থাকছে ৩৪৯৯ টাকায় একটি বুফের মূল্যে দুইটি বুফে ডিনার। এ ছাড়াও রয়েছে ১১,১১১ টাকায় পরিবারসহ ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ এবং বুফে ডিনার উপভোগ করতে ‘ফ্যামিলি স্টে’ অফার। ‘হ্যাপি স্টে’ অফারে শুধু রুম পাওয়া যাবে ৬৬৬৬ টাকায়।

টুরিজম ফেস্ট উপলক্ষে আকর্ষণীয় রুফটপ গার্ডেন রেস্তোরাঁ ‘গ্রিল অন দা স্কাইলাইন’-এ অতিথিদের জন্য থাকছে ১৫ শতাংশ ডিসকাউন্ট এবং রুফটপ-এর সুইমিং পুলে সিঙ্গেল ও কাপলদের জন্য রয়েছে ফ্রেশ জুস ও বিশেষ মূল্যে সেট- লাঞ্চ।

হোটেলটির লয়ালটি প্রোগ্রাম 'ঢাকা রিজেন্সি প্রিমিয়ার ক্লাব' মেম্বাররা পাচ্ছেন সবগুলো আউটলেটে মেম্বারশিপ সুবিধাসহ সকল অফারে অগ্রাধিকার।

বিস্তারিত জানতে: 01713332661

/এফএ/

সম্পর্কিত

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪০

শশব্যস্ত জীবনের সঙ্গে করোনা আর ডেঙ্গু- দুশ্চিন্তাটা যেন লেগেই আছে। কিন্তু এটাকে যদি এড়িয়ে চলতে না পারেন তবে মনের সঙ্গে সঙ্গে শরীরেও দানা বাঁধবে অনেক রোগ। চলুন জেনে নেওয়া যাক, শরীরের কোথায় কেমন ক্ষতি করে দুশ্চিন্তা।

 

স্নায়ুতন্ত্র

অতিরিক্ত দুশ্চিন্তার কারণে আমাদের স্ট্রেস হরমোনগুলো দ্রুত নিঃসৃত হয়। যা আমাদের হার্টবিট ও শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিকের চেয়ে দ্রুত করে। ব্লাড সুগার বাড়িয়ে দেয়, হাত ও পায়ের রক্ত চলাচলও বেড়ে যায়। এর দীর্ঘস্থায়ী নেতিবাচক প্রভাব আপনার শিরা-ধমনি, হৃদযন্ত্র, পেশি এবং অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পড়বে।

 

শ্বাস-প্রশ্বাস

যাদের হাঁপানি বা ফুসফুসের রোগ আছে, তাদের জন্য দুশ্চিন্তা মারাত্মক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। দুশ্চিন্তার কারণে দ্রুত ও জোরে শ্বাস নেওয়ার প্রবণতা দেখা দেয়। আর তাতেই দেখা দেয় কিছু সমস্যা।

 

হৃদযন্ত্র

দুশ্চিন্তা আপনার উচ্চ রক্তচাপ, হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। উচ্চমাত্রার উদ্বেগ স্ট্রেস হরমোনগুলোকে ট্রিগার করে। যা আপনার হৃদস্পন্দন দ্রুত ও হৃৎপিণ্ডে পেশীকে শক্ত করে দেয়। যদি এটি বারবার ঘটে, তবে আপনার রক্তনালীগুলো ফুলে যেতে পারে। যার কারণে ধমনীতে হতে পারে ব্লক।

 

পরিপাকতন্ত্র

দুশ্চিন্তার পেছনেই যদি মস্তিষ্ক বেশি সক্রিয় থাকে, তবে কমে আসতে থাকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। এতে শরীর জীবাণুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে না। অতিমাত্রায় টেনশনের ফলে ফ্লু, হারপিস ও অন্যান্য ভাইরাসজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। একইসঙ্গে এটি আলসার ও কিডনির সমস্যাও তৈরি করে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৭

