X
রবিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ৮ মাঘ ১৪২৮
সেকশনস

খুন, ধর্ষণ, পরকীয়া দর্শক নাকি ‘খাচ্ছে’ বেশ...

আপডেট : ২৪ জুন ২০২১, ১৬:১৫

রেজানুর রহমান তামিল সিনেমার অনুকরণে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের একদল কিশোর ছোট-ছোট মুভি বানানো শুরু করেছে। তাদের মুভির মূল আকর্ষণ তামিল ছবির অনুকরণে খুন, জখম আর মারামারি। ভাগ্য ভালো বলতে হবে, তারা এখনও ধর্ষণ দৃশ্যকে বেছে নেয়নি। তবে খুন ধর্ষণ আর মারামারির ক্ষেত্রে তাদের মুভির প্রশংসায় পঞ্চমুখ অনেকে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। তাই এই কিশোরেরা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে চূড়ান্ত অ্যাকশনধর্মী মুভি বানাচ্ছে। দেশের একটি টেলিভিশন চ্যানেলে এতদসংক্রান্ত একটি সচিত্র প্রতিবেদন দেখলাম। চ্যানেলটির স্থানীয় প্রতিনিধি ওই কিশোর নির্মাতা ও অভিনেতা-অভিনেত্রীদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। ওই প্রতিবেদনে তিনি কিশোরদের ফিল্মি কর্মকাণ্ডের ভূয়শী প্রশংসা করে বলেছেন, তাদের (কিশোরদের) অ্যাকশনধর্মী মুভি দেখে দেশের স্বনামধন্য পরিচালকদেরও নাকি শিক্ষা নেওয়া উচিত। প্রতিবেদনটি বারবার দেখলাম। ভেবে পাচ্ছি না কেন ওই কিশোরদের নিয়ে এত প্রশংসা বাক্য ব্যবহার করা হলো। খুন, ধর্ষণ আর রাহাজানি ‘মার্কা’ মুভি বানানোর মধ্যে কী এমন কৃতিত্ব আছে? হ্যাঁ, ধরে নিচ্ছি সামান্য একটা মোবাইল ফোনের সহযোগিতা নিয়ে ওই কিশোররেরা দারুণ কিছু একটা করে দেখিয়েছে। কিন্তু এই দারুণ কিছু একটা আমাদের সমাজ জীবনে কতটা কাজে লাগবে? কথায় আছে যার কাজ তারই সাজে। শিশু-কিশোরদের কাজ কি যৌনতা সর্বস্ব অ্যাকশন ভিত্তিক মুভি বানানো? অনেকেই হয়তো আমার কথায় দ্বিমত পোষণ করবেন। বলবেন, ক্ষতি কী? স্কুল, কলেজ বন্ধ। ওরা করবে কী? মুভি বানাচ্ছে এটাতো দোষের কিছু না। হ্যাঁ মুভি বানানো দোষের কিছু না। কিন্তু ছোটদের হাতে পিস্তল শোভনীয় কিছু? ছোটরা বড়দের মতো করে পিস্তল চালাবে? মারামারি করবে। পাখির মতো মানুষকেও গুলি করে মারবে এই ধরনের ফিল্মি চর্চার ভবিষ্যৎ কি আমরা ভেবে দেখেছি?

এর আগে ভারতেরই অন্য একদল কিশোরের তামিল অ্যাকশন মুভির দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছিল। তাদেরও প্রশংসা করেছেন অনেকে। সুযোগ বুঝে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নির্মাতাদের ‘এক হাত’ নিয়েছেন কেউ কেউ। বীরদর্পে বলেছেন, বাংলাদেশের সিনেমা নির্মাতাদের উচিত এই কিশোরদের কাছ থেকে কিছু শিখে নেওয়া। যারা এ ধরনের মন্তব্য করেছেন তারা কতটুকু বুঝে মন্তব্য করেছেন জানি না। আমার ধারণা তারা ভুল মন্তব্য করেছেন।

শিশুরা ফিল্ম বানাবে। তাদের কৃতিত্ব ছড়িয়ে পড়বে দেশ থেকে দেশান্তরে। এটা আমিও চাই। তাই বলে তারা খুন, জখম, রাহাজানি, মারামারি ধর্ষণকেই তাদের ফিল্মের বিষয় করে তুলবে? তাহলে দেশের পাড়া মহল্লায় এই যে এত কিশোর গ্যাং মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে, কেউ কেউ অশ্লীল অশোভন ‘টিকটক’ বানাচ্ছে তাদেরকে আমরা ক্ষতিকর ভাবছি কেন? ওরাও তো অনেকটাই তামিল মুভির অনুসারী। আলোচিত কিশোরদের বানানো তথাকথিত মুভিতে অ্যাকশন অর্থাৎ ভয়-ভীতি দেখানোই মূল উদ্দেশ্য। কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরাও ভয়-ভীতি দেখায়। তাহলে মুভি বানিয়ে ভয় দেখানো গেলে মুভির শিক্ষা নিয়ে ভয় দেখাতে দোষ কোথায়?

