X
সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

১০ কেজি মরিচে এক কেজি চাল!

আপডেট : ১৭ জুন ২০২১, ২২:০৮

পাঁচ টাকা কেজিতে চাষিদের কাছ থেকে কাঁচা মরিচ কিনছেন নীলফামারী বড় বাজারের আড়তদার ও পাইকারি ব্যবসায়ী মো. নুরু ইসলাম। এসব মরিচ তিনি পাইকারিতে ১০-১২ টাকা বিক্রি করছেন। তার কাছ থেকে কিনে ২০-২৫ টাকা কেজি বিক্রি করছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা। তাদের লাভ হলেও চরম লোকসানে পড়েছেন মরিচ চাষিরা। ক্ষোভে তারা বললেন, আগামী বছর থেকে মরিচ চাষ করবেন না।

বুধবার (১৬ জুন) ও বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) জেলা শহরের বড় বাজার, কিচেন মার্কেট, ডোমারের মটকপুর বাজার, পাঙ্গা চৌপতির বাজার ও ডিমলা বাজারে পাঁচ টাকা কেজিতে মরিচ বিক্রি করেছেন চাষিরা।

বড় বাজার ও কিচেন মার্কেটের খুচরা ব্যবসায়ী বুলু মিয়া ও ইলিয়াস আলী জানান, মরিচের মৌসুম প্রায় শেষ। বর্ষায় মরিচের ফলন কম হওয়ায় খুচরা বাজারে কেজিতে দাম বেড়েছে ৮-১০ টাকা। আমরা ২৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করছি। পাইকারিতে মণ কিনেছি ৪৫০ টাকা।

চাষিদের অভিযোগ, মৌসুমের শুরুতে আবাদের খরচ না ওঠায় অনেক চাষি ক্ষেত থেকে মরিচ তোলেননি। ক্ষেতেই মরিচ নষ্ট হয়েছে। লোকসানের ভয়ে অনেকেই মরিচ তুলছেন না।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে এক হাজার ৭৭৫ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে কৃষি বিভাগ। তবে লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও অর্জিত জমির পরিমাণ এক হাজার ৮০০ হেক্টর। ২৫ হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত মরিচ চাষ হয়েছে। সদরে ২৯০, সৈয়দপুরে ২৫, ডোমারে ৭৮০, ডিমলায় ৫৪০, জলঢাকায় ৮০ ও কিশোরগঞ্জে ৮৫ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষ হয়েছে।

কিচেন মার্কেটের মরিচের আড়ত ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে ২০-২৫ টাকা কেজিতে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে। পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১০-১২ টাকা।

দাম কম পাওয়ায় চরম লোকসানে পড়েছেন মরিচ চাষিরা

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. কামরুল হাসান বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার মরিচের বাম্পার ফলন হয়েছে। মাঠপর্যায়ে কৃষকরা ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় লোকসানের মুখে পড়েছেন। ক্ষতি উত্তরণের একমাত্র উপায়; গাছে মরিচ পাকিয়ে ঘরে তোলা।

ডোমার উপজেলার মটকপুর ইউনিয়নের পাঙ্গা গ্রামের মরিচ চাষি রহিদুল ইসলাম বলেন, এবার এক বিঘা জমিতে মরিচ চাষ করেছি। ফলন ভালো হয়েছে। কিন্তু বাজারে পাঁচ টাকা কেজিতে মরিচ বিক্রি করেছি। অথচ আমার কাছ থেকে মরিচ কিনে পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা দুই-তিনগুণ বেশি দামে বিক্রি করছেন। ক্ষেত থেকে মরিচ ছিঁড়াই বাদ দিয়েছি। মরিচ ছিঁড়তে যে টাকা খরচ হয়, বিক্রি করেও তা ওঠে না। ভ্যান ভাড়া নিজের পকেট থেকে দিতে হয়। মরিচ চাষ বাদ দিয়ে আগামীতে ভুট্টা চাষ করবো।

উপজেলার মরিচ প্রধান পাঙ্গা চৌপতির বাজারে দেখা যায়, ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা থেকে আসা নারী-পুরুষ কাঁচা মরিচ স্তূপ করে রেখেছেন। এই বাজারে হাইব্রিড কাঁচা মরিচের মণ ২০০-২৫০ টাকা, বিন্দু মরিচের মণ ২৫০-২৮০ টাকা, জিরা মরিচের মণ ৩০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

ডিমলা উপজেলার খগাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের খগাখড়িবাড়ী গ্রামের মরিচ চাষি বাবলুর রহমান বলেন, মরিচের বাম্পার ফলন হলেও এবার বাজার দর খুবই খারাপ। ওষুধ, হালচাষ, সেচ, সার, চারা, মজুরি ও পরিবহন খরচসহ বিঘাপ্রতি খরচ হয়েছে ১২-১৫ হাজার টাকা। এক বিঘায় মরিচ ফলে ২৫-৩০ মণ। প্রতি কেজি পাঁচ টাকা হলে মণ ২০০ টাকা। বিঘায় পাঁচ-ছয় হাজার টাকা। এতেই বোঝা যায় কৃষক শেষ। অথচ খুচরা ও পাইকাররা বাজারে দ্বিগুণ দামে মরিচ বিক্রি করেন।

একই এলাকার মরিচ চাষি রোস্তম আলী জানান, গত বছর মরিচের বাজার ভালো ছিল। তিন হাজার টাকা পর্যন্ত মণ বিক্রি হয়েছিল। এবার সর্বোচ্চ দেড় হাজার টাকা বিক্রি হয়েছে প্রথম দিকে। তারপর দাম কমতে কমতে ২০০-২৫০ টাকায় নেমেছে। বারবার মরিচ চাষে আমি ক্ষতিগ্রস্ত। আগামীতে পাট ও ভুট্টা চাষের চিন্তাভাবনা করছি।

মৌসুমের শুরুতে আবাদের খরচ না ওঠায় অনেক চাষি ক্ষেত থেকে মরিচ তোলেননি

পাঙ্গা চৌপতির বাজারে মরিচ বিক্রি করতে আসা শফিকুল ইসলাম (৩০) বলেন, মাথার ঘাম পায়ে ফেলে মরিচ চাষ করে দাম পাই না। অথচ পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা দ্বিগুণ লাভ করে। কৃষকের খবর কেউ রাখে না। করোনায় আয়-রোজগার নেই, এখন মরিচ চাষ করে দাম পাই না। এভাবে চললে চাষাবাদ করে আমাদের মরণ ছাড়া উপায় নেই। চাল, ডাল ও তেল কিনতে বাজারে গিয়ে দিশেহারা। ১০ কেজি মরিচ বিক্রি করে এক কেজি চাল কিনি। কোথায় যাবো আমি?।

নীলফামারী বড় বাজারের আড়তদার ও পাইকারি ব্যবসায়ী মো. নুর ইসলাম বলেন, বগুড়া, পাবনা এবং কুষ্টিয়া জেলার ক্ষেতের মরিচ উঠেছে। নীলফামারীর মরিচ উঠেছে। একসঙ্গে এতো জেলার মরিচ ওঠায় বাজারে প্রভাব পড়েছে। তিন-চার টাকা কেজিতে মরিচ পাওয়া যাচ্ছে। তবে বৃষ্টি হলে দাম বাড়বে।

হাট ইজারাদার শফিকুল ইসলাম বলেন, এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় মরিচের বাম্পার ফলন হয়েছে। একসঙ্গে কুষ্টিয়া, পাবনা ও বগুড়া জেলার মরিচ উঠেছে। সেজন্য বাজার মন্দা যাচ্ছে। গতবারের চেয়ে এবার দাম কম পাওয়ায় চাষিদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মো. আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, মরিচের বাম্পার ফলন হয়েছে ঠিকই কিন্তু ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না চাষি। মরিচ গাছ থেকে ছিঁড়তে প্রচুর লোকবলের প্রয়োজন হয় এবং ব্যয়ও অনেক। এজন্য চাষিদের মরিচ পাকানোর পরামর্শ দিচ্ছি। পাকা মরিচের চাহিদা ও লাভ বেশি। আশা করি, ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা শুকনো মরিচ বিক্রি করে লাভবান হবেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ: চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১৯ দুস্থ নারীর জিডি

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ: চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১৯ দুস্থ নারীর জিডি

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে ৫৫ বছর পর আমদানি-রফতানি শুরু

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে ৫৫ বছর পর আমদানি-রফতানি শুরু

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০২:১২

রংপুরের বদরগঞ্জে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় বিয়ের দিন এক মাদ্রাসাছাত্রীকে (১৫) কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার (০১ আগস্ট) তার মৃত্যু হয়। 

