X
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

আপন আঙিনায় উচ্ছ্বাসে বরণ শিক্ষার্থীদের

আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:০০

করোনা মহামারির কারণে বন্ধ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর খুলে দেওয়া হয়েছে। রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ক্লাস শুরুর প্রথমদিনে শিক্ষার্থীরা সকাল থেকেই স্কুলে ভিড় জমান। তাদের সঙ্গী হন অভিভাবকরাও। দীর্ঘদিন পর প্রিয় ক্যাম্পাসে বন্ধুদের পেয়ে শিক্ষার্থীরা আনন্দে মেতেছেন। বাংলা ট্রিবিউনের প্রতিনিধিরা জানান, দীর্ঘদিন পর শিক্ষাকার্যক্রম শুরুর প্রথমদিনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছিল সাজ সাজ রব। বিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিয়েছেন ফুল ও চকলেট দিয়ে।  

রংপুর প্রতিনিধি জানান, সকাল থেকে শিক্ষার্থীরা তাদের স্কুলের জন্য নির্ধারিত ড্রেস পরে স্কুলে আসতে শুরু করে। করোনা মহামারির কারণে অ্যাসেম্বলি না থাকায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে একজনের পর একজন করে শিক্ষার্থী স্কুলের প্রধান গেট দিয়ে প্রবেশ করে। এদিন অনেক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অভিভাবকরাও এসেছেন।

প্রবেশপথে শিক্ষকরা শিক্ষার্থীরা স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে মাস্ক পরেছে কিনা তা যাচাই করে স্কুলে প্রবেশ করান। সকাল সাড়ে ৯টায় ঘণ্টা বাজিয়ে ক্লাস শুরু হয়। শ্রেণি শিক্ষকরা ক্লাসে এসে প্রথমে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে রোল কল করেন। এরপর যথারীতি পাঠদান শুরু হয়। 

দীর্ঘ দেড় বছর পর স্কুলে আসতে পেরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছিল উচ্ছ্বাস। তবে করোনা সংক্রমণ বেড়ে গেলে আবারও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাবে কিনা, তা নিয়েও তাদের মধ্যে শঙ্কা ছিল। 

নগরীর শালবন আরসিসিআই স্কুলের শিক্ষার্থী সালেহা বেগম জানায়, স্কুল বন্ধ থাকায় লেখাপড়ার তেমন চাপ ছিল না। ক্লাসের পড়া মুখস্ত করে যেতে হবে এমন কোনও বাড়তি চাপ ছিল না। একই কথা জানালেন অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী আসিফসহ অনেকে। তবে আবারও তাদের নতুন করে শিক্ষাজীবন শুরু করতে পেরে খুবই খুশি তারা।

রংপুরের স্কুলগুলোতে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়া হয় এদিকে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আফসানা রহমান জানান জেলার আড়াই হাজার সরকারি-বেসরকারি স্কুল ও কলেজে এবং কিন্ডার গার্টেনে এক যোগে ক্লাস শুরু হয়েছে।
 
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি জানান নানা আয়োজনে ও উৎসবমুখর পরিবেশে জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিয়েছে। সকালে মহানগরীর সরকারি বিদ্যাময়ী বালিকা বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের বরণের আয়োজন ছিল একেবারেই অন্যরকম। শিক্ষার্থীদের হাত ধোয়া, তাপামাত্রা মাপা, স্যানিটাইজ করার পর প্রবেশ করানো হয়। এসময় তাদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এ ধরনের আয়োজনে খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

মহানগরীর অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানেই ছিল শিক্ষার্থীদের বরণের নানা উদ্যোগ। প্রতিষ্ঠান প্রধানরা বলছেন, ঈদের আনন্দের মতোই উচ্ছ্বাসে ভাসছে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাস চালানোর সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে বলেও জানান তারা। 
 
ময়মনসিংহে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেন শিক্ষকরা শিক্ষা কর্মকর্তার দফতর সূত্রে জানা যায়, আজ ময়মনসিংহ জেলার সাড়ে তিন হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। 

যশোর প্রতিনিধি জানান, দীর্ঘদিন পর স্কুল খুলে দেওয়ার প্রথমদিনে প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছিল সাজ সাজ রব। স্কুল ও গেট সাজানো হয়েছে রঙ-বেরঙের ফুল দিয়ে। শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানাতে স্কুল কর্তৃপক্ষ টাঙিয়েছেন ব্যানার।

