X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

ভ্যাকসিন নিচ্ছেন সেই রামদেব

আপডেট : ১২ জুন ২০২১, ১৯:৩৬

অবশেষে কোভিড ভ্যাকসিন নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ভারতের জনপ্রিয় যোগগুরু বাবা রামদেব। জানিয়েছেন, শিগগিরই টিকা নেবেন তিনি। অন্যরাও যেন ভ্যাকসিনের উভয় ডোজ নেওয়া নিশ্চিত করে। কিছুদিন আগেই অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা নিয়ে অবজ্ঞা প্রকাশ করা রামদেব এদিন চিকিৎসকদের ভগবানের দূত হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

সম্প্রতি চিকিৎসকদের সমালোচনা করে এবং আধুনিক ওষুধ ও ভ্যাকসিন নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন রামদেব। এক পর্যায়ে ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (আইএমএ)-এর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, অ্যালোপ্যাথি ওষুধ এবং আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার বিরুদ্ধে করা রামদেবের অভিযোগ মেনে নিয়ে ভারত থেকে আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা তুলে দেওয়া হোক। অন্যথায় মহামারি আইন প্রয়োগ করে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হোক। এ নিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে এবার তার মুখেই শোনা গেলো টিকার জয়ধ্বনি। একইসঙ্গে চিকিৎসকদেরও ‘ঈশ্বরের দূত’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন তিনি।

রামদেব বলেন, সবাই কোভিড ভ্যাকসিনের দুইটি করে ডোজ নিন। এর পাশাপাশি ইয়োগা ও আয়ুর্বেদ প্র্যাকটিস করুন। এগুলো সম্মিলিতভাবে এমন একটি শক্তিশালী সুরক্ষা দেবে যে, ভারতে করোনার কারণে একজনও মারা যাবে না।

ভারতের সব প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিককে ভ্যাকসিন দেওয়ার মোদি সরকারের ঘোষণাকেও স্বাগত জানান বহু আলোচনার জন্ম দেওয়া এই যোগগুরু।

ভক্তদের কাছে বাবা রামদেব হিসেবে পরিচিত হলেও তার প্রকৃত নাম রাম কিষাণ যাদব। গত মাসে এক ভিডিওতে অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা এবং অ্যালোপ্যাথ চিকিৎসকদের নিয়ে মন্তব্য করে বিতর্কের মুখে পড়েছিলেন তিনি। এতে রামদেবকে বলতে শোনা যায়, ‘চিকিৎসা বা অক্সিজেন না পেয়ে যত মানুষ মারা গেছে তার চেয়ে অনেক বেশি মানুষ মারা গেছে অ্যালোপ্যাথিক ওষুধ খেয়ে। অ্যালোপ্যাথি এক দেউলিয়া হয়ে যাওয়া বিজ্ঞান।’

করোনা মহামারির মধ্যে এই ভিডিও সামনে আসায় প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েন রামদেব। তাকে আইনি নোটিস পাঠায় ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন। সংস্থাটির দাবি, রামদেব নিজের সংস্থার বিভিন্ন পণ্যের বিষয়ে মিথ্যা প্রচার চালিয়ে মানুষজনকে বিভ্রান্ত করেন। পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে তিনি সবাইকে বোকা বানিয়ে যে কোনও উপায়ে অর্থ উপার্জনের পথ খুঁজছেন। পরে রামদেবের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পতঞ্জলির তরফে একটি ব্যাখ্যা হাজির করা হয়। এতে বলা হয়, রামদেব ওই অনুষ্ঠানে একটি হোয়াটসঅ্যাপ বার্তা পড়ছিলেন। ভিডিওটি এডিট করে প্রসঙ্গ বাদ দিয়ে তার মন্তব্যটি তুলে ধরা হয়েছে।

উল্লেখ্য, রামদেব প্রধানত যোগগুরু হিসেবে পরিচিত হলেও তার প্রতিষ্ঠানের তৈরি বিভিন্ন পণ্য ভারতে জনপ্রিয়। তিনি দাবি করেন, প্রাচীন হিন্দু রীতিতে তৈরি তার ওষুধ, প্রসাধনী ও খাদ্য সামগ্রী ভেষজ গুণসম্পন্ন।

