ইরানে পার্লামেন্ট নির্বাচনের ভোট গণনা চলছে

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৭:৩৬, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৫২, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০

ইরানের পার্লামেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুক্রবার তেহরান সময় রাত ১২টায় শেষ হয়েছে। এর পরপরই ভোট গণনার কাজ শুরু হয়েছে। এর আগে সন্ধ্যায় ৬টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ করার কথা থাকলেও বিকালের দিকে কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি বেড়ে যাওয়ায় কয়েক দফা সময় বাড়ানো হয়।
প্রথমে দুই দফায় দুই ঘণ্টা করে এবং পরে আরও দুই দফায় এক ঘণ্টা করে ভোটগ্রহণের সময় বাড়ানো হয়।

এর আগে স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। সকাল থেকেই কেন্দ্রগুলোতে উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। এবারের নির্বাচনে মোট সাত হাজার ১৫৭জন প্রার্থী ২৯০টি আসনের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভোটার সংখ্যা পাঁচ কোটি ৭৯ লাখ ১৮ হাজার।

ভোট দেওয়ার জন্য সারাদেশে মোট ৫৫ হাজার নির্বাচনি কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বিজয়ী প্রার্থীকে প্রদত্ত ভোটের শতকরা অন্তত ২০ ভাগ ভোট পেতে হবে। তারা চার বছরের জন্য আইনপ্রণেতা হিসেবে কাজ করবেন। সর্বশেষ ২০১৬ সালে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮ বছর বা এর বেশি বয়সী সব নাগরিক ভোটার হতে পারে।

পার্লামেন্ট নির্বাচনের পাশাপাশি এদিন ইরানের বিশেষজ্ঞ পরিষদের মধ্যবর্তী নির্বাচনেরও ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। ভোটাররা বিশেষজ্ঞ পরিষদের সাত সদস্যকে নির্বাচিত করবেন। দেশজুড়ে পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও বিশেষজ্ঞ পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে তেহরান, কোম, উত্তর খোরাসান, খোরাসান রাজাভি ও ফার্স প্রদেশে।

ইরানের নির্বাচনি আইন অনুযায়ী ভোটগ্রহণ শুরুর ২৪ ঘণ্টা আগে সব ধরনের প্রচারণা বন্ধ করতে হয়। পার্লামেন্ট নির্বাচনের কার্যক্রম আরও আগে শুরু হলেও গত ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীরা তাদের প্রচারণা শুরু করেন। ২০ ফেব্রুয়ারি সকালে প্রচারণা শেষ হয়। আনুষ্ঠানিক প্রচার ও জনসমর্থন আদায়ের জন্য আট দিন সময় পেয়েছেন প্রার্থীরা।

শুক্রবার সকালে তেহরানের ইমাম খোমেনী হোসাইনিয়া কেন্দ্রে ভোট দেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি। তিনি বলেন, নির্বাচন জাতীয় স্বার্থ রক্ষার নিশ্চয়তা দেয়। এটি মানুষের ধর্মীয় দায়িত্বও বটে। যে ব্যক্তি জাতীয় স্বার্থ রক্ষার কথা ভাবেন, তার উচিত নির্বাচনে অংশ নেওয়া এবং ভোট দেওয়া। নির্বাচনকে জাতীয় উৎসবের দিন হিসেবেও আখ্যায়িত করেন তিনি।

প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি এবং বিচার বিভাগের প্রধান ইব্রাহিম রায়িসি সকালে তেহরানে ভোট দিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, নির্বাচনে ইরানি জনগণের অংশগ্রহণ শত্রুদেরকে আরও বেশি হতাশ করছে।

স্পিকার আলী লারিজানি ভোট দিয়েছেন কোম নগরীতে। তিনি বলেন, শত্রুদের নানা ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার সত্ত্বেও ভোটাররা সকালেই ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়েছেন এবং এর মাধ্যমে শত্রুরা কঠোর জবাব পেয়েছে। সূত্র: পার্স টুডে।

/এমপি/

লাইভ

টপ