স্কুল খুলে দেওয়ায় যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী আফসানা আহমেদ ফারিন বেশ উৎফুল্ল। বন্ধুদের সঙ্গে প্রায় দেড় বছর পর তার দেখা হয়েছে। ফারিন বলেন, খুব সকালে এসে স্কুলের ডেকোরেশন দেখে খুব ভালো লেগেছে। গেটের পাশে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গেট পেরিয়ে ভেতরে ঢুকতেই থার্মাল মেশিন দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা মেপেছেন শিক্ষকরা। আবার হাত স্যানিটাইজ করে দেওয়া হয়েছে। এরপর গোলাপ ফুল ও চকলেট দিয়ে আমাদের বরণ করা হয়।

যশোরের স্কুল সকাল ঠিক সাড়ে সাতটার দিকে স্কুলে প্রবেশ করেন যশোরের জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান। তার আগেই সেখানে উপস্থিত হন যশোর জেলা শিক্ষা অফিসার একেএম গোলাম আযম। আর আগে থেকেই গেটে দাঁড়িয়ে সবকিছু তদারকি করছিলেন স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা লায়লা শিরীন সুলতানা।  
স্কুলের প্রভাতী শাখার বাচ্চারা সকাল ৭টা থেকেই স্কুলে আসতে শুরু করে। 

অনেক শিক্ষার্থীর সঙ্গে অভিভাবকদের দেখা গেছে। বাচ্চারা খুব খুশি হলেও শঙ্কা কাটছে না তাদের। স্কুল গেটের পাশে থাকা কয়েকজন অভিভাবক বলেন, বহুদিন পর স্কুল খুলেছে, তাতে বাচ্চারা খুশি। কিন্তু শঙ্কার কথা হচ্ছে, তারা সবাই মাস্ক পরে থাকবে কিনা। বন্ধুদের সঙ্গে কাছাকাছি হবে, কথা বলবে, হাত ধরাধরি করবে। এতে করে সংক্রমণের একটা ঝুঁকি থেকেই যায়।

যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষিকা লায়লা শিরীন সুলতানা বলেন, আমরা সরকারি নির্দেশনা মেনে স্কুল খুলেছি। এরআগে গোটা স্কুল ক্যাম্পাস, ক্লাস রুম, বাচ্চাদের কমন রুম, টয়লেট- সবকিছুই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। যাতায়াতের রাস্তায় দূরত্ব ঠিক রাখতে মার্কিং করা হয়েছে, ক্লাস রুমে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। স্কুলে পর্যাপ্ত স্যানিটাইজ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।  

তিনি আরও বলেন, বাচ্চাদের সঙ্গে সঙ্গে আমরা শিক্ষকরাও খুব খুশি স্কুল খুলতে পেরে। আশা করছি, আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পারবো। আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে সংক্রমণের আশঙ্কাও থাকবে না। তিনি বলেন, ২০২১ ও ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নিয়মিত, প্রাইমারি লেভেলে পঞ্চম শ্রেণি এছাড়া অন্য ক্লাসের বাচ্চাদের একদিন করে ক্লাস নেওয়া হবে।    

জেলা শিক্ষা অফিসার এ কে এম গোলাম আযম বলেন, জেলার ৫২৭ টি স্কুলে যাতে নিয়মিত মনিটরিং চলে সেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আমি নিজে ১০টি স্কুল মনিটরিং করবো। এছাড়া আমাদের অন্য কর্মকর্তারাও ১০টি থেকে শুরু করে ২৮টি স্কুল প্রতিদিন মনিটরিং করবেন। 

বরিশালের বিভিন্ন স্কুলের বাইরে অভিভাবকদের ভিড় বরিশাল প্রতিনিধি জানান, জেলার বিভিন্ন স্কুলের গেটে শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা পরিমাপ করে প্রবেশ করাতে দেখা গেছে। একইসঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাস্ক ছিল বাধ্যতামূলক। তবে অভিভাবকদের নিষেধ করার পরেও স্কুলের বাইরে তাদের জটলা করতে দেখা গেছে। সেখানে স্বাস্থ্যবিধির কোনও বালাই ছিল না। 

