X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

কয়লা চাই সবার, জ্বালানিতে মহামারির ইঙ্গিত?

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ২২:২৬

করোনা কালে ডিকশনারিতে যে কয়টি শব্দ শান-শওকতের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে সেগুলোর মধ্যে একটি হলো ‘প্যানিক বায়িং’। বাংলা করলে দাঁড়ায়- দ্বিগবিদিক জ্ঞানশূন্য হইয়া কেনাকাটা। ওই সময় অস্ট্রেলীয়দের দেদার টয়লেট টিসু কেনার খবর নিয়ে হাসাহাসি করেছিল বাদবাকি বিশ্ব। এবারও শুরু হয়েছে আরেক মহামারি। জ্বালানি সংকটে পড়তে যাচ্ছে গোটা দুনিয়া। যথারীতি শুরু হয়েছে প্যানিক বায়িং। এবারের ক্রেতারা ভিন্ন। সাধারণ মানুষ তো বটেই, দ্বিগবিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে জ্বালানি সংগ্রহে মেতেছে বড় অর্থনীতির দেশগুলোও। পেট্রোল পাম্পগুলোতেও দারুণ ভিড়। যার গাড়িই নেই, তিনিও কিনে রাখছেন গ্যালনে গ্যালনে পেট্রোল। রিজার্ভের দাপট দেখানো বড় দেশগুলোর এমন আখের গোছানোর মধ্যে উন্নয়নশীল ও অনুন্নত দেশগুলোর আপাতত চেয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার নেই যেন।

৫০ বছর পর বিশ্ব আবার চরম জ্বালানি বিপর্যয়ের মুখে। ইউরোপ ও আসিয়ান দেশগুলোতে তেলের দাম সর্বকালের সেরা অবস্থায় আছে। কয়লার উৎপাদন কমে আসায় ব্ল্যাকআউটের আশঙ্কায় আছে ভারত, চীন ও জার্মানি। করোনা থেকে অর্থনীতিকে টেনে তোলার জন্য পোড়াতে হচ্ছে অনেক বেশি কয়লা, কেউ বলছেন নষ্টের গোড়া ওই অর্থনীতি। চীনও যেভাবে পারছে প্যানিক বায়ারের মতো কয়লা আর তেল-গ্যাস মজুত করে চলেছে। পশ্চিমে তেল সরবরাহ করতে চাচ্ছে না রাশিয়া। ওদিকে বহুদিনের গোস্বা ভেঙে অস্ট্রেলিয়ার ওপর থেকে তেল রফতানির নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে দেওয়ার পথে আছে চীন। এমন খবর পেয়ে যথারীতি টয়লেট পেপার ছুড়ে এখন ডিজেল-পেট্রোলের দিকে ছুটছে অস্ট্রেলিয়ান ক্রেতারা। পাছে আবার তাদের সরকার চড়া দাম পেয়ে সব তেল চীনে পাঠিয়ে দেয়!

টয়লেট পেপার ছুড়ে এখন ডিজেল-পেট্রোলের দিকে ছুটছে অস্ট্রেলিয়ান ক্রেতারা

বৈশ্বিক আতঙ্ক ছড়াতে এ কয়টি ঘটনাই যথেষ্ট। কিন্তু এর মধ্যে আবার সংকটের আগুনে ফুঁ দিচ্ছে উইন্ডমিলের মৃদুমন্দ বাতাসও। ব্রিটেনের মোট বিদ্যুতের ২৪ ভাগই আসতো বায়ুকল থেকে। গেলো গ্রীষ্মে সেটাও তলানিতে ঠেকেছে। জার্মানিতেও কলের পাখা ঘোরানোর মতো বাতাস বইছে না। ব্রিটেন এত দিন কয়লা বাদ দিয়ে বিকল্প জ্বালানি নিয়ে সরব ছিল। তারাও এখন বাধ্য হয়ে আবার কয়লায় হাত ময়লা করার কথা ভাবছে। অবশ্য আরও একটি ছোটখাটো সমস্যায় আছে দেশটি। তেলবাহী লরি চালানোর মতো চালক পাওয়া যাচ্ছে না ব্রিটেনে। অনেক স্টেশনে তাই গ্যাস যাচ্ছে না। যার কারণে ক্রেতারাও যে যার মতো ড্রামে ভরে তেল জমাচ্ছেন গ্যারেজে।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার দেশে বয়ে চলা বাতাসের ওপর অতিমাত্রায় আস্থা রেখে ব্রিটিশদের আশ্বাস দিচ্ছেন এই বলে যে, ব্রিটেনেই হবে ‘বায়ু-জ্বালানির সৌদি আরব।’ তার পরিকল্পনা ঠিকঠাক এগোলে সমুদ্র তীরবর্তী বায়ুকলগুলো অবশ্য ব্রিটেনের প্রতিটি বাড়ির বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে পারবে। কিন্তু এই মস্ত বড় ‘যদি’টার নিয়ন্ত্রণভার পুরোপুরি প্রকৃতির হাতে। জলবায়ুর গোয়ার্তুমিতে আদৌ আর বাতাস বইবে কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ করাই যায়।

বৈশ্বিক জ্বালানি নিয়ে জটিল সব সমীকরণের একটি সমাধান আছে ওপেক প্লাস-এর হাতে (ওপেক ও রাশিয়ার তেল উৎপানকারীদের মিলে)। তারা উৎপাদন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তবে সেটাও মেপে মেপে। এর মাঝে যদি তেল কূটনীতি নিয়ে ব্রিটেন ও জার্মানির সঙ্গে রাশিয়ার একটা ইতিবাচক দফারফা হয়, তবে ২০২২ সালের মাঝামাঝিতে তেলের দাম ফের খানিকটা পড়তে পারে।  

তেলের বাজারে এমন চাপাচাপি দশাতেই বেড়েছে কয়লার দাম। আর এটা এমন এক বস্তু, যার ওপর নির্ভর করছে গোটা দেশের ভবিষ্যৎ। এশিয়ায় এরইমধ্যে দেখা গেছে, চাহিদার তুলনায় কয়লার রিজার্ভ নেই। চীনে আসন্ন বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণ এটাই। এ কারণে ক’দিন আগে কয়লা ছেড়ে হাত ধুয়ে ফেললেও এখন আতঙ্কে পড়ে দূষণের চিন্তা বাদ দিয়ে ফের কয়লা পকেটে পুরতে শুরু করেছে ১৪০ কোটি জনসংখ্যার দেশটি। একই কাজে ব্যস্ত আরেক বৃহৎ জনগোষ্ঠীর দেশ ভারতও।

ওদিকে, ইউরোপে বেশ ক’টি নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট বন্ধ হয়ে হয়েছে আগেই। সেখানেও বাড়ছে তেলের দাম, বাড়ছে কয়লার চাহিদা। অস্ট্রেলিয়ার নিউক্যাসল নামের উন্নতমানের কয়লার দাম সম্প্রতি আড়াই গুণ বেড়েছে। গত ১৩ বছরের মধ্যে যা সর্বোচ্চ।

 

কী করছে মধ্যপ্রাচ্য?

বিশ্বের সবচেয়ে বড় এলএনজি সরবরাহকারী কাতার জানিয়েছে, জ্বালানির দাম কমাতে তাদের তেমন কিছু করার নেই। কারণ তাদের হাতে রফতানি করার মতো পর্যাপ্ত রিজার্ভ নেই। ‘আমরা আমাদের সর্বোচ্চটা দিয়েছি। ক্রেতারা আমাদের কাছে যে পরিমাণ গ্যাস পাওনা ছিল, তার পুরোটাই শোধ করেছি’, রয়টার্সকে এমনটা জানালেন কাতারের জ্বালানিমন্ত্রী সাদ আল কাবি।

এদিকে এ বিপর্যয়ে সৌদি আরব বেছে নিয়ে বাণিজ্যিক সুবিধা। বাড়তি চাহিদাটাকে ধরে রাখতে উৎপাদনে লাগাম টেনে আছে দেশটির সবচেয়ে বড় তেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান অ্যারামকো। প্রতিষ্ঠানটির বাজারমূল্য এখন প্রায় ২ লাখ কোটি ডলার। জ্বালানি সংকট চলতে থাকলে অচিরেই কোম্পানিটি মাইক্রোসফট (২.১ ট্রিলিয়ন) ও অ্যাপলকে (২.৩ ট্রিলিয়ন) ছাড়িয়ে যাবে।

কার্বন নিঃসরণের দায়ভার নিয়ে সৌদি আরবকে ইউরোপ কম কথা শোনায়নি, সেটারই হয়তো শোধ নিচ্ছে তেলের মহাজনেরা

মধ্যপ্রাচ্যে তেলের দাম, মজুত ও উৎপাদনের পরিসংখ্যান বলছে, কয়লার বিপর্যয়টা প্রাকৃতিক হলেও মূলত জ্বালানির ভবিষ্যৎ চাবিটা মধ্যপ্রাচ্যের হাতেই। এতদিন কার্বন নিঃসরণের দায়ভার নিয়ে সৌদি আরবকে ইউরোপ কম কথা শোনায়নি। সেটারই হয়তো শোধ নিচ্ছে তেলের মহাজনেরা। উৎপাদনে লাগাম টেনে দাম বাড়িয়ে বাকিদের বোঝাতে চাইছে, জলবায়ু নিয়ে যতই বড় বড় কথা বলো, তেল ছাড়া তোমাদের চলেই না!

আর এসব বিপর্যয়ের ঘনঘটার মাঝে গ্লাসগোতে ৩১ অক্টোবর শুরু হতে যাচ্ছে কপ-২৬ সম্মেলন। জলবায়ুর পরিবর্তন নিয়ে সেখানে কথাবার্তা বলবেন বিশ্বনেতারা। প্রশ্ন হলো, কয়লার পেছনে ছোটাছুটি করতে থাকা দেশগুলোর কারণে ওই সম্মেলন কি আদৌ হালে বাতাস পাবে?

তথ্যসূত্র: আল মনিটর ডট কম, দ্য কনভারসেশন ডট কম, হারেৎজ ডট কম।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে তাড়িয়ে দেওয়ার দাবি রাশিয়ার

মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে তাড়িয়ে দেওয়ার দাবি রাশিয়ার

চীনে ‘কোরান মজিদ’ অ্যাপ নিষিদ্ধ করলো অ্যাপল

চীনে ‘কোরান মজিদ’ অ্যাপ নিষিদ্ধ করলো অ্যাপল

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:২০

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। শনিবার অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস (এইমস) কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ডেঙ্গু শনাক্তের পর তার স্বাস্থ্যের অবস্থা ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া এখবর জানিয়েছে।

৮৯ বছর বয়সী কংগ্রেস নেতাকে বুধবার এইমস-এ ভর্তি করা হয়। জ্বরের পর শারীরিক দুর্বলতা দেখা দেওয়ার পরই তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল।

শনিবার এক এইমস কর্মকর্তা বলেন, তার দেহে ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে। কিন্তু এখন তার প্লাটিলেটের সংখ্যা বাড়ছে এবং পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে।

মনমোহন সিংকে হাসপাতালটির একটি বেসরকারি কার্ডিও-নিউরো ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। তার চিকিৎসার দায়িত্বে রয়েছে ড. নিতিশ নায়েকের নেতৃত্বাধীন একটি টিম।

ভারতীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী মানসুখ মান্দাভিয়া বৃহস্পতিবার মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে দেখা করে স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর নিয়েছেন। তবে অভিযোগ উঠেছে, তিনি সঙ্গে করে একজন ফটোগ্রাফার নিয়ে গেছেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে দামান সিং মান্দাভিয়ার সমালোচনা করেছেন। তিনি দাবি করেছেন, পরিবারের অনুমতির বিরুদ্ধে ফটোগ্রাফার নিয়ে গেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

কাশ্মিরে চিরুনি অভিযান ভারতীয় বাহিনীর

কাশ্মিরে চিরুনি অভিযান ভারতীয় বাহিনীর

যুদ্ধের মূল্য দিতে হচ্ছে ‘বিয়ে’ করে

যুদ্ধের মূল্য দিতে হচ্ছে ‘বিয়ে’ করে

'নিরীহ' কাশ্মিরিদের হত্যা করেছে ভারত, দাবি পাকিস্তানের

'নিরীহ' কাশ্মিরিদের হত্যা করেছে ভারত, দাবি পাকিস্তানের

কাশ্মিরে চিরুনি অভিযান ভারতীয় বাহিনীর

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৫৮

অধিকৃত কাশ্মিরে ভারতীয় বাহিনীর চিরুনি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। উপত্যকার পুঞ্চ জেলায় এই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। সোমবার থেকে শুরু হওয়া এই বিশেষ অভিযানে ইতোমধ্যেই কয়েকজন জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে।

প্রথমে পাঁচ এবং পরে আরও দুই জওয়ানের মৃত্যুর খবর দিয়েছে ভারতীয় বাহিনী। শুক্রবার বিক্রম সিংহ নেগি ও যোগাম্বর সিংহ নামে দুই জওয়ানের মৃত্যুর খবর জানানো হয়। আগের বৃহস্পতিবার জানানো হয়েছিল, জঙ্গলের মধ্যে কাশ্মিরের স্বাধীনতার দাবিতে লড়াইরত বিদ্রোহীদের সঙ্গে গোলাগুলির সময় দুই জওয়ান আহত হয়েছে। এখনও পর্যন্ত তারা নিখোঁজ।

সেনাবাহিনীর তরফে শুক্রবার দুই জওয়ানের মৃত্যুর খবর প্রকাশ করা হলেও আহত দুই জনের বিষয়ে কোনও তথ্য জানানো হয়নি। সামরিক বাহিনীর একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘নিখোঁজ জওয়ানদের খোঁজ পেতে ইতোমধ্যে তল্লাশি শুরু হয়েছে। সন্ধান পেলেই এই বিষয়ে খবর দেওয়া হবে।’

শনিবার থেকে আহত দুই জওয়ানের সন্ধানে নতুন করে চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছে সেনাবাহিনী। তবে মেন্ধার সাব ডিভিশন এলাকার জঙ্গলে এখনও বিদ্রোহীরা লুকিয়ে থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছে ভারতীয় সেনারা। তাই খুব সাবধানে পা ফেলতে হচ্ছে তাদের।

এ ধরনের অভিযান সাধারণ এতো দীর্ঘ সময় ধরে চালানো হয় না। কিন্তু এক্ষেত্রে প্রায় ছয় দিন ধরে নানা পথে অভিযান চালাচ্ছে ভারতীয় বাহিনী। দিল্লির তরফে এখনও পর্যন্ত কোনও বিদ্রোহীর মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে ভারতের বিরুদ্ধে গত সপ্তাহে কাশ্মিরে অন্তত ১০ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা এবং সহস্রাধিক মানুষকে আটকের অভিযোগ করেছে ইসলামাবাদ।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আছিম ইফতিখার আহমেদ দাবি করেন, নিহতদের মরদেহ এমনকি পরিবারের সদস্যদের কাছেও হস্তান্তর করা হয়নি। কাশ্মিরের মানুষের মানবাধিকার রক্ষায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। সূত্র: আনন্দবাজার, আনাদোলু এজেন্সি।

/এমপি/

সম্পর্কিত

যুদ্ধের মূল্য দিতে হচ্ছে ‘বিয়ে’ করে

যুদ্ধের মূল্য দিতে হচ্ছে ‘বিয়ে’ করে

'নিরীহ' কাশ্মিরিদের হত্যা করেছে ভারত, দাবি পাকিস্তানের

'নিরীহ' কাশ্মিরিদের হত্যা করেছে ভারত, দাবি পাকিস্তানের

‘ভালোবাসার কোনও ভাষা নেই’

‘ভালোবাসার কোনও ভাষা নেই’

আসিয়ান সম্মেলন থেকে বাদ মিয়ানমারের জান্তা প্রধান

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:২০

প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ হওয়ায় দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ানের আসন্ন শীর্ষ সম্মেলন থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে মিয়ানমারের সেনা প্রধান মিন অং হ্লাইং-কে। শনিবার (১৬ অক্টোবর) এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে আসিয়ান। এমন পদক্ষেপকে বিরল ঘটনা বলছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

চলতি মাসের ২৬ থেকে ২৮ অক্টোবর আসিয়ানের ভার্চুয়াল সম্মেলন বসতে যাচ্ছে। ওই সম্মেলনে মিয়ানমারের সেনা প্রধানকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়। তার আগে মিয়ানমারে শান্তি ফিরিয়ে আনতে গত এপ্রিলে আসিয়ানের সঙ্গে পাঁচ দফা একটি পরিকল্পনায় সম্মত হয় জান্তা সরকার। কিন্তু এই পাঁচ দফার কোনটিই মানা হয়নি। এ নিয়ে শুক্রবার বৈঠকে বসেন আসিয়ানের সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

পরে এক বিবৃতিতে মিন অং হ্লাইনকে বাদ দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে মিয়ানমার থেকে একটি অরাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিকে আসিয়ান সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সেনাবাহিনী অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে উৎখাতের পর থেকেই দেশটিতে বিশৃঙ্খলা চলছে। ওই সময়ে দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেন সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং। এরপরই দেশটির ভেতর-বাইরে তৈরি হয় ক্ষোভ। চলমান জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত এক হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। আটক হয়েছেন হাজারো মানুষ।

/এলকে/

সম্পর্কিত

আসিয়ান সম্মেলনে মিয়ানমার জান্তা প্রধানকে বাদ দিতে আলোচনা

আসিয়ান সম্মেলনে মিয়ানমার জান্তা প্রধানকে বাদ দিতে আলোচনা

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যার নথি প্রকাশে ফেসবুকের আপত্তি

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যার নথি প্রকাশে ফেসবুকের আপত্তি

সু চির সঙ্গে দেখা করতে পারবেন না আসিয়ান দূত: মিয়ানমার জান্তা

সু চির সঙ্গে দেখা করতে পারবেন না আসিয়ান দূত: মিয়ানমার জান্তা

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:০৬

যুক্তরাজ্যে এম‌পি খুনের ঘটনার সঙ্গে জ‌ঙ্গিবাদের সম্পর্ক রয়েছে। পুলিশের এমন সন্দেহের খবরে দেশটির মুস‌লিম ক‌মিউনিটিতে নতুন করে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে।

শুক্রবার দুপুরে নির্বাচনি এলাকার ভোটারদের সঙ্গে বৈঠককালে ছুরিকাঘাতে নিহত হন ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির এমপি ডেভিড অ্যামেস। এ ঘটনায় ছুরিসহ আটক হওয়া ঘাতক ২৫ বছরের সোমালীয় বংশোদ্ভূত এক ব্রিটিশ না‌গ‌রিককে শুক্রবার ঘটনার পরপরই গ্রেফতার করে পুলিশ। তবে শ‌নিবার সকালে তার প‌রিচয় প্রকাশ করা হয়। এদিন এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মুসলিম জঙ্গিদের সংশ্লিষ্টতার কথা জানায় পুলিশ।

ব্রিটিশ সরকারের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো দেশটিতে জঙ্গি হামলার শঙ্কার কথা জানান দি‌চ্ছিল। এর মধ্যেই একজন পার্লামেন্টারিয়ানের হত্যার ঘটনায় মুস‌লিম জঙ্গিবাদের সং‌শ্লিষ্টতার খবরকে উদ্বেগজনক হিসেবে দেখছেন মুসলিম ক‌মিউ‌নি‌টির নেতারা।

যুক্তরাজ্যে মুসলিমদের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। ৩০ লাখের বেশি মুসলিমের মধ্যে অন্তত সাত লাখই বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত।

সাউথ লন্ডনের লেবার পা‌র্টির প্রবীণ নেতা মোহাম্মদ ইসলাম। এবার তি‌নি ক্রয়োডন কাউন্সিলে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শনিবার সকালে বাংলা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, এই ঘটনা নিঃসন্দেহে ব্রিটিশ মুসলিমদের বিপাকে ফেলবে। যুক্তরাজ্যের মুসলিম কমিউনিটিতে এই মুহূর্তে বাংলাদেশিরা নানা সেক্টরে নেতৃত্ব দিচ্ছে। সেই সময়ে এই ঘটনা নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য উদ্বেগের।

এই ঘটনায় যুক্তরাজ্যে ইউকিপ, উগ্র ডানপন্থী ব্রিটিশ ন্যাশনাল পার্টির মতো বর্ণবাদী দলগুলো সুযোগ পাবে। অতীতের ঘটনাগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এ ধরনের কোনও জঙ্গি হামলার পর যুক্তরাজ্যে হেট ক্রাইম বা বিদ্বেষমূলক অপরাধ বেড়ে যায়। আর এসবের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হন মুসলিমরা। বিশেষ করে দা‌ড়িওয়াল‌া মানুষ, হিজাব প‌রি‌হিতা মুস‌লিম নারীরা হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হন।

মোহাম্মদ ইসলাম বলেন, ইসলাম সব সময় সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। এই সত‌্যকে ধারণের পাশাপা‌শি আমাদের সন্তানদের প্রজন্মকে জ‌ঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সচেতন করে তুলতে হবে।

‘বেকায়দায় পড়বেন ব্রিটিশ মুসলিমরা’

বাংলাদেশি ক‌মিউ‌নি‌টির বর্ষীয়ান সাংবা‌দিক, লেখক ড. রেনু লুৎফা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, পৃথিবীতে মুসলমানদের খুবই খারাপ সময় যাচ্ছে। প্রধান কারণ হলো অশিক্ষা ও কুশিক্ষা। সন্দেহ নেই এই ঘটনা ব্রিটিশ মুসলিমদের বেকায়দায় ফেলবে। তবে নিরাপত্তার জন্য এখন ব্রিটিশ সরকার যে আইন করবে তাতে মুসলমানদের আলাদা করে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনও কারণ আছে বলে মনে হয় না।  মিডিয়া একে মুসলিম নাম দেবে। কিন্তু উগ্রবাদীর কোনও ধর্ম নেই। যেমন এম‌পি জো কক্সের হত্যাকারীরও ছিল না। ব্রিটিশ মুসলমানদের উচিৎ, এই অপরাধী ও অপরাধের বিরুদ্বে কথা বলা, জনমত গঠনে কাজ করা।

লন্ডনের চ্যান্সেরি সলিসিটার্সের মালিক ও বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার ইকবাল হোসেন বলেন, অতীতেও আমরা দেখেছি যখনই কোনও ঘটনায় মুসলমানের নাম আসে তখন পুরো সম্প্রদায়কে জড়িত করা হয়। এটি বিশ্বজুড়েই হচ্ছে। কিন্তু বহু জাতি ও ধর্মের মানুষকে একসঙ্গে ধারণ করা ব্রিটেনের মূলধারার সংবাদমাধ্যমের কাছে আমরা এটা আশা করি না। ব্যক্তির অপরাধ বা সংশ্লিষ্টতার যে কোনও ঘটনায় পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আগে কোনও ধর্ম বা সম্প্রদায়ের ওপর দোষ চাপানো অনুচিত।

তিনি আরও বলেন, একজন সংসদ সদস্য বা যে কোনও মানুষকে খুন করার মতো জঘন্য কাজের সঙ্গে ধর্ম বা বিশ্বাসের কোনও সম্পর্ক থাকতে পারে না।

/এমপি/

সম্পর্কিত

ব্রিটিশ এমপি হত্যাকাণ্ড ‘সন্ত্রাসী ঘটনা’ : পুলিশ

ব্রিটিশ এমপি হত্যাকাণ্ড ‘সন্ত্রাসী ঘটনা’ : পুলিশ

ব্রিটে‌নে এম‌পি খুন, বাংলাদেশি ক‌মিউ‌নি‌টি‌তে উ‌দ্বেগ

ব্রিটে‌নে এম‌পি খুন, বাংলাদেশি ক‌মিউ‌নি‌টি‌তে উ‌দ্বেগ

৪৩ হাজার মানুষকে করোনার ভুয়া রিপোর্ট প্রদান!

৪৩ হাজার মানুষকে করোনার ভুয়া রিপোর্ট প্রদান!

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

আইনের শাসন সূচকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৪

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৬:০৫

বিশ্বে ১৩৯ দেশের আইনের শাসন সূচকে একধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। নতুন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে ১২৪। গত বছর বৈশ্বিক আইনের শাসন সূচকে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ০.৪১, এ বছর কমে দাঁড়িয়েছে ০.৪০-এ। আর দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ।

তালিকায় নেপালের অবস্থান ৭০, শ্রীলঙ্কা ৭৬ এবং ভারত ৭৯ তম অবস্থানে। তলানিতে থাকা পাকিস্তান ১৩৪ এবং আফগানিস্তান ১৩০-এ। বৃহস্পতিবার ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রজেক্ট রুল অব ল ইনডেক্সের প্রকাশিত সূচকে এমন তথ্য উঠে এসেছে। 

সংস্থাটি ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে আইনের শাসনের সূচক প্রকাশ করে আসছে। ডব্লিউজেপির সূচকে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে বৈশ্বিকভাবে শীর্ষে অবস্থান করছে ইউরোপের স্ক্যান্ডিনেভীয় অঞ্চলের তিন দেশ নরওয়ে, ডেনমার্ক ও ফিনল্যান্ড। অপরদিকে, সর্বনিম্নে অবস্থানকারী তিন দেশ হলো গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গো, কম্বোডিয়া এবং ভেনেজুয়েলা।

আটটি বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আইনের শাসনের এই সূচক করে ডব্লিউজেপি। এগুলোর মধ্যে সরকারি ক্ষমতা, সরকারি উন্মুক্ততা, দুর্নীতি, মৌলিক অধিকার, আদেশ ও নিরাপত্তা, নিয়ন্ত্রণ প্রয়োগ এবং ফৌজদারি ও নাগরিক বিচার ব্যবস্থার সীমাবদ্ধতা। মোট ৪৪টি বিষয় দেখা হয় এখানে।

সূচকে এসেছে, আইনের শাসন সংক্রান্ত বিষয়ে ‘অর্ডার অ্যান্ড সিকিউরিটি’ বিভাগে ভালোভাবে কাজ করেছে বাংলাদেশ। এ সম্পর্কে ডব্লিউজেপি জানিয়েছে, বাংলাদেশ কার্যকরভাবে অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সক্ষম হয়েছে। এমনিক অভ্যন্তরীণ সংঘাত বেশ ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

কৃষক আন্দোলন: হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে ব্যাপক সংঘর্ষ

কৃষক আন্দোলন: হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে ব্যাপক সংঘর্ষ

মৃত্যুদণ্ড বাতিল করছে সিয়েরা লিওন

মৃত্যুদণ্ড বাতিল করছে সিয়েরা লিওন

উইঘুর মুসলিম নির্যাতন, চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর পদক্ষেপ

উইঘুর মুসলিম নির্যাতন, চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর পদক্ষেপ

নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধের চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেলো তুরস্ক

নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধের চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেলো তুরস্ক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে তাড়িয়ে দেওয়ার দাবি রাশিয়ার

মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে তাড়িয়ে দেওয়ার দাবি রাশিয়ার

চীনে ‘কোরান মজিদ’ অ্যাপ নিষিদ্ধ করলো অ্যাপল

চীনে ‘কোরান মজিদ’ অ্যাপ নিষিদ্ধ করলো অ্যাপল

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ব্রিটিশ এমপিকে একাধিক ছুরিকাঘাত

ব্রিটিশ এমপিকে একাধিক ছুরিকাঘাত

সশরীরে জলবায়ু সম্মেলনে থাকছেন না চীনা প্রেসিডেন্ট

সশরীরে জলবায়ু সম্মেলনে থাকছেন না চীনা প্রেসিডেন্ট

চাপে পড়ে জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

চাপে পড়ে জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

সীমান্ত বিরোধ নিরসনে ভুটান-চীন চুক্তি স্বাক্ষর, সতর্ক প্রতিক্রিয়া ভারতের

সীমান্ত বিরোধ নিরসনে ভুটান-চীন চুক্তি স্বাক্ষর, সতর্ক প্রতিক্রিয়া ভারতের

বৈরুতের সহিংসতার ঘটনায় ক্ষমা চাইলেন লেবানিজ প্রধানমন্ত্রী

বৈরুতের সহিংসতার ঘটনায় ক্ষমা চাইলেন লেবানিজ প্রধানমন্ত্রী

শুক্রবার শোক দিবস পালন করবে লেবানন

শুক্রবার শোক দিবস পালন করবে লেবানন

সর্বশেষ

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ওমানে বিশ্বকাপে নামছে বাংলাদেশ, দেশে বসে থাকছেন না মুমিনুল-শান্তরাও

ওমানে বিশ্বকাপে নামছে বাংলাদেশ, দেশে বসে থাকছেন না মুমিনুল-শান্তরাও

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

শাহরুখপুত্রকে ধরতে পরিচিতদের সাক্ষী বানিয়েছিল এনসিবি!

শাহরুখপুত্রকে ধরতে পরিচিতদের সাক্ষী বানিয়েছিল এনসিবি!

© 2021 Bangla Tribune