X
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪
৬ বৈশাখ ১৪৩১

দাম না পাওয়ায় বরিশালে কমেছে তরমুজ চাষ

সালেহ টিটু, বরিশাল
০৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০০আপডেট : ০৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০০

বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় কমে আসছে তরমুজের আবাদ। পাইকারি সিন্ডিকেটের কারণে ন্যায্যমূল্য না পাওয়া, খেতে পোকামাকড় ও চোরের উপদ্রব বাড়া, চাষাবাদের সঙ্গে জড়িত শ্রমিক থেকে শুরু করে বীজ, সার ও কীটনাশকের দাম বেড়ে যাওয়া এর অন্যতম কারণ। ফলে এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলে তরমুজের দাম আকাশচুম্বী হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এ ছাড়া বিভিন্ন এনজিও থেকে বা ব্যক্তিপর্যায় থেকে অধিক সুদে ঋণ নিয়ে তরমুজ আবাদ করেন কৃষকরা। কিন্তু আশানুরূপ লাভ না পাওয়ায় ঋণের জালে আটকা পড়ছেন তারা। তাই মৌসুমি এ ফলের চাষ থেকে দিন দিন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন কৃষকরা। তবে কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরণ ও সরকারি সুযোগ-সুবিধা দিয়ে তরমুজ চাষাবাদে আগ্রহী করে তোলার দাবি জানিয়েছেন এর সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা।

জানা গেছে, এবার বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় তরমুজ চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬১ হাজার ২৫৮ হেক্টর জমিতে। সেখানে ৪৬ হাজার ৮৪৫ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি আবাদ হয়েছে পটুয়াখালীতে। সেখানে ২২ হাজার ৩৯৮ হেক্টর জমিতে ৭০ হাজার ৩৩৬ মেট্রিক টন তরমুজ উৎপাদন হয়েছে। এরপর রয়েছে ভোলার অবস্থান। এই জেলায় ১৫ হাজার ৫৮ হেক্টর জমিতে উৎপাদন হয়েছে ১ লাখ ৩৫ হাজার ১৫০ মেট্রিক টন; বরগুনায় ৮ হাজার ১৭৭ হেক্টর জমিতে ৩৪ হাজার মেট্রিক টন; বরিশালে ৯৯৫ হেক্টর জমিতে ৮ হাজার ১৪০ মেট্রিক টন; পিরোজপুরে ১৪০ হেক্টর জমিতে ১৫০ মেট্রিক টন এবং ঝালকাঠীতে ৭৭ হেক্টর জমিতে ২৭৫ মেট্রিক টন তরমুজ উৎপাদিত হয়েছে।

ভোলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছে এসব তরমুজ

গত সোমবার সকাল থেকে বরিশাল নগরীর ইলিশের মোকাম হিসেবে পরিচিত পোর্ট রোড খালে ভিড় করেছে অর্ধশতাধিক ট্রলার। প্রতিটি ট্রলারে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার ও সর্বনিম্ন আড়াই হাজার পিস করে তরমুজ এনেছেন মাঠপর্যায়ের কৃষকরা। ভোলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছে এসব তরমুজ।

ভোলার চরফ্যাশন থেকে পাঁচ হাজার পিস তরমুজ নিয়ে আসা কৃষক আবুল কাসেম জানান, প্রতি বিঘা জমিতে তরমুজ চাষের জন্য শ্রমিক থেকে শুরু করে বীজ, সার ও পেকে যাওয়ার পর তা কেটে ট্রলারে করে বিক্রি করতে নিয়ে আসা পর্যন্ত প্রায় এক লাখ টাকা খরচ হয়। এ জন্য কৃষকরা বিভিন্ন এনজিও থেকে বা ব্যক্তিপর্যায় থেকে অধিক সুদে ঋণ নেন তারা। তাদের লক্ষ্য, তরমুজ বিক্রি করে লাভ তুলবেন ঘরে। কিন্তু প্রতিবছর পাইকারি সিন্ডিকেটের কাছে হেরে গিয়ে ঋণ ও চড়া সুদের জালে আটকা পড়ছেন কৃষকরা।

কাসেম আরও জানান, তরমুজের ফলন আসার সঙ্গে সঙ্গে পোকার আক্রমণ শুরু হয়। এ সময় কীটনাশক ছেটাতে হয়। এরপর তরমুজ বড় হতে থাকলে শুরু হয় চোরের উপদ্রব। এ জন্য রাতভর পাহারা দিতে হয় কৃষকদের। তারপরও চোর ঠেকানো যায় না। আবার যখন বিক্রি করার জন্য পাইকারদের কাছে নিয়ে যান, তখন পড়তে হয় সিন্ডিকেটের কবলে। পাইকাররা জোটবদ্ধ হয়ে ছোট-বড়-মাঝারি তরমুজের দাম নির্ধারণ করে রাখেন।

মৌসুমের প্রথম দিকে তরমুজের দাম কিছুটা পাওয়া গেলেও আস্তে আস্তে আর পাওয়া যায় না জানিয়ে এই কুষক জানান, কৃষকের সরাসরি বিক্রি জন্য একটি হাটের প্রয়োজন। যেখানে মাঠপর্যায়ের কৃষকরা খেত থেকে তরমুজ তুলে ওই হাটে নিয়ে যাবেন এবং কৃষকরা দাম নির্ধারণ করবেন। কারণ সারা বছর কৃষকরা পরিশ্রম করে ফসল উৎপাদন করেন, অথচ যারা বছরে একবারও খেতে যায় না, সেই সিন্ডিকেট কৃষকদের খপ্পরে ফেলে লাভ তুলে নেয়। এ কারণে কৃষকরা তরমুজ চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। তাই তারা অন্য ফসলে ঝুঁকছেন বলে জানান তিনি। কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করলে এবং সরকারি সুযোগ-সুবিধা দিলে সবাই আগ্রহী হবে।

চাষাবাদ কমে গেলে এ অঞ্চলে অধিক মূল্যে তরমজু খেতে হবে

কৃষক জোমেদ আলী বলেন, আমার নিজস্ব জমি নেই। চরফ্যাশনে জমি ভাড়া নিয়ে চার বছর ধরে তরমুজ চাষ করছি। কিন্তু তরমুজ বিক্রির পর তেমন লাভ থাকে না। ঋণের কিস্তি, জমির ভাড়া ও উৎপাদন খরচেই সব চলে যায়। তাই তরমুজ চাষ করার আর ইচ্ছা নেই। ইতোমধ্যে অনেক কৃষক এই আবাদ থেকে সরে এসেছেন। আর তরমুজ চাষাবাদ কমে গেলে এ অঞ্চলে অধিক মূল্যে তরমজু খেতে হবে বলে জানিয়ে দেন এই কৃষক।

জানতে চাইলে কৃষক হাসেম বলেন, রোজার শুরুতে অপরিপক্ব তরমুজ বেশি দামে বিক্রি করে লাভবান হয়েছেন কৃষক থেকে শুরু করে আড়তদাররা। কিন্তু এসব তরমুজ কেনার পর খেতে না পেরে এখন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন ক্রেতারা। এ কারণে অর্ধশতাধিক ট্রলারভর্তি তরমুজ বিক্রি করতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েছেন কৃষকরা।

তিনি আরও বলেন, এখানে বড় সাইজের তরমুজের ওজন ৮ থেকে ১২ কেজি পর্যন্ত। এমন ১০০ তরমুজের দাম হাঁকছেন ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। আবার ছোট-বড় মিলিয়ে ১০০ তরমুজ চাইছেন ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা। কিন্তু এতেও তাদের লাভ থাকছে না। তা ছাড়া ট্রলার প্রতি চার হাজার টাকা পর্যন্ত গুনতে হচ্ছে। ঘাটে আসার পর চার থেকে পাঁচ জনের খরচ আছে।

অর্ধশতাধিক ট্রলারভর্তি তরমুজ বিক্রি করতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েছেন কৃষকরা

পোর্ট রোড খালে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তরমুজ কিনতে আসেন পাইকারা। তাদের একজন হামেদ চৌকিদার বলেন, তিনি প্রতি বছর পোর্ট রোড থেকে তরমুজ কিনে তা দেশের বিভিন্ন এলাকায় পাঠান। বিভাগের ছয় জেলার তরমুজ আসে পোর্ট রোডে। এসব তরমুজ কিনে ট্রাকযোগে পাঠিয়ে দেন বিভিন্ন স্থানে। তবে তরমুজ কেনার পর ধাপে ধাপে টাকা দিতে হয়। এ টাকা দিতে না হলে তরমুজ থেকে ভালো লাভ করা যেত বলে জানান তিনি।

কৃষি বিপণন কর্মকর্তা রাসেল খান বলেন, তরমুজে এ বছর কৃষক দাম পেয়েছেন। নগরীর পোর্ট রোড আড়তদার ও সেখানে আসা কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে তিনি বিষয়টি জানতে পেরেছেন। তবে গত বছর বৃষ্টির কারণে তরমুজের পচন ধরায় তরমুজের চাষাবাদ কমেছে। এ বছর যেভাবে তরমুজের ফলন হয়েছে, তাতে আবারও কৃষক তরমুজ চাষে এগিয়ে আসবে।

বরিশাল বিভাগীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক শওকত ওসমান বলেন, তরমুজ চাষে কৃষকদের কোনও ধরনের ক্ষতি হলে সে ক্ষেত্রে সরকারি প্রণোদনাসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়। সব ধরনের ফসল থেকে কৃষক যাতে লাভবান হতে পারেন, সে বিষয়টি অধিকতর গুরুত্ব দেওয়া হয়। এ ছাড়া প্রতিটি ফসলের বিপরীতে বীজ থেকে শুরু করে সার ও প্রণোদনা সারা বছর কৃষক পেয়ে থাকেন। মাঝেমধ্যে প্রাকৃতিক কারণে ফসলে সমস্যা দেখা দিলে পরবর্তী বছর চাষাবাদ কম হয়।

তবে এ অবস্থা আর থাকবে না। তরমুজের ফলন আগামী বছর আরও বাড়বে বলে আশা করেন এই কর্মকর্তা।

/এনএআর/
সম্পর্কিত
সার্বিক অগ্রগতির পথে প্রধান বাধা বিএনপি: ওবায়দুল কাদের
ওঠানামা করছে মুরগির দাম, বাড়ছে সবজির
মন্ত্রণালয়ে সভা করে ধানের দাম নির্ধারণ করা হবে: কৃষিমন্ত্রী
সর্বশেষ খবর
রাজশাহীতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলো বিভাগীয় সর্বজনীন পেনশন মেলা
রাজশাহীতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলো বিভাগীয় সর্বজনীন পেনশন মেলা
রুবেলকে শোকজ দিলো উপজেলা আ’লীগ, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের নির্দেশ পলকের
নাটোরে উপজেলা নির্বাচনরুবেলকে শোকজ দিলো উপজেলা আ’লীগ, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের নির্দেশ পলকের
এমপি দোলনের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট নিক্ষেপ, সাংবাদিক আহত
এমপি দোলনের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট নিক্ষেপ, সাংবাদিক আহত
চরের জমি নিয়ে সংঘর্ষে যুবলীগ কর্মী নিহত, একজনের কব্জি বিচ্ছিন্ন
চরের জমি নিয়ে সংঘর্ষে যুবলীগ কর্মী নিহত, একজনের কব্জি বিচ্ছিন্ন
সর্বাধিক পঠিত
বাড়ছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি, নতুন যোগ হচ্ছে স্বাধীনতা দিবসের ভাতা
বাড়ছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি, নতুন যোগ হচ্ছে স্বাধীনতা দিবসের ভাতা
ইরান ও ইসরায়েলের বক্তব্য অযৌক্তিক: এরদোয়ান
ইস্পাহানে হামলাইরান ও ইসরায়েলের বক্তব্য অযৌক্তিক: এরদোয়ান
উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে অপহরণের ঘটনায় ক্ষমা চাইলেন প্রতিমন্ত্রী
উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে অপহরণের ঘটনায় ক্ষমা চাইলেন প্রতিমন্ত্রী
ইরানে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল!
ইরানে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল!
সংঘাত বাড়াতে চায় না ইরান, ইসরায়েলকে জানিয়েছে রাশিয়া
সংঘাত বাড়াতে চায় না ইরান, ইসরায়েলকে জানিয়েছে রাশিয়া