X
শুক্রবার, ০৬ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

কে-পপে কেন মজেছে টিনএজ মন?

আপডেট : ২১ জুলাই ২০২১, ১৮:৩০

সংগীত বিশ্বে এখন সবচেয়ে দ্রুত প্রসার হওয়া ঘরানা কে-পপ (কোরিয়ান পপ)। বাংলার ঘরে ঘরেও এখন বাজে কোরিয়ান গান। আচমকা কেন কিশোর-কিশোরীরা মেতে উঠেছে কোরিয়ান সংস্কৃতিতে? ১৩ থেকে ২১ বছর বয়সী অনেকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেলো কিছু উত্তর।

কে-পপের গানগুলোর কথাই কিশোর-কিশোরীদের টানছে বেশি। আবার গায়ক-গায়িকাদের চেহারার গড়ন, জীবনাচার ও এর পাশাপাশি কোরিয়ান ড্রামা ঘরানার সিনেমাগুলো দেখেই মাতোয়ারা হয় তারা। কোরিয়ান নাটকের প্লটে এ দেশীয় প্রেমকাহিনির ছোঁয়া আর ‘সুন্দর’ চেহারার কলাকুশলীরাই মূলত কে-পপের প্রতি টান বাড়িয়েছে তাদের। ইদানীং আবার কে-পপ না শুনলে বন্ধুমহলে নিজেকে ‘আপ টু ডেট’ প্রমাণ করাও মুশকিল হয়ে পড়ছে বলে জানালো অনেক টিনএজার।

গত কয়েক বছর ধরে কে-পপ মুখে মুখে কেন ঘুরছে? এমন প্রশ্নে উত্তরদাতারা বলছেন, ট্রেন্ডের সঙ্গে থাকার জন্য অনেকে কোরিয়ান ড্রামা বা কে-পপ-এর আলোচনায় থাকতে চায়। কুশলীরা যেভাবে নিজেদের তৈরি করে, যেভাবে সৌন্দর্যচর্চা করে, সেটাও মূলত ওই টিনএজারদের আলোচনার বিষয়।

দক্ষিণ কোরিয়ার কে-পপ ব্যান্ড বিটিএস এখন দুনিয়াজুড়ে আলোচিত। সাত সদস্যের এ ব্যান্ডের জনপ্রিয়তা বিটলসকে ছুঁয়েছে দাবি করা হয়। ইউটিউব থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্ট্রিমিং প্লাটফর্মে নিয়মিত রেকর্ড গড়ছে ওদের গান। বিশ্বের নানা দেশের তরুণদের ওপর বিটিএসের প্রভাব বেশ শক্ত।

কোরীয় এই ব্যান্ড দলটি গানের বাইরেও অবশ্য নানা সামাজিক কাজ করে। সেই প্রচারণাও মুগ্ধ করছে ছেলেমেয়েদের। তবে এ তালিকায় মূলত অল্পবয়সী ইংলিশ মিডিয়াম পড়ুয়া কিংবা উচ্চবিত্তের টিনএজাররাই বেশি।

স্বভাবতই, এ জগতের বাইরে যারা থেকে যাচ্ছে তারা হয়ে পড়ছে বিচ্ছিন্ন। অর্থাৎ একই প্রজন্মের ভেতর মোটাদাগে একটি বিভাজন তৈরি হচ্ছে বলে শঙ্কা অভিভাবকদের।

রাজধানীর বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা রাতুল ইশতিয়াক তার মেয়ের প্রসঙ্গে বলেন, ‘কোচিংয়ে গিয়ে অন্য বন্ধুদের কাছে কে-পপ-এর কথা শোনে সে। কে-পপ ভালো লাগেনি বলার কারণে তাকে তার ব্যাচমেটরা বেশ হেয় করে একদিন। আবার একেকজন নিজেদের কে-পপ জগতের একেক তারকার মতো তৈরি করতে চায়। তারাও ট্রলের মুখে পড়ে।’

২১ বছর বয়সী আভেরী রোদসী তানভীর মনে করেন ‘অবসেশনটা’ ক্ষতিকর। একটা কিছু ভালো লাগতেই পারে। কিন্তু একজনের কেন ভালো লাগলো বা আরেকজনের কেন লাগলো না সেসব নিয়ে চ্যালেঞ্জ করাটা অসুস্থ মানসিকতা। বন্ধুরা কে-পপ বা কে-ড্রামার ফ্যান হলেও তিনি কখনও ভক্ত হয়ে ওঠেননি। তিনি বলেন, ‘এই যে আমি শুনছি দেখছি, কিন্তু পাগলামো বা ক্ষেপামো করছি না- এমন মানসিকতা তৈরিতে পারিবারিক স্কুলিং লাগে।’

