X
বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সেকশনস

কবে হবে ইতিহাস, ঐতিহ্য ও চেতনার উন্নয়ন

আপডেট : ৩১ জানুয়ারি ২০২১, ১৮:৫০

কাবিল সাদি একটি দেশের অন্যতম সম্পদ সে দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের মূল্যায়ন এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তা সঠিক ও সুন্দরভাবে উপস্থাপন। আবার একইভাবে সে দেশের রাষ্ট্রীয় দীনতা প্রকাশ পায় ইতিহাস ঐতিহ্যকে ভুলে যাওয়া, অবমূল্যায়ন অথবা বিকৃতভাবে উপস্থাপন করার মধ্য দিয়ে। বর্তমান সময়ে এ দেশে অর্থনীতি, শিক্ষা ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের প্রশংসা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পেলেও আমাদের মানসিক দীনতার উন্নয়ন কতটা হয়েছে এবং এই উন্নয়নকে টেকসই উন্নয়ন বলা যাবে কিনা সেটা নিয়েই এক ধরনের দ্বিধা রয়েছে।

২.

গত এক দশকে যে বিষয়টি আমাদের সামনে এসেছে, বিশেষত তরুণ শিক্ষিত সমাজের সামনে গুরুত্ব পেয়েছে, তা হলো ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’। কার্যত এই চেতনাকে কেন্দ্র করেই প্রণীত হয় আমাদের মহান সংবিধান বা আমাদের রাষ্ট্রীয় জীবনযাপন কিন্তু এই একটি শব্দকে পুঁজি করেই রাজনীতির নামে পুরো জাতিই যেন দুই ভাগে বিভক্ত। একদল হলো চেতনার পক্ষে আর স্বভাবতই ভিন্ন দল বিপক্ষে। তবে এই চেতনার আদর্শ আমরা আসলেই ধারণ করেছি কিনা বা আদৌ এটার চর্চা সঠিকভাবে হচ্ছে কিনা সেদিকে নজর দেওয়া খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ, অনেকেই ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’র নামে নানা ধরনের অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করে। এটা দল থেকে শুরু করে ব্যক্তিপর্যায়েও চলে গেছে। এদের মূল লক্ষ্য ‘লোক দেখানো দেশপ্রেমে’র পেছনে নানা রাজনৈতিক সুবিধা নেওয়ার জন্য চেতনার লেবাস পরিহিত মায়া কান্না।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রায়ই দেখা যায় কিছু তরুণদের কোনও টেলিভিশন থেকে সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময় বিশেষ দিবস নিয়ে তারা খুব বেশি ধারণা রাখেন না। বিশেষ করে নিজ দেশের বিশেষ দিবস নিয়ে। অনেক সময় দুঃখজনক হলেও দেখা যায় তারা আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ বা ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে সদুত্তর দিতে ব্যর্থ হন। বিষয়টা রীতিমতো উদ্বেগজনক। মাস খানেক আগেই একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। যেখানে বর্তমানে নানাভাবে আলোচিত সমালোচিত মাওলানা জনাব গিয়াস উদ্দিন তাহেরি সাহেবের ভিডিও ক্লিপ, যেখানে তিনি অতি আবেগী হয়ে উপস্থিত ব্যক্তিদের বয়ান দিচ্ছেন এই বলে যে, ‘১৯৭১ সালে নাকি বাংলা ভাষার জন্য বুকের তাজা রক্ত দিয়ে ত্রিশ লক্ষ শহীদের বিনিময়ে আমরা দেশের স্বাধীনতা অর্জন করেছি।’ তিনি ইতিহাসের নতুন অনুচ্ছেদ যুক্ত করলেন এবং উপস্থিত সাধারণ ধর্মপ্রাণ জনতাও সেটা মেনে নিলেন বলে প্রতীয়মান হলো। কারণ, কেউ তো প্রতিবাদ করেনি।

