X
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বাজেটে প্রবৃদ্ধি আর রাজস্ব আয়ের কল্পনাবিলাসী লক্ষ্যমাত্রার বিপদ

আপডেট : ২৯ জুন ২০২০, ১৭:০৭

রুমিন ফারহানা নব্য উদারবাদী (নিও লিবার‍্যাল) পুঁজিবাদী অর্থনীতির চরম সমালোচনা করে লেখা বিখ্যাত বই ‘The Shock Doctrine’-এর লেখক Naomi Klein-এর আক্রমণের মূল টার্গেট নব্য উদারবাদের ‘ঈশ্বর’ Milton Friedman, কিন্তু তিনি বইয়ের ভূমিকায় ব্যবহার করেছেন Friedman-এর একটা উক্তি- ‘Only a crisis - actual or perceived produces real change. When that crisis occurs the actions that are taken depend on the ideas that are lying around.’  Klein যৌক্তিকভাবেই বর্তমান পৃথিবীকে ধ্বংসের মুখোমুখি দাঁড় করানোর জন্য Friedman-এর প্রবর্তিত অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকেই দায়ী করেছেন কিন্তু তিনি নিজেও বিশ্বাস করেন Friedman-এর এই উক্তিটি সঠিক। খুব বড় ধরনের কোনও সংকট ছাড়া কোনও সত্যিকার পরিবর্তন হয় না। করোনাজনিত বর্তমানের সংকটটি ঠিক সেই মাত্রার একটা সংকট যেটা অনেক দেশের ক্ষেত্রেই এমন আমূল পরিবর্তন সূচনাকারী হিসেবে চিহ্নিত হবে। কিন্তু এই সংকট এই দেশের সরকারকে জনগণের পক্ষে কোনও প্রকৃত পরিবর্তনের দিকে নিয়ে যাবে এমনটা মনে করার মতো ইতিহাস জ্ঞানবিবর্জিত মানুষ নই আমি। কিন্তু এটুকু হয়তো অনেকেই ভেবেছিলেন কিছু ‘আইওয়াশ’ হয়তো দেখা যাবে, কিন্তু সেটাও হয়নি। বরং এই বাজেটেও জিডিপি’র প্রাক্কলন এবং রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ এবং ব্যয়ের বরাদ্দের ক্ষেত্রে সরকার ঘুরপাক খেয়েছে একই গতানুগতিকতার বৃত্তে। করোনা সংকটের প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিলে এই গতানুগতিকতাকে কল্পনাবিলাস বা ভ্রান্তিবিলাস বলতে হবে।  
জিডিপির প্রবৃদ্ধি কোনোভাবেই একটা রাষ্ট্রের জনগণের সঠিক অবস্থা নির্দেশ করে না। একটা রাষ্ট্রের উৎপাদন বাড়ার চেয়ে সেই উৎপাদনের বণ্টন কীভাবে হচ্ছে সেটা আরও অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। বণ্টনের ওপরই নির্ভর করে উন্নয়নের সুফল সমাজের বেশিরভাগ মানুষের কাছে যাবে নাকি হাতেগোনা অল্প কিছু মানুষের কাছে যাবে। এই দেশে চালু থাকা ভয়ঙ্কর দুর্নীতির ফলে করোনার আগেই প্রায় ৪ কোটি মানুষ দারিদ্র্যসীমা আর প্রায় ২ কোটি মানুষ চরম দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করতো। অথচ ওয়েলথ এক্স-এর সাম্প্রতিক রিপোর্টে দেখা গেছে গত এক দশকে সারা বিশ্বে ধনীর সংখ্যা (৫০ লাখ ডলার বা ৪৫ কোটি টাকা) বৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ প্রথম। দশকব্যাপী দুর্নীতির এর চেয়ে ভালো প্রমাণ আর কিছুই হতে পারে না।
সবকিছুর পরও এই সরকারের জিডিপির প্রবৃদ্ধিকে উন্নয়নের এক বিরাট নির্দেশক হিসেবে দেখানোর প্রবণতা আছে। সে জন্য প্রতি বছর বাংলাদেশে জিডিপির যে প্রবৃদ্ধি দেখানো হয় সেটা ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে দেখানো, এটা এখন প্রমাণিত। জিডিপির প্রবৃদ্ধি বাড়িয়ে দেখানোর প্রবণতা এখন এমন পর্যায়ে গেছে এবারকার বাজেটে এটা একটা ভয়ঙ্কর অসুস্থতা হিসেবে এসেছে আমাদের সামনে।
বর্তমান অর্থবছরে শেষ তিন মাস করোনার প্রভাব পড়ার কারণে চলতি অর্থবছরের জিডিপি ১.৬ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক, কিন্তু অর্থমন্ত্রী বলছেন এটা ৫.২% হবে। এটা শুনে চমকে গিয়ে থাকলে আমাদের হতভম্ব করে দেওয়ার মতো তথ্য এরপরই এসেছে। আগামী অর্থবছরে জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা তিনি নির্ধারণ করেছেন ৮.২ শতাংশ। ‌
করোনার আক্রমণের পর থেকে বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিবিদরা প্রত্যেকেই একমত করোনার কারণে ঘটতে যাওয়া মন্দা ১৯২৯-এর মহামন্দার পর্যায়ে যাবে তীব্রতায়। ২০০৮ সালের মন্দার পূর্বাভাস দিতে পেরেছিলেন হাতেগোনা যে দুই-তিনজন, তাদের একজন নরিয়েল রুবিনি বরং এক কাঠি বেড়ে বলছেন এবারকার মন্দা সেই মহামন্দাকেও ছাড়িয়ে যাবে। মন্দার ধরন নিয়ে ‘V’ বা ‘U’ প্যাটার্ন নয়, রুবিনি বলছেন এটা হবে ‘L’ প্যাটার্নের। অর্থাৎ পতন খুব দ্রুত হবে এবং মন্দা চলতে থাকবে পুনরুত্থানের কোনও সুনির্দিষ্ট পুর্বানুমান ছাড়াই। সব বিবেচনায় এই অনিশ্চয়তায় চীনের মতো দেশও ইতিহাসে প্রথম এবার তাদের বাজেটে কোনও জিডিপির প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করেনি। এরকম পরিস্থিতিতে ৮.২% জিডিপির প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করা অকল্পনীয়।
প্রবৃদ্ধি নির্ধারণ করা বাজেটের একেবারে ভিত্তিমূল হিসেবে কাজ করে। কারণ সেই প্রবৃদ্ধির নিরিখেই নির্ধারিত হয় দেশের রাজস্ব আয় কতটা হবে এবং সেটার ভিত্তিতেই ব্যয় কতটা হবে, ঘাটতি হবে কী পরিমাণ এবং সেটা মেটাতে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।  এবারের প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা, যার মধ্যে এনবিআর এর লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। বাকি ৪৮ হাজার কোটি টাকা নন-এনবিআর এবং অন্যান্য খাত থেকে।
চলতি অর্থবছরের রাজস্ব আয়ের পরিস্থিতিটা দেখলেই বোঝা যাবে এই লক্ষ্যমাত্রা কতটা হাস্যকর। এনবিআরকে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া হয়েছিল ৩ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা, পরে সেটা সংশোধিত হয়ে হয়েছিল ৩ লাখ কোটি টাকা। এই বছরের মে মাসে এনবিআর চেয়ারম্যান অর্থ সচিবকে চিঠি দিয়ে জানান, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে রাজস্ব আহরণ বড় জোর ২ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা হতে পারে। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরের মূল লক্ষ্যমাত্রা থেকে এনবিআর-এর আদায় কমবে ১ লাখ ৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা, আর সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা থেকে আদায় কমবে ৮০ হাজার ৫০০ কোটি টাকা।
করোনার কারণে এখনও পরিস্থিতি যেমন আছে, সেটা অনেকটা সময় প্রলম্বিত হবে এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। তাই ভবিষ্যতে মানুষের কর্মসংস্থান নষ্ট হবে। তাতে মানুষের আয়  কমবে, অভ্যন্তরীণ ভোগ কমে যাবে বিপুল পরিমাণে। তাহলে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ দুই রকমের করই কমে যাবে উল্লেখযোগ্যভাবে। তাহলে এই অর্থবছরে এনবিআর এবং অন্যান্য রাজস্ব আয়ে কীভাবে এই লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা যায়?
এই বাজেটের চূড়ান্ত আকার (ব্যয়) ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার অর্থাৎ এই বাজেটে ঘাটতি হবে  ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা। ঘাটতির পরিমাণ জিডিপি’র ৬ শতাংশ, যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। যে অকল্পনীয়, উদ্ভট রাজস্ব আয়ের ওপর ভিত্তি করে এই ঘাটতি দেখানো হয়েছে সেটা এর আশপাশেও যাবে না, অর্থাৎ সরকার প্রস্তাবিত বাজেটে যে ঘাটতি দেখাচ্ছে, ঘাটতি হবে কমপক্ষে তার দ্বিগুণ।
ঘাটতি মোকাবিলায় অভ্যন্তরীণ খাত থেকে ঋণ নেওয়া হবে ১ লাখ ৯ হাজার ৯৬৬ কোটি টাকা। বৈদেশিক ঋণ নেওয়া হবে ৮০ হাজার ১৭ কোটি টাকা। অভ্যন্তরীণ উৎসের মধ্যে ব্যাংকিং খাত থেকে ঋণ নেওয়া হবে ৮৪ হাজার ৯৮৩ কোটি। এছাড়াও সঞ্চয়পত্র ও ব্যাংকবহির্ভূত খাত থেকে ২৫ হাজার কোটি টাকা আয়ের লক্ষ্য রয়েছে সরকারের।
চলতি অর্থবছরে ৪৭ হাজার কোটি টাকা ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও অর্থবছরের ১৩ মে পর্যন্ত সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছিল ৮১ হাজার কোটি টাকা। খুব সহজ অংকে বলে দেওয়া যায় অর্থবছর শেষ হতেই সরকারের ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণ নির্ধারিত পরিমাণের দ্বিগুণের বেশি হবে। এদিকে এই অর্থবছরে বৈদেশিক ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ৬৮ হাজার কোটি টাকা থাকলেও সেটা পরে সংশোধিত হয়ে হয়েছে ৫৬ কোটি টাকা। করোনার পরিস্থিতিতে যখন সারা পৃথিবী অর্থনৈতিক মন্দার মুখোমুখি, তখন এই বছর বৈদেশিক ঋণ পাওয়ার পরিমাণও হবে অতি নগণ্য। সবকিছু বিবেচনা করে এটা যৌক্তিকভাবেই বলা যায় এই বছরের বাজেট ঘাটতি দাঁড়াবে প্রায় ৪ লাখ কোটি টাকা।
ঘাটতির ক্ষেত্রে সরকার প্রতি বছরের মতো সংশোধিত এডিপি প্রস্তাব করবে, এবং বরাবরের মতো স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি, সামাজিক নিরাপত্তার মতো ক্ষেত্রগুলোর প্রকল্প বরাদ্দ কমাবে। অথচ এবারের করোনা সংকটে এই খাতগুলোতে বরাদ্দের পরিমাণ অতি তুচ্ছ যা দিয়ে এই সংকট মোটামুটিভাবে মোকাবিলার কথা কল্পনাও করা যায় না। ঘাটতি কমানোর জন্য কল্যাণ বাজেটের এই হ্রাস এমনিতেই তলানিতে থাকা জনগণের জীবনমানকে আরও অনেক নিচে নামিয়ে দেবে, করোনার মতো সংকটে জনগণের জীবনকে একেবারেই বিপর্যস্ত করে ফেলবে।  
ঘাটতি মেটানোর জন্য মূল পদক্ষেপ হবে ঋণ করা। ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকারের টাকা ধার করার সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো এটা বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবাহকে অনেক কমিয়ে দেয়। যার ফলে বিনিয়োগ কমে গিয়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয় না। এদিকে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে ৬ শতাংশ সুদ দিয়ে ৯ শতাংশে ঋণ দেওয়ার বাধ্যবাধকতা তৈরি করার ফলে ব্যাংকগুলো এখন আর বেসরকারি খাতে ঋণ দিতে আগ্রহী না।
সরকারের তথাকথিত করোনা প্রণোদনার জন্য যেসব নীতিগত পরিবর্তন করে (যেমন, রেপোর সুদ হার হ্রাস) সরকার ব্যাংক খাতে তারল্য বৃদ্ধি করেছে, সেগুলোর মাধ্যমে ব্যাংকের হাতে যাওয়া অর্থ ব্যাংক আবার সরকারকেই ঋণ দেওয়ার জন্য ট্রেজারি বিল/বন্ডের নিলামে ঝাঁপিয়ে পড়ছে ব্যাংকগুলো।
এদিকে এবার ঘাটতি যে অকল্পণীয় পরিমাণ হতে যাচ্ছে, সেটা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বা সঞ্চয়পত্র বিক্রি বাড়িয়েও পূরণ করা সম্ভব হবে না। অর্থাৎ সরকারকে বিপুল পরিমাণের নতুন টাকা ছাপাতে হবে। সরকার প্রয়োজন মতো যেকোনও পরিমাণ টাকা ছাপাতে পারে এবং সরকারের সেটা করাই উচিত এটা বলে মডার্ন মনিটরি থিওরি (এম‌এম‌টি)। তবে আমাদের মনে রাখতে হবে এই তত্ত্ব যে যুক্তিতে সরকারকে প্রয়োজন মতো টাকা ছাপাতে বলে, সেই যুক্তি বাংলাদেশের একেবারেই প্রযোজ্য না। কারণ, এই দেশে শিল্পে-ব্যবসায় বিনিয়োগের জন্য নেওয়া টাকা বিনিয়োগ না হয়ে লুট হয়, সেই লুটের টাকা আবার পাচার হয়। ওদিকে করোনার এই সময়ে এবং করোনা উত্তরকালে রফতানি আয় বড়মাত্রায় কমে যাবে এবং রেমিট্যান্সেও ধস নামবে; ফলে ব্যালান্স অব পেমেন্ট-এ নিশ্চিত ঋণাত্মক অবস্থা তৈরি হবে। সব বিবেচনায় রাখলে এই টাকা ছাপানো উচ্চ মূল্যস্ফীতি তৈরি করে দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিকে প্রচন্ডভাবে দুর্বল করে দেবেই।
অথচ সার্বিক সংকট বিবেচনা করে সরকারের উচিত ছিল এই বছর শুধু মানুষকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করা। এই সময়ে করোনাক্রান্ত এবং করোনায় আক্রান্ত না হয়েও মানুষ বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে। তাই দ্রুততম পদক্ষেপে মানুষের চিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য সব রকম বরাদ্দ দেওয়ার কথা ছিল। কথা ছিল করোনার অভিঘাতে যে কোটি কোটি মানুষ তাদের উপার্জন হারিয়ে অনাহারে/অর্ধাহারে আছে, তাদের খাবার এবং অন্যান্য জরুরি প্রয়োজন মেটানোর জন্য সামাজিক নিরাপত্তা খাতে অনেক বেশি বরাদ্দ করা। আর সর্বোপরি করোনার কারণে বিশ্বব্যাপী ধেয়ে আসা খাদ্য সংকটের মুখে কৃষিতে অনেক বেশি পদক্ষেপ নেওয়া। এজন্য এই অর্থবছরে অবকাঠামো প্রকল্পগুলোতে বরাদ্দ উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমিয়ে দেওয়াই হতো কল্যাণমূলক এবং বাস্তবমুখী পদক্ষেপ। কিন্তু সেটা করা হয়নি, ওসব বরাদ্দ আছে একই। চরমতম বিপদের দিনেও এই দেশের নাগরিকদের কল্যাণের পদক্ষেপ এই সরকার নেবে এই আশা এখন কোনও সচেতন মানুষ আর করে না। 
লেখক: আইনজীবী, সুপ্রিম কোর্ট।  জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনে বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য

/এসএএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

স্বাস্থ্যমন্ত্রী কি একাই ব্যর্থ?

স্বাস্থ্যমন্ত্রী কি একাই ব্যর্থ?

‘আমি রাজনীতি করা মেয়ে, আমি কিন্তু ভদ্র না’

‘আমি রাজনীতি করা মেয়ে, আমি কিন্তু ভদ্র না’

আশ্রয়ণ প্রকল্প: দুর্নীতি কি আর্থিক নাকি ‘তেলবাজি’র?

আশ্রয়ণ প্রকল্প: দুর্নীতি কি আর্থিক নাকি ‘তেলবাজি’র?

স্বাস্থ্যমন্ত্রী, আপনি দয়া করে চুপ থাকুন!

স্বাস্থ্যমন্ত্রী, আপনি দয়া করে চুপ থাকুন!

পরীমণি, হলমার্ক ডেসটিনির মতো ঘটনা মনে প্রভাব ফেলে

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:০৭

ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ একজন কিশোর-কিশোরী বা তরুণের বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে অনেক বিষয় নির্ভর করে। প্রথমত, তার বংশানুক্রম বা জেনেটিকস একটি গুরুত্বপূর্ণ যা মানসিক স্বাস্থ্যের জৈবিক উপাদানগুলোকে নির্ধারণ করে। এটিকে আমরা বলতে পারি সামাজিক ইকোলজিক্যাল সিস্টেমের সবচেয়ে অন্তর্গত অংশ।  মাইক্রোসিস্টেমের পরের স্তরকে বলা যায় মেসো সিস্টেম- একজন ব্যক্তির স্কুল, চারপাশ, ধর্মবিশ্বাস, নিকটতম প্রতিবেশী এই মেসোসিস্টেমের অংশ। এর পরের স্তরকে বলা হয় এক্সোসিস্টেম- পরিবারের দূরবর্তী সদস্য, অর্থনৈতিক অবস্থান, প্রচারমাধ্যম, সামাজিক ঘটনা আর দুর্ঘটনা এই মেসোসিস্টেমের অংশ। আর রাষ্ট্রীয় ও বৈশ্বিক বড় বড় পরিবর্তন, যেমন- বিশ্বযুদ্ধ, অতিমারি ইত্যাদি হচ্ছে ম্যাক্রোসিস্টেমের অংশ। অর্থাৎ একজন ব্যক্তির বেড়ে ওঠা আর তার মানসিক বিকাশের পেছনে কেবল পরিবার বা স্কুল নয়, তার চার পাশের সামগ্রিক পরিবেশ প্রভাব ফেলে।

কোনও বাবা-মা যদি মনে করেন আমার সন্তানের সামনে আমি তো কোনও নেতিবাচক কাজ করিনি, কেন তার  মানসিক স্বাস্থ্য বিপন্ন হবে? এর উত্তর হচ্ছে, পরিবারকে ছাপিয়ে চারপাশের ঘটে যাওয়া তাবৎ ঘটনা একজন শিশু বা কিশোরের ওপর প্রভাব ফেলে তার মানসিক স্বাস্থ্যকে বিপন্ন করে।

অনেক সময় বাবা-মা মনে করে থাকেন, "ও তো ছোট, এগুলোর কী বোঝে?" কিন্তু প্রকৃত সত্য হচ্ছে, শিশু কিশোররা তাদের মতো করে চারপাশের ঘটে  যাওয়া ঘটনায় প্রভাবিত হয়। তাদের মানসিক স্বাস্থ্য চারপাশের ওপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়।

মার্কিন গবেষক লরেন্স কোহলবার্গ মানুষের নৈতিকতার বিকাশের পর্যায় ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনটি স্তরের বর্ণনা দেন। জন্ম থেকে প্রথম কয়েক বছর শাস্তি এড়াতে শিশুরা নিয়ম-কানুন মেনে চলে, এরপর বয়ঃসন্ধিতে সে নিজের কাজের স্বীকৃতির জন্য সামাজিক রীতিনীতির সঙ্গে একাত্ম হয়—‘ভালো ছেলে’ বা ‘ভালো মেয়ে’ অভিধায় তারা ভূষিত হতে চায়। আর নৈতিকতার বিকাশের তৃতীয় স্তর—যা শুরু হয় ১৬-১৭ বছর বয়সের দিকে। তখন সে নৈতিকতাকে নিজস্ব ধারণার জগতের সঙ্গে মিলিয়ে নিজের মতো করে ব্যাখ্যা দিতে থাকে। তার ধারণার জগৎ বা জ্ঞানীয় বিকাশ যদি হয় প্রচলিত সমাজ-সংস্কৃতিপন্থী, তবে তার নৈতিকতার চর্চা হয় সমাজ অনুগামী। আর তার ধারণার জগতে যদি সে বিশ্বাস করে এই সমাজ, এই প্রচলিত রীতিনীতি ‘সঠিক নয়’, তখন সে তার চারপাশকে পরিবর্তন করতে চায়। পরিবর্তনের পন্থা হতে পারে প্রচলিত পদ্ধতিতে অথবা তার নিজস্ব বিশ্বাসের মতো করে। এই পরিবর্তনের যেকোনও পথকে সে নিজস্ব যুক্তি দিয়ে ব্যাখ্যা করে। একজন তরুণের মনোস্তত্ত্ব এখানেই অস্বাভাবিক  মোড় নেয়। প্রচলিত ধ্যান-ধারণার বাইরে তার মধ্যে জন্ম নেয় ভ্রান্ত বিশ্বাস। অস্বাভাবিক আচরণ আর বিশ্বাসকে সে নিজের বলে ভাবতে থাকে।