ইদানিং ধানচাষে যে পরিমাণ কীটনাশক ও রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় তাতে চালও হয়ে গেছে কারসিনোজেন তথা ক্যানসার সৃষ্টিকারী খাবার। আবার জমিতে থাকা আর্সেনিক সহজেই গাছ বেয়ে চলে আসতে পারে ধানে। এতেও আপনার রান্না করা সাদামাটা ভাতটা হয়ে উঠতে পারে প্রাণঘাতী রোগের কারণ। গরম গরম রান্না করা ভাত খেলেও দেখা দিতে পারে নানা ধরনের বিষক্রিয়া, এমনকি ক্যানসারও। ইংল্যান্ডের কুইনস ইউনিভার্সিটি অব বেলফেস্ট ও ক্যালিফোর্নিয়া টিচারস স্টাডির গবেষণায় উঠে এসেছে এমন অনেক তথ্য-প্রমাণ।

গবেষকরা চালে আর্সেনিকের আশঙ্কাই করছেন বেশি। যার কারণে হতে পারে তীব্র পেট ব্যথা, বমি ও ক্যান্সার। এ কারণে গবেষকরা দিয়েছেন কিছু সমাধানও।

কুইনস ইউনিভার্সিটি অব বেলফাস্ট জানালো চালকে আর্সেনিকমুক্ত করার সবচেয়ে ভালো উপায়টা হলো রান্নার আগে সেটাকে সারারাত ভিজিয়ে রাখা। এতেই চালের ৮০ ভাগ আর্সেনিক চলে যায়। সারারাত ভেজানো সম্ভব না হলেও অন্তত ৩-৪ ঘণ্টা ভেজালেও চাল হবে নিরাপদ।

আবার রান্নার সময় এক কাপ চালে ৫ কাপ পানি ব্যবহার করতেও বলেছেন গবেষকরা। রান্না হলে অতিরিক্ত পানি ঝরিয়ে ফেললেও আর্সেনিক দূষণ রোধ করা সম্ভব।

 

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২৭

ভোজনরসিকের কাছে গলির টং-এর দোকানের চায়েরও র‍য়েছে আলাদা কদর। তেমনি অনেকে আছেন যারা লোকাল ফাস্টফুড আইটেম পেলেই বর্তে যান। নগরীতে এমন কিছু ফাস্টফুড শপ আছে, ভোজনরসিকরা যেগুলোকে ভালোবেসে আপন করে নিয়েছেন। দিনে দিনে রেস্তোরাঁগুলো বেড়ে উঠেছে যার যার সিগনেচার স্টাইলে। এমন সব ফুড শপ নিয়ে নিয়মিত আয়োজনে আজ থাকছে পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এর কথা।

ফাস্ট ফুড মানেই তো পিজ্জা, বার্গার, স্যান্ডউইচ, ফ্রাইস, প্ল্যাটারস, টাকোস, স্টেক, নাগেটস। তবে এদের মধ্যে পিজ্জার জনপ্রিয়তা বেশি। এর পরই আছে হরেক পদের বার্গার।

 

পিজ্জাবার্গ

কথা হলো সরকারি রূপনগর মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির সৈকতের সঙ্গে। তার মতে, পৃথিবীতে পিজ্জার চেয়ে সুস্বাদু আর কিছু নেই। আর ঢাকায় পিজ্জা খেতে হলে সে ছুট লাগায় পিজ্জাবার্গ-এ। চলে গেলাম সৈকতের কথা শুনে।

পিজ্জাবার্গের মিরপুর শাখায় গিয়েই দেখলাম নগরীর সব পিজ্জাখেকোদের মেলা বসেছে যেন। নজর কাড়লো একটা বিষয় ছোট-বড় সববয়সী পিজ্জা পছন্দ করা মানুষ দেখে। ইন্টেরিয়রটাও বেশ স্পোর্টি। চোখের জন্য আরামদায়ক করেই সাজানো হয়েছে আলোকসজ্জা। সৈকতের মতো আরও অনেক কলেজপড়ুয়ার দেখা মিললো এখানে এসে।

কথা হলো পিজ্জাবার্গের প্রতিষ্ঠাতা মির মেহেদীর সঙ্গে। মেহেদী জানালেন, ‘ছোটবেলায় প্রচুর পিজ্জা খেতাম। অনেক সময় দাম পড়ে যেত বেশি। পকেটে টান থাকলে তিনজন ভাগ করে খেতাম। তবুও নানান ফ্লেভারের পিজ্জা খেতে চাইতাম। তখন থেকেই ঠিক করি বড় হয়ে পিজ্জার সঙ্গে বাঙালিয়ানা যোগ করে স্বাদে নতুনত্ব আনবো।’

