X
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২
২৩ আষাঢ় ১৪২৯

করোনা মহামারিতে ঈদ ছুটির বিড়ম্বনা

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৩:২৫

নাসির আহমেদ ভয়াবহ করোনা সংক্রমণের মধ্যেই হাজার হাজার মানুষ কোরবানির ঈদ উদযাপন করতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন শহর নগর ছেড়ে চলে গেছেন প্রত্যন্ত অঞ্চলে। যেভাবে গেছেন তারা সেই দুর্ভোগের চিত্র লিখে বোঝানো সম্ভব নয়। যারা বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে সেই ঈদযাত্রার চিত্র লাইভ দেখেছেন তারাই কেবল অনুমান করতে পারবেন দুর্ভোগ কাকে বলে এবং তা কত প্রকার ও কী কী। রাজধানীর বাস টার্মিনাল, রেল-স্টেশন, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এবং মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জের পাটুরিয়া ও শিমুলিয়া ফেরিঘাটে যে চিত্র দেখা গেছে, তা করোনার চেয়ে কম দুর্যোগের নয়। গত ১৫ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই ভোর পর্যন্ত শিথিল করা লকডাউনের সুযোগ পেয়ে মানুষ যেভাবে ঢাকা ছেড়ে ছিল তাদের ছিল না কোনও শাস্তিবিধি অনুসরণ, ছিল না করোনাভাইরাসের সামান্য আতঙ্ক। বহু লোক জরিমানা গুনেছেন বিধি লংঘন করে। তারপরও উপচে পড়া ভিড়ের এতটুকু ভাটা পড়েনি।

শুধু ফেরিঘাটের যে ভয়াবহ চিত্র সংবাদপত্র শিরোনাম করেছে ‘উপচেপড়া ভিড়ে দুলছে নৌরুট’! কোরবানির পশুবাহী গরু, রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স, লাশের গাড়িসহ জরুরি যানবাহনও ফেরিতে উঠতে পারেনি। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছে যাত্রী ভিড়ের চাপে!

গিজগিজ করা ভিড়ের চাপে মানুষের যে দুর্ভোগ হয়েছে, তাতে ঈদের আনন্দ আর আনন্দ থাকেনি, বিড়ম্বনায় পর্যবসিত হয়েছে। ঈদ শেষে ঈদের তিন দিন আগে এই চিত্র তুলে ধরার একটাই কারণ আমাদের দায়িত্ববোধের অভাব কতটা তীব্র তা বোঝানোর জন্য।

সবচেয়ে বড় কথা– যারা ঢাকাসহ দেশের বড় বড় শহর-নগর থেকে গ্রামে ঈদ উদযাপন করতে গেছেন এবং এরই মধ্যে যারা আবার কঠোর লকডাউনের আগেই ফিরে এসেছেন, তারা অনেকেই যে ভয়ংকর ঝুঁকির বাহক, এটা ক’জনই বা জানেন! প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণের যে ঊর্ধ্বগতি, তার মধ্যেই দলবেঁধে মানুষের এই যে ঈদ উপলক্ষে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই গ্রামে যাওয়া-আসা, তার ফলাফল অচিরেই দেখা যাবে কিন্তু তখন অসহায় আফসোস ছাড়া কিছুই করার থাকবে না।

সুধী পাঠক, হয়তো অনেকেরই স্মরণে আছে ঈদের আগের সপ্তাহে লেখার শিরোনাম করেছিলাম ‘করোনাকালের ঈদ: আনন্দে যখন শঙ্কা’! রোজার ঈদকে কেন্দ্র করে স্বাস্থ্য বিধি লঙ্ঘনের যে ভয়ঙ্কর চিত্র, তা তুলে ধরেছিলাম শুধু কোরবানিতে যেন সেই একই ভুল আমরা না করি, সেদিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছিল ওই লেখার লক্ষ্য। রোজার ঈদের আগে-পরে লকডাউন ছিল। কিন্তু এবারের ঈদে লকডাউন ছিল না। তারপরও স্বাস্থ্যবিধি পালনে চরম উদাসীনতাই চোখে পড়ছে। কিছুতেই বোঝা যাচ্ছে না কবে আর আমাদের বোধোদয় হবে?