বয়ঃসন্ধিকাল থেকে পরিণত বয়স, যেমন ২৫-২৬ বছর পর্যন্ত একজন তরুণের মনোজগতের পরিবর্তনটি আশপাশের সবাইকে বুঝতে হবে। এই বয়সে তার মনোজগতের পরিবর্তন অবশ্যম্ভাবী, খেয়াল রাখতে হবে যে এই পরিবর্তন যেন ইতিবাচক দিকে হয়। নৈতিকতার বিকাশের পর্যায় ব্যাখ্যা করতে গিয়ে কোহলবার্গ তিনটি স্তরের বর্ণনা দেন। জন্ম থেকে প্রথম কয়েক বছর শাস্তি এড়াতে শিশুরা নিয়ম-কানুন মেনে চলে, এরপর বয়ঃসন্ধিতে সে নিজের কাজের স্বীকৃতির জন্য সামাজিক রীতিনীতির সঙ্গে একাত্ম হয়—‘ভালো ছেলে’ বা ‘ভালো মেয়ে’ অভিধায় তারা ভূষিত হতে চায়। আর নৈতিকতার বিকাশের তৃতীয় স্তর—যা শুরু হয় ১৬-১৭ বছর বয়সের দিকে। তখন সে নৈতিকতাকে নিজস্ব ধারণার জগতের সঙ্গে মিলিয়ে নিজের মতো করে ব্যাখ্যা দিতে থাকে। তার ধারণার জগৎ বা জ্ঞানীয় বিকাশ যদি হয় প্রচলিত সমাজ-সংস্কৃতিপন্থী, তবে তার নৈতিকতার চর্চা হয় সমাজ অনুগামী। আর তার ধারণার জগতে যদি সে বিশ্বাস করে এই সমাজ, এই প্রচলিত রীতিনীতি ‘সঠিক নয়’, তখন সে তার চারপাশকে পরিবর্তন করতে চায়।

পরিবর্তনের পন্থা হতে পারে প্রচলিত পদ্ধতিতে অথবা তার নিজস্ব বিশ্বাসের মতো করে। এই পরিবর্তনের যেকোনও পথকে সে নিজস্ব যুক্তি দিয়ে ব্যাখ্যা করে। প্রচলিত ধ্যান-ধারণার বাইরে তার মধ্যে জন্ম নেয় ভ্রান্ত বিশ্বাস। তখন তার মধ্যে নিজেকে শেষ করে ফেলার প্রবণতা দেখা দেয়।

বয়ঃসন্ধিকাল থেকে পরিণত বয়স, যেমন ২৫-২৬ বছর পর্যন্ত একজন তরুণের মনোজগতের এই পরিবর্তনটি আশপাশের সবাইকে বুঝতে হবে।

চারপাশের সব ধরনের ঘটনা দুর্ঘটনা, শিশু-কিশোরদের মানসিক বিকাশে প্রভাব ফেলে। বাবা মা যদি মনে করেন আমার সন্তানের বয়স মাত্র ১৪ বছর, সে পরীমণির গ্রেফতার নিয়ে তার কিছু যায় আসে না, এটা সম্পূর্ণ ভুল। পরীমণি কে? তার গ্রেফতার ন্যায্য না অন্যায্য, তাকে বারবার রিমান্ডে নেওয়া কতটুকু যৌক্তিক সেটা নিয়ে একজন শিশু বা কিশোর তার মতো ব্যাখ্যা গ্রহণ করে।

হলমার্ক কী? ডেসটিনি কী, বা প্রশান্ত হালদার কী প্রক্রিয়ায় হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছে সেগুলোও শিশু মনে প্রভাব ফেলে।  এমনকি ওসি প্রদীপের নৃশংসতা কিংবা এস আই আকবরের জিঘাংসাও তার মনোজগতকে পরিবর্তিত করে। পরীমণির গ্রেফতারের মতোই, চারপাশের সব জাতীয় আর আন্তর্জাতিক ঘটনা বা দুর্ঘটনা শিশু-কিশোরদের মানসিক স্বাস্থ্য বিকাশকে প্রভাবিত করে। কখনও কখনও তাদের মানসিক স্বাস্থ্যকে বিপন্ন করে। এই বিপন্নতার মাত্রা যদি খুব বেশি হয় তখন কিশোর-তরুণেরা আত্ম পরিচয়ের সংকটে ভোগে, যা তাদের কখনও কখনও আত্মহত্যার দিকে ধাবিত করে। জাতীয় মানসিক  স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের ২০১৮ সালের এক জাতীয় জরিপ অনুযায়ী, ১০ থেকে ২৪ বছর বয়সীদের প্রায় ৫% একবারের জন্য হলেও  আত্মহত্যা করার চিন্তা করেছেন, আর ১.৫% একবারের জন্য হলেও পরিকল্পনা বা চেষ্টা করেছেন!

মনে রাখতে হবে যেকোনও ধরনের মানসিক বিপন্নতা কিংবা আত্মহত্যা প্রবণতার পেছনে চারপাশের পরিবেশ আর ঘটনার প্রভাব রয়েছে। চারদিকের অনিয়ম আর সমস্যা আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যকে বিপন্ন করে। তাই যে কারও আত্মহত্যার প্রবণতা বা মানসিক স্বাস্থ্যের বিপন্নতার প্রতিকার করতে হলে সবার আগে তার চারপাশকে পরিবর্তন করতে হবে।

আশপাশের নানা অনিয়ম আর অনৈতিকতাকে পরিবর্তন না করে কিশোর-তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি সম্ভব নয়। সর্বজনীন মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নে রাষ্ট্রীয় আর সামাজিক কাঠামোয় পরিবর্তন প্রয়োজন।

শিশু-কিশোর  তথা আমাদের আগামী প্রজন্মের সুষম বিকাশের জন্য কেবল পারিবারিক বা প্রাতিষ্ঠানিক পরিবর্তনই যথেষ্ট নয়, রাষ্ট্রীয় নীতি আর সমাজ কাঠামোকে মানবিকীকরণ করা প্রয়োজন।

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট।

/এসএএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

তালেবান ফ্যাক্টর: ভারতে যেভাবে দেখা হচ্ছে

তালেবান ফ্যাক্টর: ভারতে যেভাবে দেখা হচ্ছে

চাপ নয়, শিক্ষা হোক আনন্দের

চাপ নয়, শিক্ষা হোক আনন্দের

আমি কেন তালেবানকে সমর্থন করি না?

আমি কেন তালেবানকে সমর্থন করি না?

বিষয়টি ‘কথার কথা’ নয়

বিষয়টি ‘কথার কথা’ নয়

তালেবান ফ্যাক্টর: ভারতে যেভাবে দেখা হচ্ছে

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৪৭

আশিষ বিশ্বাস অভিজ্ঞ বিশ্লেষকরা চরম জটিল ঘটনা সম্পর্কে যে বর্ণনা ব্যবহার করেন, আফগানিস্তানের নিত্য ভূ-রাজনৈতিক পরিবর্তনের পটভূমি সেটির সঙ্গে হুবহু মিলে যায়: অনেক সময় ঐতিহাসিক ঘটনাবলির এত দ্রুত উত্থান-পতন ঘটে যে প্রায় তা বোধগম্যতা অস্বীকার করে!

এমনকি স্বাভাবিক সময়ে সংঘাতপূর্ণ সিরিয়া-ইরাক-আফগানিস্তান অঞ্চল নিয়ে রাজনৈতিক ভবিষ্যদ্বাণী করা বিপজ্জনক বলে প্রতীয়মান হয়েছে। তবু, যখন তালেবান সরকার ক্ষমতায়, একটি নতুন ধারা ধীরে ধীরে আত্মপ্রকাশ হচ্ছে, যার সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর সৃষ্ট পরিস্থিতির সঙ্গে ন্যূনতম সামঞ্জস্য নেই।

বৃহৎ অর্থে এটা বলা যায় যে, সব প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে আঞ্চলিক ক্ষেত্রে স্বল্প/মধ্য মেয়াদে চীন সবচেয়ে এগিয়ে থাকা দেশ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। ঘটনার নেপথ্যে থেকে পাকিস্তান হয়তো কাবুলে তালেবান সরকারের ঘুঁটি নাড়ছে। কিন্তু তাদের এই আকস্মিক প্রভাব বাস্তবতার চেয়ে অনেক বেশি বিভ্রমের মতো। চীন এই অঞ্চলের একমাত্র শক্তি, যাকে গোনায় ধরা হয় এবং পাকিস্তানকে নিয়ন্ত্রণ করে চীন! যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যাহার, ইউরোপীয় দেশগুলো এবং আইএমএফ/ বিশ্বব্যাংকের নতুন আফগান সরকারকে স্বীকৃতি/আর্থিক সহযোগিতা না দিতে একরোখা অবস্থানের ফলে নতুন শাসকদের মধ্য মেয়াদে টিকে থাকার একমাত্র আশা চীন। আজকের পরিস্থিতি বিবেচনায় এই মধ্য মেয়াদ অন্তত আগামী তিন/চার বছর হতে পারে।

আফগানদের এখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন, যা কট্টরপন্থী তালেবান নেতারাও প্রকাশ্যে স্বীকার করছেন, তা হলো বড় অঙ্কের অর্থ এবং বিপুল পরিমাণে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। বেইজিংয়ের শাসকরা এই ঘাটতি মেটাতে নিশ্চিতভাবে উদ্যোগ নেওয়ার সামর্থ্য রাখে। এই পরিস্থিতির মধ্যে লুকিয়ে থাকা বিড়ম্বনা হলো, যেখানে শয়তানরাও বাণিজ্যে ভয় পায় চীন সেখানে ঝাঁপিয়ে পড়বে না, সতর্কভাবে পদক্ষেপ নেবে। স্বল্পমেয়াদে তালেবানের টিকে থাকার নিশ্চয়তা এবং চীন, ইরান, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, সিরিয়া, লিবিয়া কিংবা রাশিয়ার মতো দেশগুলোর কাছ থেকে ন্যূনতম স্বীকৃতি পেয়ে গেলে তারা পশ্চিমা গণতান্ত্রিক দেশগুলোর মন জয় করতে আগ্রহী থাকবে না। কিংবা বিশ্বব্যাংকের মতো সংস্থাগুলোর পরোয়া করবে না।

অন্যদিকে, নিজেদের মুক্ত বিবেচনা করে চরম রক্ষণশীল ইসলামিকরণের এজেন্ডা নিয়ে এগিয়ে যেতে তালেবানরা বিশ্বের মতামত নিয়েও ভাববে না।

অনেক ভারতীয় বিশ্লেষক যারা আফগানিস্তানের ঘটনাবলি এবং কাশ্মির উপত্যকায় এর প্রভাব নিয়ে নিজেদের হতাশা গোপন রাখেননি, তারাও অস্বীকার করতে পারবেন না যে চীন এমন অবস্থায় রয়েছে, তারা কাবুল বা ইসলামাবাদের ‘শাসকদের’ জন্য মুলা ঝুলানোর নীতি গ্রহণ করতে পারবে। যুক্তরাষ্ট্রের চলে যাওয়াতে অঞ্চলটি চীনের পাতে তুলে দিয়েছে! ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কিছু মানুষের ধাপ্পাবাজি ও তর্জন-গর্জনকে পাত্তা না দেওয়া দিল্লিভিত্তিক ভারতীয় নীতিনির্ধারকরা দুঃস্বপ্নের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভারতের সাম্প্রতিক ঘনিষ্ঠতা এবং চীনকে মোকাবিলায় কোয়াডে যুক্ত হওয়ার ফলে দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়া অঞ্চলে নয়া দিল্লিকে রাজনৈতিকভাবে কানাগলিতে নিয়ে গেছে।

এখন পর্যন্ত ভারত চীনবিরোধী পদক্ষেপ থামানোর কোনও ইঙ্গিত দেয়নি। হোক তা উঁচু হিমালয় সীমান্ত কিংবা গভীর সমুদ্র। কিন্তু ভারতীয় পররাষ্ট্র নীতিনির্ধারকরা স্বীকার করুন বা না করুন, তাদের কিছু সময়ের জন্য চীনবিরোধী কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে হবে। মজার বিষয় হলো, অনাহূত এই সহিষ্ণুতাকে ভারত ও চীন উভয় পক্ষই নিজেদের জয় হিসেবে হাজির করতে পারবে।

চীনের নেতারা এখন আফগানিস্তানের দ্রুত পরিবর্তনশীল পরিস্থিতিতে নিজেদের অনেক বেশি সক্রিয় করে ফেলার কারণে ভারতের সঙ্গে সীমান্ত অঞ্চলে চলমান বিরোধ কিছুটা আড়ালে চলে যায়। তাই বড় ধরনের কোনও সমস্যা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা নেই বললেই চলে। দিল্লির জন্যও এটি প্রযোজ্য। আফগানিস্তানের সঙ্গে বন্ধুত্বের পুরনো নীতি যখন ভারত গ্রহণ করেছিল তখন তারা সাময়িক জয় পেয়েছিল।

চীনের আর্থিক সহযোগিতার চড়া মূল্য দিতে হয়। অনেক সময় তা দ্রুতই সামনে আসে না। জিনজিয়াংয়ের উইঘুর ভিন্নমতাবলম্বীদের পরিস্থিতির নিশ্চিতভাবে উন্নতি হবে না। এই ক্ষেত্রে বেইজিং মস্কোর উদাহরণ অনুসরণ করতে পারে। রাশিয়া চেচেন/দাগেস্তান বিদ্রোহীদের প্রতি সহযোগিতা থামাতে সৌদি আরব ও পাকিস্তানের সঙ্গে ব্যাক-চ্যানেল কূটনীতি গড়ে তোলে। একই সঙ্গে তারা অঞ্চলটিকে কিছুমাত্রায় স্বায়ত্তশাসন প্রদান করে। সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় চর্চার ক্ষেত্রে তুরস্কের অনেক কাছাকাছি থাকা উইঘুরদের সহযোগিতা থামাতে আফগান ও আরবদের সঙ্গে এমনটি করার ক্ষেত্রে চীনের কোনও বাধা নেই।

এছাড়াও চীনের উচ্চাকাঙ্ক্ষী বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ বাস্তবায়নে সহায়তা দিতে আফগানিস্তানকে প্ররোচিত করতে পারে। খনিজ সম্পদ ও গ্যাস অনুসন্ধানের অধিকার এবং এ সংক্রান্ত প্রক্রিয়ায় জড়িত থাকার অধিকারও পেতে পারে বেইজিং। আগে যুক্তরাষ্ট্র ন্যাটো মিত্রদের নিয়ে এসব সম্পদ অনুসন্ধানে আগ্রহ দেখালেও হঠাৎ করে তাদের পিছুটান পরিস্থিতি বদলে দিয়েছে।

সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহের প্রতিক্রিয়ায় রাশিয়ার দিকে ঝুঁকেছে ভারত। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রকাশ্যে রাশিয়ার প্রশংসা করেছেন। বিগত ৭০ বছরে আন্তর্জাতিক ইস্যুতে দীর্ঘ অবিচল সমর্থনের কারণেই মোদির এই প্রশংসা (মজার বিষয় হলো, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ ড. সুব্রানিমানিয়াম সোয়ামি মনে করেন, মোদির আসলে উচিত ছিল সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রশংসা করা, রাশিয়ার নয়। রাশিয়ার যাত্রা শুরু কেবল ১৯৯১ সালের পর!)। ভ্লাদিমির পুতিনের নেতৃত্বে গত কয়েক বছরে রাশিয়া ও পাকিস্তানের সম্পর্ক উল্লেখযোগ্যভাবে উষ্ণ হয়েছে, যা দিল্লির জন্য সতর্কতামূলক। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতকে ‘কৌশলগত সহযোগী’র মর্যাদা দেওয়া আর ইন্দো-মার্কিন পারমাণবিক চুক্তি স্বাক্ষরের পর পশ্চিমের ওপর নির্ভরতা বাড়ায় দিল্লিভিত্তিক নীতিনির্ধারকদের সুনির্দিষ্ট পরিণতির জন্য প্রস্তুত থাকা উচিত। আশ্চর্যের কিছু নেই, কাশ্মির বিরোধ নিয়ে ভারতের প্রতি মস্কোর সমর্থন সম্প্রতি হালকা শব্দে নেমে এসেছে।

অন্যদিকে রাশিয়ার সরকারি টিভি চ্যানেল আরটি ডকুমেন্টারির মাধ্যমে ক্রমাগত ভারতীয় জীবনযাত্রার নেতিবাচক দিক তুলে ধরছে। ভারতের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, পরিবেশগত অবনতি, শিক্ষা বঞ্চিত দরিদ্র নারীদের দুর্ভোগ, ভারতের মেডিক্যাল অবকাঠামোর পিছনমুখিতা নিয়ে ডকুমেন্টারি প্রচার করছে আরটি। আর এসবই শুরু হয়েছে পাকিস্তান যখন রাশিয়ার কাছ থেকে অস্ত্র কেনা এবং রুশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে কয়েকটি এলাকায় যৌথ মহড়া শুরু করেছে তারপর। পরিষ্কারভাবে, এসবের পর সব ক্ষেত্রেই কট্টরপন্থী নেতা পুতিনের মন জয় করা মোদির জন্য ধারণার চেয়েও কঠিন হবে।

ভারতের জন্য খানিক স্বস্তির কারণ হতে পারে এটা যে আফগান সংকট নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যে কয়েকজন বিশ্বনেতার সঙ্গে ফোনালাপ করেছেন, তাদের মধ্যে নরেন্দ্র মোদিও রয়েছেন। কোনও পাকিস্তানি নেতার সঙ্গে কথা বলেননি তিনি। পাকিস্তানের জন্য সবচেয়ে খারাপ হলো মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন কংগ্রেস সদস্যদের বলেছেন, পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক পুনর্মূল্যায়ন করা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে লড়াইয়ের সময়ও তালেবানের সঙ্গে পাকিস্তানের ভূমিকা পুনর্মূল্যায়নের কথা বলেছেন তিনি। অন্যভাবে বলা যাচ্ছে যে পশ্চিমা সামরিক এবং আর্থিক সহায়তা পাকিস্তান আর আগের মতো সহজে পাবে না।

কিন্তু এতে পাকিস্তান খুব বেশি অবাক হবে না। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক গত কয়েক বছর ধরেই তিক্ত হচ্ছে।

দীর্ঘমেয়াদে চীন চূড়ান্ত গন্তব্য হয়ে উঠলে পাকিস্তান তাদের অবশিষ্ট সার্বভৌমত্বও হারিয়ে ফেলতে পারে। ইসলামাবাদের হাতে খুব বেশি বিকল্পও নেই, তাদের টিকে থাকা নির্ভর করে ভারতবিরোধিতার ওপর। আফগান মিলিট্যান্ট এবং জয়েশ-ই-মুহাম্মদ এবং লস্কর-ই-তৈয়্যবা-এর মতো রাষ্ট্রহীন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর কাশ্মির অঞ্চলের রাজনীতিতে গভীর কামড় বসাতে আর দিল্লির সঙ্গে পুরনো বোঝাপড়া ঠিক করে নিতে বেশি দেরি করবে না ইসলামাবাদ।

ভারত রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কের পুরনো উষ্ণতা ফিরিয়ে আনার চেষ্টার প্রস্তুতি নেওয়ার পরও তারা স্বল্পমেয়াদে আফগানিস্তান ইস্যুতে ‘ওয়েট অ্যান্ড ওয়াচ’ নীতি নিয়েছে। বাংলাদেশের চেয়ে এ অবস্থান খুব আলাদা নয়। তবে একটা পার্থক্যও রয়েছে। সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে ভারতকে যতটা যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে, বাংলাদেশকে ততটা হবে না। কেননা, দেশটি অনেক বেশি স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতির চর্চা করে।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক, কলকাতা

/জেজে/এএ/

সম্পর্কিত

তালেবান ফ্যাক্টর: ভারতের জন্য কঠিন হলেও বিজেপির জন্য ইতিবাচক?

তালেবান ফ্যাক্টর: ভারতের জন্য কঠিন হলেও বিজেপির জন্য ইতিবাচক?

