X
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

জিম্মি নাবিকদের মুক্ত করতে পারবো, তবে দিনক্ষণ বলাটা কঠিন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
১০ এপ্রিল ২০২৪, ১৭:৩৩আপডেট : ১০ এপ্রিল ২০২৪, ১৮:৪৯

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‌‌‘সোমালিয়ার জলদস্যুদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশি নাবিকদের উদ্ধার প্রক্রিয়ায় অগ্রগতি হয়েছে। আশা করছি শিগগিরই তাদের মুক্ত করতে পারবো। তবে উদ্ধারের দিনক্ষণ বলাটা কঠিন।’ বুধবার (১০ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম নগরীর দেওয়ানজি পুকুর লেনের ওয়াইএনটি সেন্টারে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

নাবিকদের উদ্ধারের বিষয়ে তাদের পরিবারকে আশ্বস্ত করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের উদ্ধারে সরকার সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করছে। প্রথমত যারা অপহরণ করেছে, তাদের সঙ্গে বিভিন্ন পক্ষের মাধ্যমে আলোচনা চলছে। দ্বিতীয়ত তাদের ওপর মনস্তাত্ত্বিক প্রচুর চাপ তৈরি করা হয়েছে। তবে আমরা জেনেছি, নাবিকরা ভালো আছেন, নিয়মিত পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন, এমনকি ভিডিও কলেও কথা বলছেন। কাজেই যে উদ্বেগ কিছু দিন আগে ছিল, সেটি এখন নেই। আশা করছি তাদের শিগগিরই মুক্ত করতে পারবো।’ 

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খানের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই চলছে বক্তব্যের বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যাদের জন্মটাই অগণতান্ত্রিক আর প্রতিনিয়ত গণতন্ত্র ধ্বংস করার জন্য অপচেষ্টা চালায়, সেই বিএনপি এখন গণতন্ত্রের কথা বলে, এটিই হচ্ছে দুঃখজনক। এটি যেন চোরের মায়ের বড় গলা। ক্যান্টনমেন্টের মধ্যে জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করেছিল, ক্ষমতা দখল করে ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়েছিল, ড. মঈন খান আর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ তাদের শীর্ষস্থানীয় নেতারা যারা আছেন, তারা সেই ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট গ্রহণ করার জন্য সন্নিবেশিত হয়ে বিএনপি গঠন করেছিলেন।’

হাছান মাহমুদ আরও বলেন, ‘শুধু বিএনপির জন্মই অগণতান্ত্রিক নয়, তারা দেশে সবসময় গণতন্ত্র হরণের জন্য অপচেষ্টা চালিয়েছে এবং এখনও চালিয়ে যাচ্ছে। ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর বিডিআর বিদ্রোহের পেছনে তাদের হাত ছিল। নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত এবং গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার উদ্দেশেই সেটি ঘটানো হয়েছিল। ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে ১৩ সালে কী ধরনের সন্ত্রাসী ও জঘন্য মানুষ পোড়ানোর মহোৎসব করে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা তারা চালিয়েছিল, আপনারা জানেন। ১৪ সালের নির্বাচনে ৫০০ নির্বাচনি কেন্দ্র জ্বালিয়ে দিয়েছিল এবং নির্বাচনি কর্মকর্তা ও বিদ্যুৎ কর্মকর্তাদের হত্যা করা হয়েছিল। সেটির উদ্দেশ্য ছিল নির্বাচনকে ভণ্ডুল করা, গণতন্ত্রকে ধ্বংস করা। ১৮ সালের নির্বাচনেও একই প্রচেষ্টা ছিল। সর্বশেষ ২৪ সালের বিগত নির্বাচন বর্জন করার মধ্য দিয়ে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা চালানো হয়।’

চট্টগ্রামে কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় চিকিৎসকের মৃত্যুর ঘটনার বিষয়ে সাংবাদিকরা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘গত মন্ত্রিসভার মিটিংয়ে অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় কিশোর গ্যাং নিয়ে আলোচনা হয়েছে। অত্যন্ত দুঃখজনকভাবে বিভিন্ন জেলা শহরে এই কিশোর গ্যাং তৈরি হচ্ছে। তাদের ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যাতে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়, সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। কিশোর গ্যাং সদস্যদের গ্রেফতারের পর জেলে না রেখে সংশোধনাগারে পাঠানোর পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কারণ, যদি তাদের জেলে পাঠানো হয় সেখানে থাকা সন্ত্রাসীদের সঙ্গে যুক্ত হয়ে তারা ভয়ংকর সন্ত্রাসী হয়ে উঠতে পারে। দেশে এটি নতুন সমস্যা, এটিকে দূর করার জন্য কাজ করছে সরকার। কিশোর গ্যাংয়ের নেপথ্যে যেই থাকুক, সে যেই দলেরই হোক, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

/এএম/এমওএফ/
টাইমলাইন: সোমালিয়ার দস্যুদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশি জাহাজ
২১ এপ্রিল ২০২৪, ১৭:৫৪
১০ এপ্রিল ২০২৪, ১৭:৩৩
জিম্মি নাবিকদের মুক্ত করতে পারবো, তবে দিনক্ষণ বলাটা কঠিন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
সম্পর্কিত
দৃষ্টি প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেতৃত্বে থাকবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
যেসব শিল্পমালিক নদীতে রঙিন পানি ফেলে তারা সমাজের শত্রু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
আজীম হত্যার তদন্তে একসঙ্গে কাজ করছে ২ দেশের গোয়েন্দা সংস্থা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
সর্বশেষ খবর
কর্তব্য পালনে তাদের বিচ্যুতি থাকতে পারে: ওবায়দুল কাদের
হাফিজ-তুষারের অব্যাহতিকর্তব্য পালনে তাদের বিচ্যুতি থাকতে পারে: ওবায়দুল কাদের
লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার
লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার
৯০ লাখ টাকা কে দেবে, এ নিয়ে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বসবো: শামীম ওসমান
৯০ লাখ টাকা কে দেবে, এ নিয়ে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বসবো: শামীম ওসমান
তিন সাগরে ৬টি জাহাজে হামলার দাবি হুথিদের
তিন সাগরে ৬টি জাহাজে হামলার দাবি হুথিদের
সর্বাধিক পঠিত
আরেক পুলিশ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
আরেক পুলিশ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমানসহ ৪ জনের রিমান্ড নামঞ্জুর
ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমানসহ ৪ জনের রিমান্ড নামঞ্জুর
শান্তি সম্মেলনে বাইডেনের অনুপস্থিতিতে হাততালি দেবেন পুতিন: জেলেনস্কি
শান্তি সম্মেলনে বাইডেনের অনুপস্থিতিতে হাততালি দেবেন পুতিন: জেলেনস্কি
আ.লীগের ১১ এমপি খুন, বিদেশে প্রথম আনার
আ.লীগের ১১ এমপি খুন, বিদেশে প্রথম আনার
ব্যাংক বাড়ায় সুদ, টাকা যায় মানুষের পকেটে!
ব্যাংক বাড়ায় সুদ, টাকা যায় মানুষের পকেটে!