X
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪
৩ আষাঢ় ১৪৩১
জিডিপিতে নারীর গৃহস্থালি কাজ

নারী কি ঘরের কাজ করে টাকা নেবে?

উদিসা ইসলাম
১৮ মে ২০২৩, ১০:০০আপডেট : ১৮ মে ২০২৩, ২১:৫০

যে নারী ঘরে থাকেন— তার কাজের কোনও কর্মঘণ্টা নেই, বিশ্রাম নেই, ছুটি নেই, বেতন নেই এবং পেনশন নেই। পরিবারের আয়-ব্যয়, সার্বিক দায়িত্বপালন, শিশুর যত্ন, বয়স্ক মানুষের যত্ন, সন্তানের পড়াশোনার দায়িত্ব, বাজার করা, রান্না করা আরও কতশত কাজ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীর অমূল্যায়িত ও অস্বীকৃত গৃহস্থালি কাজকে জাতীয় জিডিপিতে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নারীরা ঘরের সব কাজ করেন, অথচ সেই কাজ কারও নজরে আসে না। সেই কাজের কোনও স্বীকৃতি নেই। আগামী অর্থবছর থেকে নারীদের গৃহস্থালি কাজকে জিডিপি হিসাবে যোগ করবে সরকার।’

১১ এপ্রিল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভা শেষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে খুব শিগগিরই একটি কর্মপরিকল্পনা তৈরি করা হবে বলে জানান। কী হবে আসলে? নারীকে কি তবে এখন থেকে ঘরের কাজের জন্য বেতন দেওয়া হবে? কিভাবে নির্ধারণ হবে তার কাজের মূল্য? অর্থনীতিবিদ, নারী অধিকারকর্মীরা বলছেন, একটি স্যাটেলাইট হিসাব করে নারীর কাজ মূল্যায়ন করা সম্ভব। নারীরা বাসার কাজে যে সময় দিচ্ছেন, তা বাইরে করলে কত টাকা পেতেন, এটার হিসাব করে জিডিপির মূল হিসাবের পাশাপাশি এই হিসাব করা যায়। এটা হবে শ্যাডো মূল্যায়ন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ২০১৯ সালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, পুরুষদের তুলনায় সাড়ে তিন গুণ বেশি মজুরিবিহীন কাজ করেন নারীরা। একজন নারী সপ্তাহে গড়ে ২৪ ঘণ্টা, অর্থাৎ দিনে প্রায় সাড়ে ৩ ঘণ্টা গৃহস্থালির মজুরিবিহীন কাজ করেন। ‘শ্রম জরিপ ২০২২’ এর প্রতিবেদনে কৃষিতে পুরুষের তুলনায় নারীর অবদান বেশি বলে তথ্য উঠে এসেছে। নারীদের শুধু মাঠে গিয়ে কাজ নয়, ঘরে হাঁস-মুরগি ও গরু-ছাগল পালন, বিভিন্ন জাতের সবজি উৎপাদনসহ নানা হিসাব করে দেখা গেছে— কৃষিতে পুরুষের তুলনায় নারীদের অবদান বেশি। অর্থনীতিবিদেরা দেখিয়েছেন, ৪৩ শতাংশের বেশি নারী পুরোপুরিভাবে গৃহস্থালি কাজের সঙ্গে যুক্ত। পুরুষের সংখ্যা সেখানে ১ শতাংশের কম। দেশের মোট জাতীয় উৎপাদনে (জিডিপি) নারীর অবদান ২০ শতাংশ। তবে নারীর এই গৃহস্থালি কাজকে জাতীয় আয় পরিমাপের পদ্ধতিতে (এসএনএ) যোগ করা গেলে জিডিপিতে নারীর অবদান দাঁড়াবে ৪৮ শতাংশ।

যেহেতু আর্থিক মূল্য ছাড়া কোনও কাজই বাজার অর্থনীতিতে অন্তর্ভুক্ত হয় না, তাই বিশ্বের অনেক দেশের অর্থনীতিবিদরা সাধারণত স্যাটেলাইট অ্যাকাউন্ট সিস্টেমের ওপর নির্ভর করেন, উল্লেখ করে অধিকারকর্মী ও কলাম লেখক শাহানা হুদা বলেন, ‘স্যাটেলাইট অ্যাকাউন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে নারীর অমূল্যায়িত কাজকে চিহ্নিত করে অর্থনীতিবিদরা জাতীয় আয় পরিমাপের পদ্ধতি বা সিস্টেম অব ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টসের (এসএনএ) কঠিন কাজটি করতে পারেন।’

উল্লেখ্য, স্যাটেলাইট অ্যাকাউন্ট সিস্টেম হচ্ছে— এমন একটি হিসাব পদ্ধতি, যা দিয়ে ঘরের কাজ বা সেবামূলক কাজের অর্থনৈতিক মূল্যায়ন পরিমাপ করা সম্ভব। এই স্যাটেলাইট অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সরকারি নীতি ও সিদ্ধান্ত গ্রহণকালে লিঙ্গ সমতা, পরিবারের আয়-ব্যয়, সার্বিক দায়িত্বপালনের মতো বিষয়গুলোকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়। এই কাজগুলো কোনও অর্থনৈতিক লেনদেন, বা ক্ষতি পূরণ পাওয়ার আশা ছাড়াই গৃহিণীরা করে থাকেন। উৎপাদনশীল কাজ হলেও নারীর কাজকে আর্থিকভাবে মূল্যায়ন করা হয় না। কারণ,তাদের কাজকে বাজারে বিনিময় হয় না। বাজার বিনিময় না হলে এর মূল্য সংযোগ হিসাব করা যায় না। এবার সেই সুরাহাও হবে বলে আশা সংশ্লিষ্টদের।

নারীদের ঘরের কাজের বিনিময়ে টাকা দিতে হবে বলে সাধারণ যে ধারণা, মায়েদের কাজের বিনিময় মূল্য নির্ধারণ সম্ভব না বলে যে তর্ক তোলা হয়, সে বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থনীতিবিদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘নারীরা যেসব কাজ করছেন তার মধ্যে যেগুলো সেবামূলক কাজ নয়, যেসব কাজ অর্থনৈতিক, কিন্তু জিডিপিতে নেই— সেসব কাজকে মূল্যায়ন করা দরকার এবং সেটাই করার কথা ভাবা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘অর্থনীতিতে নারীর অবদান যুক্ত করা সম্ভব হলে ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ জিডিপি বাড়বে।’

কিভাবে কাজটি হবে প্রশ্নে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘পদ্ধতিতে এখনও বাছাই করা হয়নি। তবে সরকার যেটা করতে চাচ্ছে— সীমিত পরিসরে হলেও শুরু করা। যেসব অর্থনৈতিক কাজে নারী অবদান রাখছে, কিন্তু অর্থনৈতিক মূল্যায়ন হচ্ছে না— সেসব কাজকে আর্থিকভাবে মূল্যায়ন করা। যেমন, কৃষিতে ২৩ ধরনের কাজের ১৭টা কাজ নারীরা করে থাকেন। সেই কাজগুলো বাইরের লোকদের দিয়ে করালে অর্থ খরচ করতে হতো। সেই পরিমাণ অর্থ এখানে নারীর অবদান হিসাবে অর্থনীতিতে যুক্ত হবে।’

/এপিএইচ/এমওএফ/
সম্পর্কিত
ঋণখেলাপি ও অর্থপাচারকারীদের বিরুদ্ধে যৌথ অভিযান চালানোর দাবি
ব্রিকসে বাংলাদেশ যুক্ত হলে সহযোগিতার নতুন দুয়ার খুলবে
দুষ্ট চক্র ভালো উদ্যোগগুলো বাস্তবায়নে বাধা সৃষ্টি করছে: কাজী খলীকুজ্জমান
সর্বশেষ খবর
ঈদের দিনে টিভিতে সাত সিনেমা
ঈদের দিনে টিভিতে সাত সিনেমা
৩ লাখ মুসল্লি নিয়ে গোর-এ শহীদ ময়দানে ঈদ জামাত
৩ লাখ মুসল্লি নিয়ে গোর-এ শহীদ ময়দানে ঈদ জামাত
ঈদের দিন ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরার পথে দুই ভাই নিহত
ঈদের দিন ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরার পথে দুই ভাই নিহত
পশু কোরবানির মাধ্যমে এশিয়ায় ঈদুল আজহা উদযাপন
পশু কোরবানির মাধ্যমে এশিয়ায় ঈদুল আজহা উদযাপন
সর্বাধিক পঠিত
সোনালী ব্যাংককে জরিমানা করলো ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক
সোনালী ব্যাংককে জরিমানা করলো ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক
পারমাণবিক কর্মসূচি বৃদ্ধি নিয়ে জি-৭ এর বিবৃতির জবাবে যা বললো ইরান
পারমাণবিক কর্মসূচি বৃদ্ধি নিয়ে জি-৭ এর বিবৃতির জবাবে যা বললো ইরান
গাজায় কৌশলগত বিরতি ঘোষণা ইসরায়েলের
গাজায় কৌশলগত বিরতি ঘোষণা ইসরায়েলের
রংপুরে ৭ ঘণ্টা ধরে তীব্র যানজট, বাড়ি ফেরা অনিশ্চিত
রংপুরে ৭ ঘণ্টা ধরে তীব্র যানজট, বাড়ি ফেরা অনিশ্চিত
ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ: শান্তি সম্মেলন শেষে চূড়ান্ত ঘোষণায় যা বললো সুইজারল্যান্ড
ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ: শান্তি সম্মেলন শেষে চূড়ান্ত ঘোষণায় যা বললো সুইজারল্যান্ড