X
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

করোনায় মারা গেলেন ডুয়েটের ডেপুটি রেজিস্ট্রার

আপডেট : ২৩ এপ্রিল ২০২১, ২০:২৫

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) রেজিস্ট্রার অফিসের ডেপুটি রেজিস্ট্রার (শিক্ষা শাখা) মো. মনিরুজ্জামান। আজ শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ৯টার দিকে রাজধানীর ইমপালস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. সাহাব উদ্দীন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, গত ৩ এপ্রিল করোনা পজিটিভ হয়ে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহম্মেদ মেডিক্যাল হাসপাতালে তিনি ভর্তি হন। পরবর্তীতে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজধানীর ইমপালস হাসপাতালের আইসিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই আজ চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। আজ জুমার নামাজের পরে মোহাম্মদপুরের রায়ের বাজার কবরস্থান সংলগ্ন তার জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

 

 

/এনএ/

সম্পর্কিত

শিক্ষার্থীদের টিকা না দিয়েই শুরু হচ্ছে ৭ কলেজের পরীক্ষা

শিক্ষার্থীদের টিকা না দিয়েই শুরু হচ্ছে ৭ কলেজের পরীক্ষা

করোনায় প্রাণ গেলো রাবি শিক্ষকের

করোনায় প্রাণ গেলো রাবি শিক্ষকের

করোনায় প্রাণ গেলো জাবি অধ্যাপকের

করোনায় প্রাণ গেলো জাবি অধ্যাপকের

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৪৬

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) নীতি নির্ধারণী পর্যায় থেকে গণমাধ্যমে বারবার পরিবহন ফি মওকুফের কথা জানানো হলেও তা কাগজে-কলমে বাস্তবায়ন হচ্ছে না। ফলে আগের ফি দিয়েই নতুন সেমিস্টারে ভর্তি হতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। 

এদিকে বেশকিছু শিক্ষার্থী গণমাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ফি মওকুফের সিদ্ধান্তের কথা শুনে পরিবহন ফি ছাড়া বাকি টাকা জমা দিয়েছেন। কিন্তু বিভাগ তাদের ভর্তি প্রক্রিয়া এগিয়ে নিচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে বিভাগগুলো বলছে, ফি মওকুফের আনুষ্ঠানিক নোটিশ পাওয়া যায়নি। তাই পূর্ব নির্ধারিত ফি না দিলে শিক্ষার্থীদের কাগজ প্রশাসনিক ভবনে পাঠানো সম্ভব নয়।

গত ৫ জুলাই ও ১৩ সেপ্টেম্বর দুই বার কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিবহন ফি মওকুফের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। তবে গত ২২ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, অর্থ কমিটির সভায় পরিবহন ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুপারিশ করা হলেও, পরবর্তীতে সিন্ডিকেট বৈঠক অনুষ্ঠিত না হওয়ায় তা চূড়ান্ত অনুমোদন পায়নি।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর ও স্নাতক চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা চলছে। তোড়জোড় চলছে তৃতীয় ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষারও। এতে দীর্ঘ সময় পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় সব বিভাগে শিক্ষার্থীদের ভর্তি সংক্রান্ত কাজ শেষ করার হিড়িক পড়েছে। কিন্তু পরীক্ষার আগে ভর্তি হতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন অনেক শিক্ষার্থী। পরিবহন ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের স্নাতকোত্তরের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের এক হাজার টাকা বেশি দিয়ে ভর্তি হতে হয়েছে। 

ওই বিভাগের শিক্ষার্থী আফরোজা আক্তার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকা সত্ত্বেও শিক্ষার্থীদের পরিবহন ফি দিয়ে ভর্তি হওয়ার বিষয়টা অযৌক্তিক। যদিও শুনেছি, বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ কমিটি পরিবহন ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু এটা দাফতরিকভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ায় আমাদের বেশি টাকা গুণতে হলো।

ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ফেরদৌস জাহান বলেন, ফি মওকুফের ব্যাপারে আমাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি। তাই আমরা আগেই টাকা কমাতে পারি না। নোটিশের মাধ্যমে জানালে আমরা নিশ্চিত হতে পারবো।

কুবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী বলেন, শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্যই আমরা ফি কমিয়েছি। তবে অর্থ কমিটিতে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সেটা সিন্ডিকেটে উঠবে। আমরা দ্রুতই বৈঠক করবো।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

কুবির ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশে ১৪ ভুল

কুবির ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশে ১৪ ভুল

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে দেশসেরা খুবির ফার্মিনেফ

তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে দেশসেরা খুবির ফার্মিনেফ

ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ

ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ

১৮ মাস পর খুললো ঢাবির কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২৫

অন্তত একডোজ করোনার টিকা নেওয়ার শর্তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অনার্স চতুর্থ বর্ষ ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি ও বিজ্ঞান লাইব্রেরি।

আজ রবিবার(২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল দশটায় লাইব্রেরির তালা খুলে দেওয়া হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নিযামুল হক ভুইয়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মো. নাসিরউদ্দিন মুন্সী।

টিকা কার্ড দেখিয়ে লাইব্রেরিতে প্রবেশ করতে হবে শিক্ষার্থীদের। ছুটির দিন ব্যতীত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি-মেনে তারা সেখানে অবস্থান করতে পারবেন।

এর আগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাবির সিন্ডিকেট কমিটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্নাতক চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল খুলে দেওয়ার দিদ্ধান্ত নেয়। পাশাপাশি রবিবার(২৬ সেপ্টেম্বর) থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার ও বিভাগ-ইনস্টিটিউটের সেমিনার খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানায়। টিকা কার্ড দেখিয়ে লাইব্রেরিতে ঢুকতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের

শিক্ষার্থীদের স্বস্তি প্রকাশ

দীর্ঘ আঠারো মাস পর লাইব্রেরি খুলে দেওয়া খুশি শিক্ষার্থীরা। দর্শন বিভাগের চতুর্থ বিভাগের শিক্ষার্থী যোবায়ের আহমেদ বলেন, " প্রায় দেড় বছর ধরে ক্যাম্পাস বন্ধ, কিন্তু আমরা শেষ বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনেকেই একবছর ধরে ঢাকায় মেস ভাড়া করে থাকি। উদ্দেশ্য ভালোভাবে অনার্সটা শেষ করে পরিবারের হাল ধরা। আমাদের অ্যাকাডেমিক ও চাকরির পরীক্ষার প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য লাইব্রেরি খুব সহায়ক। সবাইকে পড়তে দেখলে নিজের পড়ার ইচ্ছেটা আরও বেশি জাগে। আজকে লাইব্রেরি খুলে দেওয়ায় আবার সুন্দর করে প্রস্তুতি নিতে পারব, পড়াশোনার গতি বাড়বে। তবে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে হল খুলে দিলে আরও ভালো হতো। হলগুলো খুলে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি কর্তৃপক্ষের প্রতি।"

ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আসাদ হাসান বলেন, " দীর্ঘ দেড় বছর পরে লাইব্রেরি খুলেছে যা আমাদের জন্য একটা স্বস্তির বিষয়। সেই সাথে স্বাস্থ্যবিধি মানার যেই প্রক্রিয়া অবলম্বন করা হয়েছে তার জন্য কর্তৃপক্ষকে সাধুবাদ জানাই। তবে, শিক্ষার্থীদের জন্য অনেক বেশি ভালো হবে যদি ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে হল খুলে দেওয়া হয়। ৫ অক্টোবর হল খুললে শিক্ষার্থীদের অতিরিক্ত একমাসের মেস ভাড়া দিতে হবে। সেই বিষয়টি বিবেচনা করে এই মাসেই হল খুলে দেওয়া সিদ্ধান্ত হোক।"