সরকারি বরিশাল জিলা স্কুলের গেট থেকেই শুধুমাত্র শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেওয়া হয়। এরপর স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়া শেষে তারা শ্রেণিকক্ষে যায়। সেখানে একটি বেঞ্চে দুই জন করে শিক্ষার্থীকে বসতে দেওয়া হয়। সকাল ৯টা থেকে শুরু হয় ক্লাস। একইভাবে সরকারি বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও প্রবেশের ক্ষেত্রে ছাত্রী ছাড়া কোনও অভিভাবকদের ছাড় দেওয়া হয়নি। শুধুমাত্র ছাত্রীরাই ক্যাম্পাসে ঢুকতে পেরেছেন। হালিমা খাতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গেট থেকেও শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা মেপে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করানো হয়। এরপর হাত ধোয়া ও স্যানিটাইজ শেষে ক্লাস রুমে যান শিক্ষার্থীরা। এভাবে প্রতিটি স্কুলের গেটে সকাল ৮টা থেকেই ছিল অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের ভিড়।

জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম ও হালিমা খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এসএম ফখরুজ্জামান বলেন, বারবার নিষেধের পরও অভিভাবকরা আসায় কিছুটা সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল। তবে ক্যাম্পাসের ভেতরে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। স্কুলের ভেতরে সরকারের দেওয়া সব নির্দেশনা মানা হয়েছে। 

সিলেটের স্কুলে শিক্ষার্থীরা সিলেট প্রতিনিধি জানান, করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধের পর খুলে যাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আনন্দে মেতেছেন শিক্ষার্থীরা। 

আখালিয়া প্রাইমারি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির জালাল উদ্দিন বলেন, অনেকদিন পর স্কুল খুলেছে নতুন পোশাক আর নতুন স্কুল ব্যাগ নিয়ে স্কুলে এসেছি। খুবই ভালো লাগছে, অনেকদিন পর বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়েছে।

অগ্রগামী বালিকা স্কুলের শিক্ষার্থী ঝুমা বেগম বলেন, এতদিন স্কুল বন্ধ থাকায় দমবন্ধের উপক্রম হয়েছিল। স্কুলে আসতে পেরে ভালো লাগছে। 

খুলনা প্রতিনিধি জানান, টানা দেড় বছর পর জেলার দেড় হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। প্রিয় প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হতে পেরে খুবই খুশি শিক্ষার্থীরা। স্কুলে স্কুলে ফুল দিয়ে বরণ করা হয় তাদের।

খুলনার সরকারি ইকবাল নগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে সকাল সাড়ে ৯টায় শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। এ স্কুলে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। আম্পান ইয়াসে বিধস্ত কয়রার সুন্দরবন বালিকা বিদ্যালয়েও শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। 

শিক্ষার্থীদের ফুল ও চকলেট দিয়ে বরণ করা হয় স্কুলের প্রধান শিক্ষক খায়রুল ইসলাম বলেন, সকাল সাড়ে ৯টায় শিক্ষার্থীরা স্কুলে আসার পর লাল গোলাপ দিয়ে তাদের বরণ করা হয়। শিক্ষার্থীরা নিরাপদ দূরত্বে থেকে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাত ধুয়ে ক্লাস রুমে প্রবেশ করে। তারা খুবই উচ্ছ্বসিত।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, খুলনায় এক হাজার ১৫৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৪২০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে মহানগরে ১৫৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ১০০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। বাকিগুলো জেলার ৯টি উপজেলায় অবস্থিত।

অপরদিকে, খুলনার ৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ কাজের আওতায় রয়েছে। এ স্কুলগুলো হলো কাজী আব্দুল বারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, টিএন্ডটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জহিরউদ্দিন গণবিদ্যাপীঠ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাউজিং (৩-তলা) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাজি আব্দুল মালেক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শের-এ-বাংলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, টুটপাড়া ভয়েজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং কয়লাঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীদের ক্লাস পার্শ্ববর্তী স্কুলে নেওয়া হয়।

বগুড়া প্রতিনিধি জানান, করোনা সংক্রমণ কমার পরিপ্রেক্ষিতে খুলে দেওয়া হয়েছে বগুড়ার স্কুল ও কলেজ। নতুন বা পরিষ্কার করা ইউনিফর্ম পরে, কাঁধে বই-খাতার ব্যাগ ঝুলিয়ে দলে দলে শিক্ষার্থীরা প্রিয় ক্যাম্পাসে ফিরেছে। তাদের কলরবে মুখরিত হয়ে উঠে প্রতিষ্ঠান চত্বর। শিক্ষক, শিক্ষার্থী সবার মুখে ছিল স্বস্তির ছাপ। দীর্ঘদিন পর একত্রিত হতে পেরে সবাই একে অপরের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেছেন। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল ফটকে হ্যান্ড স্যানিটাইজার স্প্রে ও থার্মাল মেশিন দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হয়েছে। অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষকদের উপস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের ফুল ও চকলেট দিয়ে বরণ করা হয়।

