X
সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২
২৩ শ্রাবণ ১৪২৯

পি কে হালদারের সম্পদের তথ্য মিলছে না কানাডা থেকে

শেখ শাহরিয়ার জামান
২৯ মে ২০২২, ২৩:৩০আপডেট : ৩০ মে ২০২২, ১০:১৬

হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎকারী ও ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ইডি’র হাতে গ্রেফতার পি কে হালদারের কানাডায় থাকা সম্পত্তি সম্পর্কে দেশটির কাছে আবারও তথ্য চেয়েছে সরকার। আগে একবার তথ্য চাওয়া হলেও উত্তর দেয়নি কানাডিয়ান কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে একটি কূটনৈতিক সূত্র জানায়, ‘আমরা জানতে পেরেছি কানাডায় পি কে হালদারের একাধিক বাড়ি ও ব্যাংকে টাকা আছে। ওই বাড়িগুলোর ঠিকানাসহ চিঠি পাঠানো হয়েছে। জানতে চাওয়া হয়েছে ওই বাড়িগুলোর মালিক আদৌ পি কে হালদার কিনা।’

হালদারের গ্রেফতার হওয়ার পর চিঠি পাঠানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এর আগেও তথ্য চেয়ে চিঠি দিয়েছিলাম। উত্তর পাইনি।

এ বিষয়ে কানাডায় বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কোনও জবাব মেলেনি।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে বাংলা ট্রিবিউনের পক্ষ থেকে বাংলাদেশে কানাডিয়ান হাইকমিশনে ই-মেইল করা হলে অটোয়াতে কানাডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগের জন্য অনুরোধ করা হয়। কানাডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ই-মেইল পাঠানো হলেও কোনও উত্তর আসেনি।

কানাডার অবস্থান

কানাডার কাছে পি কে হালদারসহ অন্যান্যদের বিষয়ে তথ্য জানতে চেয়ে চিঠি পাঠালে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে জবাব পাওয়া যায় না বলে জানা গেছে এক সূত্রে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ‘কানাডীয় কর্তৃপক্ষ সবসময় প্রাইভেসি আইনের অজুহাত দেয়। এই আইনের আওতায় কানাডায় অবস্থানরত ব্যক্তিদের তথ্য জানানোর ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আছে।’

প্রাইভেসি আইন ছাড়াও অর্থপাচারের মতো বড় অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের তথ্য না দেওয়ার ক্ষেত্রে অন্য কারণ থাকতে পারে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, অপরাধ সংক্রান্ত তথ্যের চিঠি পেলে সেটি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয় এবং বিষয়টি বাংলাদেশের জন্যও প্রযোজ্য। অনেক সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি গুরুত্ব দেয় না বা লোকবলের কারণে তদন্ত করতে পারে না।

আবার, এমনও হয় যে চিঠিতে যে নাম পাঠানো হয়েছে সেই নামে সম্পত্তি না কিনে করে বেনামে বা আত্মীয়ের নামে ক্রয় করা হয়। সেক্ষেত্রেও ওই সম্পত্তির খোঁজ পাওয়া যায় না বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, যদি ভিন্ন দেশের পাসপোর্ট হয়, তাহলেও ওই সম্পত্তির খোঁজ পাওয়া যাবে না। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, বাংলাদেশ থেকে যখন চিঠি পাঠানো হয় তখন পি কে হালদারকে বাংলাদেশি নাগরিক হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। কিন্তু নাম ঠিক থাকলেও তার পাসপোর্ট যদি ভারতীয় বা অন্য দেশের হয় তবে সেক্ষেত্রেও তার সম্পদের খোঁজ পাওয়া যাবে না।

গ্রেনাডা

গ্রেফতারের পর পি কে হালদারের কাছে গ্রেনাডার পাসপোর্টও পাওয়া গেছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বীপমালার একটি দ্বীপ গ্রেনাডা। সেখানে বাংলাদেশের দৃশ্যমান কোনও কূটনৈতিক উপস্থিতি নেই। ফলে সেখানে পি কে হালদারের সম্পত্তির খোঁজ নেওয়া হয়নি।

প্রায় ৬০টি দেশে বাংলাদেশের দূতাবাস আছে এবং অনেক ক্ষেত্রে এক দূতাবাস থেকে আরও অনেক দেশে বাংলাদেশের স্বার্থ দেখা হয়। যেমন নিকারাগুয়া, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো, কিউবা ও বাহামাতে বাংলাদেশের স্বার্থ দেখাশোনা করা হয় কানাডায় থাকা দূতাবাস থেকে। কিন্তু কোনও দূতাবাস গ্রেনাডায় বাংলাদেশের স্বার্থ দেখে না।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা প্রায় ১৮০টি দেশের সঙ্গে দৃশ্যমান কূটনৈতিক যোগাযোগ রক্ষা করি। হাতেগোনা কয়েকটি ছোট দেশের সঙ্গে যোগাযোগ নেই।’

তবে তিনি বলেন, ‘প্রতিটি দেশ জাতিসংঘের সদস্য এবং আমরা নিউইয়র্কে স্থায়ী প্রতিনিধির অফিসের মাধ্যমে যোকোনও যোগাযোগ করতে পারি।’

একটি কূটনৈতিক সূত্র জানায়, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পি কে হালদার বিষয়ে এখনও গ্রেনাডার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়নি।

/এফএ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
নতুন উচ্চতায় ফ্রেশ এলপি গ্যাস
নতুন উচ্চতায় ফ্রেশ এলপি গ্যাস
সদরঘাটে দুই লঞ্চের চাপায় যাত্রীর মৃত্যু
সদরঘাটে দুই লঞ্চের চাপায় যাত্রীর মৃত্যু
জননী সাহসিকা-বঙ্গমাতা
জননী সাহসিকা-বঙ্গমাতা
পঞ্চগড়ে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
পঞ্চগড়ে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
এ বিভাগের সর্বশেষ
পিকে হালদারকে আবারও ফেরত চাইলো বাংলাদেশ
পিকে হালদারকে আবারও ফেরত চাইলো বাংলাদেশ
পি কে হালদারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি ১৬ আগস্ট
পি কে হালদারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি ১৬ আগস্ট
হাইকোর্টেও জামিন হয়নি পি কে হালদারের বান্ধবী নাহিদার
হাইকোর্টেও জামিন হয়নি পি কে হালদারের বান্ধবী নাহিদার
১১ দিনের জেল হেফাজতে পি কে হালদার 
১১ দিনের জেল হেফাজতে পি কে হালদার 
পি কে হালদারকে ফেরাতে কাজ করছে পুলিশ: আইজিপি
পি কে হালদারকে ফেরাতে কাজ করছে পুলিশ: আইজিপি