আবারও সেই কথাটিই উল্লেখ করতে চাই। যার কাজ তারই সাজে...। ছোটদের উচিত নয় বড়দের মতো করে আচরণ করা, বড়দের মতো করে অন্যকে শাসন করা। অথচ আমরা বুঝে না বুঝে শিশু-কিশোরদের অনেক অন্যায়-অশোভন আচরণ ও উদ্যোগকে সমর্থন জানাচ্ছি। বলছি, আহা! বেশ বেশ... তবে এই ক্ষেত্রে শিশু-কিশোররাই যে এককভাবে দায়ী তা কিন্তু নয়।

করোনার কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। মাঝে মাঝে অফিস আদালত খুলে দেওয়া হয়েছে। পর্যটন কেন্দ্র খোলা ছিল। দেশের যাতায়াত ব্যবস্থাও বিধি-নিষেধ এক সময় তুলে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনোভাবেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হয়নি। ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এক ধরনের অলসতা ভর করেছে। আমরা মানি বা না মানি এই মুহূর্তে কিশোর-তরুণদের সময় কাটানোর প্রধান মাধ্যমই হলো ফেসবুক সহ সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। একটি মোবাইল ফোন হাতে থাকলেই গোটা পৃথিবীর আলো অন্ধকার, ভালো-মন্দ সব কিছুই নাগালের মধ্যে চলে আসে। অনেকে ফেসবুকেই খায়, ফেসবুকেই ঘুমায়। ফেসবুকে যা দেখে তাই ফলো করার চেষ্টা করে। আর তাই করোনাকালীন এই দুঃসময়ে কিশোর-তরুণেরা ফেসবুক সহ সামাজিক সকল যোগাযোগ মাধ্যমের দাসে পরিণত হয়েছে। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম যে শুধু খারাপই শেখায় তা তো নয়। ভালোও শেখায়। কিন্তু ভালোর চেয়ে খারাপই আকর্ষণ ছড়ায় বেশি। সেজন্য কিশোর তরুণেরা খারাপ অর্থাৎ অন্ধকারের দিকেই ধাবিত হচ্ছে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য তাদেরকে ভালো আর আলোর পথে আনার সমন্বিত কোনও উদ্যোগ নেই।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাফল্য অর্থাৎ ভালোর কাজের ভিডিও তেমন একটা লাইক পায় না। কিন্তু মন্দ কাজের ভিডিও সমানে লাইক পায়। সেজন্য মন্দ কাজের প্রতিই অনেকের আগ্রহ বেশি। সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু পথযাত্রীকে তাৎক্ষনিকভাবে হাসপাতালে নিলে হয়তো বাঁচানো যেত। কিন্তু সেটা না করে অনেকে তার মৃত্যুর ছবি তোলার জন্য সীমাহীন কসরত শুরু করে দেন। এর একটাই কারণ ‘ভিউ’ বাড়ানো! সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘ভিউ’ বাড়ানোর নেশায় নাটক সিনেমা বানানোর নামেও অনেকে যৌনতাকেই বেশি করে উসকে দিচ্ছেন। আমাদের পাশের দেশের অনেক নির্মাতা এক্ষেত্রে রীতিমতো প্রতিযোগিতায় নেমেছেন। যৌনতাকে পুঁজি করে নাটক, সিনেমা বানিয়ে ফেসবুকে তার উত্তেজক অংশ ছেড়ে দিচ্ছেন। তাতেই হুমড়ি খেয়ে পড়ছে অনেকে।

গত কয়েকদিনে ফেসবুকে নাটক সিনেমার হাই লাইটস প্রচারের নামে এমন কিছু দৃশ্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে যা শুধু দৃষ্টিকটু নয়, চূড়ান্ত ধরনের অশ্লীলও বটে। ৫/৭ মিনিটের ছোট ছোট ভিডিও ক্লিপ। অশ্লীল শব্দ, অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি, যৌনতায় ভরা এই সব ভিডিও ক্লিপের দর্শকও প্রচুর। করোনার এই জটিল সময়ে বিনোদনে মেটানোর নামে এইসব অরুচিকর দৃশ্য গোগ্রাসে গিলছে এক শ্রেণির দর্শক। যাদের মধ্যে কিশোর ও তরুণদের সংখ্যাই বেশি।