প্রথম দিন প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে ছিল ব্যাপক উপস্থিতি। তবে অভিভাবকদের কাউকে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

সকাল সাতটার আগেই বগুড়া শহরের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ বিয়াম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল ফটক খুলে দেওয়া হয়। লাইন ধরে ও দূরত্ব বজায় রেখে শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করছে। প্রবেশমুখে সবার হাতে স্যানিটাইজার স্প্রে করা হয়। এরপর তারা লাইন ধরে শ্রেণিকক্ষের সামনে দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়ায়। শিক্ষকরা প্রতিটি শিক্ষার্থীর শরীরের তাপমাত্রা দেখার পরপরই ক্লাসে ঢুকতে দেন।  

একই সময়ে বগুড়ার অপর স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। হ্যান্ড স্যানিটাইজার দেওয়ার পর প্রতিটি শিক্ষার্থীর শরীরের তাপমাত্রা দেখা হয়। পরে শিক্ষকরা স্বাভাবিকভাবে পাঠদান শুরু করেন। 

বগুড়ার সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাবেদ আকতার জানান, জেলার ১২ উপজেলায় মোট এক হাজার ৩৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এবারের বন্যায় সারিয়াকান্দি উপজেলায় ২৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করে। বর্তমানে কোনও বিদ্যালয়ে বন্যার পানি নেই। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের তত্ত্বাবধানে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্লাস গ্রহণের উপযোগী করা হয়েছে। প্রতিটি শ্রেণিকক্ষের বেঞ্চ, টেবিল, চেয়ার ও অন্যান্য আবসাবপত্র পরিষ্কার করা হয়। ব্লিচিং পাউডার ছেটানো ও ডেটল পানি দিয়ে মেঝে পরিষ্কারের কাজ করা হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি
বিদ্যালয়ে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, তাপমাত্রা পরিমাপের মেশিন রাখা হয়।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হযরত আলী জানান, এ জেলায় তালিকাভুক্ত মোট ৮৬২টি মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে উচ্চ বিদ্যালয় ৪৩৯টি, কলেজ ৮২টি, স্কুল অ্যান্ড কলেজ ২৮টি এবং মাদ্রাসা ৩১৩টি। এর বাইরেও বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে। 

চট্টগ্রামে স্কুলের বাইরে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের জটলা চট্টগ্রাম প্রতিবেদক জানান, দীর্ঘ দেড় বছর পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফিরতে পেরে উচ্ছ্বসিত ছিল শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে ছিল স্কুল খোলার আনন্দ। প্রথম দিনে স্বতঃস্ফুর্তভাবে ক্লাসে অংশ নেন শিক্ষার্থীরা। 

বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী সায়মা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় বাসায় থেকে হাপিয়ে উঠেছিলাম। আজ স্কুল চালু হওয়ায় খুব ভালো লাগছে। অনেকদিন পর প্রিয় সহপাঠীদের সঙ্গে দেখা হয়েছে, তাই নিজের মধ্যে অন্যরকম একটা ভালো লাগা কাজ করছে।

এদিকে স্কুল খুলে দেওয়ায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে উচ্ছ্বাস কাজ করলেও করোনার স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে শঙ্কায় আছেন অভিভাবকরা। অভিভাবকরা বলছেন, অনেক দিন পর বাচ্চারা স্বশরীরে ক্লাস করছে। এটা আমাদের কাছেও ভালো লাগছে। তবে আমাদের দুশ্চিন্তা করোনা সংক্রমণ নিয়ে। স্বশরীরে ক্লাস করতে গিয়ে যেন আমাদের ছেলে মেয়েরা করোনা আক্রান্ত না হয়। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা জানিয়েছেন, তারা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনে করোনার স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে পাঠদান করছেন।

