X
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
১৯ আষাঢ় ১৪২৯

মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ওয়াকি-টকি তৈরি হয়েছিল যেভাবে

আপডেট : ১৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১৫:০৭

একাত্তরের আগস্টে যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশের সর্বত্র। মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে পাকিস্তানি বাহিনী বিপর্যস্ত। একদিকে সুসজ্জিত সেনাবাহিনী আরেক দিকে বাংলার দামাল ছেলেরা। সেই সুসজ্জিত বাহিনীর চলাচল থেকে শুরু করে যুদ্ধের ময়দানে লড়াই চালিয়ে যেতে মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে যোগাযোগটা ছিল অনিবার্য। বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদেরকেও তাই বেতার যন্ত্র ওয়াকি-টকি ব্যবহার করতে হয়েছিল।

১৯৭২ সালে প্রকাশিত পত্রিকায় প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধির এক প্রতিবেদনে জানা যায় কীভাবে ওয়াকি-টকি পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছিল। মুক্তিযোদ্ধারা বলছেন, ওয়াকি-টকি না থাকায় শুরুর দিকে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। কেননা, যুদ্ধে সেনাদের মধ্যে যথাযথ যোগাযোগই জয়ের পথে নিয়ে যায় সহজে। তাই যুদ্ধের শুরুতে এই কমতিকে মাথায় রেখেই সামনে এগিয়েছে মুক্তিযোদ্ধারা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেঙ্গল রেজিমেন্ট পুলিশ বাহিনী কিছু কিছু ওয়্যারলেস সেট নিয়ে গিয়েছিল বটে, কিন্তু সংখ্যায় ছিল নগণ্য। খোঁজ পড়লো প্রকৌশলীদের। বাংলাদেশের যেসব প্রকৌশলী তখন কলকাতায় ছিলেন তারা প্রয়োজনের গুরুত্ব অনুভব করলেন। তারা নিজেরাই ওয়্যারলেস সেট ও ওয়াকি-টকি বানানোর চেষ্টা করলেন।

প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ কৌশল বিভাগের তরুণ অধ্যাপক হাসিবুর রহমান তখন কলকাতায়। ১৯৬৯ সালে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের যে ট্রান্সমিটার ছিল সেটাকে কাজের উপযোগী করতে গিয়ে কিছুটা অভিজ্ঞতা অর্জন করেছিলেন তিনি। দায়িত্ব পড়ল তার ওপর। স্বাধীনতা সংগ্রামে যোগদানকারী বাংলাদেশের অন্য প্রকৌশলীরা তখন বিভিন্ন সেক্টরে ব্যস্ত। হাসিবুর রহমান এবং বাংলাদেশ ওয়াপদার জাফর নামের একজন তড়িৎ প্রকৌশলী মিলে ওয়াকি-টকির মডেল ডিজাইন করেন।

এতই কি সহজ ছিল? ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, কাজটি করতে গিয়ে সমস্যা দেখা দিল দুটো—টাকা এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি। ওই দুজন তখন বাংলাদেশ মন্ত্রিসভার সদস্যদের সঙ্গে দেখা করলেন। সদস্যরা তাদের ভারতের কয়েকজন ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দিলেন। ভারতের বন্ধু প্রকৌশলীরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন। বস্তুতঃ তাদের সাহায্য না পেলে ওই সময় ট্রান্সমিটার তৈরি করা সম্ভব হতো না।

সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মোট ৩০-৪০টি ট্রান্স-রিসিভার ও ৫০টির মতো ওয়াকি-টকি। তবে এগুলোর রেঞ্জ খুব বেশি ছিল না। ৩০ থেকে ৬০ মাইলের মধ্যে ব্যবহার উপযোগী ছিল ট্রান্স-রিসিভারগুলো। ওয়াকি-টকির রেঞ্জ ছিল ৮-১০ মাইল।

মুক্তিযোদ্ধা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন লড়াইয়ের অভিজ্ঞতা থেকে বলেন, যুদ্ধে আমাদের দিক থেকে ওয়াকি-টকি ব্যবহার ব্যাপক ছিল বলা যাবে না। আমরা ছিলাম ১১ নম্বর সেক্টরে। সেখানে যারা নেতৃত্ব দেন তার সঙ্গে যোদ্ধাদের যোগাযোগই মূল লক্ষ্য। সবার কাছে তো থাকতো না। কোম্পানি কমান্ডারের কাছে হয়তো থাকতো। আমি নিজে যুদ্ধের শেষের দিকে এর ব্যবহার দেখেছি।

উদাহরণ দিতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, কর্নেল তাহের যেদিন আহত হলেন, ১৯৭১ সালের ১৪ নভেম্বর, সেটা বড় যুদ্ধ ছিল। সেখানে কোম্পানি কমান্ডার পর্যায়ে যারা ছিলেন তাদের কাছে ওয়াকি-টকি ছিল। দেখতে কী রকম ছিল প্রশ্নে তিনি বলেন, প্রযুক্তিতো তখন এত উন্নত ছিল না। সাইজটা একটু বড় ছিল। ছয়-সাত ইঞ্চি লম্বা ছিল। বহন করা যেত এক হাতেই।

/এফএ/
টাইমলাইন: বিজয়ের ৫০
১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯:০০
১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১৫:০০
মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ওয়াকি-টকি তৈরি হয়েছিল যেভাবে
১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০
১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:০০
১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:০০
১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০১
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে শুরু ওয়েস্ট ইন্ডিজের
আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে শুরু ওয়েস্ট ইন্ডিজের
যুদ্ধের প্রভাবে আবারও লোডশেডিংয়ের কবলে দেশ
যুদ্ধের প্রভাবে আবারও লোডশেডিংয়ের কবলে দেশ
বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কে?
বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কে?
মাদ্রাসাছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
মাদ্রাসাছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
এ বিভাগের সর্বশেষ
এক বছরের কর্ম পরিকল্পনা জানিয়ে ৫২ মন্ত্রণালয় ও বিভাগের চুক্তি সই
এক বছরের কর্ম পরিকল্পনা জানিয়ে ৫২ মন্ত্রণালয় ও বিভাগের চুক্তি সই
সেতু এবং এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজার বুথ বাড়াতে হবে: ওবায়দুল কাদের
সেতু এবং এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজার বুথ বাড়াতে হবে: ওবায়দুল কাদের
ঢাকায় আসবেন প্রিন্স চার্লস
ঢাকায় আসবেন প্রিন্স চার্লস
ইস্ট-ওয়েস্ট এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ
ইস্ট-ওয়েস্ট এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ
আফগানিস্তানে ত্রাণসামগ্রী পাঠাচ্ছে সরকার
আফগানিস্তানে ত্রাণসামগ্রী পাঠাচ্ছে সরকার