/এমপি/

সম্পর্কিত

তিন মাসে ২ বার করোনা আক্রান্ত, হতাশায় দম্পতির আত্মহত্যা

তিন মাসে ২ বার করোনা আক্রান্ত, হতাশায় দম্পতির আত্মহত্যা

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

সিরিয়ায় হামলায় তুর্কি সেনা নিহত, আঙ্কারার হুঁশিয়ারি

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০৫:৫৪

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে অতর্কিত হামলায় দুই তুর্কি সেনা নিহত হয়েছেন। সেখানে থাকে তুরস্কের সাঁজোয়া যান লক্ষ্য করে হামলা হলে আরও দুই সেনা গুরুতর আহত হন। শনিবার দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় হতাহতের ঘটনা নিশ্চত করেছে।

আবারও উত্তপ্ত সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল। তুরস্কের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে সম্প্রতি হামলার ঘটানা বেড়েছে।ধারণা করা হচ্ছে বিদ্রোহী গোষ্ঠীদের হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন দুই তুর্কি সেনা। হামলার তাৎক্ষণিকভাবে গুলি ছুঁড়ে জবাব দিয়েছে সেনারা। এক টুইট বার্তায় তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছে, ‘সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে’।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, আল-বাব এলাকায় তাদের ওপর হামলা হয়। তুরস্ক এই ঘটনার সঙ্গে কুর্দি বিদ্রোহীদের সন্দেহ করছে। তাদের শত্রু ভেবে থাকে আঙ্কারা। সিরিয়ার অভ্যন্তরে এমন ঘটনায় আসাদ সরকারের কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। হামলায় কোন গোষ্ঠী দায় স্বীকার করেনি।

সিরিয়ার উত্তরাংশ, ইরাকের উত্তরাংশ এবং ইরানের উত্তরাংশ এই তিন রাষ্ট্রের উত্তরাংশ সংলগ্ন তুরস্কের বিস্তীর্ণ এলাকায় কুর্দিদের আবাসস্থল। কুর্দিরা পৃথক একটি জাতি। তবে চার রাষ্ট্রের ভেতরেই তাদের আবাসভূমির অবস্থান। যে কারণে গত ৭৫ বছর ধরে সংগ্রাম করার পরও তারা পৃথক জাতিসত্তা নিয়ে একটা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। কারণ তুরস্ক, ইরান, ইরাক ও সিরিয়া তাদের চেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্র।

/এলকে/

সম্পর্কিত

ওয়াশিংটন শর্ত মানলেই কাবুল বিমানবন্দর চালাবে তুরস্ক

ওয়াশিংটন শর্ত মানলেই কাবুল বিমানবন্দর চালাবে তুরস্ক

তালেবানের উচিত আফগানিস্তানে দখলদারিত্ব বন্ধ করা: এরদোয়ান

তালেবানের উচিত আফগানিস্তানে দখলদারিত্ব বন্ধ করা: এরদোয়ান

তুরস্কের প্রতি হুঁশিয়ারি তালেবানের

তুরস্কের প্রতি হুঁশিয়ারি তালেবানের

উইঘুর ইস্যুতে এরদোয়ান-শি জিনপিং ফোনালাপ

উইঘুর ইস্যুতে এরদোয়ান-শি জিনপিং ফোনালাপ

লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দেশে দেশে

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০৪:৪২

করোনার বিধিনিষেধ বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স, ইতালি এবং ব্রাজিল। প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন ও ব্যানার নিয়ে রাস্তায় লকডাউন বিরোধী স্লোগান দিতে দেখা যায় আন্দোলনকারীদের। মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান ছুঁড়লে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় বিক্ষুব্ধদের।

বিশ্বের অনেক দেশে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউনসহ নানা বিধিনিষেধ আরোপ আছে। তবে তা আর মানতে রাজি নয় অনেকেই। ফ্রান্সে চলমান লকডাউনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামেন দেড় লক্ষাধিক মানুষ। স্বাস্থ্য বিষয়ক বিল পাসে শনিবার দেশজুড়ে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ’র বিরুদ্ধে স্লোগান দেন তারা। নতুন এই বিলের ফলে, রেস্টুরেন্ট এবং জনসমাগম স্থানে ভিড় কমতে সাহায্য করবে। 

বিক্ষোভে হয়েছে ইতালিতেও। দেশটিতে ‘গ্রিন পাস’-এর বিরুদ্ধে রাজধানী রোম, নেপলস এবং তুরিনের মতো শহরের পথে পথে জড়ো হন হাজারো মানুষ। তাদের কণ্ঠে স্বাধীনতার স্লোগান শোনা যায়। সম্প্রতি ইতালিতে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই চলে ফেরা করতে দেখা যাচ্ছে সাধারণ মানুষকে। সংক্রমণ এড়াতে সরকার আগামী ৬ আগস্ট থেকে রেস্টোরেন্ট, সিনেমা হল, ক্যাফেটেরিয়া, জিম ইত্যাদি জায়গায় প্রবেশে গ্রিন পাশের নিয়ম চালু করেছে। মূলত যারা দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন তারাই এই সার্টিফিকেট পাচ্ছেন। এর প্রতিবাদেই রাস্তায় নেমেছে অনেকে।

এদিকে, অস্ট্রেলিয়ায় সিডনির প্রাণকেন্দ্রে লকডাউনের বিরুদ্ধে কয়েক হাজার মানুষ মিছিল করেন। শনিবার রাস্তায় নেমে তারা লকডাউন বিরোধী স্লোগান দেন। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় মাস্ক ছুঁড়ে ফেলেন। সিডনি ইউনিভার্সিটির ভিক্টোরিয়া পার্ক থেকে যাত্রা শুরু করে লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভকারীরা। তাদের লক্ষ্য ছিল, টাউন হলে গিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে। তবে মাঝপথে পুলিশ তাদের থামিয়ে দেয়। মিছিলকারীরা পানির বোতল ও রাস্তার পাশ থেকে গাছ তুলে পুলিশের দিকে ছুঁড়ে মারেন।

আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, লকডাউনে তারা কাজ করতে পারছে না। বহু মানুষ কাজ হারিয়ে বিপাকে পড়েছেন। ঘরবন্দি থাকায় মানসিকভাবেও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

এদিকে, লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে হাজার হাজার মানুষ রিও ডি জেনিরোর রাস্তায় নেমে লকডাউন প্রত্যাহার এবং ভ্যাকসিনের দাবিতে বিক্ষোভে করেন। একই সঙ্গে প্রেসিডেন্ট জেইর বোলসোনারোর বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পদত্যাগের দাবি জানান আন্দোলনকারীরা।

/এলকে/

সম্পর্কিত

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

ব্রিটে‌নে জা‌লিয়া‌তির দা‌য়ে বাংলা‌দেশি সমকামীর কার‌াদণ্ড

ব্রিটে‌নে জা‌লিয়া‌তির দা‌য়ে বাংলা‌দেশি সমকামীর কার‌াদণ্ড

ডেল্টার দাপট অস্ট্রেলিয়ায়, জরুরি অবস্থা ঘোষণা

ডেল্টার দাপট অস্ট্রেলিয়ায়, জরুরি অবস্থা ঘোষণা

করোনারোধী পোশাক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে বড় অংকের জরিমানা

করোনারোধী পোশাক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে বড় অংকের জরিমানা

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০৩:৪১

ভূমধ্যসাগরের তিউনিসিয়া উপকূল হতে ২০৮ অবৈধ অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার করা হয়েছে। দুটি আলাদা অভিযানে তাদের উদ্ধার করে তিউনিসিয়া কর্তৃপক্ষ।

চলতি মাসে অবৈধভাবে সাগর পথে ইউরোপ প্রবেশের জন্য বহু অভিবাসন প্রত্যাশী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে এ যাত্রায় বেশির ভাগই স্বপ্নের ইউরোপে ঢুকতে ব্যর্থ হচ্ছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় গত শুক্র ও শনিবার অবৈধভাবে তিউনিসিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে ১৬টি চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। অভিযানে ১৫৫ জনকে উদ্ধার করা হয়। তিউনিসিয়ার ন্যাশনাল গার্ডের মুখপাত্র হুস্সাম এদ্দিন আল-জাবালি বলেন, ন্যাশনাল গার্ডের প্রচেষ্টায় তাদের থামানো গেছে। এদের মধ্যে ১০ জন পলাতক আসামি রয়েছে।

তুর্কি সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সির খবরে বলা হয়েছে, শনিবার মাহদিয়া প্রদেশে দুটি নৌযান ডুবে গেলে ৫৩ জন অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার করা হয়। ইতালি যাওয়ার প্রস্তুতির সময় বিভিন্ন জায়গা থেকে আটক হয়েছেন ৩৮ জন।