এর আগে গত বুধবার (২৮ জুলাই) ভোরে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে ছাত্রীকে কুপিয়ে আহত করা হয়। উপজেলার লোহানিপাড়া ইউনিয়নের সাজানো গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মাদ্রাসাছাত্রী সাজানো গ্রামের বাসিন্দা ও স্থানীয় দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান। 

পুলিশ জানায়, মিঠাপুকুর উপজেলার পশ্চিম বড়বালা এলাকায় ওই ছাত্রীর বড় বোনের বিয়ে হয়। বড় বোনের আত্মীয়তার সম্পর্কে ওই এলাকার মোনায়েম হোসেনের ছেলে শাখাওয়াত হোসেন তাকে কয়েক দফায় প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়। পরে বিয়ে করার জন্য বাবা-মায়ের কাছে প্রস্তাব দেয়। কিন্তু এলাকায় বখাটে হিসেবে শাখাওয়াতের পরিচিতি থাকায় মেয়ের পরিবার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়। সেই সঙ্গে অন্যত্র বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয় শাখাওয়াত।

গত বুধবার ছাত্রীর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বিষয়টি জানতে পেরে শাখাওয়াত তাদের বাড়ির কাছে যায়। এরপর তাকে মোবাইলে ডেকে এনে কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে যায়। ছাত্রীর চিৎকারে প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. হামিদুল ইসলাম বলেন, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ওই ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। 

এ ঘটনায় বদরগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন ছাত্রীর বাবা। মৃত্যুর আগে হাসপাতালে গিয়ে ছাত্রীর জবানবন্দি নিয়েছে পুলিশ। জবানবন্দিতে শাখাওয়াতের নাম বলে যায় ছাত্রী।

ওসি হাবিবুর রহমান বলেন, মৃত্যুর আগে ঘাতকের নাম বলে গেছে ছাত্রী। ময়নাতদন্ত শেষে সন্ধায় স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। শাখাওয়াতকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

ছেলের হাতে বাবা খুন, ২২ ঘণ্টায় আদালতে অভিযোগপত্র

ছেলের হাতে বাবা খুন, ২২ ঘণ্টায় আদালতে অভিযোগপত্র

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ: চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১৯ দুস্থ নারীর জিডি

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ: চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১৯ দুস্থ নারীর জিডি

‘দেড় লাখ টাকায় মিনুকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল’

‘দেড় লাখ টাকায় মিনুকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল’

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০১:২৫

গত জুলাই মাসে খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় করোনায় এক হাজার ৩১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এক মাসে এটি বিভাগের সর্বাধিক মৃত্যু। একই মাসে সর্বাধিক ৩৬ হাজার ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ও শনাক্তের রেকর্ডও হয়েছে জুলাই মাসে। গত জুন মাসে বিভাগে মৃৃত্যু হয়েছিল ৪২৫ জনের। সে হিসাবে জুনের চেয়ে জুলাই মাসে তিন গুণ বেশি মৃত্যু হয়েছে। জুনে করোনা শনাক্ত হয়েছিল ২২ হাজার ৬২৬ জনের।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছে। একদিনে খুলনা বিভাগে সর্বোচ্চ ৭১ জনের মৃত্যু হয়েছিল ৯ জুলাই। ৭ জুলাই সর্বোচ্চ এক হাজার ৯০০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

খুলনার সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, অসচেতনতা ও মাস্ক ব্যবহারে অনীহা এবং করোনার ভারতীয় ডেল্টা ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ায় শনাক্ত ও মৃত্যু বেড়েছে। পাশাপাশি করোনা শনাক্ত হওয়ার পর শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বেড়েছে। হাসপাতালে জনবল সংকট ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম স্বল্পতা, অক্সিজেন সংকট, সতকর্তার ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের উদাসীনতা ও স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন না করা মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধির উল্লেখযোগ্য কারণ।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, সংক্রমণের শুরু থেকে ৩১ জুলাই সকাল পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৯২ হাজার ৯৩২ জনের। মৃতের সংখ্যা দুই হাজার ৩৮৮ জন। এ সময় সুস্থ হয়েছেন ৬৮ হাজার ৭৮৬ জন। 

এখন পর্যন্ত মৃত্যুর দিক থেকে খুলনা শীর্ষে রয়েছে। খুলনায় মারা গেছেন ৬২৪, কুষ্টিয়ায় ৫৫৩, যশোরে ৩৪৪, ঝিনাইদহে ২০২, চুয়াডাঙ্গায় ১৬১, মেহেরপুরে ১৩৭, বাগেরহাটে ১২৩, নড়াইলে ৯২, সাতক্ষীরায় ৮৫ ও মাগুরায় ৬৭ জন।

/এএম/

সম্পর্কিত

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৮ মৃত্যু

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৮ মৃত্যু

খুলনা বিভাগে একদিনে ৪০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮৮০

খুলনা বিভাগে একদিনে ৪০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮৮০

ভারত থেকে এলো আরও ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন 

ভারত থেকে এলো আরও ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন 

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০০:৫৩

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে পর্নোগ্রাফি ভিডিও তৈরিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন করে বাড়িছাড়া করার দায়ে মোরসালিন নামে এক যুবককে এক বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রবিবার (০১ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আতিকুল ইসলাম ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাকে কারাদণ্ড দেন। দণ্ডপ্রাপ্ত মোরসালিন (৩২) উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের পঞ্চবটি গ্রামের ফজর আলীর ছেলে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, সোনারগাঁ পৌরসভার এক তরুণীকে বছরখানেক আগে অপহরণের পর বিয়ে করে মোরসালিন। বিয়ের পর থেকে পর্নো ভিডিও তৈরির চাপ দেওয়া হচ্ছিল। এতে রাজি না হওয়ায় দেড় লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। যৌতুক দিতে না পারায় শুরু হয় নির্যাতন। গত শুক্রবার সকালে আবার নির্যাতন করা হয়। ওই দিন দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মোরসালিনকে রবিবার আটক করে পুলিশ। 

ভুক্তভোগী জানান, তার স্বামী মাদক সেবন ও বিক্রির সঙ্গে জড়িত। পর্নো ভিডিও করতে রাজি না হওয়ায় তাকে নির্যাতন করা হয়। গত ৮ জুলাই স্বামী তার বন্ধুদের সঙ্গে অনৈতিক কাজ করতে বলেছিল। এতে রাজি না হওয়ায় মারধর করা হয়। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ইউএনও আতিকুল ইসলাম বলেন, মোরসালিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বিষয়টি স্বীকার করে। পরে তাকে এক বছর কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

/এএম/

সম্পর্কিত

ছেলের হাতে বাবা খুন, ২২ ঘণ্টায় আদালতে অভিযোগপত্র

ছেলের হাতে বাবা খুন, ২২ ঘণ্টায় আদালতে অভিযোগপত্র

হাসেম ফুড কারখানায় আগুন: ৪৫ মরদেহ শনাক্ত

হাসেম ফুড কারখানায় আগুন: ৪৫ মরদেহ শনাক্ত

দিনভর ভোগান্তি শেষে স্বাভাবিক ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক

দিনভর ভোগান্তি শেষে স্বাভাবিক ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০০:২৭

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের শিশুসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত অবস্থায় ১০ জনকে সিলেটে পাঠানো হয়েছে। রবিবার (১ আগস্ট) সন্ধ্যায় করগাঁও ইউনিয়নে শাখোয়া ও করগাঁও গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে আমন ক্ষেতে এই ঘটনা ঘটে। নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদ সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জানা গেছে, করগাঁও ইউনিয়নের গউস মিয়ার ফিশারির পাশে একটি খালে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে শাখোয়া গ্রামের বেনু মিয়ার ছেলে সমীর এবং করগাঁও গ্রামের নুরুল মিয়ার ছেলে টুটুলের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। বিষয়টি জানাজানি উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে ওই দুটি গ্রামের লোকজন মাইকে ঘোষণা দিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। 

খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসির নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। এ ঘটনার পর পর ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আবুল খায়েরসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ।

ওসি জানান, বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

রোহিঙ্গাদের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ১২ পুলিশ আহত

রোহিঙ্গাদের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ১২ পুলিশ আহত

ফুটবল খেলা নিয়ে ২ গ্রামবাসীর সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত

ফুটবল খেলা নিয়ে ২ গ্রামবাসীর সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০০:১৭

চট্টগ্রামের ফুসফুসখ্যাত সিআরবিতে অনুমোদনহীন নলকূপ স্থাপন বন্ধে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) কাছে অভিযোগ দিয়েছে নাগরিক সমাজ চট্টগ্রাম।

রবিবার (০১ আগস্ট) দুপুরে এ অভিযোগ দেওয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাগরিক সমাজ চট্টগ্রাম কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান, যুগ্ম সদস্য সচিব সাইফুল আলম বাবু, নির্বাহী সদস্য চৌধুরী ফরিদ, আলীউর রহমান, আমিন মুন্না, রাহুল দত্ত ও তাপস পাপ্পু।

নাগরিক সমাজ চট্টগ্রামের ভাইস চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালককে বলেন, যথাযথ উদ্যোগের অভাবে নান্দনিক শহর চট্টগ্রামের সবুজ স্থান বিলুপ্ত হয়ে গেছে। সিআরবিকে চট্টগ্রামবাসী হৃদয়ে ধারণ করে। যে কোনও উপায়ে সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণ বন্ধ করতে হবে।

অভিযোগ গ্রহণ করে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল্লাহ বলেন, চট্টগ্রাম মহানগরীতে অনুমোদনহীন দুই ইঞ্চির বড় পাইপ দিয়ে নলকূপ স্থাপন করতে ওয়াসার অনুমোদন নিতে হবে। কিন্তু সিআরবিতে গভীর নলকূপ স্থাপনের জন্য কেউ অনুমোদন নেননি। সরকারি প্রতিষ্ঠান হোক আর বেসরকারি, কেউ অনুমোদনহীন গভীর নলকূপ স্থাপন করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ওয়াসার পক্ষ থেকে আমরা যথাযথ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে নোটিশ দেবো।

/এএম/

সম্পর্কিত

নেমপ্লেট খুলে চাঁদা তোলার অভিযোগে এসআই প্রত্যাহার

নেমপ্লেট খুলে চাঁদা তোলার অভিযোগে এসআই প্রত্যাহার

‘দেড় লাখ টাকায় মিনুকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল’

‘দেড় লাখ টাকায় মিনুকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল’

রোহিঙ্গাদের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ১২ পুলিশ আহত

রোহিঙ্গাদের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ১২ পুলিশ আহত

চলন্ত প্রাইভেট কারে আগুন

চলন্ত প্রাইভেট কারে আগুন

সর্বশেষ

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

তালেবান অগ্রযাত্রা ঠেকাতে আফগান বাহিনীর বোমাবর্ষণ

তালেবান অগ্রযাত্রা ঠেকাতে আফগান বাহিনীর বোমাবর্ষণ

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

ব্রাজিলের নির্বাচন ব্যবস্থা বদলের দাবি বলসোনারো সমর্থকদের

ব্রাজিলের নির্বাচন ব্যবস্থা বদলের দাবি বলসোনারো সমর্থকদের

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

ট্যাংকারে হামলা নিয়ে ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা

ট্যাংকারে হামলা নিয়ে ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে নিহত, গুরুতর আহত ১

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে নিহত, গুরুতর আহত ১

ফের হামাস প্রধান নির্বাচিত হলেন ইসমাইল হানিয়া

ফের হামাস প্রধান নির্বাচিত হলেন ইসমাইল হানিয়া

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ: চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১৯ দুস্থ নারীর জিডি

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ: চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১৯ দুস্থ নারীর জিডি

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে ৫৫ বছর পর আমদানি-রফতানি শুরু

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে ৫৫ বছর পর আমদানি-রফতানি শুরু

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৮ মৃত্যু

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৮ মৃত্যু

মানবিক কারণে পোশাকশ্রমিকদের জন্য বাস-ট্রাক চালু!

মানবিক কারণে পোশাকশ্রমিকদের জন্য বাস-ট্রাক চালু!

গাড়ির ব্যবস্থা করার দাবিতে পোশাকশ্রমিকদের বিক্ষোভ

গাড়ির ব্যবস্থা করার দাবিতে পোশাকশ্রমিকদের বিক্ষোভ

‘সারাদিনে আয় ৩০-৪০ টাকা, চলবো কীভাবে?’

‘সারাদিনে আয় ৩০-৪০ টাকা, চলবো কীভাবে?’

অটোরিকশা থেকে চাঁদা আদায় নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৩

অটোরিকশা থেকে চাঁদা আদায় নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৩

© 2021 Bangla Tribune