চাপ নয়, শিক্ষা হোক আনন্দের

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৬

প্রভাষ আমিন আমার প্রথম স্কুল চাঁদগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি আমাদের বাড়ির লাগোয়া। লাগোয়া মানে কখনও কখনও আমাদের বাগান ছিল স্কুলের শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ। আবার স্কুলের সামনের মাঠটিও ছিল আমাদের সারাবছরের খেলার মাঠ। এখন তো প্লে, কেজি ইত্যাদি করে ক্লাস ওয়ানে উঠতে তিন বছর লেগে যায়। আমাদের সময় বয়স পাঁচ হলে সরাসরি ক্লাস ওয়ান। বাড়ির লাগোয়া বলে স্কুলকে ঠিক স্কুল মনে হতো না। তো ক্লাস ওয়ানে থাকতেই একবার স্কুলে গিয়ে কিছুক্ষণ পর ফিরে এলাম। আম্মা জানতে চাইলেন, ফিরে এলাম কেন? আমি বললাম, স্কুলে জায়গা নেই। আম্মা কিছু বললেন না, খালি খাটের সঙ্গে বেধে আমাকে দিলেন বেদম পিটুনি। তারপর থেকে আর কখনও স্কুলে জায়গার অভাব হয়নি। হাইস্কুলে উঠে একবার রাষ্ট্রপতি প্রার্থী জেনারেল ওসমানীকে দেখতে স্কুল ফাঁকি দিয়েছিলাম। এছাড়া বরাবরই স্কুল ছিল আমাদের আনন্দের উৎস। 

আমার প্রাইমারি স্কুল দুটি। বাবার চাকরির সুবাদে চট্টগ্রামের মুরাদপুর এলাকার মোহাম্মদিয়া প্রাইমারি স্কুলেও কিছুদিন পড়েছি। প্রথম স্কুল বাড়ির লাগোয়া হলেও হাইস্কুল ছিল বেশ দূরে। গৌরিপুর সুবল আফতাব উচ্চ বিদ্যালয়ে যেতে আমাদের বাসে প্রথমে গৌরিপুর যেতে হতো। পরে রিকশা বা হেঁটে যেতে হতো স্কুলে। প্রাইমারি স্কুলের মতো আমার হাইস্কুলও দুইটা। মামার শিক্ষকতার আমি এসএসসি পাস করেছি চৌদ্দগ্রামের মুন্সীরহাট হাইস্কুল থেকে, যেটি বাড়ি থেকে প্রায় ১০০ মাইল দূরে। আমি খুবই সৌভাগ্যবান, আমার দুটি হাইস্কুলের ক্যাম্পাসই ছিল বড়, খোলামেলা, একাধিক বড় মাঠ ছিল। কারণে-অকারণে শিক্ষকদের মার খেয়েছি প্রচুর। তবে বন্ধুদের সাথে আড্ডা, খেলাধুলা, বিতর্ক, মারামারি, খুনসুটি- সব মিলে স্কুল ছিল মজার জায়গা।

শিশুদের সেই আনন্দের জায়গাটাই আমরা কেড়ে নিতে চেয়েছিলাম। ঢাকার ফ্ল্যাট বাড়ির স্কুলগুলো শিশুদের আনন্দের জায়গা হতে পারেনি। কারও কারও জন্য স্কুল মানেই যেন জেলখানা। আগের মতো এখন আর শিক্ষকদের পিটুনির ভয় নেই বটে, তবে স্কুল মানেই পড়াশোনার অনন্ত চাপ; ক্লাস, কোচিং, পরীক্ষা; দম ফেলার ফুরসত নেই কারও। দেড়বছর পর স্কুলে যেতে পেরে সবাই এখন উৎফুল্ল। কিন্তু পরীক্ষার চাপ এলেই সেই উচ্ছ্বাসটা হারিয়ে যেতে পারে। শহরের একটা ছেলের রুটিন দেখলে আমার কান্না পায়। ভোরে ঘুম থেকে উঠে যুদ্ধ শুরু। ঘুম চোখেই নাস্তা সারতে হয়; তাও নিজের পছন্দে নয়, মায়ের পছন্দে। তারপর ব্যাগ নিয়ে দৌড়। সেই ব্যাগেও থাকে নিজের নয়, মায়ের পছন্দের টিফিন। স্কুল ছুটি হয় দুপুর ২ টায়। দৌড়ে বাসায় এসে গোসল-খাওয়া শেষ করতে করতে কোচিংয়ের সময় হয়ে যায়। ৩টা থেকে ৬টা কোচিং খোয়াড়ে বন্দী। সেখান থেকে বাসায় ফিরে স্বাভাবিক হতে হতে দিনের ১২ ঘণ্টা শেষ। তারপর হোমওয়ার্ক। হোমওয়ার্ক করতে করতে একেটা শিশু ক্লান্তিতে ঢলে পড়ে। 

ছুটির দিনেও মাফ নেই। শুক্রবার সকালে কোচিং, যেদিন কোচিং থাকে না, সেদিনও বাসায় টিচার আসে। তাদের রুটিনে খেলা নেই, গান নেই, আউট বই পড়ার সুযোগ নেই। শুধু ছুটে চলা। কিসের পেছনে? আমি নিশ্চিত নই। পড়াশোনা? আসলে কি পড়াশোনা; নাকি নিছক রোল নম্বর আর সার্টিফিকেট? আসলে কোনটা সাফল্য, কোনটা ব্যর্থতা, আমি নিশ্চিত নই। তাহলে আমরা কিসের পেছনে ছুটছি, সন্তানদের ঠেলে দিচ্ছি কিসের রেসে। সাফল্য মানে আসলে কী?  আমরাই তো সন্তানদের শৈশব থেকে আনন্দ কেড়ে নিয়ে সেখানে ভর্তি করে দিচ্ছি অনন্ত চাপ। সাফল্য চাই, আরো সাফল্য। বোঝো আর না বোঝো সব মুখস্ত করতে হবে। তারপর পরীক্ষার খাতায় সব উগড়ে দিতে হবে। অমুক কেন তোমার চেয়ে ভালো, তমুক কেন নম্বর বেশি পেলো। 

যে হতে পারতো গানের পাখি, আমরা তাকেই বানাতে চাই তোতা পাখি। হাজার হাজার তোতা পাখি কিচির মিচির করছে আমাদের চারপাশে। আমরা বলি, শুধু পড়ো আর পড়ো। আমরা জানতে চাই না বা জানাতেও চাই না, আমাদের সন্তান গান শুনতে চায় কিনা, ফুল ভালোবাসে কিনা, প্রকৃতি তাকে টানে কিনা, শীতের সকালে শিশিরে পা ভেজাতে চায় কিনা, বৃষ্টিতে ভিজতে তার কেমন লাগে, গাছপালা-নদীনালার সৌন্দর্য্য আবিষ্কারের আনন্দ সে পেতে চায় কিনা। পরীক্ষায় ভালো করতে হবে; গোল্ডেন জিপিএ ৫ না পাওয়া বিরাট ব্যর্থতা। সুমনের গানের মতো ‘একটু পড়া, অনেক খেলা/গল্প শোনার সন্ধ্যাবেলা’ আর কারও জীবনে আসে না।

নীতি-নির্ধারকদের ধন্যবাদ। তারা শিশুদের এই পরীক্ষার চাপ থেকে মুক্তি দিতে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে। কথায় কথায় আমরা বৈপ্লবিক পরিবর্তন বলি বটে, কিন্তু শিক্ষা ব্যবস্থার এই পরিবর্তন সত্যিই বৈপ্লবিক। ২০২৩ সাল থেকে ধাপে ধাপে নতুন ব্যবস্থা কার্যকর হওয়ার কথা। এতদিন একটি শিশু বোঝার আগেই তার ওপর চেপে বসতো পরীক্ষার চাপ। নতুন পরিকল্পনায় তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত কোনও পরীক্ষাই থাকছে না। আর দশম শ্রেণির আগে কোনও পাবলিক পরীক্ষা হবে না। এতদিন পঞ্চম শ্রেণিতে পিইসি আর অষ্টম শ্রেণিতে জেএসসি নামে দুটি চাপের পাহাড় ছিল শিশুদের কাঁধে। সেই পাহাড় দুটি সরিয়ে দিলে তারা একটু মাথা উঁচু করে, মেরুদণ্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবে। আর দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা হবে অভিন্ন বিষয়ে। সায়েন্স, আর্টস, কমার্সের বিভাজনটা শুরু হবে একাদশ শ্রেণি থেকে। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির দুটি পরীক্ষার ভিত্তিতে দেওয়া হবে এইচএসসির ফল। তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা না থাকলেও শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ধারাবাহিক মূল্যায়নের ভিত্তিতে। চতুর্থ শ্রেণির পর প্রথম পরীক্ষা শুরু হলে গুরুত্ব বেশি থাকবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ধারাবাহিক মূল্যায়নের ওপরই। সব মিলিয়ে পরীক্ষায় যেনতেনভাবে ভালো করার চাপের বদলে নিয়মিত ক্লাসরুমের পারফরম্যান্স গুরুত্ব পাবে বেশি। শিক্ষার্থীরা আনন্দের সঙ্গে নিজেদের মতো পড়াশোনা করবে। শিক্ষকরা তাদের মূল্যায়ন করবেন।

নতুন পরিকল্পনা অবশ্যই উচ্চাভিলাসী। তবে শিশুদের স্বার্থে এই পরিকল্পনার সুষ্ঠু বাস্তবায়ন জরুরি। তবে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে চ্যালেঞ্জও আছে। যেহেতু শিক্ষকদের মূল্যায়নের গুরুত্বটাই সবচেয়ে বেশি। তাই তাদের যোগ্যতা, দক্ষতা বাড়ানোটা জরুরি। তারচেয়ে বেশি জরুরি শিক্ষকদের নৈতিক মান বাড়ানো। শিক্ষকদের ধারাবাহিক মূল্যায়নই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে, এটা শোনার পর আমি রীতিমত আতঙ্কিত হয়েছি। শিক্ষকদের কাছে প্রাইভেট না পড়লে ক্লাস পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার হুমকি বা ফেল করিয়ে দেওয়ার উদাহরণ ভুরি ভুরি। এই বিষয়টার প্রতি খেয়াল রাখতে হবে সবচেয়ে বেশি। প্রশিক্ষণ দিয়ে শিক্ষকদের যোগ্যতা, দক্ষতা হয়তো একটা পর্যায় পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। কিন্তু শিক্ষকদের নৈতিকতার মানদণ্ড রক্ষা করাটাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। শিক্ষার্থীরা স্কুলে শুধু পাঠ্যবই শিখতে যায় না। সেখানে তাদের জীবন শেখানো হয়। তাই শিক্ষকদের কাছ থেকে নৈতিকতা শিখবে, মূল্যবোধ শিখবে। প্রাইভেট-কোচিংয়ের ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করতে হলে শিক্ষকদের বেতন কাঠামো নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। শিশুদের জন্ম নেয় নিষ্পাপ হিসেবে। আমরা তাদের নানা প্রতিযোগিতায় ঠেলে দেই। ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পয়সা দিয়ে কিনে সন্তানের হাতে তুলে দেই। কীভাবে পাশের বন্ধুকে ল্যাং মেরে সামনে এগিয়ে যেতে হবে, আমরা সন্তানদের সেই শিক্ষা দেই। গাইড বই, নোট বই আমরাই কিনে তাদের জাতে তুলে দেই। তারা শিখে যায়, ফল ভালো করতে হলে অমুক শিক্ষকের কাছে কোচিং করতে হবে। এভাবে ঘরে-বাইরে, স্কুলে শিশুদের অনৈতিকতা শেখাই। তাদের ভবিষ্যৎ গড়ার বদলে শৈশবেই তা ধ্বংস করে দেই। 