অন্যদিকে চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়ার খবরে বলা হয়েছে, গত চারদিনে ভূমধ্যসাগর থেকে ৩৬৮ অবৈধ অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে মরক্কোর নৌবাহিনী। শুক্রবার এক বিবৃতিতে দেশটির সেনাবাহিনী বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এদের মধ্যে অধিকাংশই আফ্রিকার নাগরিক। তাদের প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এদের সবাই ইউরোপের উদ্দেশে যাত্রা করছিলেন।

প্রতিবছর সাগরপথে অবৈধভাবে বহু অভিবাসন প্রত্যাশী ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টা চালান। উন্নত জীবনের এ যাত্রায় ডুবে মারা যান অনেকেই।

/এলকে/

সম্পর্কিত

ভূমধ্যসাগরে ১৭ বাংলাদেশির মৃত্যু

ভূমধ্যসাগরে ১৭ বাংলাদেশির মৃত্যু

উত্তাল ভূমধ্যসাগরে ৪৯ বাংলাদেশি উদ্ধার

উত্তাল ভূমধ্যসাগরে ৪৯ বাংলাদেশি উদ্ধার

আবারও ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী বোঝাই নৌকাডুবি, বাংলাদেশিসহ নিখোঁজ ৪৩

আবারও ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী বোঝাই নৌকাডুবি, বাংলাদেশিসহ নিখোঁজ ৪৩

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০১:৫৪

১৫৫ কিলোমিটার গতিবেগে চীনের পূর্বাঞ্চাল ঝেজিয়াং প্রদেশের দিকে এগুচ্ছে শক্তিশালী টাইফুন 'ইন-ফা'। রবিবার যেকোনও সময় প্রবল শক্তি নিয়ে উপকূলে আঘাত হানতে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড়টি। ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় বহু ফ্লাইট, সমুদ্র বন্দর, রেলওয়ে বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। দেশটিতে প্রবল বন্যার মধ্যে নতুন করে টাইফুন সৃষ্টিতে ভোগান্তি চরমে পৌঁছেছে জনজীবনে।

চীনের সাংহাই প্রদেশের কাছে উপকূলীয় প্রদেশ ঝেজিয়াং-এর দিকে প্রবল শক্তি নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ইন-ফা। আবহাওয়া পূর্ভাবাসে বলা হয়েছে, বাতাসের গতিবেগ ১৫৫ কিলোমিটার। এর প্রভাবে ঝড়ো বাতাস, ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে।

দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়াতে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ঝেজিয়াং প্রদেশের স্কুল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মার্কেট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। প্রয়োজনে সড়কেও একই নির্দেশনা কার্যকর হবে।

ইন-ফার আঘাতে অতি বর্ষণে বন্যা ও ভূমিধস দেখা দিতে পারে। চীন রেলওয়ে জানিয়েছে, তৃতীয় পর্যায়ের সতর্কতা জারি রয়েছে। এই অঞ্চলে চলাচল করা শতাধিক ট্রেনের শিডিউল বাতিল হয়েছে।

সাংহাই কর্তৃপক্ষ কিছু পাবলিক পার্ক এবং জাদুঘর বন্ধ করে দিয়েছে এবং শনিবার বাসিন্দাদের সতর্ক করে দিয়ে 'বড় ধরনের সমাবেশ বন্ধ' করতে ও বাড়ির ভিতরে থাকতে বলেছে।

সাংহাইয়ের দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত প্রাদেশিক রাজধানী হাংঝৌর বিমানবন্দর রবিবারের ৯০ শতাংশ ফ্লাইট বাতিল করেছে এবং সোমবার আরও ফ্লাইট বাতিল হতে পারে।

চীনের হেনান প্রদেশে গত কয়েকদিনের প্রবল বর্ষণে তলিয়ে গেছে বহু বাড়ি-ঘর। দেখা দিয়েছে ভূমিধস। মারা গেছে ৫৮ জন মানুষ। পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় প্রায় ৫ লাখ মানুষকে উদ্ধার করে নিরাপদ আশ্রয়ে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যেই ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়তে যাচ্ছে চীনের বাসিন্দরা।

/এলকে/

সম্পর্কিত

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

কোলের সন্তানকে বাঁচিয়ে চলে গেলেন মা

কোলের সন্তানকে বাঁচিয়ে চলে গেলেন মা

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০০:৪০

আফগানিস্তানজুড়ে সশস্ত্র তালেবান গোষ্ঠীর সহিংসতা থামাতে কারফিউ জারি করেছে দেশটির সরকার। দেশের ৩৪টি জেলার ৩১টিতেই রাতে কারফিউর ঘোষণা এসেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তালেবানের সন্ত্রাসী কার্যক্রম থামাতেই এই পদক্ষেপ নিয়েছে কাবুল।

বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের শেষ দিকে একের পর এক এলাকা ও জেলা নিয়ন্ত্রণে নিচ্ছে তালেবান গোষ্ঠী। একই সঙ্গে হামলা চালিয়ে সীমান্তের গুরুত্বপূর্ণ ক্রসিং এবং বন্দর দখল নিচ্ছে। প্রতিদিনই তালেবান ও আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সংঘাতে রণক্ষেত্র দেশটি। এ অবস্থায় তালেবানের অগ্রযাত্রা থামাতে দেশের অধিকাংশ জায়গায় রাত্রিকালীন কারফিউ ঘোষণা করেছে আফগান সরকার। 

শনিবার এক বিবৃতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশের ৩৪টি জেলার মধ্যে ৩১টিতেই রাত ১০টা হতে ভোর ৪টা পর্যন্ত কারফিউ বলবৎ থাকবে। তবে রাজধানী কাবুল, পাঞ্জসির এবং নানগাহার প্রদেশ এর বাইরে থাকছে। 

দিনের বেলা তালেবান গোষ্ঠীকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলেও রাতে তাদের কার্যক্রম ব্যাহত করতেই কঠোর অবস্থানে আশরাফ ঘানি'র সরকার।

এ বিষয়ে কারদান বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক বিভাগের প্রধান ফাহিম সাদাত সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরাকে বলেন, ‘সরকার এক জেলা থেকে অন্য জেলায় মানুষের যাতায়াত নজর বা সীমাবদ্ধতা করতে চাচ্ছে। আর এই কারফিউর ঘোষণা সাধারণ মানুষের দরজায় যুদ্ধের বার্তা দেবে’। কারও মতে, কারফিউর মাধ্যমে সরকার অভিযান জোরালো করতে যাচ্ছে। কারণ এই সময়ে সাধারণ মানুষ ঘরের মধ্যেই নিরাপদে থাকবে।

আফগানিস্তান থেকে ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটোর ৯৫ শতাংশ সেনা প্রত্যাহার সম্পন্ন হয়েছে। তালেবানের দাবি, এখন পর্যন্ত আফগান ভূখণ্ডের ৮৫ শতাংশ এলাকা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে। যদিও এমন দাবি প্রত্যাখান করেছে দেশটির সরকার।

/এলকে/

সম্পর্কিত

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

শান্তিচুক্তির বিরোধিতাকারী তালেবান যোদ্ধাদের দলে ভেড়াচ্ছে আইএস!

শান্তিচুক্তির বিরোধিতাকারী তালেবান যোদ্ধাদের দলে ভেড়াচ্ছে আইএস!

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

সর্বশেষ

সিরিয়ায় হামলায় তুর্কি সেনা নিহত, আঙ্কারার হুঁশিয়ারি

সিরিয়ায় হামলায় তুর্কি সেনা নিহত, আঙ্কারার হুঁশিয়ারি

লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দেশে দেশে

লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দেশে দেশে

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

মাছটি বিক্রি হলো সাড়ে ৪ লাখ টাকায়

মাছটি বিক্রি হলো সাড়ে ৪ লাখ টাকায়

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

খেলায় লাল কার্ড দেখানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

খেলায় লাল কার্ড দেখানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

মাইকে ঘোষণা দিয়ে ২ গ্রামবাসীর সংঘর্ষ

মাইকে ঘোষণা দিয়ে ২ গ্রামবাসীর সংঘর্ষ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

তিন মাসে ২ বার করোনা আক্রান্ত, হতাশায় দম্পতির আত্মহত্যা

তিন মাসে ২ বার করোনা আক্রান্ত, হতাশায় দম্পতির আত্মহত্যা

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

শান্তিচুক্তির বিরোধিতাকারী তালেবান যোদ্ধাদের দলে ভেড়াচ্ছে আইএস!

শান্তিচুক্তির বিরোধিতাকারী তালেবান যোদ্ধাদের দলে ভেড়াচ্ছে আইএস!

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রবল বর্ষণে মহারাষ্ট্রে মৃত বেড়ে ১১০

প্রবল বর্ষণে মহারাষ্ট্রে মৃত বেড়ে ১১০

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

© 2021 Bangla Tribune