এদিকে প্রতিষ্ঠানের প্রবেশমুখে স্বাস্থ্যবিধির কড়াকড়ি থাকলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাইরে শিক্ষার্থীদের জড়ো হয়ে সহপাঠীদের সঙ্গে আড্ডা দিতে দেখা যায়। দীর্ঘদিন পর সহপাঠীদের দেখে এসময় খোস গল্পে মেতে উঠেন শিক্ষার্থীরা। মুখে মাস্ক থাকলেও এসময় তাদেরকে হাত ধরাধরি করে হাঁটাহাঁটি করতে দেখা গেছে। 

মোংলা প্রতিনিধি জানান, প্রায় দেড় বছর পর মোংলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা নতুন ড্রেস পরে অভিভাবকদের হাত ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয়। শ্রেণি কার্যক্রম প্রস্তুতি ছাড়াও শিক্ষার্থীদের বরণ করতে সাজানো হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শ্রেণিকক্ষ।

মোংলা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এস এ আনোয়ারুল কুদ্দুস বলেন, করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে গেল বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়। সংক্রমণ কিছুটা কমে আসায় সারাদেশের মতো মোংলায় প্রথম ধাপে ৭২টি প্রাথমিক, ২৮টি মাধ্যমিক, চারটি উচ্চ মাধ্যমিক ও ১৩টি মাদ্রাসা খুলেছে।

 

 

 

/টিটি/
টাইমলাইন: শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলেছে
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:০০
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:১১
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩২
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৫৫
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩১
আপন আঙিনায় উচ্ছ্বাসে বরণ শিক্ষার্থীদের
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৭
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:১১
১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫১

সম্পর্কিত

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

খালি হচ্ছে বরিশালের করোনা ওয়ার্ড

খালি হচ্ছে বরিশালের করোনা ওয়ার্ড

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

এক মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালের বর্জ্য নিচ্ছে না পৌরসভা

এক মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালের বর্জ্য নিচ্ছে না পৌরসভা

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৩

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের হাজিরটেক গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।  

নিহতরা হলেন—কাজম আলী (৬৫) ও তার স্ত্রী জমেলা বেগম (৫০)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সম্প্রতি একটি নতুন ঘর নির্মাণ করেন কাজম আলী। নতুন ঘরের মেঝেতে পানি দেওয়ার জন্য বৈদ্যুতিক মোটর চালাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই জনের মৃত্যু হয়। পরে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে বিদ্যুতের সুইচ বন্ধ করে তাদেরকে উদ্ধার করেন।

আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিচুর রহমান মোল্লা জানান, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যুর হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে থানায় এখনও কেউ অভিযোগ করেনি।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

বিপুল পরিমাণ চোরাই ডিজেলসহ গ্রেফতার ১

বিপুল পরিমাণ চোরাই ডিজেলসহ গ্রেফতার ১

ধর্মঘটের ডাক দিলেও নারায়ণগঞ্জে চলছে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান

ধর্মঘটের ডাক দিলেও নারায়ণগঞ্জে চলছে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান

দুর্ঘটনার এক মাস পর সেই চিকিৎসকের মৃত্যু

দুর্ঘটনার এক মাস পর সেই চিকিৎসকের মৃত্যু

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল মা, বিছানায় শিশুর লাশ

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০১

কুষ্টিয়ায় নিজ বাড়ি থেকে মা ও নয় মাসের শিশু সন্তানের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টার দিকে সদর উপজেলার থানাপাড়া পুরাতন বাঁধ এলাকা থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

মৃতরা হলেন—আকলিমা খাতুন (৩৫) ও তার নয় মাস বয়সী ছেলে জিম। আকলিমা থানাপাড়া পুরাতন বাঁধ এলাকার মো. রতনের স্ত্রী।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল ইসলাম জানান, বুধবার সকালে থানাপাড়া বাঁধের একটি বাড়ি থেকে আড়ায় গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় মা এবং বিছানায় পড়ে থাকা শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়। আকলিমা মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। 

তিনি আরও জানান, প্রথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ওই নারী আত্মহত্যা করেছেন। তবে তদন্ত প্রতিবেদন পেলে সবকিছু নিশ্চিত হওয়া যাবে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

আজান দেওয়ার সময় ঢলে পড়লেন মুয়াজ্জিন

আজান দেওয়ার সময় ঢলে পড়লেন মুয়াজ্জিন

বিদ্যালয় বন্ধের সুযোগে ৯২ ছাত্রীর বাল্যবিয়ে, হতাশ শিক্ষকরা

বিদ্যালয় বন্ধের সুযোগে ৯২ ছাত্রীর বাল্যবিয়ে, হতাশ শিক্ষকরা

‘ব্যাংক হিসাব তলব মানে সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় ধমক’

‘ব্যাংক হিসাব তলব মানে সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় ধমক’

ইভ্যালির রাসেলের বিরুদ্ধে যশোরে মামলা

ইভ্যালির রাসেলের বিরুদ্ধে যশোরে মামলা

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৪

সৌদি আরবে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে তামজিরুল ইসলাম (৩০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে দেশটির জিদান বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে। 

তামজিরুল ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার যশরা ইউনিয়নের কুর্শাপুর গ্রামের দুলাল উদ্দিনের ছেলে। ২০১৭ সালে সৌদি আরবে পাড়ি জমান তিনি। তার পাঁচ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

তামজিরুলের চাচাতো ভাই জহিরুল ইসলাম জানান, গত সোমবার সকালে বিমানবন্দরে কাজে যান তিনি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে বিমানবন্দরের পতাকা স্ট্যান্ডে পতাকা বাঁধতে ও লাইট সেট করতে বলে। তামজিরুল সেফটি বেল্ট বেঁধে স্ট্যান্ডে উঠে কাজ শুরু করেন। হঠাৎ বেল্ট ছিঁড়ে নিচে পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। 

তিনি আরও জানান, তামজিরুল ইসলামের লাশ দেশে ফিরিয়ে আনতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

জালিয়াতি করে ৭ লাখ টাকা উত্তোলনের ঘটনায় ব্যাংক ব্যবস্থাপক প্রত্যাহার

জালিয়াতি করে ৭ লাখ টাকা উত্তোলনের ঘটনায় ব্যাংক ব্যবস্থাপক প্রত্যাহার

কণ্ঠশিল্পী সালমার পার্কের উদ্বোধন

কণ্ঠশিল্পী সালমার পার্কের উদ্বোধন

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২১


আমদানি কমার অজুহাতে ফের পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা। দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে পাইকারিতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি চার থেকে পাঁচ টাকা। তবে পাঁচদিন আগেও বন্দরে প্রতি কেজি পেঁয়াজ প্রকারভেদে ২৫ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। বর্তমানে তা বেড়ে ২৯ থেকে ৩২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে দাম বাড়ার কারণে বিপাকে পড়েছেন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা।

স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক মোজাম হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, গত কয়েকদিন ধরে গরমের কারণে আমদানি করা পেঁয়াজ পচে মান খারাপ হওয়ায় বাধ্য হয়ে খানিকটা কম দামে বিক্রি করতে হচ্ছিল। এছাড়াও দেশীয় পেঁয়াজের দামও কেজি প্রতি পাঁচ টাকার মতো কমে যাওয়ায় ভারতীয় পেঁয়াজের চাহিদা কমে প্রভাব পড়ে দামের ওপর। এতে করে আমদানি কমিয়ে দেওয়া হয়। দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে একইহারে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। এছাড়াও পেঁয়াজের সরবরাহ কমায় ভারতের মোকামে পূর্বে যে দামে পেঁয়াজ ক্রয় করা হতো এখন সেখানে দাম কিছুটা বাড়ায় বাড়তি দামে আমদানি করতে হচ্ছে। মূলত ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় এবং আমদানি কমায় দেশের বাজারে দাম বেড়েছে। 

তবে বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা বলছেন আমদানি কমার অজুহাতে পেঁয়াজের দাম বাড়ানো হয়েছে। এতে বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা বিপাকে পড়েছেন। বেশি দামে পেঁয়াজ কেনায় বাড়তি দামে বিক্রি করতে হবে বলে জানিয়েছেন তারা।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বন্দর দিয়ে পেঁয়াজের আসা অব্যাহত থাকলেও আমদানির পরিমান কমেছে। বন্দর দিয়ে মঙ্গলবার মাত্র ৯টি ট্রাকে ২৫৪টন পেঁয়াজ এসেছে। সোমবার ১৭ ট্রাকে ৪৬৪টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছিল, রবিবার ২১ ট্রাকে এসেছে ৫৮৬টন পেঁয়াজ।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ববি ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

ববি ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

বেশি লাভের আশায় আগাম আলু চাষে ব্যস্ত কৃষক

বেশি লাভের আশায় আগাম আলু চাষে ব্যস্ত কৃষক

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

ভ্রমণ বিলে অসঙ্গতি, কমিশনারকে সতর্ক পুলিশ সদর দফতরের

ভ্রমণ বিলে অসঙ্গতি, কমিশনারকে সতর্ক পুলিশ সদর দফতরের

সিনহা হত্যা মামলা: তৃতীয় দফায় শেষ দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২১

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার ১২ নম্বর সাক্ষী সেনা কর্মকর্তা সার্জেন্ট আয়ুব আলীর সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। সোমবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম জানান, সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে তৃতীয় দফার শেষ দিনে ১২ নম্বর সাক্ষী সেনা কর্মকর্তা সার্জেন্ট আয়ুব আলীর মধ্য দিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া মামলার আরেক সাক্ষী কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. শাহীন আবদুর রহমান আদালতে উপস্থিত রয়েছেন।

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

এর আগে গত ২৩ থেকে ২৫ আগস্ট টানা তিন দিন মামলার প্রথম দফায় ১নং সাক্ষী ও বাদী শারমিন সাহরিয়া ফেরদৌস এবং ২নং সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। একইভাবে গত ৫ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর টানা চার দিনে দ্বিতীয় দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করেন আদালত। এ নিয়ে প্রথম ও দ্বিতীয় দফায় ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। গত সোমবার সাত সাক্ষী নিয়ে তৃতীয় দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। এ ঘটনায় সে সময় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ নয় পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেন। 

মামলায় প্রধান আসামি করা হয় লিয়াকত আলীকে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে র‌্যাবকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় একটি এবং রামু থানায় আরেকটি মামলা করে। এরপর মেজর সিনহা নিহতের ছয় দিন পর লিয়াকত আলী ও ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে ঘটনায় সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগে টেকনাফ থানায় পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টে ঘটনার সময় দায়িত্ব পালনকারী আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর টেকনাফ থানার সাবেক কনস্টেবল রুবেল শর্মাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। গত ২৪ জুন মামলার অন্য পলাতক আসামি টেকনাফ থানার সাবেক এএসআই সাগর দেব আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

আসামিদের মধ্যে ওসি প্রদীপ ও কনস্টেবল রুবেল শর্মা ছাড়া অন্য ১২ জন আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তদন্ত শেষে গত বছর ১৩ ডিসেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তৎকালীন র‌্যাব ১৫-এর সহকারী পুলিশ সুপার মো. খাইরুল ইসলাম ১৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। গত ২৭ জুন ১৫ জন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এতে ৮৩ জনকে সাক্ষী করা হয়।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

খালি হচ্ছে বরিশালের করোনা ওয়ার্ড

খালি হচ্ছে বরিশালের করোনা ওয়ার্ড

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

এক মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালের বর্জ্য নিচ্ছে না পৌরসভা

এক মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালের বর্জ্য নিচ্ছে না পৌরসভা

কক্সবাজারে আ.লীগ-স্বতন্ত্র সমানে সমান 

কক্সবাজারে আ.লীগ-স্বতন্ত্র সমানে সমান 

বেনাপোল বন্দরে আটকা ২০০০ পণ্যবাহী ট্রাক

বেনাপোল বন্দরে আটকা ২০০০ পণ্যবাহী ট্রাক

বাঁক ঘুরতে গিয়ে খাদে বাস

বাঁক ঘুরতে গিয়ে খাদে বাস

টেকনাফে মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় ১৩ পুলিশ হাসপাতালে 

টেকনাফে মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় ১৩ পুলিশ হাসপাতালে 

একই স্কুলের ৪০ ছাত্রীর বিয়ে

একই স্কুলের ৪০ ছাত্রীর বিয়ে

সাতক্ষীরায় নিউমোনিয়ার প্রকোপ, ১২ শিশুর মৃত্যু

সাতক্ষীরায় নিউমোনিয়ার প্রকোপ, ১২ শিশুর মৃত্যু

সর্বশেষ

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল মা, বিছানায় শিশুর লাশ

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল মা, বিছানায় শিশুর লাশ

ভালো স্কোর করতে পারেননি রোমান সানা

ভালো স্কোর করতে পারেননি রোমান সানা

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

মোস্তাফিজদের অধিনায়কের জরিমানা  

মোস্তাফিজদের অধিনায়কের জরিমানা  

© 2021 Bangla Tribune