কে-পপের বাজারে মেধার পাশাপাশি তথাকথিত ‘সুন্দর’ চেহারার কদর বেশি। বাজার ধরতে ও সর্বোচ্চ মুনাফা আদায়ের জন্য প্রশিক্ষণের সময় শিল্পীদের যে চাপে রাখা হয়, সেটাও মাঝে মাঝে অমানবিক মনে হতে পারে। একইসঙ্গে শিল্পীদের শেখানো হয় গান, র‌্যাপ, নাচ। শরীর গঠনে কৈশোর থেকেই চলে কঠোর ডায়েট। এ প্রক্রিয়ায় যারা টেকে তারাই হয় বড় তারকা। বাকিদের জীবন কাটে চরম হতাশায়, যাদের খবর কেউ রাখেন না।

আন্তর্জাতিকভাবে কোরিয়ান ড্রামা ও সিনেমাকে জনপ্রিয়তার উচ্চ শিখরে পৌঁছানোর প্রথম ধাপ হিসেবে ধরা হয় ‘অটাম ইন মাই হার্ট’কে। ২০০০ সালে এই ড্রামা সিরিজ মুক্তি পাওয়ার পর উন্মাদনা কোরিয়া থেকে ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। এ ঢেউ বাংলাদেশে পৌঁছায় আরও পরে।

কেন কে-ড্রামা দেখছো প্রশ্নে দশম শ্রেণির আশিস বললো, ‘আমাদের বয়সীরা এসব দেখে। কারণ তাদের গল্প আমাদের গল্পের সঙ্গে মিলে যায়। উপস্থাপন ভালো, একটানা দেখে ফেলা যায়। আর ওরা সবাই দেখতে সুন্দর। আমাদের সার্কেলে এসবের প্রতি মেয়েদের ঝোঁক বেশি। এর কারণ আমার জানা নেই।’

কে-পপ ও কোরিয়ান কালচার নিয়ে জাতীয় দৈনিকে নিয়মিত লিখছে দশম শ্রেণির রুমাইসা এম রহমান। কেন কে-পপ-এ ঝুঁকছে জানতে চাইলে সে জানালো, ‘কোরিয়ান এই পপ ও ড্রামা আগে থেকেই আলোচনায় ছিল। বিটিএস-এর গান দিয়ে ২০১৭ থেকে বাংলাদেশে উন্মাদনা শুরু। তারা নিজেরা বেশ ভালো নাচে, ভালো গায়। এসব কিন্তু অনেক ব্যান্ড পারে না। কে-পপের জন্য ছোট থাকতে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়, তাদের ওই তৈরি হওয়ার গল্প শুনেও অনেকে রোমাঞ্চিত হয়। আবার এদের কনসেপ্টগুলোও আলাদা। তাদের গানে ইতিবাচক বার্তা থাকে। সেটাও এই বয়সীদের আগ্রহ ধরে রাখতে পারছে।’

এ প্রসঙ্গে মনোরোগ বিশ্লেষক অধ্যাপক তাজুল ইসলাম বলেন, ‘বয়ঃসন্ধিকালে নতুন ফ্যাশন, নতুন কালচার, বা যা কিছু চলছে তার সঙ্গী হওয়ার প্রবণতা থাকে। কিন্তু এর জন্য সেটাকেই জীবন, বাকি সব মিথ্যা জ্ঞান করলে বিপদ। কোনটা সংস্কৃতি, কোনটা অপসংস্কৃতি এই বোধ কিশোর-কিশোরীদের তৈরি হয় না। ফলে সেই দায়িত্ব অভিভাবকদের নিতে হবে। সন্তান কোনটা লালন করবে, কোনটা তার মানসিক বিকাশে মানানসই হবে সেটা শেখানো অভিভাবকদের দায়িত্ব। তবে এটা মনে রাখতেই হবে যে নতুন ধারণা লুফে নেওয়াটা বয়ঃসন্ধিকালের স্বাভাবিক প্রবণতা।’ 

