রাজশাহীতে বিএনপির পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ

Send
দুলাল আবদুল্লাহ, রাজশাহী
প্রকাশিত : ১২:৫৯, জুলাই ৩০, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৪৩, জুলাই ৩০, ২০১৮

রাজশাহীতে বিএনপির পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগরাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধানের শীষ প্রতীকের প্রধান নির্বাচনি এজেন্ট ও রাজশাহী জেলা বিএনপির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন ওরফে তপু এই অভিযোগ করেন।

সোমবার বেলা ১২টার দিকে তিনি অভিযোগ করেন, ‘সোমবার সকালে সিটি করপোরেশনের ভোটগ্রহণ শুরু হলে নগরীর ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউসেপ স্কুলে বিএনপির পোলিং এজেন্ট ইমন শেখকে আওয়ামী লীগের এজেন্টরা বের করে দেন। এছাড়াও নগরীর ২১ নম্বর ওয়ার্ডের শিরোইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে (পুরুষ ও মহিলা) ধানের শীষের ১৫ জন পোলিং এজেন্টের কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। নগরীর বিলসিমলা এলাকায় ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স কেন্দ্রে (পুরুষ) মেয়র পদে নৌকা প্রতীক ও কাউন্সিলর পদে একজন প্রার্থী ছাড়া আর কোনও প্রার্থীর পোলিং এজেন্টকে কেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। অন্যদিকে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের মৌলভী বুথপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে টর্চলাইট রাখার অপরাধে বিএনপির পোলিং এজেন্ট মিলুকে বের করে দেওয়া হয়েছে। সে বিদ্যুৎ চলে যাবে বলে টার্চলাইট কাছে রেখেছিল। ২৯ নম্বর ওয়ার্ডেও বিএনপির পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।’

তবে বিএনপির অভিযোগ প্রসঙ্গে নগরীর শিরোইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মহিলা কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা বজেন্দ্রনাথ সরকার জানান, ‘ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে সকাল ৮টায়। এর আগে যেসব এজেন্ট এসেছে তাদের প্রবেশ করতে হয়েছে।’

আওয়ামী লীগের কর্মীদের বিরুদ্ধে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল ইসলাম বাবুল বলেন, ‘বিএনপির নেতাকর্মীরা নির্বাচন বানচালের জন্য নানা রকম পাঁয়তারা করছে। আর অভিযোগ করা তাদের মুদ্রাদোষে পরিণত হয়েছে। সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।’

এদিকে এই নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা গেলেও বিএনপির সমর্থকদের নীরব ভূমিকা পালন করছে। নগরীর উপশহর এলাকার বিএনপির এক সমর্থক মিজানুর রহমান বলেন, ‘ভয়ের কারণে আমরা ধীনের শীষ প্রতীকের কার্ড গলায় ঝুলাতে পারছি না। আওয়ামী লীগের সমর্থকরা যদি মার দেন, কিংবা আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা আটক করে নিয়ে যান। এ কারণে আমাদের অনেক সমর্থকরা নীরব ভূমিকা নিয়ে কেন্দ্রে ঘোরাঘুরি করছে। আগের কোনও নির্বাচনে এই পরিবেশ লক্ষ করা যায়নি।’

বিএনপির পোলিং এজেন্ট চৌধুরী শারমিন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যাললেয় স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৬ নম্বর কক্ষে ছিলেন। তার অভিযোগ, ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থরা তাকে আটকায় এবং পরে বের করে দেয়। তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহারও করেছে তারা। এ ঘটনার পর ওই কেন্দ্রে থাকা বিএনপির আরেক পোলিং এজেন্ট বের হয়ে গেছেন।

এসব অভিযোগে প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রাসিক নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার দেব দুলাল ঢালী বলেন, ‘এ বিষয়ে এখন কোনও কথা বলতে চাই না।’

অন্যদিকে নগরীর উপশহর স্যাটেলাইট টাউন হাইস্কুলে সকাল ৮টায় নিজের ভোট দেওয়ার কথা ছিল বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের। এরপর বিভিন্ন কেন্দ্রে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু তার পোলিং এজেন্টদের সমস্যার কারণে তিনি বিভিন্ন কেন্দ্রে ছুটে বেড়াচ্ছেন বলে জানান বিএনপি নেতারা।

রাজশাহী সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হচ্ছেন মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। মেয়র পদে কাঁঠাল প্রতীক নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির মো. হাবিবুর রহমান, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ইসলামী শাসন আন্দোলনের মো. শফিকুল ইসলাম ও হাতী প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মুরাদ মোর্শেদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

৩০টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ভোট হচ্ছে। মোট ভোটার ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮ জন। ১৩৮টি কেন্দ্রে ভোট নেওয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন- পুলিশের সহায়তায় বিএনপি’র এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ রিজভীর

/এফএস/চেক-এমওএফ/

লাইভ

টপ