X
বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪
৪ বৈশাখ ১৪৩১

রাজধানীজুড়ে চাহিদা বেড়েছে হাতপাখার

আতিক হাসান শুভ
০১ জুন ২০২৩, ১২:০৬আপডেট : ০১ জুন ২০২৩, ১২:০৬

প্রচণ্ড গরমে শরীর জুড়াতে গ্রামবাংলায় হাতপাখার কোনও জুড়ি ছিল না। প্রযুক্তির যুগে হাতপাখার জনপ্রিয়তা প্রায় হারিয়ে গিয়েছে বললেই চলে। গ্রামে কদাচিৎ হাতপাখার ব্যবহার দেখা গেলেও, শহরে সেই দৃশ্য একেবারেই চোখে পড়তো না। কিন্তু তীব্র তাপপ্রবাহ ও লোডশেডিংয়ের কারণে রাজধানীজুড়ে এখন হাতপাখার কদর বেড়েছে।

পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে এখন তালপাতার হাতপাখা বিক্রি করছেন হকাররা। বছর দশেক আগেও গ্রামে হাতে তৈরি এসব তালপাতার পাখার ব্যাপক প্রচলন ছিল। আমাদের মা-খালারা এসব হাতপাখা ব্যবহার করতেন। দাদা-দাদু বাড়ির উঠোনে বসে আমাদের এ রকম হাতপাখা দিয়ে বাতাস করতেন। আহ, কী মধুর স্মৃতি।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজার এলাকায় তালপাতার হাতপাখা কিনতে গিয়ে বাংলা ট্রিবিউনকে এমন স্মৃতিবিজড়িত কথা বলেন রোজিনা বেগম নামের এক গৃহিণী।

প্লাস্টিক আর কাপড়ের হাতপাখা বের হওয়ায় এখন তালপাতার হাতপাখা খুব একটা দেখা যায় না‌ বলে মন্তব্য করে এই গৃহিণী বলেন, হঠাৎ চোখের সামনে পড়লো, তাই এক জোড়া নিয়ে নিলাম। এগুলো এখন সচরাচর পাওয়া যায় না। তা ছাড়া যে গরম পড়ছে, না কিনে উপায় ছিল না।

রাজধানীজুড়ে চাহিদা বেড়েছে হাতপাখার

পুরান ঢাকার মুসলিম সরকারি হাইস্কুলের সামনে থেকে দর-কষাকষি করে হাতপাখা কিনেছিলেন সুমন পাটওয়ারী নামের এক ক্রেতা। তিনি বলেন, এক সপ্তাহ ধরে মাত্রাতিরিক্ত গরম পড়ছে। তার ওপর লোডশেডিং। সব মিলিয়ে গরমে একেবারে নাজেহাল অবস্থা। মাথার ওপর ফ্যান চলে অথচ এত বেশি গরম যে গায়ে হাওয়া লাগে না।

তিনি বলেন, কারেন্ট চলে গেলে কাজে লাগবে, এই ভেবে এক জোড়া হাতপাখা কিনলাম। আগে তো এসব হাতপাখার অনেক প্রচলন ছিল। এখন খুঁজেও পাওয়া যায় না। তবে গাঁয়ে এখন এগুলো আছে। দাম অত বেশি না, তুলনামূলক কম।

গাজীপুর থেকে পাইকারি দরে কিনে পুরান ঢাকার অলিগলি ও রাস্তায় ঘুরে এসব হাতপাখা বিক্রি করেন জাকির মিয়া (৬২)। তিনি জানান, গরমের শুরুতে প্রতিদিন ২০ থেকে ২২ পিস হাতপাখা বিক্রি হতো। এখন হাতপাখার চাহিদা বেড়েছে। প্রতিদিন আগের চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি বিক্রি হচ্ছে। তবে চাহিদা বাড়ায় হাতপাখার পাইকারি দামও বেড়েছে।

রাজধানীজুড়ে চাহিদা বেড়েছে হাতপাখার

তিনি বলেন, আগে যেখানে তালপাতা দিয়ে তৈরি প্রতি ১০০ পিস হাতপাখার দাম পড়তো ৩০ টাকার মতো, এখন সেই হাতপাখা পাইকারি প্রতি পিস ৪০ টাকায় কিনতে হয়। অন্যদিকে কাপড় দিয়ে তৈরি হাতপাখায়ও পাইকারি দাম ৮ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে।

এই বিক্রেতা আরও জানান, তালপাতা দিয়ে বানানো হাতপাখার পাইকারি ৪০ টাকা কিনে খুচরা ৬০ থেকে ৭০ টাকা বিক্রি করি। আর কাপড়ের তৈরি হাতপাখা ৫০ টাকা করে বিক্রি হয়, যার পাইকারি দাম পড়ে ৩০ টাকা। গরমের শুরুতে হাতপাখা বিক্রি করে দৈনিক ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা আয় হতো। এখন দৈনিক ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা লাভ হয়।

হাতপাখা ছাড়াও ৭০ টাকা পাইকারি দরে চার্জার লাইট কিনে তা ১০০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি করেন তিনি।

/এনএআর/
সম্পর্কিত
গরমে ডায়রিয়া রোগী আরও বাড়ার শঙ্কা
চুয়াডাঙ্গায় মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড, জনজীবনে অস্বস্তি
খাবার না খাওয়ায় বাবার ‘চড়’, মাথায় আঘাত পেয়ে শিশুর মৃত্যু
সর্বশেষ খবর
মুজিবনগর সরকার ও মুক্তিযুদ্ধ
মুজিবনগর সরকার ও মুক্তিযুদ্ধ
অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক প্রবেশ নিষিদ্ধ করলো রাশিয়া
অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক প্রবেশ নিষিদ্ধ করলো রাশিয়া
ভবন থেকে পড়ে চায়না নাগরিকের মৃত্যু
ভবন থেকে পড়ে চায়না নাগরিকের মৃত্যু
আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ২ পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত
আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ২ পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত
সর্বাধিক পঠিত
ডিপ্লোমাধারীদের বিএসসির মর্যাদা দিতে কমিটি
ডিপ্লোমাধারীদের বিএসসির মর্যাদা দিতে কমিটি
উৎসব থমকে যাচ্ছে ‘রূপান্তর’ বিতর্কে, কিন্তু কেন
উৎসব থমকে যাচ্ছে ‘রূপান্তর’ বিতর্কে, কিন্তু কেন
চুরি ও ভেজাল প্রতিরোধে ট্যাংক লরিতে নতুন ব্যবস্থা আসছে
চুরি ও ভেজাল প্রতিরোধে ট্যাংক লরিতে নতুন ব্যবস্থা আসছে
রুশ হামলা ঠেকানোর ক্ষেপণাস্ত্র ফুরিয়ে গেছে: জেলেনস্কি
রুশ হামলা ঠেকানোর ক্ষেপণাস্ত্র ফুরিয়ে গেছে: জেলেনস্কি
‘ভুয়া ৮ হাজার জনকে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে’
‘ভুয়া ৮ হাজার জনকে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে’