X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

এক চিকিৎসক দিয়েই চলছে একটি হাসপাতাল

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৩৩

রাঙামাটির লংগদুতে স্বাস্থ্যসেবার বেহাল দশা। ৩০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। ১০১ পদের বিপরীতে লোকবল আছে ৪৯ জন। উপজেলার দুটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং সাত ইউনিয়নের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রেও নেই চিকিৎসক। বর্তমানে একজন দন্ত চিকিৎসক দিয়ে চলছে চিকিৎসাসেবা। এতে সাধারণ রোগীরা চিকিৎসা নিতে এসে ভোগান্তিতে পড়েছেন।

লংগদু উপজেলার আয়তন ৩৮৯ বর্গ কিলোমিটার। সবশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, উপজলোর জনসংখ্যা ৮৪ হাজার ৪৭৭ জন। এত সংখ্যক মানুষের চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতাল একটি। উপজেলার মানুষ মাছ শিকার ও কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। দরিদ্র মানুষের চিকিৎসাসেবা গ্রহণের দ্বিতীয় কোনও মাধ্যম নেই।

স্থানীয়দের অভিযোগ, দুর্গম এলাকা হওয়ায় কোনও চিকিৎসক এখানে থাকতে চান না। যারাই নিয়োগ পান দ্রুত বদলি হয়ে চলে যান। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি অ্যাম্বুলেন্স থাকলেও প্রায় সময় নষ্ট হয়ে পড়ে থাকে। জরুরি রোগী পরিবহনে সমস্যায় পড়তে হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জুনিয়র কনসালট্যান্ট (গাইনি), জুনিয়র কনসালট্যান্ট (মেডিসিন), জুনিয়র কনসালট্যান্ট (সার্জারি), জুনিয়র কনসালট্যান্ট (অ্যানেসথেসিয়া) এবং মেডিক্যাল অফিসারের নয় পদসহ সব শূন্য। এ ছাড়া আট সিনিয়র স্টাফ নার্স, দুই মিডওয়াইফ (ধাত্রী), দুই মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব), সাত উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ও দুই স্বাস্থ্য পরিদর্শকের পদশূন্য রয়েছে। 

অন্যদিকে, চার সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক, ক্যাশিয়ার, সহকারী নার্স, সাত স্বাস্থ্য সহকারী, সহকারী বাগানমালী, তিন অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর ও ১৪ জন চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীর পদশূন্য আছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি মাত্র অ্যাম্বুলেন্স, যা প্রায় সময় নষ্ট হয়ে পড়ে থাকে গ্যারেজে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দন্ত চিকিৎসক নন্দিনী দাশ গুপ্ত বলেন, টিএস জরুরি কাছে গত বৃহস্পতিবার রাঙামাটি গেছেন। আরও একজন আবাসিক চিকিৎসক ছিলেন। তিনিও পারিবারিক কাছে ছুটিতে। আমি এখন একা দায়িত্বে আছি। 

একজন দন্ত চিকিৎসক দিয়ে পুরো হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিতে সমস্যা হয় কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জটিল রোগী এলে সমস্যা হয়। চিকিৎসক সংকট বড় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাদের স্যার চিকিৎসক পাওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। চিকিৎসক কম থাকায় আমাদের কাজের চাপ বেড়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অরবিন্দ চাকমা বলেন, বর্তমানে লংগদু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসকসহ প্রতি পদে জনবল সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে বারবার ধরনা দেওয়ার পরও কোনও কাজ হচ্ছে না। উপ-সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দিয়েই চলছে চিকিৎসাসেবা। তারা না পারলে আমি দেখি।

তিনি আরও বলেন, এমএলএসএস শূন্য পদগুলো জরুরিভাবে পূরণ হওয়া দরকার। বিশেষ করে চিকিৎসক-নার্স, আয়া ও ওয়ার্ড বয়ের মতো পদগুলোতে জনবল খুব প্রয়োজন।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. বিপাশ খীসা বলেন, লংগদু, বাঘাইছড়ি ও বরকল উপজেলায় চিকিৎসক সংকট বেশি। এই সংকট পূরণে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করছি, খুব দ্রুত একটা সমাধান হবে বলে আশা করছি।

/এএম/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
এবার হারমনি আর মন্দিরা নিয়ে হাজির... (ভিডিও)
এবার হারমনি আর মন্দিরা নিয়ে হাজির... (ভিডিও)
নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস আজ
নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস আজ
বাঙালির চিত্রশিল্পী, জীবনের শিল্পী
জয়নুল আবেদিনবাঙালির চিত্রশিল্পী, জীবনের শিল্পী
ভেড়ার মাংসে পাওয়া গেছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট: গবেষণা
ভেড়ার মাংসে পাওয়া গেছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট: গবেষণা
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে প্রতীক পেলেন মেয়র প্রার্থীরা 
কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে প্রতীক পেলেন মেয়র প্রার্থীরা 
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জন্মহার আশঙ্কাজনক, নিয়ন্ত্রণ জরুরি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জন্মহার আশঙ্কাজনক, নিয়ন্ত্রণ জরুরি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
বান্দরবানে আহত বুয়েটের ৬ কর্মচারী চমেক হাসপাতালে
বান্দরবানে আহত বুয়েটের ৬ কর্মচারী চমেক হাসপাতালে
পদ্মা সেতুর ৩০ হাজার কোটি টাকা গেল কোথায়, প্রশ্ন আমীর খসরুর 
পদ্মা সেতুর ৩০ হাজার কোটি টাকা গেল কোথায়, প্রশ্ন আমীর খসরুর 
মীরসরাইয়ে র‍্যাবের ওপর হামলা, গ্রেফতার ১৩
মীরসরাইয়ে র‍্যাবের ওপর হামলা, গ্রেফতার ১৩