X
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

ভরসার আরেক নাম 'বাবা'

আপডেট : ২০ জুন ২০২১, ০৬:৪৫

বছর দশেক আগে ফেসবুকের এক স্ট্যাটাসে লিখেছিলাম ‘আব্বার সঙ্গে আমার নানাবিধ দ্বন্দ্ব শিল্পের পর্যায়ে চলে যাচ্ছে, তবু আমি দিনকে দিন আপাদমস্তক আব্বা হয়ে উঠছি।’- এই স্ট্যাটাস দেওয়ার সময় খুব ভেবেছি সবার কি বাবার সঙ্গে এমন একটা দ্বন্দ্বের সম্পর্ক থাকে? বোধহয় না। এও ভেবে শান্তি পেয়েছি যে, দ্বন্দ্ব বর্ণনাতীত হলেও আমি দিনকে দিনকে আব্বার প্রতিচ্ছবি হয়ে উঠছি। আসলে বাবা হয়ে উঠতে চেয়েছি বলেই হয়তো বাবা হয়ে যাচ্ছি। তবে এমন দ্বন্দ্বের গল্প হয়তো প্রতি ঘরে ঘরেই আছে। বাবাকে লেখা কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহর এক চিঠিতে এমন একটা দ্বন্দ্বের গল্প পেলাম…

বাবাকে লিখেছিলেন- ‘আপনাদের মতামত এবং কোনোরকম আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া আমি বিয়ে করে বৌ বাড়ি নিয়ে যাওয়াতে আপনারা কষ্ট পেয়েছেন। কিন্তু আমি তো আমার জীবন এভাবেই ভেবেছি। আপনার সাথে আমার যে ভুল বোঝাবুঝি গুলো তা কখনই চ্যালেঞ্জ বা পিতা-পুত্রের দ্বন্দ্ব নয়, স্পষ্টতই তা দুটো বিশ্বাসের দ্বন্দ্ব।

ব্যক্তি আপনাকে আমি কখনোই ভুল বুঝিনি, আমি জানি না আমাকে আপনারা কিভাবে বোঝেন। এতো চরম সত্য যে, একটি জেনারেশনের সাথে পরবর্তী জেনারেশনের অমিল এবং দ্বন্দ্ব থাকবেই। যেমন আপনার সাথে আপনার আব্বার অমিল ছিলো, আপনার সাথে আমার এবং পরবর্তীতে আমার সাথে আমার সন্তানদের। এই দ্বন্দ্ব ও সংঘাত কোনোভাবেই রোধ করা সম্ভব নয়। আমরা শুধু এই সংঘাতকে যুক্তিসঙ্গত করতে পারি; পারি কিছুটা মসৃন করতে। সংঘাত রোধ করতে পারিনা। পারলে ভালো হতো কিনা জানিনা। তবে মানুষের জীবনের বিকাশ থেমে যেতো পৃথিবীতে।’

রুদ্র আরও লিখেছিলেন, ‘পৃথিবীতে কত বড় বড় কাজ করেছে মানুষ। একটা ছো্ট্ট পরিবারকে সুন্দর করা যাবে না? অবশ্যই যাবে। একটু যৌক্তিক হলে, একটু খোলামেলা হলে কত সমস্যা এমনিতেই মিটে যাবে। সম্পর্ক সহজ হলে কাজ সহজ হয়। আমরা চাইলেই তা করতে পারি।’

বাবা দিবসে বাবাদের নিয়ে দ্বন্দ্বের গল্প দিয়েই শুরু হলো। এত মতভেদ বা বিভেদের পরও ভরসার আরেক নাম বাবা। বাবার হাত ধরে পৃথিবীর পথে চলতে শিখে আমরা দিনে দিনে বাবা হয়ে উঠি। ছায়া বা কায়া হয়ে বড় হই।

তবে বাঙাল মুলকে বাবা সম্ভবত একজন রাশভারি চরিত্রের নাম যার সঙ্গে খেলতে মানা, মন খুলে গল্প করা মানা। যার সঙ্গে দূরত্বই সারকথা। তবে বিশ্বায়নের যুগে বাবারাও বন্ধু হয়ে উঠছেন। অন্তত সোশ্যাল মিডিয়া তো বাবা দিবসে বাবারা কেমন বন্ধু হয়ে উঠছেন। কেমন করে হাতে হাত ধরে বন্ধুর মতো চলতে শেখাচ্ছেন সন্তানদের। দিবস উপলক্ষে প্রতিটা বাড়িতেই কিছু না কিছু আয়োজন হচ্ছে। সংসারের জন্য উদয়াস্ত খেটে যাওয়া বাবার জন্য প্রতিদান হয়তো সন্তান বড় হয়ে দেয়। কিন্তু দিবস ঘিরে আয়োজনটা শুধুই বাবাকে প্রতিদান দেওয়ার গল্প তৈরি করে।  

বাস্তবে বাবা শব্দের কোনও আভিধানিক অর্থ নেই। কেবল একটি সম্বোধন মাত্র। আর যেকোনো মানুষের বেড়ে ওঠার পেছনে মায়ের মতোই এই সম্বোধন চরিত্রের ভূমিকা সমান। এক্ষেত্রে বাবাকে একটি চরিত্রও বলা যায়, কখনো মা বাবার মতো হয়ে আগলে রাখেন, কখনও ভাই-বোন বাবার মতো হয়ে যান। এগুলো সবই ঘটে বাবার অবর্তমানে। কিন্তু বাবার উপস্থিতিতে তিনিই হন ভরসার আরেক নাম।

বাবা চরিত্র আসলে বিশ্লেষণ করার কোনও প্যারামিটার নেই। জন্ম দিলে জন্মদাতা হওয়া যায়, কিন্তু বাবা হয়ে উঠতে হয়। ভীষণ দায়িত্ব-কর্তব্যের গল্প লুকিয়ে আছে বাবা শব্দটায়। যিনি শত সংকটেও বটগাছ হয়ে ছায়া দিয়ে যাচ্ছেন সন্তানদেরকে। অর্থনৈতিক, সামাজিক সব দায়িত্ব পালন করছেন। আর এসব দায়িত্ব পালনের বিনিময় কিন্তু শুধুই ভালোবাসা। সন্তান বড় হয়ে বাবার দায়িত্ব নেবে, এমন ধারণা খুব কম বাবাই করেন। তবে এটা আশা করেন−সব সন্তান বাবাকে ছাপিয়ে যাবে। দেশজোড়া নাম হবে। সন্তানের নামের সঙ্গে উজ্জ্বল হবে পিতৃত্বের উত্তরাধিকার।

এই যে ১৯১৩ সালে রীতিমতো বিল পাস করে জুন মাসের তৃতীয় রবিবার বাবা দিবস ঘোষণা করা হয়েছিল, সেটি কিন্তু পুরোটাই বাবাদের শ্রদ্ধা ও সম্মানে মুড়ে রাখতে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সাত সমুদ্দুর তের নদীর পাড়ের সংস্কৃতির হাওয়া আমাদের দেশেও এসে বেশ থিতু হয়েছে। বেশ আয়োজন করেই উদযাপিত হচ্ছে বাবাদের জন্য দিন।

সোশাল মিডিয়ার পেইজ গুলো ভরে ওঠে সন্তানদের থেকে পাওয়া উপহার, কার্ড আর ছবিতে। যারা হারিয়ে ফেলেছেন বাবাকে তারা স্মৃতিচারণ করেন। আর যারা কাছে আছেন তারাও দু-কলম লিখেন। ছবি আপলোড করেন। করোনার মহামারিতে আয়োজন তো সব সামাজিক যোগাযোগকেন্দ্রিক হয়ে উঠেছে। নতুবা এই দিনকে ঘিরে রেস্তোরাঁগুলোতে থাকতো ছাড়, উপহারের অফার। মনমরা এই পৃথিবীতে সব বাবারাই খুঁজছেন সন্তানকে ভালো রাখতে, নিজেরা ভালো থাকতে।

ভালো দিন আসুক পৃথিবীতে। চারপাশ মহামারি মুক্ত হোক বাবাদের ভালোবাসায় আর ভরসায়। পৃথিবীর সব বাবাদের বাবা দিবসের শুভেচ্ছা।

 

/এফএএন/

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ১২:৫৯

ভুঁড়ি কত প্রকার এটা কোনও পরীক্ষায় না আসলেও উত্তরটা জানা থাকলে আছে কিছু উপকার। কারণ সব ভুঁড়ি একই কারণে গজায় না। ভুঁড়ি দেখে যেমন লোক চেনা যায়, আবার ভুঁড়ির গঠন দেখে বোঝা যায় সেটার কারণ। আর কারণ জানতে পারলে ভুঁড়িটাকে বাগে আনাও হবে সহজ।

 

স্ট্রেস বেলি

মানসিক চাপের প্রশ্নে আমরা যতই এড়িয়ে চলি না কেন, এর একটি বড় শারীরিক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আছে। অতিরিক্ত মানসিক চাপে থাকলে করটিসল নামের স্টেরয়েড হরমোনের মাত্রা বেড়ে তলপেটের আশপাশে চর্বির পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে অস্বাভাবিক গতিতে। এ ধরনের ভুঁড়ি কমাতে চাই মানসিক প্রশান্তি। এর জন্য নিয়ম করে ইয়োগা করুন আর খেয়াল রাখুন ঠিকঠাক ঘুম হচ্ছে কিনা।

 

হরমোন বেলি

হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণে এ ধরনের ভুঁড়ি তৈরি হয়। হাইপোথায়রয়েডিসম বা পিসিওএস এ ধরনের ভুঁড়ির জন্য দায়ী। এতে করে ভুঁড়ির পাশাপাশি সামগ্রিক ওজনও বেড়ে যেতে থাকে। এটাকে দমিয়ে রাখতে হলে অস্বাস্থ্যকর খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। নিয়মিত বাদাম ও মাছ খেতে হবে। পাশাপাশি থাইরয়েড সংক্রান্ত পরীক্ষা ও পরামর্শ নিতে হবে ডাক্তারের কাছ থেকে।

 

লো বেলি

যখন কারও শরীরের উপরের অংশ চিকন ও নিচের দিকটা, বিশেষ করে তলপেটের দিকটা চওড়া হয়ে থাকে, সেটাকে বলে লো বেলি। শুয়ে বসে কাটানোই এর কারণ। আর এ সমস্যা কাটাতে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার ও প্রচুর পানি পান করতে হবে। পাকস্থলীর ব্যায়ামগুলোও করতে হবে নিয়মিত।

 

ব্লটেড বেলি

ভুঁড়ি ছাড়াও অনেকের পেটটাকে ফোলা ফোলা মনে হয়। এটাকে বলে ব্লটেড বেলি। হজমের সমস্যার কারণেই এমনটা হয়। এ সমস্যা থেকে বাঁচতে একসঙ্গে বেশি খাবার খাওয়া যাবে না। এড়িয়ে চলতে হবে কোমল পানীয়। ভারী খাবার খাওয়ার পরপরই পানি খাওয়া যাবে না।

/এফএ/

সম্পর্কিত

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

দুধ যেন উপচে না পড়ে

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:৩৪

দুধ জ্বাল দেওয়ার সময় চোখটা সরালেই হলো, উপচে পড়বেই। যারা একটু ভুলোমনা, তাদের জন্য এটা বাড়তি এক যন্ত্রণা। দুধ উপচেপড়া ঠেকানোর আছে কিছু উপায়।

 

পানি

জ্বাল দেওয়ার আগে দুধে অল্প পরিমাণ বিশুদ্ধ পানি দিন। ফুটতে শুরু করলে ওই পানি এমনিতেই বাষ্প হয়ে যাবে। তবে লাভটা হলো, এতে দুধ অল্প আঁচে উপচে পড়বে না।

 

ঘি

দুধ জ্বাল দেওয়ার পাত্রের উপরের দিকে ভেতরের কিনারায় সামান্য ঘি মাখিয়ে দিন। উপচে পড়তে গিয়েও পড়বে না।

দুধ উপচে পড়া ঠেকানোর পদ্ধতি

কাঠের চামচ

উডেন স্প্যাটুলা তথা কাঠর চামচও ব্যবহার করা যায় এ কাজে। জ্বাল দেওয়ার সময় পাত্রের ঠিক ব্যাস বরাবর লম্বা করে একটি কাঠের চামচ রেখে দিন। ফোম তৈরি হলেও সেটা আবার নেতিয়ে যাবে।

 

পানির ছিটা

দুধ ফুলে উঠতে শুরু করলে দিশেহারা না হয়ে তার ওপর খানিকটা পানি ছিটিয়ে দিন। সঙ্গে সঙ্গে ফোমটা দেবে যাবে। আর যদি আঁচ কমাতে না চান, সেক্ষেত্রে পাত্রটা খানিকটা উপরে তুলে আলতো করে নাড়ান। এতেও দুধ উপচে পড়বে না।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৭:৫০

হলুদ খাওয়ার উপকারের কথা মোটামুটি সবারই জানা। তবে ত্বকের যত্নেও এর ব্যবহার হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে।

 

উজ্জ্বলতা বাড়ায়

আগে থেকেই কাঁচা হলুদ গায়ে মাখার চল রয়েছে। বিভিন্ন উৎসবেও ত্বকে হলুদ মাখা হয়। মূলত হলুদে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও আন্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান মানুষের ত্বকের অনাকাঙ্ক্ষিত দাগ দূর করে উজ্জ্বলতা বাড়ায়। দই, মধু ও হলুদ দিয়ে পেস্ট বানিয়ে মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে ২০/২৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

 

ব্রণ দূর করে

ব্রণ নিয়ে টিনএজ বয়স থেকেই শুরু হয় মাথাব্যথা। হলুদ মিশ্রিত একটি প্যাক ব্রণ সমস্যা দূর করতে পারে সহজেই। এক চা চামচ দই ও এক চা চামচ মুলতানি মাটির  সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে সঙ্গে খানিকটা গোলাপ জল দিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এবার মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত এ প্যাক ব্যবহারে ব্রণ যাবে পালিয়ে।

 

কালো দাগ হটাতে

মুখে বা চোখের নিচে কালো দাগ (ডার্ক সার্কেল) দূর করতে দুই টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ায় এক টেবিল চামচ দই ও দুই ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে প্যাক বানান। দাগের ওপর লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর ধুয়ে ফেলুন। এভাবে চালিয়ে যেতে হবে কয়েকদিন।

 

ফাটা দাগ দূর করে

বিশেষ করে সন্তান জন্মদানের পর মায়েদের পেটের নিচে ফাটা দাগ দেখা দেয়। এক টেবিল চামচ নারিকেল তেলের সঙ্গে আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে ফাটা দাগের জায়গাগুলোতে মেখে রাখুন এক ঘণ্টা পর্যন্ত। তারপর ধুয়ে ফেলুন। এভাবে নিয়মিত ব্যবহার করুন।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৫:৩৬

পুষ্টির বিচারে মিষ্টি আলু স্বাভাবিক গোল আলুর মতো নয়। বরং ওটার চেয়ে ঢের এগিয়ে। একটি মাঝারি মিষ্টি আলুতেই প্রতিদিনকার চাহিদার চেয়ে চার গুণ বেশি ভিটামিন এ আছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি হৃৎপিণ্ড ও কিডনি ভালো রাখার উপাদানও আছে এতে। ফাইবারেরও বেশ ভালো উৎস মিষ্টি আলু। আছে ভিটামিন বি, সি, ডি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম, থায়ামিন ও জিংক।

 

মিষ্টি আলুর ক্ষীর বানাতে যা যা লাগবে

  • ২ টেবিল চামচ ঘি।
  • ৪ কাপ দুধ।
  • ১ চা চামচ সবুজ এলাচ গুঁড়ো।
  • ৬টা কাঠবাদাম কুচি।
  • ৫০০ গ্রাম মিষ্টি আলু, গ্রেট করা।
  • ৬টা কাজুবাদাম কুচি।
  • দেড় কাপ চিনি।
  • ৫-৬ টুকরো জাফরান।

 

যেভাবে বানাবেন

  • একটি প্যানে মাঝারি আঁচে ঘি ঢালুন। গরম হয়ে এলে তাতে বাদামকুচিগুলো ভাজুন। বাদামের রং বাদামি হয়ে এলে তুলে রাখুন। বাড়তি ঘি-টাও রেখে দিন।
  • ওই প্যানে এবার গ্রেট করা মিষ্টি আলুর কুচিগুলো দিয়ে নেড়েচেড়ে পাঁচ মিনিট ভাজুন।
  • আলু খানিকটা নরম হয়ে আসতে শুরু করলে তাতে দুধ দিন। ১০ মিনিট রান্না করুন। এরপর চিনি ঢেলে নেড়েচেড়ে ভালো করে মিশিয়ে আরও ৫ মিনিট মাঝারি আঁচে রাখুন।
  • এলাচ গুঁড়ো ও জাফরান দিয়ে আরও ২-৩ মিনিট রান্না করুন।
  • এরপর আঁচ কমিয়ে তাতে ভেজে রাখা বাদামকুচি মিশিয়ে দিন। চাইলে গরম গরম পরিবেশন করতে পারেন, কিংবা রেখে দিতে পারেন ফ্রিজে।

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:০০

মাছ কিনতে বাজারে গেলেই বিপদে পড়ে যান অনেকে। মাছ টিপেটুপেও নিশ্চিত হতে পারেন না। সিদ্ধান্তহীনতায় কেটে যায় অনেকটা সময়। দরদামের চেয়েও তাদের টেনশনটা হলো, মাছ পচা হবে না তো? তাদের জন্য রইলো তাজা মাছ চেনার সহজ কিছু টিপস।

 

নাকের ওপর ভরসা

কাজটা একটু অস্বস্তিকর মনে হতে পারে। তবে তাজা মাছ চিনতে এটা বেশ কাজের। মাছটাকে সম্ভব হলে নাকের কাছে নিয়ে গন্ধ শুঁকে দেখুন। তাজা মাছ হলে বিশেষ কোনও গন্ধ পাবেন না। নদী বা সমুদ্রের তাজা মাছ হলে খানিকটা শ্যাওলা পানির গন্ধ পেতে পারেন। তবে সেটা নাকে ধাক্কা দেবে না। আর যদি কড়া আঁশটে গন্ধ পান, তবে বুঝতে হবে মাছটা পুরোপুরি পচা না হলেও বাসি। কিছু সময় পরই পচন ধরবে। এই গন্ধটা রান্নার পরও থাকবে।

 

চোখ লুকানো যায় না

মাছে যতই রাসায়নিক দেওয়া হোক, এর চোখ কিন্তু ঢাকা যায় না। তাই হাত দিয়ে ধরার আগে মাছের চোখ দেখুন। তাজা মাছের চোখটাও জ্বলজ্বলে হবে। চোখ যত সাদা ও ঘোলাটে হবে, ধরে নিতে হবে মাছটা তত পচে যাওয়ার কাছাকাছি পর্যায়ে আছে।

 

ত্বক পরীক্ষা

তাজা মাছের বাহ্যিকটা হবে বেশ চকচকে, যাকে বলে মেটালিক টেক্সচার। বাসি মাছের ত্বক হবে ফ্যাকাসে। আবার তাজা মাছের গায়ে জোরে হাত দিয়ে ঘষা দিলেও সহজে আঁশ ছুটে আসবে না। সবশেষে অনেকের মতো মাছটা টিপেও দেখুন। আঙুল সরানোর সঙ্গে সঙ্গে যদি বাউন্স করে আবার ত্বক সমান হয়ে যায় তবে মাছটা তাজাই আছে। পচা হলে দেবেই থাকবে কিংবা উঠে আসতে সময় লাগবে।

 

কানকোর রঙ

তাজা মাছের কানকো হাত দিয়ে তুলে দেখাতে বিক্রেতারা সবসময়ই তৎপর। তাজা মাছের কানকোর রঙ দেখতে ভেজা মনে হবে। আর বাসি মাছ হলে কানকোর রঙটাকে শুকিয়ে যাওয়া মনে হবে। আবার আঙুল দিয়ে পরীক্ষা করে দেখুন, রংটা আসল না নকল। তাজা মাছের কানকোর রঙটা হয় সচরাচর গাঢ় লাল বা মেরুন রঙের।

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

সর্বশেষ

খুলনার চার হাসপাতালে ১৩ মৃত্যু

খুলনার চার হাসপাতালে ১৩ মৃত্যু

আশুলিয়ায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যার চেষ্টা

আশুলিয়ায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যার চেষ্টা

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

ঈদের আগের লকডাউনে বেশি কঠোর ছিল পুলিশ

ঈদের আগের লকডাউনে বেশি কঠোর ছিল পুলিশ

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৭ দিনে ৪৭৪ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৭ দিনে ৪৭৪ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৯ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৯ মৃত্যু

ভালো নেই নেত্রকোনার মিলন বয়াতি

ভালো নেই নেত্রকোনার মিলন বয়াতি

ফেরিঘাট সরানো পদ্মা সেতুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ: প্রকৌশলী

ফেরিঘাট সরানো পদ্মা সেতুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ: প্রকৌশলী

করোনায় চট্টগ্রামে রেকর্ড মৃত্যু, শনাক্ত ১৩১০ জন

করোনায় চট্টগ্রামে রেকর্ড মৃত্যু, শনাক্ত ১৩১০ জন

সব মামলায় জামিনের মেয়াদ আরও এক দফা বাড়লো

সব মামলায় জামিনের মেয়াদ আরও এক দফা বাড়লো

সরকার স্টার্টআপ সংস্কৃতি গড়ে তুলতে নতুন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে: পলক

সরকার স্টার্টআপ সংস্কৃতি গড়ে তুলতে নতুন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে: পলক

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune