‘কৌশলগত’ পাহাড় দখলের দাবি আজারবাইজানের

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:০৫, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:১৫, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

আর্মেনিয়ার বিদ্রোহীদের কাছ থেকে বিরোধপূর্ণ নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলের কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ একটি পাহাড় দখলের দাবি করেছে আজারবাইজান। রবিবার উভয় দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘাত শুরু হওয়ার পর এই দখলের দাবি করা হলো। এই পাহাড়টি ইয়েরেভান ও আর্মেনিয়ানদের নিয়ন্ত্রিত ছিটমহলে যোগাযোগ রক্ষায় সহযোগিতা করে।

আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের মুখপাত্র হিকমেত হাজিয়েভ সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের সেনারা ৩ হাজার মিটার উঁচু কৌশলগত মুরোভডাগ চূড়া দখল করেছে।

মধ্য এশিয়ার দুই বৈরী প্রতিবেশী আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে রবিবার যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। বিতর্কিত নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে এই সংঘাতের জন্য একে অপরকে দায়ী করছে উভয় দেশ। সংঘাতের কারণে বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আর্মেনিয়া-আজারবাইজানের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে সংঘাত চলছে। অঞ্চলটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের বলে স্বীকৃত কিন্তু নিয়ন্ত্রণ করে আর্মেনিয়ান জাতিগোষ্ঠী। দুই দেশের মধ্যকার সংঘাত গত কয়েক মাস ধরে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। জুলাইতে আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সীমান্তে ব্যাপক সংঘাত হয়। এতে উভয়পক্ষের ১৭ সেনা নিহত হন।

১৬ আর্মেনিয়ার বিদ্রোহী সেনা নিহত

আর্মেনিয়ার বিদ্রোহী বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিরোধপূর্ণ এলাকায় আজারবাইজানের সেনা সদস্যরা বিদ্রোহীদের ১৬ যোদ্ধাকে হত্যা করেছে।

বিচ্ছিন্নতাবাদীদের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, প্রাথমিকভাবে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে ১৬ সেনা নিহত ও শতাধিক আহত হয়েছে।

আজারবাইজানের এক পরিবারের ৫ বেসামরিক নিহত

আজারবাইজানের প্রসিকিউশন কার্যালয় জানিয়েছে, আর্মেনিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ছোড়া গোলায় এক পরিবারের ৫ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে।

এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, কামানের গোলা নিক্ষেপের ফলে এক পরিবারের পাঁচ সদস্য নিহত হয়েছে গাশাল্টি গ্রামে।

কয়েকটি শহর ও অঞ্চলে যুদ্ধ পরিস্থিতি ঘোষণা আজারবাইজানের

আজারবাইজানের পার্লামেন্ট কয়েকটি শহর ও অঞ্চলে যুদ্ধ পরিস্থিতি ঘোষণা করেছে। জাতীয় পরিষদের এক বৈঠকে আংশিক ও সাময়িকভাবে সাংবিধানিক ও সম্পত্তির অধিকার এবং দেশটির নাগরিক ও বিদেশিদের অবাধ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

এই সিদ্ধান্তের আওতায় নির্দিষ্ট কিছু এলাকায় কারফিউ জারি করা হয়েছে। বন্ধ করা হয়েছে ইন্টারনেট। এর আগে দেশটি মার্শাল  ল’ জারি করেছে।

পুতিন ও আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রীর ফোনালাপ

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান এক ফোনালাপে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন। রবিবার এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছে রুশ প্রেসিডেন্টের কার্যালয় ক্রেমলিন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, উত্তেজনা বাড়তে না দেওয়া এবং সব সামরিক পদক্ষেপ স্থগিত রাখা গুরুত্বপূর্ণ বলে তাদের আলোচনায় উল্লেখ করা হয়েছে।

সংঘাত শুরু হওয়ার পর আর্মেনিয়া সরকার মার্শাল ল’ জারি করে এবং সেনাদের প্রস্তুত হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। এক বিবৃতিতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান বলেন, আমাদের পবিত্র মাতৃভূমিকে রক্ষার জন্য প্রস্তুত হোন।

এছাড়া আজারবাইজানের সঙ্গে চলমান সংঘর্ষে হস্তক্ষেপ না করতে তুরস্ককে সতর্ক করেছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এই সংঘাতে যাতে তুরস্ক জড়িয়ে না পড়ে তা নিশ্চিত করার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি। সূত্র: আল জাজিরা

/এএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ
X