পিজ্জাবার্গের পিজ্জা

অনেক রকম পিজ্জা তৈরি করে পিজ্জাবার্গ। এর মধ্যে আছে সসেজ কারনিভাল, চিজ ফাউন্টেন, মিটি অনিওন, টেন্ডার বিফ, লেয়ার কেক পিজ্জা, ফায়ার বল, ডিপ সি ফ্যান্টাসি, মিট মাসালা, চার স্বাদের মিক্স পিজ্জা, বারবিকিউ মিটি মেশিন পিজ্জাসহ আরও কয়েক পদের পিজ্জা। পিজ্জালাভাররা রীতিমতো ধন্দে পড়ে যাবেন, কোনটা ছেড়ে কোনটা খাবেন।

ঢাকাজুড়ে ৮টি শাখা রয়েছে পিজ্জাবার্গের-ধানমন্ডি, মিরপুর-২, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, উত্তরা, খিলগাঁও, শ্যামলি, বনশ্রী ও ওয়ারিতে। দাম ২৫০ থেকে শুরু করে ৯৩৫ টাকা।

 

ডনমেক

ফাস্টফুড নিয়ে নেটে খানিকটা ঘাঁটাঘাঁটিতে জানা গেলো শহরে এসেছে তুরস্কের ফ্লেভারে নতুন ফুডপ্লেস-ডনমেক। ডনমেক-এ রয়েছে টার্কিশ, জার্মান, অস্ট্রেলিয়ানসহ আরও অনেক । তাদের তুর্কি ডোনার কাবাব ইতোমধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে। রিভিউ দেখে যাওয়া হলো ডনমেক-এ। কথা হলো প্রতিষ্ঠাতা শাফাকাত মোবাশ্বিরের সঙ্গে।

জানালেন, বনানী ১১ নম্বর রোডে অবস্থিত ‘দুরুম-টার্কিশ ডোনারের’ সাফল্যই অনুপ্রেরণা দিয়েছে তাকে। প্রিমিয়াম কোয়ালিটির ডোনার শপ ‘ডনমেক’ প্রতিষ্ঠিত করেছেন সেই অনুপ্রেরণাতেই।

টার্কিশ ভোজনপ্রেমীরাও চাইলে ঘুরে আসতে পারেন ছিমছাম এই রেস্তোরাঁ থেকে। বনানীর ২৭ নম্বর রোডের হাউস নং ৮ (কে ব্লক)-এ গেলেই নাকে আসবে কাবাবের ঘ্রাণ। দাম একেবারে বলা যায় হাতের নাগালেই। ২০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যেই পাবেন জার্মান ডোনার কাবাব, টার্কিশ ডোনার কাবাব র‍্যাপ, হালাল স্ন্যাক প্যাক, গ্রিলড চিজ ডোনার, ডোনার নাচোস, ডোনার রাইস প্লাটার, ডোনার সালাদসহ আরও অনেক কিছু। তবে খাবারের স্বাদ বাড়িয়ে দিতে ভেতরকার পরিবেশ ও কর্মীদের আতিথেয়তাও কিন্তু কম ভূমিকা রাখবে না!

/এফএ/

সম্পর্কিত

বিশ্বজুড়ে পিৎজার যত আজব টপিংস!

বিশ্বজুড়ে পিৎজার যত আজব টপিংস!

ইয়োগায় যা করা যাবে না

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫০

করোনাকালে বাসায় করা ব্যায়ামের তালিকায় ইয়োগা উঠে এসেছে এক নম্বরে। এ সময় অনেকেই শিখেছেন এটি। ইউটিউব দেখে শিখলেও, দেখা গেলো কিছু নিয়মকানুন না জানায় ইয়োগা করতে গিয়ে বড় ধরনের ভুল করে বসছেন কেউ কেউ।

 

শুরুতেই কঠিন নয়

ইয়োগার কিছু আসন আছে বেশ কঠিন। শুরুতেই ওইরকম কোনও আসন চর্চা করতে গেলে ক্ষতিও হতে পারে। হারিয়ে যেতে পারে ইয়োগার আগ্রহটাও। তাই শুরুর দিকে বেছে নিন প্রাণায়ামের মতো সহজ কোনও আসন।

 

আবহাওয়া

খুব গরম বা ঠান্ডার মধ্যে ইয়োগা করতে যাবেন না। বাতাসের বেশি আর্দ্রতাও ইয়োগার জন্য অনুকূল নয়।

 

শ্বাস-প্রশ্বাস

ইয়োগা বা ব্যায়ামের কোনও কোনও পর্যায়ে অনেকেই অবচেতনে দম আটকে রাখেন। এতে অস্বস্তিকর একটা অনুভূতিতে পড়তে হয়। ইয়োগার নিয়ম মেনে শ্বাস-প্রশ্বাস যতটা সম্ভব স্বাভাবিক রাখুন।

 

খাওয়ার পর বারণ

খাওয়া থেকে উঠেই ইয়োগা শুরু করে দেবেন না। ভারী কিছু খেলে কমপক্ষে ২-৩ ঘণ্টা অপেক্ষা করুন।

 

ক্লান্ত শরীরে নয়

ইয়োগাকে অনেকে কম পরিশ্রমের ব্যায়াম মনে করেন, যা ঠিক নয়। ইয়োগাতেও ঘাম ঝরতে পারে। তাই অসুস্থ বা খুব ক্লান্ত থাকলে ইয়োগা করতে যাবেন না।

 

প্রশিক্ষণ নিন

বই বা ভিডিও দেখেই সঙ্গে সঙ্গে ইয়োগা শুরু করবেন না। ভালো একজন প্রশিক্ষক না পেলে অন্তত ইয়োগা জানে এমন কাউকে পার্টনার হিসেবে নিন। কারণ নিয়মে একটু উল্টোপাল্টা হলেই দেখা যাবে মাসল পুল হচ্ছে বা ব্যথায় কাতর হয়ে পড়ছেন।

 

টাইট পোশাক নয়

ইন্টারনেটে ইয়োগার ছবি দেখে আবার একেবারে টাইট ফিটিং পোশাক পরতে যাবেন না। টাইট পোশাক আপনার পাঁজর ও ফুসফুসকে বাধা দেবে। ঠিকমতো শ্বাসও নিতে পারবেন না।

 

গোসল

ইয়োগা শেষে সঙ্গে সঙ্গে শাওয়ারে ঢুকে পড়বেন না। ঘাম শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

 

অন্য ব্যায়াম

ইয়োগার পর ভারী কোনও ব্যায়াম করা ঠিক হবে না। যদি করতেই হয় তবে সেটা ইয়োগার আগে স্বল্প পরিসরে সেরে ফেলতে হবে।

 

পানি

ইয়োগা চলাকালীন বা আগে-পরে পেট ভরে পানি পান করতে যাবেন না। তৃষ্ণার্ত বোধ করলে মাঝে মাঝে দুয়েক চুমুক পান করতে পারেন।

/এমআর/

সম্পর্কিত

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

রেসিপি : পুষ্টিতে ভরা সাউথ-ওয়েস্ট পাস্তা

রেসিপি : পুষ্টিতে ভরা সাউথ-ওয়েস্ট পাস্তা

বোয়াল মাছের কালিয়া

ঈদ রেসিপিবোয়াল মাছের কালিয়া

ঈদ রেসিপি: একদিন খেলে কিছু হবে না!

ঈদ রেসিপি: একদিন খেলে কিছু হবে না!

নাস্তায় হোক পাস্তা

ঈদ রেসিপিনাস্তায় হোক পাস্তা

ঝটপট রোস্ট

ঈদ রেসিপিঝটপট রোস্ট

রেসিপি : ইফতারে স্বাস্থ্যকর মসলা কর্ন

রেসিপি : ইফতারে স্বাস্থ্যকর মসলা কর্ন

সর্বশেষ

টেকনাফে মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় ১৩ পুলিশ হাসপাতালে 

টেকনাফে মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় ১৩ পুলিশ হাসপাতালে 

দিঘলিয়ায় নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি

দিঘলিয়ায় নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি

জাতিসংঘ সদর দফতরের বাগানে বৃক্ষরোপণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘ সদর দফতরের বাগানে বৃক্ষরোপণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

তৃতীয়বারের মতো সোনাগাজীর মেয়র খোকন 

তৃতীয়বারের মতো সোনাগাজীর মেয়র খোকন 

স্বাধীনতার ২ বছর পর ফের ১৯৫ যুদ্ধাপরাধীর মুক্তি চান ভুট্টো

স্বাধীনতার ২ বছর পর ফের ১৯৫ যুদ্ধাপরাধীর মুক্তি চান ভুট্টো

© 2021 Bangla Tribune