লাইব্রেরিতে প্রবেশে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার, আবাসিক হলসহ অন্যান্য স্থাপনা শিক্ষার্থীদের জন্য খুলে দিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে করণীয় সংক্রান্ত মানসম্মত পরিচালনা পদ্ধতি (SOP) প্রণয়ন করা হয়েছে। বিধিমালা অনুযায়ী গ্রন্থাগারে সকলকে বাধ্যতামূলকভাবে নিয়মিত ও সার্বক্ষণিক সঠিক নিয়মে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরিধান করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি পালনের জন্য সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী পরস্পরের কাছ থেকে কমপক্ষে ১ মিটার (৩ ফুট) শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। গ্রন্থাগারে দলগত আলোচনা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ থাকবে। গ্রন্থাগারের ফটোকপি ও প্রিন্ট মেশিনগুলো আপাতত ব্যবহার করা যাবে না। গ্রন্থাগার প্রাঙ্গণের অভ্যন্তরে এবং বাইরে শারীরিক দূরত্বের শর্ত মেনে চলতে হবে। গ্রন্থাগারে প্রবেশ ও বহির্গমনের জন্য আলাদা গেট ব্যবহার করতে হবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিয়ম অনুসারে ব্যবহৃত ফেসমাস্ক, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম ডাস্টবিনে ফেলতে হবে।

/এমএস/

সম্পর্কিত

ঢাবির হলের বারান্দায় ফাটল: পর্যবেক্ষণে কমিটি গঠন

ঢাবির হলের বারান্দায় ফাটল: পর্যবেক্ষণে কমিটি গঠন

কৃষ্ণচূড়া গাছ কাটায় ঢাবি শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ

কৃষ্ণচূড়া গাছ কাটায় ঢাবি শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ

দুই সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত হতে পারে ঢাবি'র ডোপ টেস্ট নীতিমালা

দুই সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত হতে পারে ঢাবি'র ডোপ টেস্ট নীতিমালা

হোটেল-মেসে মিলছে না সিট, বিপাকে রাবির ভর্তিচ্ছুরা

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:১৭

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী শুভ। গ্রামের বাড়ি ফেনীতে। তার চাচাতো বোন এবার ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবেন। সঙ্গে আসতে চেয়েছেন তার চাচি। কিন্তু তাদের থাকার ব্যবস্থা করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন শুভ। 

গত দুই দিনে নগরীর অন্তত ১০টি আবাসিক হোটেল ঘুরেও বুকিং দেওয়ার জন্য একটা কক্ষ পাননি। বান্ধবীর মেসে বোনের থাকার ব্যবস্থা করলেও চাচির ব্যবস্থা করতে পারছেন না। শুধু শুভ নন, আবাসিক হলগুলো বন্ধ থাকায় তার মত অনেক শিক্ষার্থী এবার বিপাকে পড়েছেন।

শুভ বলেন, ‘বোনের থাকার ব্যবস্থা হয়েছে। তবে চাচির থাকার ব্যবস্থা করতে না পারায় তাকে রাজশাহী আসতে নিষেধ করেছি। আবার এত দূরের রাস্তা বোন একা কীভাবে আসবে তা নিয়েও চিন্তায় আছি। রাজশাহীতে দুই বছর থাকার পরও আত্মীয়-স্বজনের থাকার ব্যবস্থা করতে পারছি না, বিষয়টা খুব বিব্রতকর।’

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রাবির ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৪ অক্টোবর শুরু হবে। এ বছর তিনটি ইউনিটে প্রায় এক লাখ ২৮ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছেন। 

প্রতি বছর ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা হলের রিডিং রুম, পেপার রুম ও মসজিদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরেই বিভিন্ন স্থানে থাকার সুযোগ পেলেও, এবার হল বন্ধ থাকায় সেই সুযোগ মিলছে না। ফলে আবাসিক হোটেল ও মেসগুলোই শিক্ষার্থীদের একমাত্র ভরসা।

এদিকে আবাসিক হল বন্ধ রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বর্ষের পরীক্ষা শুরু হওয়ায় হলের শিক্ষার্থীরাও মেসে  অবস্থান নিয়েছেন। চাহিদার তুলনায় সিট কম হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরই মেসগুলোতে গাদাগাদি করে থাকতে হচ্ছে। ফলে অন্য সময়ের তুলনায় এবার ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের মেসে থাকার সুযোগও কম।

রাজশাহী মেস মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীতে ছোট-বড় মিলিয়ে মেস আছে প্রায় পাঁচ হাজার। সেখানে এক লাখের বেশি শিক্ষার্থী থাকেন। আবাসিক হল বন্ধ রেখে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা নেওয়ায় এসব মেসের সিট গত মাসেই শেষ হয়ে গেছে।
 
