X
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
৯ আশ্বিন ১৪২৯

‘বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনায় কেউই দায় এড়াতে পারে না’

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
০৮ আগস্ট ২০২২, ১৬:০৯আপডেট : ০৯ আগস্ট ২০২২, ১৪:২২

সম্প্রতি মহাসড়কে ডাকাতি একটি আতঙ্কের নাম উল্লেখ করে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেছেন, ‘টাঙ্গাইলে মহাসড়কে গণপরিবহনে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনাটি ব্যাপক আলোচিত হয়েছে। এই ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হিসেবে আমরা দায় এড়াতে পারি না, এ নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই।’ পাশাপাশি এতে বাস মালিক, শ্রমিক ও যাত্রীসহ সব অংশীজনদেরও দায় রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সোমবার (৮ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর কাওরানবাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। গত ২ আগস্ট টাঙ্গাইলে মহাসড়কে ডাকাতি ও নারী যাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ১০ জনকে গ্রেফতারের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে র‌্যাব। 

উদাহরণ টেনে র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘মহাসড়কের গণপরিবহনগুলোতে পথিমধ্যে যদি যাত্রী ওঠানো হয়, তাহলে তা ঝুঁকিপূর্ণ। যাত্রী তোলা হচ্ছে, অথচ কোনও স্ক্যানিং হচ্ছে না। অনেক সময় তাদের কাছে অস্ত্র থাকছে।’ এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক হতে হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এছাড়াও কাউন্টারে যাত্রী না তোলা ও টিকিট ছাড়া যাত্রী তোলার সুযোগে ডাকাত দল বাসে উঠছে, যোগ করেন তিনি। 

যাত্রীরা এনআইডি ব্যবহার করে টিকিট করা, কাউন্টারে সিসি ক্যামেরা রাখা, বাসে যাত্রীদের ছবি তোলা, লাগেজ চেকিং করাসহ রাতে যত্রতত্র যাত্রী পরিবহন বন্ধ হলে মহাসড়কে ডাকাতির ঘটনা অনেকাংশে কমে যেতো বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

পথিমধ্যে বাসে যাত্রী তোলা হলে বাসের অন্য যাত্রীদের এ বিষয়ে প্রতিবাদের কথাও বলেন র‌্যাবের এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘সেদিন বাসে এত যাত্রী ছিলেন, যখন ১২ জন লোক রাস্তা থেকে তোলা হলো কেউ প্রতিবাদ করলেন না? যখন তারা বাসে ওঠে, তখন তো সেটা জনবহুল এলাকা ছিল।’

‘বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনায় কেউই দায় এড়াতে পারে না’

সংবাদ সম্মেলনে সম্প্রতি মহাসড়কে আন্তজেলা ডাকাত চক্রের বেশ কয়েকটি সিন্ডিকেটকে র‌্যাব গ্রেফতার করেছে বলে জানান খন্দকার আল মঈন। তিনি বলেন, ‘গত দুই আগস্ট রাত ১টার দিকে কুষ্টিয়া থেকে নারায়ণগঞ্জগামী ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের একটি বাস টাঙ্গাইল অতিক্রম করার সময় ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় এক যাত্রী বাদী হয়ে মধুপুর থানায় অজ্ঞাত ১০-১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ায় র‌্যাব।’

র‌্যাব সদর দফতরের গোয়েন্দা শাখা, র‌্যাব-১২ ও র‌্যাব-১৪-এর আভিযানিক দল রবিবার (৭ আগস্ট) বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত ঢাকা, গাজীপুর ও সিরাজগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা হলো– রতন হোসেন (২১), আলাউদ্দিন (২৪), সোহাগ মণ্ডল (২০), খন্দকার হাসমত আলী ওরফে দীপু (২৩), বাবু হোসেন ওরফে জুলহাস (২১), মো. জীবন (২১), আব্দুল মান্নান (২২), নাঈম সরকার (১৯), রাসেল তালুকদার (৩২) ও আসলাম তালুকদার ওরফে রায়হান (১৮)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২০টি মোবাইল ফোন, দুটি রুপার চুড়ি, ১৪টি সিমকার্ড ও ডাকাতিতে ব্যবহৃত একটি দেশি অস্ত্র (ক্ষুর) উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, ওই ডাকাতির মূল পরিকল্পনাকারী রতন মিয়া। সে অপর ডাকাত রাজা মিয়াকে বাস ডাকাতির প্রস্তাব দেয়। রাজা দলের অন্য সদস্যদের সংগঠিত করার কথা বলে। রতনের নেতৃত্বে ২ আগস্ট গাজীপুরের জিরানী বাজার এলাকায় সিরাজগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী বাসে ডাকাতির পরিকল্পনা করা হয়।

রতন নিজেই প্রস্তুতির আর্থিক খরচ দেয়। টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা মোড়ের একটি দোকান থেকে চারটি চাকু, দুটি ধারালো কাঁচি ও একটি ক্ষুর কেনে তারা। ডাকাতিতে অংশ নেয় ১৩ জন। তাদের অনেকে গার্মেন্টসে চাকরি করতো। এর আড়ালে তারা পেশাদার ডাকাত। প্রত্যেকেই একাধিক ডাকাতি ও ছিনতাই মামলার আসামি। একাধিকবার কারাভোগও করেছে।

গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে, পরিকল্পনা অনুযায়ী ডাকাতির রাতে রাজাসহ চক্রের অন্য সদস্যরা সিরাজগঞ্জ রোড মোড় এলাকায় ঘোরাঘুরি করতে থাকে। রাত ১টার দিকে কুষ্টিয়া থেকে নারায়ণগঞ্জগামী ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের একটি বাস সিরাজগঞ্জ রোড মোড় এলাকায় পৌঁছলে বাসটিকে থামার সংকেত দেয় রাজা।

যাত্রীবেশে প্রথমে রতন, রাজা, মান্নান ও নুরনবী ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসটিতে উঠে। পরে আরও দুই দফায় ডাকাত চক্রের অন্য সদস্যরা বাসটিতে যাত্রীবেশে আরোহণ করে। বাসে ২৪ জন যাত্রী থাকায় ডাকাত চক্রের অধিকাংশ সদস্য পেছনের দিকে বসে। বাসটি বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকা অতিক্রম করার পর রতন দলের সদস্যদের চাকু ও কাঁচি প্রদান করে। আউয়াল ধূমপানের কথা বলে বাসের গেটের কাছে যায়। অন্যদের ইশারা করলে রাজা, রতন, মান্নান ও নূরনবী ড্রাইভিং সিটের কাছে গিয়ে ড্রাইভারকে মারধর করে এবং রতন বাসের ড্রাইভিং সিটে বসে বাসের নিয়ন্ত্রণ নেয়।

চক্রের বাকি সদস্যরা বাসের চালক, সুপারভাইজার, হেলপারসহ সাধারণ যাত্রীদের হাত-মুখ বেঁধে সিটকভার দিয়ে মুখোশ পরিয়ে মুখ ঢেকে দেয়। পরে যাত্রীদের সঙ্গে থাকা নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার, অন্যান্য মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নেয়। যৌন হয়রানি ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটায়।

পরে টাঙ্গাইলের হাটুভাঙা মোড় হয়ে মধুপুরে যাওয়ার পথে রক্তিপাড়া এলাকায় এলে লুটকৃত মালামাল নিয়ে দলের সদস্যদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এ সময় চালকের আসনে থাকা রতন পেছনে তাকালে রাস্তার পাশের বৈদ্যুতিক খুঁটি ও বালুর সঙ্গে বাসের সংঘর্ষ হয় এবং নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস একপাশে হেলে পড়ে। তখন ডাকাতরা লুটকৃত মালামালসহ বাস থেকে নেমে যায়।

ডাকাতির পর রতনের এক আত্মীয়ের ফাঁকা বাড়িতে গিয়ে মালামাল ভাগবাটোয়ারা করে সবাই বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে চলে যায়।

জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, গ্রেফতারকৃত রতন পেশায় গাড়ির হেলপার। তার বিরুদ্ধে আগেও ডাকাতির অভিযোগে মামলা হয়েছে। সে ২০১৮ সালে নূরনবী, জীবন ও অন্য কয়েকজনকে নিয়ে রোডব্লক করে সাভার পরিবহনের একটি বাসে ডাকাতি করে। ওই ঘটনায় রতন গ্রেফতার হয়ে দেড় বছর কারাভোগ করে। জামিনে বের হয়ে ২০২০ সালে পুনরায় নূরনবী, জীবন ও আউয়ালকে নিয়ে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে একটি অটোরিকশা ছিনতাই করে। তখন ঘটনাস্থলে উপস্থিত জনতা জীবনকে ধাওয়া করে ধরে ফেলে। ওই ঘটনায় গ্রেফতার হয়ে রতন প্রায় এক বছর কারাভোগ করে। কারাভোগের পর জামিনে বের হয়ে সে তার সিন্ডিকেট নিয়ে সাভার, গাজীপুর বা সিরাজগঞ্জ এলাকার মহাসড়কে আরও কয়েকটি ডাকাতি করে।

গ্রেফতার জীবন পেশায় গাড়ির হেলপার। এ পেশার আড়ালে সে বেশ কয়েকটি পরিবহন ডাকাতিতে অংশ নেয়। দুটি ডাকাতির মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগও করে।

গ্রেফতার মান্নান গাজীপুরের একটি গার্মেন্টসে চাকরি করে। ২০১৯ সালে আশুলিয়া থানায় একটি চুরির মামলায় কারাভোগ করেছে সে। তার নেতৃত্বে ঢাকা ও গাজীপুরের বিভিন্ন গার্মেন্টসে চাকরিরত গ্রেফতার আলাউদ্দিন, সোহাগ, বাবু, দীপু, রাসেল, রায়হান, নাঈম ডাকাতিতে অংশগ্রহণ করে।

এক প্রশ্নের জবাবে কমান্ডার মঈন বলেন, ডাকাত দলের সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগ ও পরিচয় আগে থেকেই। তাদের মধ্যে অনেকের পরিচয় হয় জেলখানাতে।

বাসে ধর্ষণের ঘটনা সম্পর্কে তিনি বলেন, বাসে একজন নারী যাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে জেনেছি। জড়িতরা জিজ্ঞাসাবাদে বলেছে, একজনকে ধর্ষণসহ তারা একাধিক নারীকে যৌন হয়রানি করেছে।

/এআরআর/আরকে/ইউএস/এমওএফ/
সম্পর্কিত
ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে স্কুলছাত্রীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করেছে গৃহশিক্ষক
আদালতে জবানবন্দিধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে স্কুলছাত্রীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করেছে গৃহশিক্ষক
ডিজে দম্পতি ‘হত্যাকাণ্ডের’ ৪ বছর পর আসামিদের স্বীকারোক্তি
ডিজে দম্পতি ‘হত্যাকাণ্ডের’ ৪ বছর পর আসামিদের স্বীকারোক্তি
তালাবদ্ধ ঘরে অতিথির মরদেহ: দম্পতি গ্রেফতার
তালাবদ্ধ ঘরে অতিথির মরদেহ: দম্পতি গ্রেফতার
দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৯: জোয়ানা পরিবহনের চালক গ্রেফতার
দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৯: জোয়ানা পরিবহনের চালক গ্রেফতার
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
এতদিন কোথায় ছিলেন রহিমা?
এতদিন কোথায় ছিলেন রহিমা?
আ.লীগ সব সময় জনগণের ভোটেই ক্ষমতায় আসে: প্রধানমন্ত্রী
আ.লীগ সব সময় জনগণের ভোটেই ক্ষমতায় আসে: প্রধানমন্ত্রী
মহরতে স্মৃতিকাতর প্রযোজক অপু বিশ্বাস (ভিডিও)
মহরতে স্মৃতিকাতর প্রযোজক অপু বিশ্বাস (ভিডিও)
আজ মহালয়া, দেবীপক্ষের শুরু
আজ মহালয়া, দেবীপক্ষের শুরু
এ বিভাগের সর্বশেষ
ডিজে দম্পতি ‘হত্যাকাণ্ডের’ ৪ বছর পর আসামিদের স্বীকারোক্তি
ডিজে দম্পতি ‘হত্যাকাণ্ডের’ ৪ বছর পর আসামিদের স্বীকারোক্তি
কম দামে মোটরসাইকেল কিনলে হতে পারেন আসামি
কম দামে মোটরসাইকেল কিনলে হতে পারেন আসামি
নির্বাচনের খরচ তোলার জন্য অভিনব প্রতারণা ইউপি চেয়ারম্যানের!
নির্বাচনের খরচ তোলার জন্য অভিনব প্রতারণা ইউপি চেয়ারম্যানের!
রানা হত্যাকাণ্ড: পলাতক আসামি তারেক গ্রেফতার
রানা হত্যাকাণ্ড: পলাতক আসামি তারেক গ্রেফতার
সোনা ব্যবসায়ীর টাকা লুটের ঘটনায় ৫ ডাকাত গ্রেফতার
সোনা ব্যবসায়ীর টাকা লুটের ঘটনায় ৫ ডাকাত গ্রেফতার