চ্যালেঞ্জ আছে বলে থেমে থাকা যাবে না। সামনে যত বাধাই আসুক শিশুদের স্বার্থে সব বাধা পেরিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আমরা চাই আমাদের প্রতিটি সন্তান মানুষের মতো মানুষ হোক। তারা শিক্ষায়, জ্ঞানে, মানবিকতার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। কেউ কাউকে ল্যাং মেরে এগিয়ে যাবে না। সবাই সবার পাশে থাকবে, একসাথে এগিয়ে যাবে। তাদের জীবনটা যুদ্ধের না হোক, হোক আনন্দের, সৃষ্টিশীলতার। দেশের ভবিষ্যতটা তো তাদেরই হাতে। তাই তাদের পেছনেই আমাদের সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ করতে হবে।

লেখক: হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ

/এসএএস/

সম্পর্কিত

‘চোরে না শোনে ধর্মের কাহিনি’

‘চোরে না শোনে ধর্মের কাহিনি’

‘সভ্য সমাজে এগুলো হতে পারে না’

‘সভ্য সমাজে এগুলো হতে পারে না’

১৫ আগস্টের দায় কেন বিএনপির?

১৫ আগস্টের দায় কেন বিএনপির?

‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই, তবে...’

‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই, তবে...’

আমি কেন তালেবানকে সমর্থন করি না?

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:২৩

মো. জাকির হোসেন দীর্ঘ দুই দশক পর তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতায় পুনরায় ফিরে আসার পর বিশ্বের নানা প্রান্তে তাদের পক্ষে-বিপক্ষে নানা বক্তব্য-বিতর্ক চলছে। ইয়েমেনসহ কিছু দেশে জিহাদিরা তালেবানের বিজয়ে আতশবাজি পুড়িয়েছে, সোমালিয়ায় মিষ্টি বিতরণ করেছে, দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের ইসলামপন্থী সংগঠনগুলো এ ঘটনাকে স্বাগত জানিয়েছে। বাংলাদেশের কিছু মানুষ তালেবানে এতটাই মজেছে যে, পারলে কিছু তালেবান ভাড়া করে এখনই সরকারকে বিদায় করে দেয়। 

আমি তালেবানের সমর্থক নই। আবার তালেবানের বিরুদ্ধে যারা সোচ্চার তাদের পক্ষেও নই। যেসব কারণে আমি তালেবানকে সমর্থন করতে পারছি না, তা হলো – এক. ইসলামি শরিয়া আইন বাস্তবায়নের নামে তালেবান নিজেরাই কোরআন-হাদিসের বিধান লঙ্ঘন করছে। আমি কয়েকটি উদাহরণ উল্লেখ করছি। তালেবানের ভয়ে মানুষ দেশ ছেড়ে পালাতে মরিয়া। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ রাসুল (সা.) উদ্দেশ করে বলেন, ‘আল্লাহর অনুগ্রহে আপনি তাদের প্রতি কোমল হৃদয় হয়েছেন। যদি আপনি তাদের প্রতি রূঢ় ও কঠোরচিত্ত হতেন, তবে তারা আপনার পাশ থেকে সরে যেত।...’ (সুরা আল ইমরান: ১৫৯) 

রূঢ় ও কঠোরচিত্ত তালেবানের নৃশংসতা, নিপীড়ন, নির্যাতনের ভয়ে মানুষ নিজ মাতৃভূমি ছেড়ে যেতেও কুণ্ঠিত নয়। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে কোনও ভাই যেন তরবারি দিয়ে তার ভাইয়ের প্রতি ইঙ্গিত না করে। কেননা, তোমরা জান না, শয়তান তার মধ্যে হাত রেখে টানতে থাকে, তারপর সে জাহান্নামের গর্তে পড়ে যায়। (মুসলিম, ৬৫৬২)। 

পাঞ্জশির তালেবান যোদ্ধাদের দখলে এই খবর শোনার পর কাবুলের তালেবানেরা ফাঁকা গুলিবর্ষণের মাধ্যমে বিজয় উদযাপন করে। এতে অন্তত ১৭ জন নিহত হয়েছেন এবং আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৪১ জন। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘…যে ব্যক্তি নরহত্যা অথবা পৃথিবীতে ধ্বংসাত্মক কাজ করার দণ্ডদান উদ্দেশ্য ছাড়া কাউকে হত্যা করে, সে যেন পৃথিবীর সব মানুষকেই হত্যা করলো। আর কেউ কারও প্রাণ রক্ষা করলে সে যেন পৃথিবীর সব মানুষের প্রাণ রক্ষা করলো ।… (সুরা মায়েদাহ: ৩২)। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে: ‘দুনিয়া ধ্বংস করার চেয়েও আল্লাহর কাছে ঘৃণ্যতর কাজ হলো মানুষ হত্যা করা।’ (তিরমিযি, ১৩৯৫)। অন্য এক হাদিসে রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যদি আকাশ ও পৃথিবীর সবাই মিলেও কোন মু’মিন হত্যায় অংশগ্রহণ করে তবু আল্লাহ তা’আলা তাদের সবাইকে মুখ উপুড় করে জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন।’(তিরমিযি, ১৩৯৮)। 

আল্লাহ বলেন, “প্রত্যেকে নিজ নিজ কর্মের জন্য দায়ী থাকবে। কেউ অন্যের (পাপের) বোঝা বহন করবে না।…।”(সুরা আনআম: ১৬৪)। তালেবানদের প্রতিপক্ষকে সহায়তা করার অপরাধে অভিযুক্ত আফগান নাগরিককে না পেয়ে পরিবারের সদস্যদের হত্যা করেছে তালেবান, যা কোরআনের বিধানের লঙ্ঘন। পাঞ্জশিরে আফগানিস্তানের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহর ভাই রুহুল্লাহ আজিজীকে হত্যার পর পরিবারকে তার দেহ দাফন করতে দেয়নি তালেবান। তারা বলেছে, তার শরীর পচা উচিত। অথচ রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘একজন মুসলমানের ওপর অন্য মুসলমানের ছয়টি হক আছে।’ এর একটি হলো, ‘মৃত্যুবরণ করলে তার জানাজায় উপস্থিত হওয়া।’ (মুসলিম, ৪০২৩) শান্তি, সম্প্রীতি, ক্ষমা, সহনশীলতা ও ভালোবাসার নাম ইসলাম। উগ্রতা, বিদ্বেষ, প্রতিহিংসা, প্রতিশোধপরায়ণতা, সাম্প্রদায়িকতা ইসলাম নয়। অবিশ্বাসীরা রাসুল (সা.)-কে নানাভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছে, নামাজরত অবস্থায় তাঁর মাথায় উটের পচা-গলিত নাড়িভুঁড়ি ও আবর্জনা নিক্ষেপ করেছে, তাঁর চলার পথে কাঁটা বিছিয়ে রেখেছে, তাঁকে পাথর দিয়ে আঘাত করেছে। মাতৃভূমি ত্যাগ করতে যারা বাধ্য করেছিল, মুসলমানদের ঘরবাড়ি থেকে যারা বিতাড়ন করেছে, লুটপাট করেছে, মুসলমানদের সম্পত্তি দখল করে নিয়েছে, রাসুল (সা.)-এর চাচা হামজা (রা.)-এর কলিজা যে চিবিয়েছে, উহুদের যুদ্ধে শহীদ সাহাবাগণের মৃতদেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কেটে যারা খণ্ড-বিখণ্ড-বিকৃত করেছে, মক্কা বিজয়ের পর হাতের কাছে পেয়েও তিনি তাদের কোনও প্রতিশোধ গ্রহণ করেননি। বরং সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করে সবাইকে উদারতা ও ক্ষমার চাদরে ঢেকে দিয়ে বলেছিলেন, আজ তোমাদের ওপর আমার কোনও অভিযোগ নেই, তোমরা মুক্ত। 

চাচা আবু তালিব ও স্ত্রী খাদিজার (রা.) মৃত্যুর পর কুরাইশরা রাসুলের ওপর অত্যাচার ও নির্যাতনের মাত্রা আরও বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছিল। মক্কার মাটিতে তিনি আর টিকতেই পারছিলেন না। তিনি তায়েফবাসীর কাছে ইসলামের দাওয়াত নিয়ে গিয়েছিলেন। দীর্ঘ ১০ দিন পর্যন্ত তিনি ঘুরে ঘুরে ইসলামের আহ্বান জানাতে থাকেন। কিন্তু তারা তাঁর কথায় কোনোই কর্ণপাত করলো না; বরং তারা রাসুল (সা.)-এর সঙ্গে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করছিল। অবশেষে তারা সন্ত্রাসী দুষ্ট যুবকদের লেলিয়ে দিলো। যুবকরা রাসুল (সা.)-কে পাথরের আঘাতে জর্জরিত করে তুললো। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁর জীবন-আশঙ্কা দেখা দিলো। মহানুভব রাসুল (সা.) তায়েফবাসীদের এহেন আচরণ সত্ত্বেও আল্লাহর কাছে তাদের জন্য ক্ষমা ও করুণা প্রার্থনা করেন। 

অথচ তালেবান কাবুল দখলের পর প্রতিশোধ নিতে বেশ কয়েকজনকে হত্যা করেছে, সাংবাদিকদের পিটিয়ে মারাত্মক জখম করেছে। 

দুই. ইসলামে জিহাদ ইবাদত। ইবাদত কবুলের অন্যতম শর্ত হলো উপার্জন হারাম হতে পারবে না। একাধিক রিপোর্টে প্রকাশ, তালেবান বেশিরভাগ অর্থ সংগ্রহ করেছে মাদক বিক্রি, চাঁদাবাজি ও অপহরণের পর মুক্তিপণ থেকে। স্পেশাল ইন্সপেক্টর জেনারেল ফর আফগান রিকন্সট্রাকশন (সিগার)-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, মাদক ব্যবসা এবং চোরাচালানের মাধ্যমে বছরে ১০০ থেকে ৪০০ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে তালেবান। রিপোর্ট অনুযায়ী, তালেবানের বার্ষিক রাজস্বের প্রায় ৬০ শতাংশ আসে এ খাত থেকে। ইসলামে এর সবই হারাম। 

তিন. শরিয়া আইনের বিধান রাতারাতি কার্যকর করতে চায় তালেবান। শরীরে জটিল অসুখ হলেও সেরে ওঠতে সময় লাগে। আর অন্তরের অসুখ তো ভয়ংকর, তা দূর করতে সময় দরকার। শত শত বছর ধরে মানুষ ইসলাম থেকে দূরে সরে গেছে। বহু শতাব্দী ধরে ইহুদি, নাসারা, মুশরিক, অবিশ্বাসীদের জীবনযাপন, সভ্যতা-সংস্কৃতি দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে যে অন্তর, তা কী চাবুক মেরে তাৎক্ষণিক পরিবর্তন করা যাবে? কোরআন-হাদিসে নবী-রাসুলদের ঘটনা সাক্ষ্য দেয়, তাঁরা যুগ যুগ ধরে মানুষকে আল্লাহর পথে আহ্বান করেছেন। তা সত্ত্বেও কোনও কোনও নবী-রাসুলের আহ্বানে হাতে গোনা কয়েকজন সাড়া দিয়েছেন। এমনকি কোনও নবীর আহ্বানে একজনও সাড়া দেননি। 

আব্দুল্লাহ ইবনু আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত: একদিন রাসুল (সা.) বললেন, ‘আমার কাছে সব উম্মতের লোকদের পেশ করা হলো। আমি দেখলাম, কোনও নবীর সঙ্গে মাত্র সামান্য কয়জন (৩ থেকে ৭ জন অনুসারী) লোক রয়েছে। কোনও নবীর সঙ্গে একজন অথবা দুই জন লোক রয়েছে। কোনও নবীকে দেখলাম তাঁর সঙ্গে কেউই নেই!...।’ (বুখারি, ৫৭০৫; ৩৪১০; তিরমিযি, ২৪৪৬; মুসনাদে আহমাদ, ২৪৪৪)। 
মক্কায় আল্লাহর আইন চালু করতে না পেরে রাসুল (সা.) মদিনায় গিয়ে সফল হন। মদিনার সংহতির চিন্তা করে রাসুল (সা.) সেখানকার অধিবাসীদের নিয়ে তথা পৌত্তলিক, ইহুদি, খ্রিষ্টান এবং মুসলিমদের মধ্যে এক লিখিত সনদ বা চুক্তি স্বাক্ষর করেন। এ সনদকেই ‘মদিনা সনদ’ বলা হয়। মদিনা সনদে বলা হয়, স্বাক্ষরকারী ইহুদি, খ্রিষ্টান, পৌত্তলিক ও মুসলিমরা মদিনা রাষ্ট্রে সমান নাগরিক অধিকার ভোগ করবেন এবং একটি জাতি (উম্মাহ) গঠন করবেন। সব শ্রেণির লোক নিজ নিজ ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করতে পারবেন। 

চার. তালেবান নারী শিক্ষা নিয়ে গড়িমসি করছে। নারীরা শিক্ষা বঞ্চিত হলে নারীদের জন্য নারী ডাক্তার, নারী শিক্ষক কীভাবে তৈরি হবে? পর্দা বজায় রেখে শিক্ষাগ্রহণ কি ইসলামে নিষিদ্ধ? 

পাঁচ. জোর করে চাপিয়ে দিয়ে, ভয় দেখিয়ে ইসলামি শাসন কায়েম করতে চায় তালেবান। রাসুল (সা.) যখন পৃথিবীতে আসেন তখন জাহেলি তথা অন্ধকারের যুগ ছিল, তাগুতের শাসন ছিল। রাসুল (সা.) কি এই অবস্থা পরিবর্তনের জন্য জোর করে, নেতিবাচক পন্থায়, নৈরাজ্য ও ধ্বংসাত্মক পন্থা অবলম্বন করেছিলেন, না সুন্দর ব্যবহার, উত্তম চরিত্র, আল্লাহর পথে আহ্বান, আত্মগঠন ও সমাজ-সংস্কারের মাধ্যমে পরিবর্তন ঘটিয়েছিলেন? তালেবান তাহলে কার অনুসরণ করছে? আল্লাহর আইন বা ইসলাম প্রতিষ্ঠার কাজ করতে হলে তা শুধু আল্লাহর কোরআন ও রাসুল (সা.)-এর দেখানো পথেই করতে হবে। ইসলামের নামে কোনও শায়খের খামখেয়ালিপনা কিংবা ইসলামের শিক্ষা ও আদর্শবিরোধী পন্থায় ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হতে পারে না। পিটিয়ে, আঘাত করে, ভয় দেখিয়ে, নিষ্ঠুরতা বা নৃশংসতার মাধ্যমে নয়, বরং দাওয়াতের ভিত্তিতে মদিনার সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ ইসলামি জীবন ব্যবস্থা মেনে নিয়েছিলেন, এবং রাসুল (সা.)-কে তাদের রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। 

আল্লাহ তা’আলা রাসুল (সা.)-কে বলেন: “আপনি মানুষকে দাওয়াত দিন আপনার রবের পথে হিকমত ও উত্তম কথার মাধ্যমে এবং তাদের সঙ্গে তর্ক করুন উত্তম পদ্ধতিতে।…” (সুরা নাহল: আয়াত ১২৫)। উত্তম তর্ক হচ্ছে- কোমলতা ও দয়ার মাধ্যমে, ইসলামের বুনিয়াদি দিকগুলো তুলে ধরা। অবশ্যই নম্রতার সঙ্গে মানুষকে আল্লাহর পথে দাওয়াত দিতে হবে। এমনকি মহান রব মুসা (আ.) ও তাঁর ভ্রাতা হারুন (আ.)-কে পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম অত্যাচারী শাসক নিজেকে আল্লাহ বলে দাবিকারী ফিরাউনকে পর্যন্ত নম্রতার সঙ্গে দাওয়াত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ বলেন, “তোমরা উভয়ে ফিরাউনের নিকট যাও, সে তো সীমা লঙ্ঘন করেছে। তোমরা তার সঙ্গে নম্র ভাষায় কথা বলবে, হয়তো সে উপদেশ গ্রহণ করবে অথবা ভয় করবে।” (সুরা ত্বহা: আয়াত ৪৩-৪৪)। 

বাস্তব জীবনে কোনও কিছুর ভিত তৈরি হয়ে পূর্ণতা পেতে যেমন সময়, পরিশ্রম ও ধৈর্যের প্রয়োজন তেমনি মানুষের অন্তরগুলো গড়ে তুলতে এবং সেগুলোকে সত্যের পথে নিয়ে আসতে সময়, ধৈর্য ও ত্যাগের প্রয়োজন। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘…যাকে মানুষ তাদের জান ও মালের জন্য নিরাপদ মনে করে সে-ই প্রকৃত মুমিন।’ (তিরমিযি,২৫৫১; নাসাঈ, ৪৯০৯)। অন্য হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘কেবল হতভাগ্য ব্যক্তির হৃদয় থেকেই দয়া তুলে নেওয়া হয়।’ (তিরমিযি, ১৯২৩)। 

ছয়. চীন সরকার উইঘুর মুসলিমদের নামাজ-রোজা পালনে বাধা দিচ্ছে, হারাম খাদ্যগ্রহণে বাধ্য করাসহ নিষ্ঠুর নির্যাতন করছে। অথচ তালেবান তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তুলছে। ইসলামে সব অমুসলিমের সঙ্গে বন্ধুত্ব নিষিদ্ধ নয়। এমন অমুসলিমের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা মেলামেশা করা যাবে, যে ইসলামকে কটাক্ষ করে না, উপহাস করে না, কটূক্তি করে না, মুসলিমকে দ্বীন থেকে দূরে সরিয়ে নিতে চায় না। কিন্তু তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করা যাবে না যে ইসলামের বিরুদ্ধে কথা বলে, কাজ করে। মহান আল্লাহ তা’আলা বলেন, “…আল্লাহ কেবল তাদের সাথে বন্ধুত্ব করতে নিষেধ করেন, যারা ধর্মের ব্যাপারে তোমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে, তোমাদের দেশ থেকে বহিষ্কৃত করেছে এবং বহিষ্কারকার্যে সহায়তা করেছে। যারা তাদের সাথে বন্ধুত্ব করে তারাই জালেম।” (সুরা মুমতাহিনা: ৮-৯)।

তালেবান শরিয়া আইন চালুর কথা বলছে। মুসলমান হিসেবে আমার অবশ্যই এর বিরোধিতা করা উচিত নয়। পবিত্র কোরআনের সুরা মায়েদার ৪৪নং আয়াতে বলা হয়েছে, “আর আল্লাহ যা নাযিল করেছেন সে অনুযায়ী যারা বিধান দেয় না, তারাই কাফির।” পরবর্তী ৪৫নং আয়াতে বলা হয়েছে, “আর আল্লাহ যা নাযিল করেছেন সে অনুযায়ী যারা বিধান দেয় না, তারাই জালিম।” এর পরবর্তী ৪৭নং আয়াতে বলা হয়েছে, “আর আল্লাহ যা নাযিল করেছেন সে অনুযায়ী যারা বিধান দেয় না, তারাই ফাসিক (পাপাচারী)।” ইবন আব্বাস (রা.) বলেন, ‘যে কেউ আল্লাহ যা নাযিল করেছেন তা অস্বীকার করবে সে অবশ্যই কাফের হয়ে যাবে। আর যে কেউ তা স্বীকার করবে, কিন্তু বাস্তবায়ন করে তদানুসারে বিধান দিবে না সে জালেম ও ফাসেক হবে’ (তাবারি)। 

তালেবান মুখে শরিয়া আইনের কথা বললেও তাদের অনেক কর্মকাণ্ড কেবল ইসলামের সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণই নয়, কিছু ক্ষেত্রে তা কোরআন-হাদিসের বিধানের সাথে সাংঘর্ষিক। শরিয়ার বিধান চালুর নামে কোনও শায়খের খামখেয়ালিপনা কিংবা ইসলামের শিক্ষা ও আদর্শবিরোধী পন্থা সমর্থনযোগ্য নয়।

লেখক: অধ্যাপক, আইন বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

ই-মেইল: [email protected]

/এসএএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

পরীমণি, ‘সরি মণি’

পরীমণি, ‘সরি মণি’

রাজনীতি ও ইতিহাসের ভুল পাঠ ও বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে শত্রুতা

রাজনীতি ও ইতিহাসের ভুল পাঠ ও বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে শত্রুতা

বিপদ ডেকে আনছে ভারত, ঝুঁকি বাংলাদেশেরও

বিপদ ডেকে আনছে ভারত, ঝুঁকি বাংলাদেশেরও

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের

বিষয়টি ‘কথার কথা’ নয়

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৩৪

রেজানুর রহমান আমার আজকের লেখাটা একটু অন্যরকম। সবার পছন্দ নাও হতে পারে। কারণ, সংস্কৃতি নিয়ে আলাপ-আলোচনা আমরা অনেকেই পছন্দ করি না। গানবাজনা, নাটক, চলচ্চিত্র, শিল্পকলা এসব নিয়ে কথা বলার কী কোনও মানে হয়? শুধু শুধু সময় নষ্ট। যারা এমনটা ভাবেন, আমার ধারণা তারা একটু স্বার্থপর। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন, দেশের সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সংস্কৃতি কর্মীরাই ছিল প্রথম সারির সৈনিক। যেকোনও সংকটকালেই তাদের প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু প্রয়োজন শেষ, আর সংস্কৃতি কর্মীদের কথা মনে থাকে না।

এই করোনাকালের কথাই ধরি। গত দেড় বছর অন্যান্য সেক্টরের মতো দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনও ঝিমিয়ে ছিল। সিনেমা হল বন্ধ, নাটকের মঞ্চায়ন বন্ধ। সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানে তালা ঝুলেছে। সবার একটাই প্রত্যাশা ছিল, নিশ্চয়ই আবার সবকিছু স্বাভাবিক হবে। আবার জমবে মেলা, বটতলা হাটখোলায়। আশার কথা, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় দেশের সবকিছুই এখন স্বাভাবিক গতিতে চলমান হওয়ার চেষ্টা করছে। তবে সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অবস্থা খুবই করুণ। দীর্ঘ দেড় বছরের বিরতি দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে এতটাই কাহিল করে তুলেছে যে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় প্রণোদনা ছাড়া পরিস্থিতির উন্নতি সম্ভব নয়। একটা ছোট্ট উদাহরণ দেই। খেয়াল করলেই দেখবেন, রাজনৈতিক, সামাজিক, এমনকি পারিবারিক অনুষ্ঠানেও আমরা শিল্পীদের ডেকে আনি। নাচ গান, বিশেষ করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছাড়া কোনও কিছুই জমে না। সে কারণে যেকোনও আয়োজনের আগে শিল্পীরা হয়ে ওঠেন অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর কারও কারও কাছে আদরের শিল্পীরাই হয়ে ওঠেন অনেক ঝামেলার। ‘আরে ভাই এত টাকা টাকা করেন কেন? টাকা দিবো না এ কথা বলেছি নাকি? চিন্তা করবেন না। কাল, পরশু টাকা পেয়ে যাবেন...’।

এখন প্রশ্ন হলো শিল্পীদের কি সংসার নেই? তাদের কি খেতে হয় না? তাদের কি বাড়ি ভাড়া দিতে হয় না? এই করোনাকালে নাটক, সিনেমা ও সংগীতাঙ্গনের মানুষরাই সীমাহীন বিপাকে পড়েছে। আয় রোজগারের পথ বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে ভিন্ন পেশা বেছে নিয়েছেন অনেকে। একটাই আশা ছিল, করোনার সংক্রমণ কমে গেলে নিশ্চয়ই সবকিছু আবার স্বাভাবিক হবে। রাষ্ট্র নিশ্চয়ই শিল্পীদের পাশে দাঁড়াবে। কিন্তু তার তো কোনও লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না। নাটকের মঞ্চ খুলে গেছে। সিনেমা হল খুলে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা কি জানি এই সেক্টরের মানুষগুলো কতটা আর্থিক বিপদে আছেন? সাংস্কৃতিক সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানগুলোর কথাই বলি। গত দেড় বছরে অনেকে ভাড়া দিতে না পারায় অফিস ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছেন। ফলে নাটকের সেট, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সরঞ্জামাদি, যেমন- হারমোনিয়াম, তবলা ইত্যাদি নষ্ট হয়ে গেছে। আর্থিক সংকটে আবার ঘুরে দাঁড়াবার শক্তি পাচ্ছে না অনেক সাংস্কৃতিক ও নাট্য সংগঠন। তাই দাবি উঠেছে আর্থিক প্রণোদনার। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির ৩টি মিলনায়তন ঢাকার নাট্যকর্মীদের অনেক আস্থার জায়গা। কর্তৃপক্ষ মিলনায়তনগুলো খুলে দিয়েছেন। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে অনেক সংগঠনের পক্ষে এখন  নিয়মিত নাটক করা সম্ভব হবে না। এটাই চরম বাস্তবতা। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মঞ্চপাড়ায় হল ভাড়া মওকুফ অথবা বিশেষ প্রণোদনার দাবি উঠেছে। দেশের শীর্ষ সারির দুটি নাট্য সংগঠন যথাক্রমে ঢাকা থিয়েটার ও আরণ্যক সাফ জানিয়ে দিয়েছে, হল ভাড়া মওকুফ অথবা বিশেষ প্রণোদনা না পেলে তারা বরাদ্দপ্রাপ্ত তারিখে মঞ্চ নাটক করবে না!

ঢাকা থিয়েটার-এর প্রধান নাসির উদ্দিন ইউসুফ বলেছেন, ঢাকাস্থ শিল্পকলা একাডেমি ও সারাদেশে শিল্পকলা একাডেমির হল ভাড়া মওকুফ করা ও সব সাংস্কৃতিক সংগঠনকে করোনা প্রণোদনা না দেওয়ার প্রতিবাদে আমরা ১৭ সেপ্টেম্বর শিল্পকলায় নাটক করবো না। তিনি আরও বলেছেন, করোনা মহামারির কারণে দেশের প্রায় সব সাংস্কৃতিক সংগঠনই আর্থিক সংকটে পড়েছে। এ ব্যাপারে সরকারের দৃষ্টি দেওয়া প্রয়োজন।

শিক্ষার পরেই আমরা সংস্কৃতির কথা বলি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ক্ষেত্রে আমরা যে ধরনের আন্তরিকতা দেখিয়েছি, তার ছিটেফোঁটাও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে না। যদিও শিক্ষার সঙ্গে সংস্কৃতির এমন তুলনা করা ঠিক হয়। কিন্তু শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে সংস্কৃতিরও উন্নয়ন তো জরুরি। অনেকেই হয়তো ব্যাপারটা খেয়াল করছেন না। অথবা খেয়াল করলেও দেখেও না দেখার ভান করে এড়িয়ে যাচ্ছেন। সমস্যা বাড়িয়ে তুলেছে আকাশ সংস্কৃতি। মোবাইল ফোন সংস্কৃতির আগ্রাসন ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আকাশ সংস্কৃতিই ভেসে আসছে মোবাইল ফোনে। আমাদের ভালো সিনেমা নেই, সাংস্কৃতিক চর্চা নেই, মঞ্চ নাটক নেই। ফলে প্রায় প্রতিটি পরিবারে আকাশ সংস্কৃতিই প্রভাব ফেলছে। আমাদের তরুণ প্রজন্ম ভিনদেশের তারকাদের যেভাবে চিনে নিজ দেশের তারকাদের সেভাবে চিনে না! তরুণ প্রজন্মের মধ্যে দেশের চেয়ে বিদেশি সংস্কৃতির প্রতি আগ্রহ দিনে দিনে বাড়ছে। এমন একটা নাজুক পরিস্থিতিতে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের বলিষ্ঠ ভূমিকা দরকার। কিন্তু সেটা কীভাবে সম্ভব? কথায় আছে, অভাব দেখা দিলে গভীর প্রেমও দরজা-জানালা দিয়ে পালিয়ে যায়। করোনা দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে মারাত্মক আর্থিক সংকটের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে। কাজেই আর্থিক প্রণোদনা ছাড়া বোধকরি সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে জাগিয়ে তোলা যাবে না। এটা ‘কথার কথা’ এমন বিষয় না। জরুরি ভেবে দেখার বিষয়।

লেখক: কথাসাহিত্যিক, নাট্যকার, সম্পাদক: আনন্দ আলো।

/এসএএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

স্কুল যেন এবার আনন্দের হয়

স্কুল যেন এবার আনন্দের হয়

এক হাত পরীর, অন্য হাত কার?

এক হাত পরীর, অন্য হাত কার?

দেশের বড় সেতুগুলোর নিরাপত্তা কি আছে?

দেশের বড় সেতুগুলোর নিরাপত্তা কি আছে?

মডেল মানেই কি রাতের রানি?

মডেল মানেই কি রাতের রানি?

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সর্বশেষ

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের ‘প্রতারণা’র বিষয়ে তদন্ত চলছে: ডিএমপি

ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের ‘প্রতারণা’র বিষয়ে তদন্ত চলছে: ডিএমপি

সবচেয়ে দুষ্প্রাপ্য ফুল

সবচেয়ে দুষ্প্রাপ্য ফুল

‘ধামাকা’র সেলারদের পাওনা ‘২০০ কোটি’ টাকা, সুষ্ঠু সমাধানের দাবি 

‘ধামাকা’র সেলারদের পাওনা ‘২০০ কোটি’ টাকা, সুষ্ঠু সমাধানের দাবি 

চলে গেলেন আলজেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট বুতেফলিকা

চলে গেলেন আলজেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট বুতেফলিকা

আশ্রয়ণ প্রকল্পে ‘দুর্নীতি ও অনিয়মের’ সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

আশ্রয়ণ প্রকল্পে ‘দুর্নীতি ও অনিয়মের’ সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

প্রতারক এহসানকে পদক দিয়েছিলেন সাবেক জেলা প্রশাসক

প্রতারক এহসানকে পদক দিয়েছিলেন সাবেক জেলা প্রশাসক

অস্ট্রেলিয়া-যুক্তরাষ্ট্র থেকে রাষ্ট্রদূতদের ডেকে পাঠালো ফ্রান্স

অস্ট্রেলিয়া-যুক্তরাষ্ট্র থেকে রাষ্ট্রদূতদের ডেকে পাঠালো ফ্রান্স

রামেক হাসপাতালে মৃত্যু বেড়েছে

রামেক হাসপাতালে মৃত্যু বেড়েছে

সোনালী পেপারের ৪০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

সোনালী পেপারের ৪০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা

দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা

কক্সবাজারে আবাসিক হোটেল থেকে উদ্ধার ছাত্রলীগ কর্মীর হাসপাতালে মৃত্যু

কক্সবাজারে আবাসিক হোটেল থেকে উদ্ধার ছাত্রলীগ কর্মীর হাসপাতালে মৃত্যু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune