X
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

একান্ত সাক্ষাৎকারে নূহ-উল আলম লেনিন

৫ জানুয়ারির নির্বাচন আদর্শ নির্বাচন ছিল না

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০১৬, ২২:৩৭

নূহ-উল আলম লেনিন ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচন আদর্শ নির্বাচন ছিল না  বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন। তবে, এর জন্যে বিএনপিকে দায়ী করেছেন তিনি। তার মতে, বিএনপি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিলে নিশ্চয়ই ওই নির্বাচন আরও গ্রহণযোগ্য হতো। বিএনপি নির্বাচন বয়কট করেছে বলেই দেড় শতাধিক সংসদ সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এর জন্যও দায়ী বিএনপি। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন, বিএনপির রাজনীতি, সরকারের সফলতা-ব্যর্থতা, আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনসহ সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ধানমণ্ডিতে তার নিজ কার্যালয়ে বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে কথা বলেন নূহ-উল আলম লেনিন।

বাংলা ট্রিবিউন: ২০০৮ সালের নির্বাচন ও ২০১৪ সালের নির্বাচনের মধ্যে গুণগত পার্থক্য আছে?

নূহ-উল আলম লেনিন: ২০০৮ সালের নির্বাচন ও ২০১৪ সালের নির্বাচনের মধ্যে গুণগত পার্থক্য আছে। ২০০৮ সালের নির্বাচনের আগে ছিল ১/১১ এর এক ধরনের সামরিক শাসন, ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত ও ‘মাইনাস টু’ ফর্মূলা। এমন পটভূমিতে  ২০০৮ সালের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই কারণে বলা যেতে পারে, মানুষ আওয়ামী লীগকে একেবারে সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিয়ে ক্ষমতায় নিয়ে এসেছে। ২০১৪ সালের নির্বাচন হয়েছে সংবিধান-গণতন্ত্র রক্ষার নির্বাচন। সংবিধান পরিবর্তন করা হয়েছে ২০০৯ সালের পরে। এ সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে বিধান ছিল, সেটা লোপ করা হয়েছে। সেটা শেখ হাসিনার নিজের ইচ্ছায়  হয়নি। উচ্চ আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে এটা বাদ দেওয়া হয়েছে। অথচ আন্দোলন হলো তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনকে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ঘোষণা করল এবং সেই পরিপ্রেক্ষিতে সংবিধান সংশোধন করা হলো। নবম জাতীয় সংসদ এটা করেছে। যেই সংসদে এটা পাশ হলো তার গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে তো কোনও প্রশ্ন নেই। এরপরও বিএনপি যদি আবার ওই একই দাবিতে আন্দোলন করে, তাহলে আন্দোলনটা কি সংবিধানসম্মত? না এটাকে প্রতিরোধ করা সংবিধান সম্মত? স্বাভাবিকভাবে ওই আন্দোলন বৈধ নয়, সংবিধানের পরিপন্থী। ওই আন্দোলন উচ্চ আদালতের রায়েরও বিরোধী।

এত কিছুর পরও নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে শেখ হাসিনা সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। ওই সময় শেখ হাসিনা বলেন, সংসদে যারা আছি, সবাই মিলে সরকার পরিচালনা করি। বিএনপির উদ্দেশে বলেছিলেন, আপনারা বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ কোন-কোন মন্ত্রণালয় চান। সেই প্রস্তাবও প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি। তারপরও আমরা চেয়েছিলাম সবাইকে নিয়ে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে। বিএনপি সেই পথে আসেনি। না এসে তারা নির্বাচন বর্জন করলেন। তারা ভেবেছিলেন নির্বাচন বর্জন করলেই তারা অতীতে যেভাবে ক্ষমতায় এসেছেন পেছনের দরজা দিয়ে, সেভাবে কেউ এসে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন এই সরকারকে ফেলে দেবেন। তারপর তারা বিএনপিকে ক্ষমতায় বসিয়ে দেবেন। অথবা এমন একটা নির্বাচনের ব্যবস্থা করবেন, যে নির্বাচনের ভেতর দিয়ে তারা ক্ষমতায় যাবেন। তাদের সেই স্বপ্নপূরণ করার জন্যেই তো বিএনপি নির্বাচন বয়কট করল তখন। কিন্তু আওয়ামী লীগ সেটা হতে দেয়নি। কারণ সংবিধান সংশোধন করার পরে সংবিধানকে রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব ছিল। মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার যেন বাধাগ্রস্ত না হয়, অব্যাহত থাকে, দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া যেন বাধাগ্রস্ত না হয়, তার জন্য ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি আমাদের নির্বাচন করতে হয়েছে।

বাংলা ট্রিবিউন: ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে আদর্শ নির্বাচন বলে মনে করেন?

নূহ-উল আলম লেনিন: ৫ জানুয়ারির নির্বাচন আদর্শ নির্বাচন হয়নি। কিন্তু এই নির্বাচনের ভেতর দিয়ে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা তো অব্যাহত আছে। বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে নিশ্চয়ই নির্বাচন আরও গ্রহণযোগ্য হতো। তবে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনও অগ্রহণযোগ্য হয়নি শেষ পর্যন্ত। বিএনপি নির্বাচন বয়কট করেছে ‘ডিসক্রেডিট’ করানোর জন্যে। কিন্তু বিশ্ব সম্প্রদায় কী করেছে, শেষ পর্যন্ত-দশম সংসদ নির্বাচনের ফল গ্রহণ করে নিয়েছে। তার বড় প্রমাণ হলো, বিশ্বের দুটো বড় পার্লামেন্টারিয়ান ফোরামে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে।  কোনও দেশ কি বলেছে, এই নির্বাচনের ফল বাতিল করে দাও। বাতিল না করলে সাহায্য বন্ধ, সম্পর্ক ছিন্ন। এটাতো কেউ বলেননি। বরং তারা বলেছেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে ভালো হতো। এটা আমরাও বলি, বিএনপি অংশগ্রহণ করলে ভালো হতো। নির্বাচন বয়কট করে বিএনপি ভুল করেছে। বিএনপি সেই ভুলের খেসারত দিচ্ছে। এখন তারা বিরোধী দলেও নেই। ‘লিগ্যাল অপজিশিনেও’ বিএনপি নেই।

বাংলা ট্রিবিউন: বিএনপিকে নির্বাচনে আনার জন্য পরবর্তী নির্বাচনেও কোনও প্রস্তাব আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আসতে পারে?

নূহ-উল আলম লেনিন: আমি মনে করি, প্রস্তাব যেহেতু একবার তারা প্রত্যাখ্যান করেছে দ্বিতীয় বার প্রস্তাব দেওয়ার কোনও প্রয়োজন আছে। এখন সংবিধানে যা বলা আছে, সেভাবেই নির্বাচন হবে। বিএনপিকে নাকে খত দিয়ে হলেও সেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে হবে। না হলে দলটা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। বিএনপিকে নির্বাচনে আসার জন্যে আমরা দরজা খোলা রেখেছি। যেহেতু পৌর, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছে, আমরা নিশ্চয়ই আশা করি, তাদের বোধোদয় ঘটবে এবং তারা আগামী সাধারণ নির্বাচনেও আসবে।

বাংলা ট্রিবিউন: বিএনপিতো মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি করে আসছে। সেই সম্ভাবনা কতটুকু?

নূহ-উল আলম লেনিন: মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি বিএনপির কর্মীদের বাঁচিয়ে রাখার জন্য। মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি না করলে কর্মীদের বাঁচিয়ে রাখবে কি দিয়ে বিএনপি। মধ্যবর্তী নির্বাচনের সম্ভাবনা কিঞ্চিত পরিমাণও নেই।

বাংলা ট্রিবিউন: আপনি তো এক সময়ে বাম রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন, বাম ধারার সংগঠন জাসদ ভাঙা কিভাবে দেখছেন?

নূহ-উল আলম লেনিন: কোনও দল ভাঙাটাকে আমি ‘পজিটিভ’লি দেখি না। জাসদ কেন ভাঙল, এটা জাসদের ব্যাপার। এ ব্যাপারে আমার মন্তব্য সাজে না। তবে আমি এটা বুঝি, মুক্তিযদ্ধের পক্ষের শক্তি জাসদ। দলটি যদি ভাঙে, তাদের শক্তি দুর্বল হবে। সঙ্গে-সঙ্গে আমি এও বলব, আমাদের বামপন্থী দলগুলো এখন অস্তিত্বের সংকটের ভেতর দিয়ে চলছে। ভাঙনেই তারা ওস্তাদ, গড়ায় ওস্তাদ নন। জাসদ এই নিয়ে কতবার ভাঙল?

বাংলা ট্রিবিউন: বিএনপি বহুদিন ধরে অভিযোগ করে আসছে, আওয়ামী লীগ দলটিকে ভাঙতে চায়?

নূহ-উল আলম লেনিন: বিএনপির দল ভাঙার অভিযোগ বোগাস! কোন লোকটাকে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগ নিয়ে এসেছে? আমরা নিয়ে এসেছি? বিএনপি দল ভেঙে দল করেছে। পাঁচমিশালী লোক নিয়ে বিনেপি গঠন করা হয়েছে। দল ভাঙার নীতিতে আওয়ামী লীগ বিশ্বাস করে না।

বাংলা ট্রিবিউন: আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায়। আপনার দৃষ্টিতে সরকারের বড় সফলতা কী?

নূহ-উল আলম লেনিন: বড় সফলতা হচ্ছে বিশ্বমন্দা মোকাবিলা করে বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখা। শুধু তাই নয়, এই অর্থনীতিকে একটা উন্নয়নের ধারার মধ্যে স্থিতিশীল রাখাও। যার ফলে মানুষের জীবনযাত্রার মান-উন্নয়ন ঘটেছে। মানুষের গড় আয়ু বেড়েছে, শিশু মৃত্যুর হার কমেছে, পার ক্যাপিটাল আয় বেড়েছে। ফলে ইতোমধ্যে বলা শুরু হয়েছে, বাংলাদেশ নিম্নমধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ যে একটা অমিত সম্ভাবনার দেশ হিসেবে এখন সারা পৃথিবীতে গণ্য হচ্ছে, এটা একটা বিরাট সাফল্য। এছাড়া, বিশ্ব ব্যাংকের কারসাজি স্বত্ত্বেও আমরা নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতুর কাজ শুরু করতে সক্ষম হয়েছি। দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখা, ক্রয় ক্ষমতার ওপর চাপ পড়ে না। এটাই বড় সফলতা। শিক্ষা ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে এ সরকার। মাধ্যমিক স্তরে মেয়েদের শিক্ষার হার ছেলেদের তুলনায় অনেক বেশি।  

বাংলা ট্রিবিউন: অনেক সফলতার কথা বললেন, কোনও ব্যর্থতা কি নেই?

নূহ-উল আলম লেনিন: ব্যর্থতা আমি বলব না। বলব কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। সেটাকে আপনারা ব্যর্থতা বলতে পারেন। আর সেটি হলো, বিনিয়োগের হার বাড়েনি। যদিও আমরা জানি, বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রিজার্ভ আমাদের। রিজার্ভ গড়াটাই বড় কৃতিত্ব নয়। আমরা যদি এটা উৎপাদনমুখী বিনিয়োগে না পারি, তাহলে এ রিজার্ভ দিয়ে কী হবে? সেদিক থেকে আমাদের এখন পর্যন্ত কাঙ্ক্ষিত বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারিনি। 

বাংলা ট্রিবিউন: বিএনপির অভিযোগ, দেশে গণতন্ত্র নেই। এ সম্পর্কে আপনার অভিমত কী?

নূহ-উল আলম লেনিন: বিএনপি যে বলছে দেশে গণতন্ত্র নেই।  এটা বলার পরও যে   দলটির কেউ গ্রেফতার হননি, এটা স্বাধীনভাবে বলতে পারছেন, এটাই গণতন্ত্র বিরাজমান যে তার বড় উদাহরণ।

বাংলা ট্রিবিউন: ভারতই আওয়ামী লীগ সরকারকে টিকিয়ে রেখেছে। এমন একটি কথা চাওর আছে। বিএনপি থেকেও এ ধরনের কথা বলা হয়। আপনি কিভাবে দেখেন বিষয়টি?

নূহ-উল আলম লেনিন: এটা ‘রাবিশ’ চাওর। ভারত আমাদের প্রতিবেশী দেশ। তাদের সঙ্গে আমরা অমীমাংসিত কিছু সমস্যার সমাধান করতে পেরেছি। এটা আমাদের বড়  অর্জন। ভারতের সঙ্গে মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি অনুয়ায়ী ছিটমহল বিনিময় আটকে ছিল। অনেক বছর পর আমরা সেই সমস্যার সমাধান করতে পেরেছি। ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমার সমস্যার সমাধান করতে পেরেছি। ভারতের বিনিয়োগ আমরা আনতে পেরেছি। সুতরাং দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মধ্যে যেমন অমীমাংসিত সমস্যার সমাধান হয়েছে, তেমননি নতুন নতুন ক্ষেত্রে দুই প্রতিবেশী দেশ সার্বভৌম সমতার ভিত্তিতে সহযোগিতা চালয়ে যাচ্ছে। এখানে কেউ কারও অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাগ গলাতে যাচ্ছে না। বাংলাদেশ এখন স্বাবলম্বী দেশ। কারও কাছে মাথা নত করে তার আনুকূল্য পেতে হয় না।  বিএনপি ও পাকিস্তান একইসুরে কথা বলে। আমাদের এখানে মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার হয়। এর প্রতিবাদ জানায় পাকিস্তান। বিএনপি পাকিস্তানের ‘প্রেসক্রিপশনে’ চলে। পাকিস্তানের দালাল হিসেবে বিএনপি চিহ্নিত। সাম্প্রদায়িকতা ও ভারতবিরোধিতা বিএনপির জন্মলগ্ন থেকে রাজনীতি। আবার তারাই ভারতের আনুকূল্য পেতে দিল্লি গিয়ে দেন-দরবার করেন। আওয়ামী লীগের কোনও দেন-দরবার নেই। 

বাংলা ট্রিবিউন: এবার আপনাদের সম্মেলন নিয়ে বলুন।

নূহ-উল আলম লেনিন: বাংলাদেশের একমাত্র প্রাচীন এবং বৃহত্তম দল আওয়ামী লীগ। এ দলটিই নির্দিষ্ট সময়ে সম্মেলন করে। ব্যতিক্রম যে হয়নি তাও নয়। সেটা হয়েছে ‘অট সিচ্যুয়েশনের’ কারণে। প্রতিটি সম্মেলনেরই একটা বিশেষ তাৎপর্য আছে। এবারের সম্মেলন নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ। এর অন্যতম ২০১৯ সালে যে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, সেই সাধারণ নির্বাচনে যে ইশতেহার দিয়ে জাতির সামনে হাজির হব, তার একটা ‘গাইড লাইন’ থাকবে। আর সেটা এ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে নির্ধারিত হবে। উন্নত সমৃদ্ধ দেশ গড়তে হলে পরে সুনির্দিষ্টভাবে আমরা কী করব? সেটা এ সম্মেলনে ঠিক হবে, তা বলছি না। কিন্তু তার যে রাজনৈতিক ফিলোসফিক্যাল গাইড লাইন, এটা এ সম্মেলন ঠিক করবে। এটা যদি ঠিক করে দেয়, তাহলে আমরা সেই গাইড লাইন অনুসরণ করে পরবর্তী কর্মসূচি বাস্তবায়ন করব। সে জন্য বলেছি, এটা একটা ঐতিহাসিক সম্মেলন। এছাড়া, সম্মেলন গতানুগতিক। প্রতিটি সম্মেলনেই নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়। এই নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে দল পরিচালিত হবে। তবে কে আসবেন, কে বাদ যাবেন, এটা একমাত্র কাউন্সিলররা ঠিক করবেন।

বাংলা ট্রিবিউন: অনেক সময় শোনা যায়, দলীয় সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনা আর থাকবেন না। আপনি কী মনে করেন?

নূহ-উল আলম লেনিন: আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনার বিকল্প এখনও কোনও নেতৃত্ব গড়ে উঠেছে বলে আমি মনে করি না। তার শরীর-স্বাস্থ্য এখনও যেমন আছে, আমি মনে করি, আরও অন্তত দুই মেয়াদ তার নেতৃত্ব থাকার কথা।  শেখ হাসিনা এখন তার ‘টিম’টা কিভাবে সাজাবেন, এটা তিনি ঠিক করবেন। সম্মেলন এ দায়িত্ব তাকে দেয়। দীর্ঘদিন রাজনীতির সঙ্গে থাকায় শেখ হাসিনা জানেন, কাকে দলে আনতে হবে। বিভিন্ন দিক বিবেচনায় এবারের সম্মেলনে কেউ বয়সের কারণে, কেউ শারীরিক সীমাবদ্ধতার কারণে, কেউ ব্যর্থতার কারণে বাদ পড়বেন।  

/এমএনএইচ/

সম্পর্কিত

হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে: মেয়র আতিক

হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে: মেয়র আতিক

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ২২:৩৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে ২৫০টি পোর্টেবল ভেন্টিলেটর মেশিন উপহার হিসেবে পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী একদল চিকিৎসক। শনিবার (২৪ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমান বাংলাদেশের এয়ারলাইন্সের একটি কার্গো ফ্লাইটে এসে পৌঁছায়। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পক্ষে এই উপহার গ্রহণ করেন।

যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী ডা. জিয়া আহমেদ সাজেদ, ডা. মাসুদুল হাসান, ডা. চৌধুরী হাফিজ হাসান, ডা. মাহমুদুল শামস বাপ্পি ও কানাডাপ্রবাসী ডা. আরিফুর রহমান মোবাইল ভেন্টিলেটরগুলো সংগ্রহ করে দেশের জন্য পাঠিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, নতুন দিল্লী থেকে এই উপহারের মোবাইল ভেন্টিলেশন দেশে পাঠানোর জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, নতুন দিল্লির বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মকর্তারা নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ, প্রধানমন্ত্রীর এপিএস-১, দিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার এই বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছেন।

উপহার গ্রহণের পর ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ বলেন, আপাতত সিএমএসডিতে রেখে দেওয়া হচ্ছে। আমরা পরবর্তী সময়ে মিটিং করে ঠিক করবো কোথায় কোথায় এই ভেন্টিলেটরগুলো দিবো। আমরা জেলা উপজেলায় যেখানে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী যাতে করে এর সুবিধা পেতে পারে সেজন্য আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেবো। আমি মনে করি এটা আমাদের দেশের জন্য ভালো একটি উদ্যোগ।

তিনি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধায়নে এসব হচ্ছে, তার নির্দেশনায় এগুলো আসছে। তিনি সার্বক্ষণিক খোঁজ রাখছেন।

ডা. আবদুল্লাহ বলেন, এগুলো ব্যবহার করা খুব সহজ। এক একটির দাম আমি যতদূর জানি ১৫-১৬ হাজার ডলার। আমরা আপাতত এই ২৫০টি ভেন্টিলেটর ব্যবহার করতে থাকি, আমাদের একটা অভিজ্ঞতা হোক। যদি ভালো হয় তাদের আমি আরও পাঠানোর অনুরোধ করবো। এগুলো তো আমাদের দেশের মানুষের জন্যই। এটি সহজেই বহনযোগ্য। জেলা উপজেলা পর্যায়ে সহজে নিয়ে যাওয়া যাবে। এখন এটা ব্যক্তিগত উদ্যোগে এসেছে, ভবিষ্যতে সরকারিভাবে সংগ্রহের চেষ্টা করা হবে।

এদিকে নয়াদিল্লির বাংলাদেশ হাইকমিশন জানায়, কোভিড-১৯ আক্রান্তদের ব্যবহারের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান হেলথকিউব নামে একটি প্রতিষ্ঠানের তত্ত্বাবধানে কয়েকশ পোর্টেবল ভেন্টিলেটর যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভারতে পাঠিয়েছে। এর মধ্যে ২৫০টি ভেন্টিলেটর বাংলাদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিকেল ৪টার দিকে ভেন্টিলেটরবাহী ফ্লাইটটি নয়াদিল্লি বিমানবন্দর থেকে রওনা করে রাতে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়।

/এসও/ইউএস/

সম্পর্কিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

‘অন্য দেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্যালুট দেয়, আর আমাদের দেশে অপমান’

‘অন্য দেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্যালুট দেয়, আর আমাদের দেশে অপমান’

রেমিট্যান্স ভালো পাচ্ছি স্বাস্থ্যসেবার কারণে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

রেমিট্যান্স ভালো পাচ্ছি স্বাস্থ্যসেবার কারণে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংকে হিসাব খোলার নির্দেশ

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ২১:৪৩

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ইংরেজি নামে (হুবহু) সোনালী ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট করার নির্দেশ দিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।  ব্যাংক হিসাব খুলে আগামী ১০ আগস্টের মধ্যে শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তথ্য দিতে বলা হয়েছে। গত ১৯ জুলাই সই করা নির্দেশনাটি শনিবার (২৪ জুলাই) ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

শিক্ষা বোর্ডের অফিস আদেশে জানানো হয়, বোর্ডের প্রায় সকল আর্থিক লেনদেন সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে করা হয়। বোর্ডের বিভিন্ন ধরনের ফি সংগ্রহ বা প্রয়োজনে প্রতিষ্ঠানকে কোনও অর্থ প্রদান বা যেকোনও ধরনের লেনদেন সহজে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট থাকা একান্ত জরুরি। এক্ষেত্রে সেসব প্রতিষ্ঠানের আগেই হুবহু প্রতিষ্ঠানের ইংরেজি নামে সোনালী ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট আছে সেসব প্রতিষ্ঠানের নতুন করে অ্যাকাউন্ট করার প্রয়োজন নেই। তবে অ্যাকাউন্টের নাম অবশ্যই ইংরেজিতে হতে হবে। বোর্ডের ওয়েবসাইটে কলেজের নাম যেভাবে ইংরেজিতে আছে হুবহু সেভাবেই অ্যাকাউন্টের নাম নির্ধারণ করতে হবে অন্যথায় অ্যাকাউন্ট নম্বর গ্রহণযোগ্য হবে না।  তবে অ্যাকাউন্ট করা থাকলে হুবহু কলেজের নামে ব্যাংকের মাধ্যমে সংশোধন করা যাবে।

এছাড়া বিভিন্ন মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (এমএফএস) মাধ্যমে লেনদেন করার জন্য বোর্ড থেকে প্রদত্ত ইআইআইএন ভিত্তিক সিমে নগদ, বিকাশ, রকেট, ইউপে, শিওর ক্যাশ ইত্যাদি অপারেটরের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মার্চেন্ট অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে।
 
যেসব প্রতিষ্ঠানের আগে থেকেই ইংরেজি নামে অ্যাকাউন্ট খোলা আছে সেসব প্রতিষ্ঠানসহ সব প্রতিষ্ঠানকে আগামী ১০ আগস্টের মধ্যে বোর্ডের ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট নম্বরসহ অন্যান্য তথ্য দিতে বলা হয় অফিস আদেশে।

/এসএমএ/এমআর/

সম্পর্কিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

ভিকারুননিসার উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতির সরেজমিন তদন্তে ইইডি

ভিকারুননিসার উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতির সরেজমিন তদন্তে ইইডি

প্রাথমিকে অনলাইন বদলি কবে?

প্রাথমিকে অনলাইন বদলি কবে?

অধ্যক্ষের চেয়ে বেশি বেতন পান তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী

অধ্যক্ষের চেয়ে বেশি বেতন পান তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ২০:১৮


করোনাভাইরাসের ভয়াবহ প্রকোপ ঠেকাতে সরকার আরোপিত কঠোর বিধিনিষেধের কারণে ২০২২ সালের উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

আজ শনিবার (২৪ জুলাই) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর এ সংক্রান্ত অফিস আদেশ জারি করে।

আদেশে জানানো হয়, ২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তুক বোর্ড (এনসিটিবি) প্রণীত অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম গত ১৪ জুন থেকে চলমান। ইতোমধ্যে গ্রেডভিত্তিক চতুর্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ করা হয়েছে। কোভিড-১৯ জনিত সংক্রমণ রোধে সররকার আরোপিত বিধিনিষেধের কারণ এ অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

/এসএমএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংকে হিসাব খোলার নির্দেশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংকে হিসাব খোলার নির্দেশ

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

‘অন্য দেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্যালুট দেয়, আর আমাদের দেশে অপমান’

‘অন্য দেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্যালুট দেয়, আর আমাদের দেশে অপমান’

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ২০:১৮

কঠোর লকডাউনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় আজ শনিবার রাজধানীতে ৩৮৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ জুলাই) সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর পুলিশ-ডিএমপির জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার অতিরিক্ত উপ-কমিশনার ইফতেখায়রুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কঠোর লকডাউনের দুদিনে ঢাকায় মোট গ্রেফতার হলেন ৭৮৬ জন।

উপ-কমিশনার জানান, লকডাউন অমান্য করে করে অহেতুক ঘোরাফেরা করার দায়ে দ্বিতীয় দিনে ৩৮৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এছাড়াও মোবাইল কোর্টে ১৩৭ জনকে ৯৫ হাজার ২৩০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

অপরদিকে, ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ ৪৪১টি গাড়িকে ১০ লাখ ৮৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছে।

প্রসঙ্গত, ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার।

/এআরআর/এমএস/

সম্পর্কিত

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কামরাঙ্গীরচরে বাসা থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

কামরাঙ্গীরচরে বাসা থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকায় গ্রেফতার চারশতাধিক

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকায় গ্রেফতার চারশতাধিক

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ২০:২৩

রাজধানীর কমলাপুরে বিআরটিসি ডিপোর ভেতরে পার্কিং করা একটি বাসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে বাসটি সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। পরে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি।

আজ শনিবার (২৪ জুলাই) সন্ধ্যায় অগ্নিকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে কমলাপুরের বিআরটিসি ডিপোর ভেতরে একটি বিআরটিসি বাসে আগুনে ধরে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে ২০ মিনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে জানা যায়নি বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

/এআরআর/ইউএস/

সম্পর্কিত

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

‘অন্য দেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্যালুট দেয়, আর আমাদের দেশে অপমান’

‘অন্য দেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্যালুট দেয়, আর আমাদের দেশে অপমান’

সর্বশেষ

ভারত থেকে ট্রেনে এলো ২০০ টন অক্সিজেন

ভারত থেকে ট্রেনে এলো ২০০ টন অক্সিজেন

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

টিকার জন্য জাপানকে ধন্যবাদ জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

টিকার জন্য জাপানকে ধন্যবাদ জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

লকডাউনেও জমজমাট পশুর হাট

লকডাউনেও জমজমাট পশুর হাট

এক কোটি ১৬ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

এক কোটি ১৬ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংকে হিসাব খোলার নির্দেশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংকে হিসাব খোলার নির্দেশ

মুখ চেনা হলেই খুলে বসেন ‘রাজনীতির দোকান’

‘লীগ’ যুক্ত সংগঠন আছে তিন শতাধিকমুখ চেনা হলেই খুলে বসেন ‘রাজনীতির দোকান’

রাতেই দেশে আসছে ২০০ টন অক্সিজেন

রাতেই দেশে আসছে ২০০ টন অক্সিজেন

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে: মেয়র আতিক

হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে: মেয়র আতিক

© 2021 Bangla Tribune