ফেসবুকে ‘ভিউ’ বাড়লেই নাকি টাকা বাড়ে। আর তাই নারীর শরীর দেখানো নাটক, সিনেমা বানানোর হিড়িক পড়েছে পাশের দেশে, কলকাতা সহ অন্যান্য শহরে। তাই দেখে আমাদের দেশেও এক শ্রেণির নির্মাতা ও অভিনেতা-অভিনেত্রী তথাকথিত ‘সাহস’ প্রদর্শনের নামে শরীর খোলা শর্ট দিচ্ছে। এজন্য বাহাবাও পাচ্ছে।

কিছুদিন আগে একজন নির্মাতা আমার কাছে একটা গল্প চাইলেন। গল্পটির সারাংশ তাকে বললাম। তেমন একটা উৎসাহ দেখালেন না। বললেন, সময় বুঝে গল্প লেখেন। এই যেমন পরকীয়া, সংসারের ভাঙন, যৌনতা এসব না থাকলে দর্শক এখন সিনেমা, টিভি নাটক ‘খায়’ না।

সিনেমা টিভি নাটক কি তাহলে এখন দেখার চেয়ে ‘খাওয়া’র বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে? তাহলে তো ওই কিশোরদের দোষ দিয়ে লাভ নেই। তাদের মুভি বেশ ‘খাচ্ছে’ তথাকথিত দর্শক। আহা! বেশ বেশ...

লেখক: কথাসাহিত্যিক, নাট্যকার, সম্পাদক আনন্দ আলো।

/এসএএস/
সম্পর্কিত
কান্না, অবজ্ঞা, অহমিকায় চলচ্চিত্র যেন হারিয়ে না যায়
কান্না, অবজ্ঞা, অহমিকায় চলচ্চিত্র যেন হারিয়ে না যায়
করোনা নিয়ে তামাশা হচ্ছে না তো?
করোনা নিয়ে তামাশা হচ্ছে না তো?
অনিয়ম, দুর্নীতি কি চলবেই?
অনিয়ম, দুর্নীতি কি চলবেই?
বিজয়ের ৫০: তারুণ্যই গুরুত্ব পাক
বিজয়ের ৫০: তারুণ্যই গুরুত্ব পাক

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ, প্রতিপক্ষ ভারত
অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপকোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ, প্রতিপক্ষ ভারত
একডোজ টিকার আওতায় ১ কোটি ৩১ লাখ স্কুল শিক্ষার্থী
একডোজ টিকার আওতায় ১ কোটি ৩১ লাখ স্কুল শিক্ষার্থী
সিজারিয়ান অপারেশনের সময় নবজাতকের হাড় ভেঙে ফেলায় ৩ চিকিৎসকের বিরুদ্ধ মামলা
সিজারিয়ান অপারেশনের সময় নবজাতকের হাড় ভেঙে ফেলায় ৩ চিকিৎসকের বিরুদ্ধ মামলা
বাড্ডায় সাংবাদিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
বাড্ডায় সাংবাদিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
ধর্ষণ করতে যাওয়ার অভিযোগে যুবকের গোপনাঙ্গ কেটে দিলেন গৃহবধূ 
ধর্ষণ করতে যাওয়ার অভিযোগে যুবকের গোপনাঙ্গ কেটে দিলেন গৃহবধূ 
রূপগঞ্জে সাংবাদিককে মারধরের ঘটনায় মামলা, প্রধান আসামি গ্রেফতার
রূপগঞ্জে সাংবাদিককে মারধরের ঘটনায় মামলা, প্রধান আসামি গ্রেফতার
ধর্মীয় সভায় বক্তব‌্য দেওয়ার সময় ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু 
ধর্মীয় সভায় বক্তব‌্য দেওয়ার সময় ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু 
হয়ে গেল রাজ-পরীর বিয়ে, কাবিন ১০১ টাকা
হয়ে গেল রাজ-পরীর বিয়ে, কাবিন ১০১ টাকা
প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা সালমানের
প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা সালমানের
‘বিশেষ সুবিধার ঋণের মেয়াদ না বাড়ালে খেলাপি হবেন ৫০ শতাংশ ব্যবসায়ী’
‘বিশেষ সুবিধার ঋণের মেয়াদ না বাড়ালে খেলাপি হবেন ৫০ শতাংশ ব্যবসায়ী’
নির্বাচন হচ্ছে নাকি স্থগিত, সিদ্ধান্ত রবিবার
চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচন ২০২২নির্বাচন হচ্ছে নাকি স্থগিত, সিদ্ধান্ত রবিবার
বেড়েছে ইয়াবা-গাঁজার আমদানি, আইস নিয়েও চিন্তা
বেড়েছে ইয়াবা-গাঁজার আমদানি, আইস নিয়েও চিন্তা
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2022 Bangla Tribune