/এফএ/এমওএফ/

কওমি মাদ্রাসা খোলার ঘোষণা সত্য নয়: বেফাক

আপডেট : ০৬ আগস্ট ২০২১, ০০:৫৯

কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়ার ঘোষণা সত্য নয় বলে জানিয়েছে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক)। বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) রাতে প্রতিষ্ঠানটির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এদিন রাতে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, ১১ আগস্ট থেকে কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়ার অনুমতি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের মহাপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মাওলানা মোহাম্মদ জোবায়ের স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেয়, কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়ার বিষয়ে মন্ত্রণালয় এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি।

এই ঘটনার পর বেফাকের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক নতুন করে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তাদের প্যাড ব্যবহার করে আগামী ১১ আগস্ট থেকে মাদ্রাসা খোলার মিথ্যা খবর প্রকাশ করা হয়, যা নিতান্তই গর্হিত ও নিন্দনীয় কাজ। এরূপ নিন্দনীয় কাজের ফলে জনমনে বিভান্তির সৃষ্টি এবং বেফাকের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। অতিসত্বর এমন মিথ্যা খবরগুলো স্ব স্ব আইডি থেকে মুছে ফেলা এবং ভবিষ্যতে এমন কাজ না করার অনুরোধ করা হচ্ছে।

সেইসঙ্গে ফেসবুক কর্তৃক ভেরিফায়েডকৃত বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের নিজস্ব ফেসবুক পেইজ (http://www.facebook.com/wifaqbd) ব্যতীত অন্য কোনও আইডি থেকে প্রকাশিত বেফাক সংশ্লিষ্ট খবরে বিভ্রান্ত না হওয়া এবং তা প্রচার না করার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

/এসএমএ/এমপি/

সম্পর্কিত

মরদেহ সংরক্ষণে দুর্ভোগে ঢামেক

মরদেহ সংরক্ষণে দুর্ভোগে ঢামেক

কওমি মাদ্রাসা খোলার অনুমতি দেয়নি সরকার

কওমি মাদ্রাসা খোলার অনুমতি দেয়নি সরকার

ভ্রাম্যমাণ আদালতের কিছু কার্যক্রমে হাইকোর্টের অসন্তোষ

ভ্রাম্যমাণ আদালতের কিছু কার্যক্রমে হাইকোর্টের অসন্তোষ

পরীমণির বাসায় নিয়মিত পার্টিতে মাদক সরবরাহ করতেন রাজ

পরীমণির বাসায় নিয়মিত পার্টিতে মাদক সরবরাহ করতেন রাজ

মরদেহ সংরক্ষণে দুর্ভোগে ঢামেক

আপডেট : ০৬ আগস্ট ২০২১, ০০:০৪

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে মরচুয়ারি কুলার (মরহেদ রাখার ফ্রিজ) নিয়ে দুর্ভোগ বহুদিনের। যে ক’টি মরচুয়ারি কুলার রয়েছে সেগুলো বেশ পুরনো। প্রায়ই বিকল হয়ে পড়ে। সেগুলো মেরামত করতে হয় মাঝে মাঝেই। নতুন দুটি কুলার স্থাপন করা হলেও টেনেটুনে চালাতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে। বড় কোনও দুর্ঘটনা ঘটলেই পড়তে হয় বিপাকে। আবার পরিচয়হীন মরদেহ দীর্ঘদিন ফ্রিজে রাখার কারণেও দেখা দেয় সংকট। কর্তৃপক্ষ জানালো, মর্গের কুলার নিয়ে শিগগিরই কেটে যাবে জটিলতা।

ঢামেকের মর্গ সহকারী সেকান্দর আলী জানালেন, এখন পাঁচটি মরচুয়ারি কুলার রয়েছে। একটিতে পাঁচটি করে ২০টি মরদেহ রাখা যায়। পাঁচটির মধ্যে একটি আবার বিকল।

 স্থাপনার জন্য জায়গাটি পরিস্কার করা হচ্ছে সেকান্দর আলী আরও জানান, ‘অস্বাভাবিক মৃত্যুতে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ প্রথমে ফ্রিজিং-এ রাখা হয়। পরে সংশ্লিষ্ট থানাকে জানালে তারা সুরতহাল করে। এরপর ময়নাতদন্ত করেন ফরেনসিক চিকিৎসকরা। আবার যে মরদেহের পরিচয় পাওয়া যায় না, সেগুলো ফ্রিজিং করতে হয় অনেকদিন। এখন যে ধারণক্ষমতার মরচুয়ারি আছে তা নিয়ে হিমশিম খেতে হয় আমাদের।’

সংশ্লিষ্টরা বলেন, যে কোনও প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা বড় দুর্ঘটনা ঘটলে সমস্যায় পড়তে হয়। সম্প্রতি মগবাজার ও রূপগঞ্জের ঘটনায় পরিচয় না পাওয়া সব মরদেহ ঢামেকের মরচুয়ারিতে রাখা যায়নি। এরপরও কোনোমতে ২৫টি মরদেহ রাখা হয়েছিল। বাকিগুলো সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রাখতে হয়েছিল। এ ছাড়া, আইনি প্রক্রিয়া শেষ না হওয়ায় তিন বিদেশির মরদেহও দীর্ঘদিন মরচুয়ারিতে পড়ে আছে।

মর্গের প্রবেশ পথ এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঢামেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. মোহাম্মদ মাকসুদ বলেন, ‘এ সমস্যা দীর্ঘদিনের। বিষয়টি কলেজের প্রিন্সিপালের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে। কর্তৃপক্ষ আশ্বস্ত করেছেন। ইতোমধ্যে সরকারি নিয়ম অনুসারে দরপত্র ডাকা হয়েছে। রেড ক্রিসেন্টের পক্ষ থেকেও বড় আকারে একটি মরচুয়ারি দেওয়ার কথা হয়েছে।’

কতটি মরদেহ রাখা যাবে সেই মরচুয়ারিতে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা এখনও জানতে পারেননি। আমরা শুধু স্থাপনার জন্য জায়গা দেখিয়ে দিয়েছি।’

তিনি বলেন, রেড ক্রিসেন্ট ও সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া মরচুয়ারি স্থাপন হলে আর সমস্যা থাকবে না। ফরেনসিক বিভাগের মর্গকেও আরও আধুনিক করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

কওমি মাদ্রাসা খোলার ঘোষণা সত্য নয়: বেফাক

কওমি মাদ্রাসা খোলার ঘোষণা সত্য নয়: বেফাক

পরীমণির বাসায় নিয়মিত পার্টিতে মাদক সরবরাহ করতেন রাজ

পরীমণির বাসায় নিয়মিত পার্টিতে মাদক সরবরাহ করতেন রাজ

নির্মাণশৈলীতে ভিন্নতা আনতে 'ভাস্কর্যে বিকৃতি'

নির্মাণশৈলীতে ভিন্নতা আনতে 'ভাস্কর্যে বিকৃতি'

টিকার প্রথম ডোজের আওতায় এক কোটি মানুষ

টিকার প্রথম ডোজের আওতায় এক কোটি মানুষ

যাত্রাবাড়ীতে ৭০ কেজি গাঁজাসহ দুজন গ্রেফতার

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ২৩:৫২

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে ৭০ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন‑ মো. স্বপন ও জহিরুল ইসলাম। এ সময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি কার্গো ট্রাক, দুটি মোবাইল ফোন ও নগদ ৮২০ টাকা জব্দ করা হয়।

র‍্যাব-১০ এর উপ-অধিনায়ক মেজর শাহরিয়ার জিয়াউর রহমান বলেন, উদ্ধারকৃত ৭০ কেজি গাঁজার আনুমানিক মূল্য ২১ লাখ টাকা। গ্রেফতারকৃতরা দীর্ঘদিন ধরে ট্রাকযোগে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় গাঁজাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে আসছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

 

 

/আরটি/এমএস/

সম্পর্কিত

কারবারিরা লেনদেন করছে ভার্চুয়াল মুদ্রায়

কারবারিরা লেনদেন করছে ভার্চুয়াল মুদ্রায়

মাদকের মামলায় ৪ নাইজেরিয়ান কারাগারে

মাদকের মামলায় ৪ নাইজেরিয়ান কারাগারে

নতুন মাদকের টার্গেট ঢাকা

নতুন মাদকের টার্গেট ঢাকা

লকডাউনেও মাদক পরিবহনে সক্রিয় চক্রগুলো, গ্রেফতার ৩

লকডাউনেও মাদক পরিবহনে সক্রিয় চক্রগুলো, গ্রেফতার ৩

নাটকে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে ভিত্তিহীন মন্তব্য: মানবাধিকার কমিশনের ক্ষোভ