নগরীর মেস মালিক সমিতির সভাপতি এনায়েতুর রহমান বলেন, আমাদের মেসগুলোর অধিকাংশ সিটই গত মাসে বুক হয়ে গেছে। মেসের কোনও শিক্ষার্থীর কাছে যদি ভর্তিচ্ছু আসে, তবে এর জন্য টাকা দিতে হবে না। গত শুক্রবার মেয়রের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আবাসিক হোটেলের কক্ষ যেন সোনার হরিণ

নগরীর আবাসিক হোটেলগুলোর কক্ষও ইতোমধ্যে বুক হয়ে গেছে। অনেকেই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত হোটেলে ঘুরে একটা কক্ষ পাচ্ছে না। দু-একটি হোটেলে সিট খালি থাকলেও অন্য সময়ের তুলনায় পাঁচ গুণ ভাড়া চাওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।
 
শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী রহমত-ই রাব্বির সঙ্গে কথা হয়। রাব্বি জানান, ‘খুলনা থেকে এক শিক্ষক তার মেয়েকে নিয়ে আসবেন। তাদের জন্য হোটেলে একটি রুম বুকিং দিতে বলেছেন। সকাল থেকে বেশ কয়েকটি হোটেলে গিয়েছি। কোনও হোটেলেই সিট খালি নেই। স্যারকে কী বলবো সেটাই বুঝতে পারছি না।’
 
এদিকে আবাসিক হোটেল মালিক সমিতি বলছে, রাজশাহী শহরে ছোট-বড় মিলিয়ে আবাসিক ৬০ থেকে ৬৫টি হোটেল রয়েছে। যেখানে এক হাজার ৮০০ থেকে দুই হাজার মানুষ রাখা সম্ভব। এসব হোটেল সপ্তাহ দুই এক আগেই বুক হয়ে গেছে।

আবাসিক হোটেল মালিক সমিতির সভাপতি ও হোটেল নাইস ইন্টারন্যাশনালের মালিক খন্দকার হাসান কবির বলেন, ‘আমাদের রুমগুলো সব এসি। তাই চাহিদাও বেশি। দুই সপ্তাহ আগেই বুকিং শেষ। প্রতিদিনই সবাই রুমের জন্য ফোন করছেন। আমরা দিতে পারছি না। অনেকে সশরীরে আসছেন রুম খুঁজতে। তাদেরকেও ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার তাপু বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে শিক্ষার্থীরা যাতে মেসগুলোতে ফ্রি থাকতে পারে সেই ব্যবস্থা হয়েছে।

মেসে ফ্রিতে থাকতে পারবেন রাবি ভর্তি পরীক্ষার্থীরা

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

রাবির ভর্তি পরীক্ষা শুরু ৪ অক্টোবর

রাবির ভর্তি পরীক্ষা শুরু ৪ অক্টোবর

রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ৪ অক্টোবর

রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ৪ অক্টোবর

রাবির ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

রাবির ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

চবিতে আবেদনের রেকর্ড, এক আসনের বিপরীতে ৪০ শিক্ষার্থী

চবিতে আবেদনের রেকর্ড, এক আসনের বিপরীতে ৪০ শিক্ষার্থী

বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবসে ডিআইইউতে কুইজ, জিতলো টিম অ্যামলোডিপিন

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:২২

বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবসে 'ফার্মেসি: অলওয়েজ ট্রাস্টেড ফর ইওর হেলথ’ এই স্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে ফার্মেসি বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনলাইনে বিশেষ কুইজ আয়োজন করে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ)। এ কুইজে জয় লাভ করে টিম ‘অ্যামলোডিপিন’।

শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) অনলাইনের জুম প্ল্যাটফর্মে এ কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

