আ.লীগের স্বাধীনতার চেতনা মানে ভোট চুরি: মওদুদ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:৪৮, নভেম্বর ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৫১, নভেম্বর ১২, ২০১৯

 স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা শুনিয়ে আওয়ামী লীগ নাগরিক অধিকার হরণ করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। তিনি বলেন, ‘তারা (আওয়ামী লীগ) স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নতুন ভাবে সংজ্ঞায়িত করেছে। তাদের বলা স্বাধীনতার চেতনা মানে হলো একদলীয় শাসন। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মানে হলো ভোট চুরি করে ক্ষমতা দখল করে রাষ্ট্র পরিচালনা।’

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস, বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, বর্তমান সরকারের পদত্যাগ ও অবিলম্বে নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে এ সভার আয়োজন করা হয়।

মওদুদ আহমেদ বলেন, আজ বাংলাদেশের মানুষের কাছে তাদের বলা স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে গেছে। তাদের বলা স্বাধীনতার চেতনা মানে হলো একদলীয় শাসন। স্বাধীনতা ওর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মানে হলো ভোট চুরি করে ক্ষমতা দখল করে রাষ্ট্র পরিচালনা। স্বাধীনতার চেতনা মনে হলো বিচার বিভাগের স্বাধীনতা থাকতে পারবে না, আইনের শাসন থাকতে পারবে না, আমাদের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা থাকতে পারবে না। তাদের নতুন সংজ্ঞা অনুযায়ী এই হলো স্বাধীনতার চেতনা। তারা বারবার এই চেতনার কথা বলছে।

বিএনপির এ সিনিয়র নেতা অবিযোগ করেন, ‘আজ কথা বলার অধিকার নেই, ভোটের অধিকার নেই।’ তিনি দাবি করেন, ‘জাতীয়তাবাদী দলে যত মুক্তিযোদ্ধা আছে, আওয়ামী লীগে তত মুক্তিযোদ্ধা নেই।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য আরও বলেন, আজ দেশে কোনও রাজনীতি নেই, বিরোধীদলও নেই। আমরা দেখছি আজ সরকারের মধ্যে এক ধরনের বিরাট অস্থিরতা কাজ করছে। এর কারণটা কি? তাদের দুঃশাসন, অপশাসন, দুর্নীতি অত্যাচার, নির্যাতন, নিপীড়ন এগুলো এমন পর্যায়ে চলে গেছে, যে আজ তাদের এ অপকর্মের ভারে তাদের পতন ঘটবে।

অনুষ্ঠানে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না অভিযোগ করেন, বর্তমান সরকার দেশের সাধারণ মানুষের ওপর নির্যাতন করে টিকে আছে। এই সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেবে না। কারণ তারা ভালোভাবেই জানে, খালেদা জিয়া মুক্তি পেলে এই অবৈধ সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারবে না।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওই উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের বরাদ্দকৃত টাকা লুটেপুটে খাচ্ছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক পরিবেশ ধ্বংস করছেন এবং গাছপালা কেটে বিভিন্ন প্রোজেক্টের নাম করে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করছেন।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ প্রচার সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম প্রমুখ।

/এইচএন/টিটি/

লাইভ

টপ