মহামারির কারণে প্রতিদিন মানুষের মৃত্যু আর দুঃখ-শোকের মধ্যেই এসেছিল কোরবানি ঈদ। এই দুর্যোগের বাস্তবতা উপেক্ষা করে কেন লক্ষ লক্ষ মানুষের শহর ছেড়ে গ্রামে যেতেই হবে, কেন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এমন হুমড়ি খেয়ে পড়তে হবে। সত্যি তা বোধগম্য হওয়া কঠিন।

সেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঈদযাত্রা শেষে এখনও অনেকেই গ্রামে। যেহেতু ৫ আগস্ট অব্দি অফিস-আদালত কল-কারখানা, এমনকি গার্মেন্টস পর্যন্ত বন্ধ, সুতরাং যাদের না শহরে না ফিরলেই নয় এমন কিছু মানুষ ছাড়া অধিকাংশ লোক ছুটি কাটাচ্ছেন নিজ নিজ গ্রামে। কিন্তু তাদের ঝুঁকিপূর্ণভাবে গ্রামে যাওয়া এবং সেখানে দায়িত্বহীনভাবে ঘুরে বেড়ানো যে চরম সংকট সৃষ্টি করেছে, তার সমাধান কোথায়, সেটাই এ মুহূর্তের বড় দুশ্চিন্তা।

আমাদের সমাজে দায়িত্বহীনতা এবং করোনাকালের উদাসীনতা কত ভয়াবহ হতে পারে তার একটি প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার উল্লেখ করা প্রয়োজন।

আমার এক উচ্চশিক্ষিত আত্মীয় (পেশায় শিক্ষক), গত ১৯ জুলাই লঞ্চে গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে গেলো। যাওয়ার  আগে অনিবার্য কারণেই আমার কাছে তার আসতে হয়েছিল। তাকে বললাম, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে এই যে মানুষের ঢল, এবার ঈদে গ্রামে না গেলেই কি নয়? সে নানা যুক্তি দিয়ে বলল, যেতেই হবে। তাকে বললাম দেখো, টিভির স্ক্রলে দেখো, আজ সর্বোচ্চ রেকর্ড ২৩১ জন মারা গেছেন, একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ হাজার ছাড়িয়েছে। কিন্তু সে তার চার বছরের শিশুপুত্র আর বৃদ্ধ বাবা-মাকে দেখতে যাবেই।

আমার বাসা থেকে যখন গেলো, তখনও সে সুস্থই ছিল। বাড়িতে যাওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তার জ্বর, গলা ব্যথা, গা ব্যথা কাশি শুরু হয়ে যায়। ফোনে জানালো এই বিপদের কথা। নিশ্চয়ই সদরঘাটের ভিড়ের চাপে সংক্রমিত হয়ে থাকবে। দ্রুত চিকিৎসা নিতে জেলার সদর হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দিলাম। কিন্তু সে তো নিজের সর্বনাশই করেনি স্ত্রী-পুত্রকে দেখতে লঞ্চ থেকে সরাসরি আগে শ্বশুর বাড়ি, সেখান থেকে ফিরে নিজের বাড়িতে এবং পাশেই ছোট বোনের বাড়িতে দুপুরের দাওয়াত খেয়েছে। এখন যদি তার সংস্পর্শে আসা বৃদ্ধ বাবা-মাসহ মানুষগুলো সংক্রমিত হয়ে যায় তাহলে উপায়! এমন সর্বনাশা ঘটনা তো হবে হনুমানের লেজের আগুনে যেভাবে রাবনের লঙ্কাপুড়ে ছাই হয়েছিল, এও তো সেভাবে অসচেতন মানুষের ছড়িয়ে দেওয়া ভাইরাসের আগুনে সমাজকে পোড়ানো ছাড়া আর কী। এরকম একজন নয় অসংখ্য মানুষ ভাইরাসের আগুন ছড়িয়ে দিচ্ছে সমাজের সর্বত্র।

মানুষের উদাসীনতার কারণে ঈদের আনন্দ বিস্বাদে পরিণত হয় তাহলে এর চেয়ে দুঃখজনক আর কিছুই হতে পারে না। রোজার ঈদ পরবর্তী ভয়াবহ যে অভিজ্ঞতা আমাদের, সেই শঙ্কাই আরও প্রকট করে তুলেছে সদ্য অতিক্রান্ত কোরবানির ঈদের ছুটিতে এই আসা- যাওয়ার উদাসীন যাত্রা।

চিকিৎসকসহ বিশেষজ্ঞরা সবাই প্রায় এক বাক্যে বলছেন, লকডাউন সর্বত্র কঠোরভাবে কার্যকর করা গেলে করোনা সংক্রমণ আর মৃত্যুর দুই-ই কমে। কিন্তু সেই বাস্তবতা জানা সত্ত্বেও মানুষ স্বাস্থ্য বিধি মানছে না। সমাজের অধিকাংশকে স্বাস্থ্যবিধি মানানো যাচ্ছে না। বিশেষ করে এখন যারা গ্রামে আছে তারা এই ভাইরাস গ্রাম থেকে যেমন শহরে নিয়ে আসবে, তেমনি দায়িত্বহীনভাবে এবাড়ি-ওবাড়ি ঘোরাঘুরি করে, হাটবাজার, সিনেমা হলে গিয়ে, চায়ের দোকানে আড্ডা দিয়ে ভয়ংকরভাবে যে ভাইরাস ছড়াতে পারে এই আশঙ্কায় কিছু তেল উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

তাই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, ভাইরোলজি বিশেষজ্ঞগণ এই মুহূর্তে উদ্বিগ্ন সেই লক্ষ লক্ষ মানুষের জন্য যারা গ্রামে গেছেন এবং নিজেরা করোনার উপসর্গ বয়ে বেড়াচ্ছেন কিংবা ভাইরাস নিয়ে ফিরবেন শহরের কর্মস্থলে। মুখে মাস্ক পরা এবং দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়টির ওপরই তারা গুরুত্ব দিচ্ছেন এই মুহূর্তে। আর এ দুটি বিষয় এখনই নিশ্চিত করতে হলে গ্রাম পর্যায়ে তদারকি বাড়াতে হবে।

এ মন্তব্য শুনে অনেকেরই মনে হতে পারে যে, এত মানুষ গ্রামে গেছে, তাদেরকে কীভাবে চিহ্নিত করা যাবে। এমন ভাবছেন যারা তাদের বলব– গ্রাম কিন্তু শহরের মতো বিচ্ছিন্ন নয়। সেখানে এখনও পারিবারিক এবং সামাজিক বন্ধন টিকে আছে। কোন বাড়িতে কে বা কারা ঈদের ছুটিতে বেড়াতে এসেছে, তা জানার জন্য বাড়ি বাড়ি ঘোরারও দরকার হয় না। পাড়া-মহল্লার সবাই সবাইকে চেনেন। ওয়ার্ড মেম্বার, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পৌর এলাকার মেয়র- কাউন্সিলরসহ বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিবৃন্দ এবং  রাজনৈতিক দল ও তাদের অঙ্গ সংগঠনসমূহের তৃণমূলের কর্মীরা যদি আন্তরিক হন এবং মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা নিশ্চিত করতে চান, তাহলে তা করা অসম্ভব কিছুই নয়।

কথা হচ্ছে রাজনীতি যদি সমাজের তথা মানুষের কল্যাণে হয়ে থাকে, তাহলে দেশের এই কঠিন ক্রান্তিকালে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করার মতো অতি প্রয়োজনীয় এই কাজটি করা সহজেই সম্ভব। প্রয়োজন শুধু সদিচ্ছার। এ কাজ যে শুধু সরকারি দলের নেতাকর্মীরা করবেন, তাও নয়, সকল রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরাই করতে পারেন। তাতে সমাজের কল্যাণে কাজ করার একটা নীরব প্রতিযোগিতাও হয়ে যায়। জনসাধারণও বুঝতে পারবেন তাদের এমন দুঃসময়ে কে বা কারা এগিয়ে এসেছেন। দরিদ্র দুর্গত মানুষদের সাহায্য করারও একটা মোক্ষম সময় এখন। এতে মানব সেবার পাশাপাশি রাজনৈতিক ফায়দা ও ভবিষ্যতের জন্য কিছু হতে পারে। কারণ বিপদে বন্ধুকে মানুষ মনে রাখে। শুধু রাজনৈতিক সংগঠন কেন, গ্রামের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক  নানা সংগঠন আছে, ক্লাব আছে, এনজিওর শাখা আছে– চাইলে সবাই মিলে দুর্গত মানুষকে সাহায্য করার পাশাপাশি সচেতনতা সৃষ্টি আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কাজটিও সফলতার সঙ্গে বাস্তবায়ন করতে পারেন।

এই ধরনের মানবিক সেবামূলক সদিচ্ছার মূল্য কিন্তু সমাজ সবসময়ই দিয়ে থাকে। এই সত্যটি যেন আমরা ভুলে না যাই।

২৩ শে জুন শুক্রবার থেকে আবার কঠোর লকডাউন শুরু হয়েছে। আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউন অব্যাহত থাকবে। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত যারা ফিরেছেন তারা লঞ্চঘাটে, বাস টার্মিনালে, ফেরিঘাটে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন, তা কল্পনাও করা যায় না। গ্রামের স্বজনদের সঙ্গে মাত্র তিনদিনের ঈদের আনন্দ পথের এই দুর্ভোগ কি ভুলিয়ে দেয়নি? কী প্রয়োজন ছিল এত দুর্যোগ পোহানোর?

অনেকে বলবেন উৎসবে-পার্বণে স্বজন স্বজনের কাছে তৃণমূলে ফিরবে, এটাই তো স্বাভাবিক। না সব সময় তা স্বাভাবিক নয়। যুদ্বাবস্থায় যেমন জীবনের গতি স্বাভাবিক থাকে না, এখনও স্বাভাবিক নেই। করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ মারণাস্ত্রের যুদ্ধের চেয়ে কম ভয়াবহ নয়।

আর সে কারণেই স্বাভাবিক সময়ের মতো উৎসব-পার্বণ সবকিছু উদযাপন এখন সম্ভব নয়। এই দুর্যোগকালে নিয়ম রক্ষার জন্যই আমাদের ঈদ পালন করতে হয়েছে। কিন্তু আর দশ বছরের ঈদের মতো গত দুই বছরে ঈদ কিন্তু হয়নি। মানুষের অর্থনৈতিক দুর্গতি এখন যে পর্যায়ে তা অতীতের দুটি বিশ্বযুদ্ধের দুর্যোগের চেয়ে কম নয়।

এই পরিস্থিতিতে যারা গ্রাম থেকে ফিরে এসেছেন তাদের বিবেকের কাছে শুধু এই আবেদন করা যায়, দয়া করে মাস্ক পরুন, দূরত্ব বজায় রাখুন। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হবেন না, প্লিজ। আইসোলেশনে থাকা উচিত। না পারলেও অনর্থক কারো সামনে যাবেন না। গ্রামে যারা আছেন তারাও নিজ নিজ বাড়িতে থাকুন। বাইরে যেতেই যদি হয় দয়া করে মাস্ক পরবেন। দূরত্ব রেখে চলবেন।

এ অনুরোধ এই কলাম লেখকের নয়, এ অনুরোধ ভাইরোলজি- বিশেষজ্ঞদের, চিকিৎসকদের। তারা বলছেন,  যদি হাঁচিকাশি হয়, গা ব্যথা করে, জ্বর জ্বর ভাব হয়, সবরকম জনসমাগম থেকে দূরে থাকুন। নিকটবর্তী হাসপাতালে, স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যান। চিকিৎসা নিন। পরীক্ষায় যদি করোনা পজিটিভ হয়, তাহলে যাদের সঙ্গে মেলামেশা করেছেন তাদেরকেও একা থাকতে বলুন। কারও সঙ্গে মিশতে পারবেন না। এই পরামর্শ গত এক সপ্তাহ ধরে সংবাদ ও গণমাধ্যমে প্রকাশ ও প্রচার করা হয়েছে। তারপরও যদি আমরা সচেতন না হই, তবে তা চরম দুর্ভাগ্যেরই বলতে হবে।

আমরা চাইলে যে অনেক অসাধ্য সাধন করতে পারি তার প্রমাণ তো ভুরিভুরি। রাজধানী ঢাকা নগরীতে কোরবানির পশুর গোবরসহ বিভিন্ন ধরনের বর্জ্য অপসারণের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপিত হয়েছে এবারের ঈদে। বিশেষ করে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রদের সদিচ্ছার পাশাপাশি ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ সবার সচেতন প্রয়াসে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ঢাকা উত্তর সিটি শতভাগ বর্জ্যমুক্ত করা হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রও বলেছেন, করপোরেশনের বিপুলসংখ্যক পরিচ্ছন্নতা- কর্মীর পাশাপাশি খণ্ডকালীন দৈনিক চুক্তিতে বহু পরিচ্ছন্নতাকর্মী ব্যবহার করা হয়েছে নগরীকে পরিচ্ছন্ন করতে। তারা যে আন্তরিকতা এবং কর্মনিষ্ঠার পরিচয় দিয়েছেন, তা অতীতে কখনও এমন ঝটিকা গতিতে দেখা যায়নি। সদিচ্ছা থাকলে অনেক অসাধ্য সাধন করা সম্ভব। অথচ করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্যবিধি মানা এবং মানানোর মতো কাজটাই আমরা করতে পারছি না। কারণ সম্ভবত ওই একটাই, সচেতনতা এবং আন্তরিকতার সঙ্গে সম্মিলিত প্রয়াসের অভাব।

মানুষ ঠেকে শিখে কিন্তু কেন যেন একাডেমিক শিক্ষায় অগ্রসর হওয়া সত্ত্বেও মনোজাগতিক ভাবে আমরা পিছিয়ে আছি। ঠেকেও শিখছি না ঈদ সম্মিলনের এই বিশাল জনসমাবেশ করোনার সংক্রমণ আরো বাড়বে জেনেও আমরা দূরত্বে থাকার চেষ্টা করিনি। কবে আর আমাদের বোধোদয় হবে? সবার জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিত করা ছাড়া আমাদের মনে হয় আর কোনও বিকল্প পথ খোলা নেই।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সপ্তাহে সেই আশ্বাস দিয়েছেন তিনি সবার জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি জানিয়েছেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে।

সবারই গুরুত্ব দিতে হবে। কারণ টিকা এই নিশ্চয়তা দেয় না যে টিকা নিয়েছেন বলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবেন না।

দু’ সপ্তাহের কঠোর লকডাউন শুরু হলো। এই সময়টা দিন এনে দিন খাওয়া দরিদ্র মানুষের জন্য এক কঠিন সময়। যদি আমাদের এই লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকর করতে হয়, তাহলে দরিদ্র মানুষকে খাবারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। কী শহর কী গ্রাম– কোথাও কাউকে যেন খাবারের জন্য ঘরের বাইরে আসতে না হয়। সেই ব্যবস্থাটি সরকারি প্রশাসনের পাশাপাশি রাজনৈতিকভাবেও কার্যকর করতে হবে। যত সহজে বললাম তত সহজ নয় কাজটি এর জন্য জরুরিভিত্তিতে উপায় উদ্ভাবন করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

লেখক: কবি ও সিনিয়র সাংবাদিক; সাবেক পরিচালক (বার্তা), বিটিভি।

/এসএএস/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ২৫ কিলোমিটারে যানজট
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ২৫ কিলোমিটারে যানজট
যুদ্ধাপরাধ আদালত নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি রাশিয়ার
যুদ্ধাপরাধ আদালত নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি রাশিয়ার
ঈদযাত্রায় সড়কে প্রাণ গেলো ২ জনের
ঈদযাত্রায় সড়কে প্রাণ গেলো ২ জনের
বেড়েছে লাগেজ ‘লেফট-বিহাইন্ড’, প্রবাসীদের ঈদ মাটি
বেড়েছে লাগেজ ‘লেফট-বিহাইন্ড’, প্রবাসীদের ঈদ মাটি
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