ছড়িয়ে পড়ছে করোনা ভাইরাস, বিশ্বের সব দেশকে সতর্ক করলো ডব্লিউএইচও

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৮:১৩, জানুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২৩, জানুয়ারি ২২, ২০২০

নতুন করোনা ভাইরাস ঠেকানোর প্রচেষ্টা জোরদার করেছে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলো। ভাইরাসটিকে ২০১৯-এসসিওভি নামে ডাকা হচ্ছে। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে এটি ছড়িয়ে পড়ে। এই ভাইরাসে এখন পর্যন্ত চীনে ৪৪০ জনের আক্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছে বেইজিং। বিশ্বের অন্যান্য কিছু দেশেও এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছে। এমন অবস্থায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) তাদের এক বিবৃতিতে বিশ্বের সব দেশকে এ ব্যাপারে প্রস্তুতিমূলক পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

২২ জানুয়ারি বুধবার চীনের স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে,  নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সেখানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯ জনে দাঁড়িয়েছে। সরকারি হিসাবে সোমবার পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২২৩ জন। দুই দিনের মাথায় এ সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণে দাঁড়িয়েছে (৪৪০)। সংক্রামক এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ চিকিৎসাকর্মী রয়েছেন। রাজধানী বেইজিং ও সাংহাই-এর মতো শহরেও আক্রান্ত ব্যক্তি পাওয়ার কথা জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

গত ২০ বছরে চীন এবং বাকি বিশ্বের মধ্যে সরাসরি ফ্লাইট যোগাযোগ দ্রুত সম্প্রসারিত হয়েছে। উহানের এক কোটি দশ লাখ বাসিন্দা এখন সরাসরি ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন গন্তব্য ছাড়াও বাড়ির কাছের সিউল, ব্যাংকক, কুয়ালালামপুর ও সিঙ্গাপুরের মতো শহরে যেতে পারে। সে কারণেই ভাইরাসটি চীনের বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, থাইল্যান্ড, তাইওয়ান, ম্যাকাও এবং যুক্তরাষ্ট্রে ভাইরাসটির উপস্থিতির খবর জানা গেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একজন মুখপাত্র কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরাকে পাঠানো এক বিবৃতিতে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, ‘ভ্রমণের ধরন এবং পরীক্ষার পরিমাণ বাড়তে থাকায় আগামী কয়েক দিনের মধ্যে চীনের অন্য এলাকা এবং বিদেশে আরও অনেক মানুষ ২০১৯- এসসিওভি ভাইরাসে আক্রান্ত হবে’। ‘ডব্লিউএইচও সব দেশকে প্রস্তুতিমূলক কর্মকাণ্ড বাড়ানোয় উৎসাহ দিচ্ছে’।

২০০২-০৩ সালে সেভার একিউট রিসপাইরেটরি সিনড্রোমের (সার্স) প্রাদুর্ভাবে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয় এশিয়া। ওই ভাইরাসটিও চীন থেকে ছড়ায়। ফলে এবারের ভাইরাস নিয়ে কোনও ধরনের ঝুঁকি নিতে চায় না কর্তৃপক্ষগুলো। ভাইরাসটির ছড়িয়ে পড়া ঠেকানোর প্রচেষ্টা হিসেবে বিমানবন্দরে থারমাল পরীক্ষাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এসব পরীক্ষায় উহান থেকে আসা যাত্রীদের পরীক্ষা করা হচ্ছে।

নিউ সাউথ ওয়েলসের কিরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের জৈবনিরাপত্তা কর্মসূচির প্রধান রাইনা ম্যাকিনটায়ার বলেন, উহান থেকে এবং ওই সংশ্লিষ্ট এলাকা থেকে যেসব দেশে নিয়মিত যাত্রীরা যাতায়াত করে থাকে সেসব দেশের সবারই বিষয়টি বিবেচনা নিতে হবে।

 

/জেজে/বিএ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