ফার্মেসি বিভাগের সহকারী অধ্যাপিকা জনাবা শর্মিষ্ঠা দাশ এর সঞ্চালনায় ৮টি টিম নিয়ে কুইজ প্রতিযোগিতাটি পরিচালনা করেন উক্ত বিভাগের প্রভাষক জনাব নিলয় ভৌমিক। অংশগ্রহণকারী টিম আটট ‘র নাম করণ করা হয় বিশেষ আটটি ওষুধের নামানুসারে, নামগুলো হলো: অ্যামলোডিপিন, অ্যাটোরভাস্টাটিন, গ্লিকা-জিড, নাইট্রোগ্লিসারিন, প্রিগাব্যালিন, সেফা লোস্পোরিন, ফেবুক্সোস্যাস্ট ও অ্যাসপিরিন।

বিশেষ এ কুইজ প্রতিযোগিতাটিতে ৮টি টিমের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে ফাইনালে ওঠে অ্যামলোডিপিন ও নাইট্রোগ্লিসারিন।

অবশেষে ‘টিম অ্যামলোডিপিন’ সর্বোচ্চ সংখ্যক নম্বর নিয়ে দাপুটে বিজয় লাভ করে। বিজয়ী টিমের সদস্যরা হলেন, ফয়সাল আহমেদ মুরাদ (২১ তম ব্যাচ), মেহেদি হাসান (২২ তম ব্যাচ), ইলমা জান্নাত (২৩তম ব্যাচ), তানজিলা আক্তার লিজা (২৪তম ব্যাচ), তিশা (২৫তম ব্যাচ), জান্নাত আরা (২৬তম ব্যাচ) ও হামিম আশরাফী (২৭তম ব্যাচ)।

বিজয়ী টিমের টিম লিডার ফয়সাল আহমেদ মুরাদ বলেন, ‘আমরা আমাদের বিশ্ববদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রতি বছর একবার করে এ ধরনের কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারি। এমন বিশেষ কুইজ প্রতিযোগিতায় জয় লাভ করে টিমের সবাই খুবই আনন্দিত!’

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

১৮ মাস পর খুললো ঢাবির কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি

১৮ মাস পর খুললো ঢাবির কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি

হোটেল-মেসে মিলছে না সিট, বিপাকে রাবির ভর্তিচ্ছুরা

হোটেল-মেসে মিলছে না সিট, বিপাকে রাবির ভর্তিচ্ছুরা

করোনায় ঘরবন্দি সময় কাজে লাগিয়ে সফল উদ্যোক্তা এলিজা

করোনায় ঘরবন্দি সময় কাজে লাগিয়ে সফল উদ্যোক্তা এলিজা

করোনায় ঘরবন্দি সময় কাজে লাগিয়ে সফল উদ্যোক্তা এলিজা

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৫

করোনার সময় ঘরবন্দি জীবনকে কাজে লাগিয়ে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) পরিসংখ্যান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী এলিজা সাবরিন অণু হয়ে উঠেছেন সফল উদ্যোক্তা। পেলেন লাখপতি সেলারের পুরস্কার।

কীভাবে উদ্যোক্তা হলেন জানতে চাইলে এলিজা সাবরিন অণু বলেন, ‘করোনায় ঘরবন্দি ছিলাম। সবার মতো আমারও অলস সময় কাটছিল। তখন ফেসবুকভিত্তিক নারী উদ্যোক্তাদের প্ল্যাটফর্ম উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই) বা উই’তে সময় দিই। সেখান থেকে উদ্যোক্তা হওয়ার আগ্রহ সৃষ্টি হয়। ছোটকালে মায়ের কাছ থেকে শেখা সেলাই আর ডিজাইন নিয়ে কাজ শুরু করি। তিন মাস ঘরে বসেছিলাম। ২০২০ সালের জুন মাসে আমার ফেসবুক পেজের পথচলা শুরু হয়। শুরুতে গ্রাহক পাইনি। ৬ জুলাই  প্রথম অর্ডার পাই। তারপর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। দুই মাসে আমি লাখপতি এবং এক বছরে আট লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করেছি।’

তিনি বলেন, ‘এটি সম্ভব হয়েছে স্বামীর সহযোগিতা আর আমার পরিশ্রমের জন্য। যারা আমার পণ্য কিনেছেন, তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। এক বছরে নিজেকে নতুন করে উপলব্ধি করতে শিখেছি। অনার্স তৃতীয় বর্ষের একটি মেয়ে করোনার প্রকোপে যখন ঘরবন্দি, তখন উই শেখালো ঘরে বসে অনেক কিছুই করা সম্ভব। সাহস করে পদক্ষেপ নিলেই হয়।’

সাবরিন অণু বলেন, ‘অলস সময় না কাটিয়ে এখন কিছু করে অনেক সম্মান পাচ্ছি। পরিবার আত্মীয়-স্বজন বন্ধুবান্ধব সবার কাছেই। এটি কত বড় পাওয়া তা আমিই জানি। করোনা অভিশাপ হলেও আমার কাছে আশীর্বাদ হয়ে এসেছে।’

অণুর হাতে লাখপতি সেলারের সম্মাননা ক্রেস্ট ও পুরস্কার তুলে দেয় রংপুর বিভাগের বৃহত্তম ই-কমার্সভিত্তিক গ্রুপ ‘হ্যালো রংপুর’। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ‘হ্যালো রংপুরের’ প্রতিষ্ঠাতা মো. সুমন মিয়া।

সুমন মিয়া বলেন, মূলত রংপুরের তরুণ উদ্যোক্তাদের কাজের প্রতি আগ্রহ বাড়াতে আমরা এমন উদ্যোগ নিয়েছি। এতে নতুন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি হবে; যারা আগামীতে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখবে।

‘হ্যালো রংপুর’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা আবুল বাশার তাদের কার্যক্রম সম্পর্কে বলেন, আমাদের গ্রুপ থেকে যেসব তরুণ উদ্যোক্তা গত দেড় বছরে লাখ টাকার ওপরে পণ্য বিক্রি করেছেন, তাদের সম্মানিত করার চেষ্টা করেছি। এরই অংশ হিসেবে আমরা ২৫ জন তরুণ উদ্যোক্তাকে পুরস্কৃত করেছি। আগামীতে আমরা তরুণ উদ্যোক্তাদের নিয়ে নতুন নতুন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দৃশ্যমান হবে।

 

/এএম/

সম্পর্কিত

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দাবিতে জাবিতে আবার প্রতীকী ক্লাস

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দাবিতে জাবিতে আবার প্রতীকী ক্লাস

করোনামুক্ত হয়েও রুয়েটের সাবেক ভিসির মৃত্যু

করোনামুক্ত হয়েও রুয়েটের সাবেক ভিসির মৃত্যু

হাবিপ্রবিতে করোনায় এক দিনে দুই কর্মচারীর মৃত্যু

হাবিপ্রবিতে করোনায় এক দিনে দুই কর্মচারীর মৃত্যু

১৭ মে খুলছে না ঢাবির হল

১৭ মে খুলছে না ঢাবির হল

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

শিক্ষার্থীদের টিকা না দিয়েই শুরু হচ্ছে ৭ কলেজের পরীক্ষা

শিক্ষার্থীদের টিকা না দিয়েই শুরু হচ্ছে ৭ কলেজের পরীক্ষা

করোনায় প্রাণ গেলো রাবি শিক্ষকের

করোনায় প্রাণ গেলো রাবি শিক্ষকের

করোনায় প্রাণ গেলো জাবি অধ্যাপকের

করোনায় প্রাণ গেলো জাবি অধ্যাপকের

সর্বশেষ

ইভ্যালির প্রতারণা বোঝাই যায়নি: বাণিজ্যমন্ত্রী

ইভ্যালির প্রতারণা বোঝাই যায়নি: বাণিজ্যমন্ত্রী

পদ্মায় কম থাকলেও বাজার ভরে গেছে ‘পদ্মার ইলিশে’

পদ্মায় কম থাকলেও বাজার ভরে গেছে ‘পদ্মার ইলিশে’

এবার মিউজিক অ্যাওয়ার্ড চালু করছে আরটিভি

এবার মিউজিক অ্যাওয়ার্ড চালু করছে আরটিভি

বিদেশে অপ্রচারকারীর দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে: শিক্ষা উপমন্ত্রী

বিদেশে অপ্রচারকারীর দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে: শিক্ষা উপমন্ত্রী

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

© 2021 Bangla Tribune