এ ধরনের ঘটনা মজা হিসেবে নিলেও এটা কি সত্যিকার অর্থে মজা পাওয়ার বিষয় ছিল? আমরা আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য নিয়ে কি হাসবো অথবা কেউ ভুল তথ্য দিলেই সেটাকে কৌতুক হিসেবে নেবো? গত একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আবারও দৃষ্টিগোচর হলো একটি সংবাদ, যেখানে এ দিবস উপলক্ষে করা ব্যানারে দেওয়া হয়েছে সাত বীর শ্রেষ্ঠদের ছবি এবং তাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া হলো ভাষা শহীদ হিসেবে। আর এসব কাজে প্রশাসন থেকে বিশ্ববিদ্যালয় সকলেই সম্পৃক্ত। শিক্ষা ও চেতনার মননশীলতার কতটা তলানিতে আমরা অবস্থান করছি একবার ভেবে দেখুন, একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ও শিক্ষার্থীরা ভাষা শহীদ এবং মুক্তিযুদ্ধের বীর শ্রেষ্ঠদের চিনতে পারেননি।

যদি শিক্ষকরাই ভুল করে বসেন তাহলে তারা শিক্ষার্থীদের কী ইতিহাস শেখাবেন, জানাবেন এবং চর্চায় উদ্বুদ্ধ করবেন। একজন প্রথাগত শিক্ষাহীন কথিত মাওলানার সাথে এদের পার্থক্য কোথায়? যদিও বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষকরা দাবি করেছেন, বিষয়টি নজরে পড়েনি। এটা বলেই তারা দায় এড়িয়ে গেলেন। তারা কি এভাবে দায় এড়াতে পারেন? ইতিহাসকে তাচ্ছিল্য করার বিষয়কে এভাবে এড়িয়ে যাওয়া কতখানি আইনসম্মত বা নীতিসম্মত?

হয়তো এসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলেই আমরা মেনে নীতি শিখে গেছি আর এজন্যই ২০২০ সালের মহান বিজয় দিবসে আমাদের দেখতে হলো আরেক নজিরবিহীন বিজয় দিবস উদযাপন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শহীদ মিনারের ছবি যুক্ত করে উদযাপন করেছেন মহান বিজয় দিবস। যে অনুষ্ঠানেও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবীণ শিক্ষকসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা। অন্যদিকে সদ্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা করা বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এগুলো ছাপিয়ে আরও এগিয়ে গেছেন। তাদের অনুষ্ঠানের পতাকার সবুজের বুকে লাল বৃত্ত হয়ে আছে চতুর্ভুজ। কতটা ধৃষ্টতা দেখালে এমন কাজ করা সম্ভব। আমাদের মহান সংবিধানে যে জাতীয় পতাকার চিত্র উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে সে চিত্রকে তারা অস্বীকার করে ভিন্ন পতাকার জন্ম দিয়ে সাংবিধানিক অসম্মানের সাথে দেশবিরোধী অপরাধ করেছেন কিনা তা আমাদের আইন প্রণেতারাই ভালো বলতে পারবেন।

যারা এসব কাজে যুক্ত তারা কেউই মানসিক ও মানবিকভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী কিনা সেটা ভাববার বিষয়। আর তাদের দায়িত্ব জ্ঞানহীন ইতিহাস চর্চার আদৌ কোনও প্রয়োজন আমাদের আছে কিনা সেটাও ভাবার সময় এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জ্ঞানচর্চা ও এদের দায়িত্বে কারা রয়েছেন এবং তারা শিক্ষা ব্যবস্থা ও আমাদের দেশপ্রেমকে কোন দিকে নিয়ে যাচ্ছেন তা নিয়ে সংশ্লিষ্টদের এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে এবং সেই সাথে এগুলো দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের অংশ কিনা সেটাও আমলে নিতে হবে।

৩.

আমরা আসলে অবাক হতে হতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি, তাই আর অবাক হই না। আমাদের রাজনৈতিক দীনতাই হয়তো এসব কর্মকাণ্ডের জন্য অনেকটা দায়ী। ক্ষমতার পালাবদলে যে দেশে ইতিহাসের বিষয়বস্তু পরিবর্তন হয় সে দেশের ইতিহাসে আস্থা রাখা বা সঠিক ঐতিহ্য চর্চা অসম্ভব। বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঠাঁই হয় ইতিহাস বইয়ের গুরুত্বহীন পাতার এক কোনায়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে ইতিহাসের সত্য ফুটে ওঠে বইয়ের পাতায় পাতায়। এখন একজন শিক্ষার্থী ক্ষমতার পালাবদলে দু’ধরনের ইতিহাস পাঠ করেন কয়েক বছরের ব্যবধানে। এসব তো আমাদের সময়ই হতে দেখেছি। যার ফলে কে ভাষা শহীদ, আর কে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীরশ্রেষ্ঠ তা চেনাও অনেকের কাছে ধাঁধার মতো মনে হয়। আর আমাদের অনেক শিক্ষকরা শিক্ষকতার চেয়ে সাদা-কালো, লাল-নীল বাহারি রঙে বিভক্ত হয়ে শিক্ষা বা জ্ঞানচর্চার চেয়ে রাজনীতি চর্চায় ব্যস্ত থাকতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন, আর এজন্য ভাষা শহীদ বা বীরশ্রেষ্ঠ চেনা তাদের কর্মসূচিতে পড়ে না।

৪.