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ২৩:৪৬

টেলিভিশন নাটকে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে ভিত্তিহীন মন্তব্য করায় নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সভায়। বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ও অটিজম বিষয়ক থিমেটিক কমিটির ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বক্তারা এ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগমের সভাপতিত্বে সভায় বক্তারা বলেন, ‘ঈদের বিশেষ অনুষ্ঠানমালায় চ্যানেল আইতে প্রচারিত “ঘটনা সত্য” নামে একটি নাটক নিয়ে বিভিন্ন মহলে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। প্রতিবন্ধিতা জীববৈচিত্র্যের একটি অংশ। অথচ ওই নাটকের শেষ অংশে প্রতিবন্ধী শিশুর জন্ম নেওয়াকে মা-বাবার পাপের ফল হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণরূপে অবৈজ্ঞানিক, ভিত্তিহীন, অযৌক্তিক ও ভ্রান্ত ধারণাপ্রসূত। এ মন্তব্যের মাধ্যমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ও তাদের অভিভাবকদের অনুভূতিতে তীব্র আঘাত দেওয়া হয়েছে।’

বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে এ বিষয়ে অনেকেই তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। ইতোপূর্বেও গণমাধ্যমে প্রচারিত অনুষ্ঠানে প্রতিবন্ধিতাকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। প্রতিবাদের পর দুঃখ প্রকাশ এবং ক্ষমা চাওয়া হয়েছে। এবারও নাটকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ ও ক্ষমা চাওয়া হয়েছে। কিন্তু প্রতিবারই ক্ষমা ও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি কাম্য নয়। এ ধরনের নেতিবাচক ও বিরূপ বক্তব্য প্রচার ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন, ২০১৩’-এর ৩৭ (৪) ধারা অনুসারে একটি দণ্ডযোগ্য অপরাধ।

সভায় এ বিষয়ে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেগুলো হচ্ছে– ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রচারিত সব কনটেন্টে প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর অধিকার ও মর্যাদা সমুন্নত রাখার বিষয়টি নিশ্চিতের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চিঠি পাঠানো হবে; কোভিড-১৯ টিকা কার্যক্রমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার প্রদানের সুপারিশ জানিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে চিঠি পাঠানো হবে; সব গণস্থাপনা ও সেবাসমূহে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে একটি সার্বজনীন ন্যায়সংগত অধিকার আইনের খসড়া প্রস্তুত করে সরকারের কাছে সুপারিশ আকারে পাঠাতে হবে।

আলোচনা সভায় অংশ নেন– কমিটির সম্মানিত সদস্য ও নিউরো ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আনোয়ার উল্লাহ, ডিজঅ্যাবিলিটি কাউন্সিল ইন্টারন্যাশনালের সদস্য মনসুর আহমেদ চৌধুরী, সেন্টার ফর ডিজঅ্যাবিলিটি ইন ডেভেলপমেন্টের (সিডিডি) নির্বাহী পরিচালক এ এইচ এম নোমান খান, সেন্টার ফর সার্ভিসেস অ্যান্ড ইনফরমেশন অন ডিজঅ্যাবিলিটির (সিএসআইডি) নির্বাহী পরিচালক খন্দকার জহুরুল আলম, ডিজঅ্যাবিলিটি রিসার্চ অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন অ্যাসোসিয়েশনের (ডিআরআরএ) নির্বাহী পরিচালক ফরিদা ইয়াসমিন, উইম্যান উইথ ডিজঅ্যাবিলিটিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক আশরাফুন্নাহার মিষ্টি।

/জেইউ/এমএএ/

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

এডিস মশা নিধনে ডিএসসিসির অভিযান: ৩৬ ভবনকে ৬ লাখ টাকা জরিমানা

এডিস মশা নিধনে ডিএসসিসির অভিযান: ৩৬ ভবনকে ৬ লাখ টাকা জরিমানা

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

জনজীবন স্বাভাবিক, সড়কে বেড়েছে মানুষের চাপ

জনজীবন স্বাভাবিক, সড়কে বেড়েছে মানুষের চাপ

শিক্ষক নিয়োগে এনটিআরসিএ’র বিশেষ গণবিজ্ঞপ্তি

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ২৩:২৮

দেশের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৬৮৮ পদে কারিগরি শিক্ষক নিয়োগে বিশেষ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।  

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আগামী ৮ আগস্ট সকাল ১০টা থেকে ৩১ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, সেকেন্ডারি এডুকেশন ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (সেসিপ) এর চাহিদার ভিত্তিতে সাধারণ শিক্ষা ধারার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (বিদ্যালয় ও দাখিল মাদ্রাসা) ভোকেশনাল কোর্স চালু করার লক্ষ্যে বিভিন্ন বিষয়ের শূন্য পদে অনলাইনে আবেদন আহ্বান করা হচ্ছে।

আবেদনকারীর বয়স ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি তারিখে ৩৫ বছর বা তার কম হতে হবে। উচ্চ আদালতের রায়ে অনুযায়ী ২০১৮ সালের ১২ জুন তারিখের আগে যারা শিক্ষক নিবন্ধন করেছেন তাদের ক্ষেত্রে বয়স শিথিলযোগ্য।

অনলাইনে আবেদন ও ফি জমা দেওয়ার সংক্রান্ত নিয়ম টেলিটকের htt://ngi.teletalk.com.bd  ওয়েবসাইট এবং এনটিআরসিএ www.ntrca.gov.bd ওয়েবসাইটে স্বতন্ত্রভাবে দেখানো হয়েছে। 

কারিগরির যেসব ট্রেডের শূন্যপদে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে তার মধ্যে রয়েছে ফুড প্রসেসিং অ্যান্ড প্রিজার্ভেশন বিষয়ে ৫৮ জন, সিভিল কনস্ট্রাকশন ওয়ার্কস ১৯ জন, জেনারেল ইলেকট্রনিক ওয়ার্কস/জেনারেল ইলেকট্রনিকস ৪৪টি, ড্রেস ম্যাকিং ৫৩ জন, কম্পিউটার অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি ২৪২ জন, জেনালে ম্যাকনিক্স ২২ জন, রিফ্রাজারেশন অ্যান্ড এয়ার কন্ডিশনিং ৩৪ জন, প্লাম্বিং অ্যান্ড পাইপ ফিটিং ১৮ জন, ওয়েলডিং অ্যান্ড ফ্রেব্রিকেশন ৫জন।

 

/এসএমএ/এফএএন/

সম্পর্কিত

কওমি মাদ্রাসা খোলার অনুমতি দেয়নি সরকার

কওমি মাদ্রাসা খোলার অনুমতি দেয়নি সরকার

ঢাবি উপাচার্যকে মার্কিন দূতাবাসের অভিনন্দন

ঢাবি উপাচার্যকে মার্কিন দূতাবাসের অভিনন্দন

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

সর্বশেষ

ত্রিপুরার পর আসাম-কেরালাকে টার্গেট তৃণমূলের

ত্রিপুরার পর আসাম-কেরালাকে টার্গেট তৃণমূলের

বাংলাদেশের রাব্বি পেলেন রূপা

বাংলাদেশের রাব্বি পেলেন রূপা

গাজীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মাসুদ সম্পাদক রাহিম

গাজীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মাসুদ সম্পাদক রাহিম

সিটি করপোরেশন এলাকায় ৭-৯ আগস্ট ভ্যাকসিন ক্যাম্পেইন চালানো যাবে

সিটি করপোরেশন এলাকায় ৭-৯ আগস্ট ভ্যাকসিন ক্যাম্পেইন চালানো যাবে

কওমি মাদ্রাসা খোলার ঘোষণা সত্য নয়: বেফাক

কওমি মাদ্রাসা খোলার ঘোষণা সত্য নয়: বেফাক

রবীন্দ্রনাথের পারস্য মুগ্ধতা

রবীন্দ্রনাথের পারস্য মুগ্ধতা

বার্সেলোনার ঘোষণা, মেসি থাকছেন না

বার্সেলোনার ঘোষণা, মেসি থাকছেন না

পরীমণির সঙ্গে আমার পবিত্র সম্পর্ক: চয়নিকা চৌধুরী

পরীমণির সঙ্গে আমার পবিত্র সম্পর্ক: চয়নিকা চৌধুরী

মরদেহ সংরক্ষণে দুর্ভোগে ঢামেক

মরদেহ সংরক্ষণে দুর্ভোগে ঢামেক

রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবসে ‘পয়লা নম্বর’

রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবসে ‘পয়লা নম্বর’

যাত্রাবাড়ীতে ৭০ কেজি গাঁজাসহ দুজন গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ৭০ কেজি গাঁজাসহ দুজন গ্রেফতার

নাটকে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে ভিত্তিহীন মন্তব্য: মানবাধিকার কমিশনের ক্ষোভ

নাটকে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে ভিত্তিহীন মন্তব্য: মানবাধিকার কমিশনের ক্ষোভ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune