X
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
বিএডিসিতে অনিয়ম পর্ব-১১

পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ দিতে মানা হয় না নীতিমালা!

শাহেদ শফিক
১৫ জুলাই ২০২১, ১৩:০০আপডেট : ১৫ জুলাই ২০২১, ১৩:০০

নানা অনিয়মে চলছে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি)। এ নিয়ে বাংলা ট্রিবিউন-এর ধারাবাহিক প্রতিবেদনের ১১তম পর্ব থাকছে আজ।

বিধিমালার তোয়াক্কা করা হচ্ছে না বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে। নিজেদের পকেট ভারী করতে পছন্দের ঠিকাদারের মাধ্যমে করানো হচ্ছে কাজ। উন্মুক্ত দরপত্র বাদ দিয়ে বড় কাজগুলো দেওয়া হচ্ছে লোকাল টেন্ডার মেথড (এলটিএম) পদ্ধতিতে। এতে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে।

পাবলিক প্রকিউরমেন্ট রুলস (পিপিআর) ২০০৮-এর বিধি লঙ্ঘন করে এলটিএম পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করে আরসিসি মেইন ক্যানেল নির্মাণ করা হয়েছে। এতে অনিয়ম হয়েছে প্রায় ৪ কোটি ৪৩ লাখ টাকার। সরকারের একটি সংস্থার তদন্তে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

অনুসন্ধানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিএডিসি আশুগঞ্জ-পলাশ অ্যাগ্রো-ইরিগেশন প্রকল্পের ২০১৮-১৯ অর্থবছরের হিসাব, বিভিন্ন ধরনের নির্মাণ কাজের দরপত্র, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নিয়োগ সংক্রান্ত নথিপত্র এবং সংশ্লিষ্ট বিল-ভাউচার পর্যালোচনা করা হয়। ২০২০ সালের ২৪ জানুয়ারি হতে ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এই তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

তদন্তে দেখা যায়, পিপিআর ২০০৮-এর বিধি লঙ্ঘন করে ওপেন টেন্ডার মেথড (ওটিএম) পদ্ধতির পরিবর্তে লোকাল টেন্ডার মেথড (এলটিএম) পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করা হয়। প্রতিযোগিতামূলক দরপ্রাপ্তি ছাড়াই সম্পন্ন হয় আরসিসি মেইন ক্যানেল নির্মাণকাজ। এতে অনিয়মিত ব্যয় হয়েছে ৪ কোটি ৪৩ লাখ ১৮ হাজার টাকা।

একইভাবে অপর এক প্যাকেজে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আরসিসি মেইন ক্যানেল নির্মাণকাজ এলটিএম পদ্ধতির মাধ্যমে প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখ টাকায় সম্পন্ন হয়। এতে কাজটিকে ৯ ভাগে ভাগ করে আলাদা দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। ঠিকাদারদেরকে প্রাক্কলনসহ টেন্ডার ডকুমেন্টও দেওয়া হয়েছিল। যার কারণে প্রতিযোগিতামূলক দর পাওয়া যায়নি। লটারির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করা হয়েছে মাত্র।

একইভবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর ও সদর উপজেলার ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়ন কর্মসূচির ২০১৫-১৮ অর্থবছরে স্থানীয় পদ্ধতিতে প্রায় দেড় কোটি টাকার কাজ সম্পন্ন হয়। এখানেও খাল পুনঃখনন কাজকে ৯ ভাগে ভাগ করে দুটি পৃথক দরপত্র আহ্বান করা হয় ও ঠিকাদারদের প্রাক্কলনসহ টেন্ডার ডকুমেন্ট দেওয়া হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা ও আখাউড়া উপজেলার ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়ন কর্মসূচি ২০১৬-১৯ অর্থবছরে ওয়াটারপাস বা কন্ডুইট নির্মাণ, হাইড্রোলিক স্ট্রাকচার নির্মাণ, ২ কিউসেক এলএলপি স্কিমে সেচনালা নির্মাণ, দশমিক ৫ কিউসেক এলএলপি স্কিমে সেচনালা নির্মাণ, খাস বা মজা পুকুর পুনঃখনন ও খাল পুনঃখননেও এলটিএম পদ্ধতিতে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টাকার কাজ হয়েছে। এসব কাজেও প্রতিযোগিতামূলক দর পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, পিপিআর ২০০৮-এর বিধিমতে, বিশেষ পরিস্থিতিতে নির্দিষ্ট কোনও ক্ষেত্র ছাড়া সকল ক্ষেত্রে ওটিএম পদ্ধতি অনুসরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিধি ৬৩ মতে ‘বিশেষ বৈশিষ্ট্যের কারণে কেবল সীমিতসংখ্যক যোগ্যতাসম্পন্ন ঠিকাদারের কাছ থেকে জরুরি ক্রয়ের ক্ষেত্রে ওটিএম পদ্ধতি বাস্তবসম্মত না হলে এলটিএম পদ্ধতির প্রয়োগ করা যাবে।’ কিন্তু উপরের কোনও কাজই বিশেষ বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন বা জরুরি প্রয়োজনের ছিল না।

এ অবস্থায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো বলেছ, বর্ণিত কাজগুলো সম্পাদনের আগে ডিপিপি বা আরডিপিপি অনুসরণ করা হয়েছে। প্রকিউরমেন্ট প্ল্যান প্রস্তুত করে তাতে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। পিপিআর-২০০৮ মোতাবেক এলটিএম একটি স্বীকৃত পদ্ধতি।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আলোচ্য ক্ষেত্রে বিধি দুটির যথাযথ অনুসরণ করা হয়নি। ঠিকাদারদের প্রাক্কলনসহ টেন্ডার ডকুমেন্ট দেওয়ায় প্রতিযোগিতামূলক দরও পাওয়া যায়নি। দায়ীদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে তদন্ত প্রতিবেদনে।

জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী (ক্ষুদ্রসেচ) নজরুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ইঞ্জিনিয়াররা কাজের সময় বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে যখন যা লাগে তা যুক্ত করেন। প্রথমে একটা অ্যাসেসমেন্ট করেন। যখন বাস্তবায়নে নামেন তখন অনেক কিছু বদলাতে হয়। একটি রাস্তা করতে গেলে প্রতিবন্ধকতা পড়বেই। সেটা কিন্তু ডিপিপিতে ধরা নেই। তখন ব্যয় বাড়তে পারে।’

জানতে চাইলে বিএডিসি’র চেয়ারম্যান ড. অমিতাভ সরকার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিষয়গুলোর জবাব চেয়েছি। এরইমধ্যে সংশ্লিষ্টরা কিছু জবাবও দিয়েছে। এগুলো নিরীক্ষা দলের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।’

/এফএ/
টাইমলাইন: বিএডিসিতে অনিয়ম
১৫ জুলাই ২০২১, ১৩:০০
পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ দিতে মানা হয় না নীতিমালা!
১৪ জুলাই ২০২১, ১২:৫৭
১৩ জুলাই ২০২১, ১১:০০
১২ জুলাই ২০২১, ১৫:০০
সম্পর্কিত
সর্বশেষ খবর
‘নজরুল-সৃষ্টি ফিরে দেখা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
‘নজরুল-সৃষ্টি ফিরে দেখা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
মৌলভীবাজারে পৃথক স্থানে দুজন খুন
মৌলভীবাজারে পৃথক স্থানে দুজন খুন
ফিলিস্তিনের নিহত-নিপীড়িত সাংবাদিকদের প্রতি সংহতি প্রকাশ
ফিলিস্তিনের নিহত-নিপীড়িত সাংবাদিকদের প্রতি সংহতি প্রকাশ
অমর্ত্য-ঋদ্ধের বহিষ্কারাদেশ বাতিল না করলে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি
অমর্ত্য-ঋদ্ধের বহিষ্কারাদেশ বাতিল না করলে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি
সর্বাধিক পঠিত
শাস্তি পেতে যাচ্ছেন ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণে জড়িত কর্মকর্তা
শাস্তি পেতে যাচ্ছেন ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণে জড়িত কর্মকর্তা
চট্টগ্রাম বন্দরে প্রথমবারের মতো বিদেশি তত্ত্বাবধানে চালু হচ্ছে নতুন টার্মিনাল
চট্টগ্রাম বন্দরে প্রথমবারের মতো বিদেশি তত্ত্বাবধানে চালু হচ্ছে নতুন টার্মিনাল
রুশ হামলায় পূর্বাঞ্চলীয় গ্রাম থেকে পিছু হটলো ইউক্রেন
রুশ হামলায় পূর্বাঞ্চলীয় গ্রাম থেকে পিছু হটলো ইউক্রেন
ইউক্রেনে সেনা পাঠানোর কথা ভাবছে কয়েকটি পশ্চিমা দেশ: স্লোভাকিয়া
ইউক্রেনে সেনা পাঠানোর কথা ভাবছে কয়েকটি পশ্চিমা দেশ: স্লোভাকিয়া
না ফেরার দেশে ‘গজল কিং’ পঙ্কজ উদাস
না ফেরার দেশে ‘গজল কিং’ পঙ্কজ উদাস