করোনায় বেকার হতে পারেন আড়াই কোটি: জাতিসংঘ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:৪৬, মার্চ ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৫১, মার্চ ২০, ২০২০

বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারীতে পরিণত হওয়ার জের ধরে বিভিন্ন দেশের অনেক শহরে লকডাউন, কারফিউ জারি করা হয়েছে। গৃহবন্দি হয়ে পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ। জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে আশঙ্কা করা হয়েছে, এর জের ধরে কর্মসংস্থান হারিয়ে বেকার হতে পারেন বিশ্বের প্রায় আড়াই কোটি মানুষ। করোনা ভাইরাসে বিস্তার নিয়ে জাতিসংঘের প্রাথমিক মূল্যায়ন প্রতিবেদনে এই আশঙ্কার কথা প্রকাশ করা হয়েছে।


বুধবার প্রকাশিত 'কোভিড-১৯ অ্যান্ড ওয়ার্ল্ড অব ওয়ার্ক: ইমপ্যাক্ট অ্যান্ড রেসপন্সেস’ শিরোনামের প্রতিবেদন আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) জানিয়েছে, নিজেদের মধ্যে সমন্বয় রেখে পরিস্থিতি সামলাতে হবে। মূলত তিনটি বিষয়ে নজর দিতে হবে— সব কর্মীকে আর্থিক নিরাপত্তার আশ্বাস দেওয়া, কর্মক্ষেত্র, অর্থনীতি ও কর্মসংস্থানগুলোকে সাহায্য, চাকরি ও আয়ের উপায়কে সামাল দেওয়া।
আইএলও জানায়, সরকারকেই নিরাপত্তা দিতে হবে। নতুন কাজ তৈরি করতে হবে, সবেতন ছুটি দিতে হবে, অন্যান্য ভর্তুকির ব্যবস্থা করতে হবে। পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে বড়-মাঝারি-ছোট সংস্থাগুলোকে করছাড় দেওয়ার কথাও ভাবতে হবে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তবে ২০০৮-০৯ সালের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার মতো আন্তর্জাতিক সমন্বিত পদক্ষেপ নেওয়া গেলে বিশ্বের বেকারত্বে প্রভাব তাৎপর্যপূর্ণভাবে কমিয়ে আনা যাবে।


আইএলও'র প্রতিবেদনে বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস কর্মসংস্থান ও বেকারত্বে কীভাবে প্রভাব ফেলবে তার বিস্তারিত তুরে ধরা হয়েছে। এর ভিত্তিতে সংস্থাটি ধারণা করছে বিশ্বজুড়ে বেকারত্ব ন্যূনতম ক্ষেত্রে ৫৩ কোটি এবং সর্বোচ্চ ২ কোটি ৪৭ লাখে পৌঁছাতে পারে। ২০১৯ সালের ১৮ কোটি ৮০ লাখ বেকারকে ভিত্তি ধরা হয়েছে। ২০০৮-০৯ অর্থনৈতিক মন্দার সময় বেকারত্ব বেড়েছিল ২ কোটি ২০ লাখ।
এতে বলা হয়েছে, বেকারত্বের ফলে শ্রমিকদের আয় কমে যাবে। এতে করে ২০২০ সালের শেষ দিকে শ্রমিকদের আয় কমতে পারবে ৮৬০ বিলিয়ন থেকে ৩.৪ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা পণ্য ও সেবার ভোগ কমিয়ে দেবে এবং বাণিজ্য ও অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলবে।
দারিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারীর সংখ্যাও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছে আইএলও। ২০২০ সালের পূর্বাভাসের চেয়ে ৮.৮ মিলিয়ন থেকে ৩৫ মিলিয়ন অতিরিক্ত মানুষ দারিদ্রসীমার নিচে নামতে পারেন। এর আগে পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল দারিদ্রসীমা থেকে ১৪ মিলিয়ন মানুষের উন্নতি হতে পারে।

 

/এএ/

লাইভ

টপ