কথায় আছে, ‘যে দেশে গুণীদের কদর করা হয় না, সে দেশে গুণীর জন্ম হয় না।’ আমরা অনেকে ভাষা শহীদদের চিনি না, বীরশ্রেষ্ঠদের চিনি না। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, সম্পাদক শামছুল হক অথবা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, এ. কে ফজলুল হক এবং বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় সুদীর্ঘ নয় মাস স্বাধীন দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীনসহ তৎকালীন জাতীয় নেতাদের অবদান তো দূরের কথা, নামও হয়তো অনেকে জানেন না। তাদের চোখে কে বীরশ্রেষ্ঠ বা কে ভাষা শহীদ, সেটা তো আরও কঠিন হবে এটাই স্বাভাবিক।

এই না জানার পেছনে রাষ্ট্রীয় ও রাজনৈতিক অনীহার পাশাপাশি জাতীয় পর্যায়ের গণমাধ্যমগুলোর ভূমিকাও দুঃখজনকভাবে দায়ী। এসব ত্যাগী নেতাদের জন্ম-মৃত্যু বার্ষিকীতে স্থান দেওয়া হয় পত্রিকাগুলোর চেহলাম বা ভেতরের পাতার এক প্রান্তে। একটি সময় সে পাতাতেও তাদের ঠাঁই হবে না তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

৫.

বর্তমান সময়ের সরকার উন্নয়নমুখী সরকার, কিন্তু তার এই উন্নয়ন গতিধারা ধরে রাখতে হলে উন্নয়নের অন্যতম ভীত ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঠিক চর্চা এবং আমাদের সূর্য সন্তানদের সঠিকভাবে মূল্যায়ন করতে হবে। কারণ, টেকসই উন্নয়নের অন্যতম উপাদান হলো প্রত্যেকটি দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের চর্চা ও যথাযোগ্য মূল্যায়ন। না হলে
ভিত মজবুত না করা বিল্ডিংয়ের মতো দূর থেকে যেমন দৃশ্যমান হয়ে অনেক দূর পর্যন্ত তার উপস্থিতি জানান দিলেও তা যেকোনও মুহূর্তে ধসে পড়তে পারে। তাই আমরা যদি আমাদের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ভিতকে শক্ত না করে ফিজিক্যাল (অবকাঠামো ও অন্যান্য দৃশ্যমান) উন্নয়নেই সান্ত্বনা খুঁজি তাহলে যেকোনও সময় সে উন্নয়নকে থামিয়ে ধসিয়ে দিতে পারে পুরো উন্নয়ন কাঠামোকে। তাই সংশ্লিষ্ট সবার উচিত বিষয়গুলোর গুরুত্ব অনুধাবন করে আমাদের ইতিহাস ও ঐতিহ্য মূল্যায়নের পাশাপাশি মহামানবদের অবদান যথাযোগ্যভাবে পাঠ্যবই, গণমাধ্যম, অবকাঠামো নামকরণের মাঝে তুলে ধরতে হবে জাতি-ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ নির্বিশেষে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবে রূপ দিতে এটাই হোক আমাদের মুজিববর্ষের মহান চেতনা।

লেখক: ব্যাংক কর্মকর্তা।
[email protected]

/এসএএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

সরকারি চাকরিতে বয়স ছাড়: সুবিচার না অবিচার?

সরকারি চাকরিতে বয়স ছাড়: সুবিচার না অবিচার?

পুরুষ নির্যাতন ও সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয়

পুরুষ নির্যাতন ও সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয়

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি কি বেকারদের নিয়ে ভাববে?

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি কি বেকারদের নিয়ে ভাববে?

অভিবাসী শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি জরুরি

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৭:৩০

মো. আখতার হোসেন জীবন ও জীবিকার তাগিদে প্রতি বছর বিশ্বের অগণিত মানুষ নিজ দেশ ছেড়ে পাড়ি জমান বিভিন্ন দেশে। বিশ্ব অর্থনীতিতে অভিবাসন তাই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বেশিরভাগ উন্নয়নশীল দেশের মতো বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটেও অভিবাসনের যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। আশির দশকের শুরু থেকেই দেশের কর্মসংস্থান সংকট মোকাবিলায় ও দারিদ্র্য বিমোচনে অভিবাসন উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনের দ্বিতীয় বৃহত্তম খাত প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স। কোভিড-১৯ ও লকডাউনের প্রভাবে সারা বিশ্বের অর্থনীতি যখন চরম সংকটের মুখোমুখি, তখন অনিশ্চয়তা ও শঙ্কা ভর করেছে দেশের অভিবাসন খাতেও।  

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো’র (বিএমইটি) তথ্যমতে, গত বছর প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের পরিমাণ দাঁড়ায় ২১,৭৫২.২৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। মার্চ-মে মাসে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হলেও জুন থেকে এর ধারাবাহিক ঊর্ধ্বগতি দেখা গেছে, যা করোনাভাইরাসের অভিঘাত থেকে অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে। প্রবাসী শ্রমিকরা মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও উত্তর আফ্রিকার দেশসহ প্রায় মোট ১৬৮টি দেশে বসবাস করছেন। তারা মূলত বিভিন্ন ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের স্বল্পমেয়াদি চুক্তিভিত্তিক কর্মী হিসেবে কাজ করেন এবং চুক্তি শেষে দেশে ফিরে আসেন।

প্রবাস ফেরত শ্রমিকদের তথ্য সংরক্ষণের কোনও যথাযথ প্রক্রিয়া নেই বলে প্রতি বছর কতজন দেশে ফিরছেন এর সঠিক সংখ্যা বের করা বেশ কঠিন।

তবে, করোনা বৈশ্বিক মহামারি উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে অন্য যেকোনও বছরের তুলনায় গত বছর দেশে ফেরত আসা প্রবাসী শ্রমিকের সংখ্যা তুলনামূলক বেশি। আইওএম’র হিসাব অনুসারে, গত বছরের এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর মাসে প্রায় চার লাখ প্রবাসী শ্রমিক কোভিড-১৯ এর কারণে দেশে ফেরত আসেন। কোভিড-১৯-এর বিস্তার ঠেকাতে বেশিরভাগ দেশে লকডাউন ঘোষণা করায় এবং জ্বালানি তেলের দাম ব্যাপকভাবে হ্রাস পাওয়ায় সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কয়েকটি দেশ অভিবাসী শ্রমিকদের নিজ দেশে পাঠিয়ে দেওয়ার ঘোষণা দেয়।

এই প্রবাস ফেরত শ্রমিকদের একটি বড় অংশ ঋণদায়গ্রস্ত এবং দেশে তারা বেকার অবস্থায় জীবনযাপন করছেন। তাই, বিদেশে যেমন তারা কষ্টে দিনযাপন করছিলেন, দেশে এসেও তারা পড়েছেন এক দুর্দশাপূর্ণ পরিস্থিতিতে। আইওএম’র গবেষণায় দেখা গেছে, দেশে ফেরত আসা ৭৫ শতাংশ প্রবাস শ্রমিক করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার বিদেশে ফেরত যেতে আগ্রহী।

সেক্ষেত্রে আমাদের দরকার প্রবাস ফেরত এই শ্রমিকদের দক্ষতা উন্নয়নের জন্য একটি কাঠামোভিত্তিক রি-স্কিলিং ও আপস্কিলিং প্রোগ্রামে অন্তর্ভুক্ত করা, যেটি পরবর্তীতে দক্ষতার বিচারের মাপকাঠিতে প্রবাসে চাকরি নিশ্চিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনে সক্ষম হবে।

দক্ষতার বিচারে বাংলাদেশ থেকে সাধারণত তিন রকমের অভিবাসন হয়– দক্ষ, স্বল্প দক্ষ এবং অদক্ষ। সাধারণত আমাদের দেশের প্রবাসী শ্রমিকরা অবকাঠামো নির্মাণ সংক্রান্ত কাজ, পরিবহন, হোটেল-রেস্টুরেন্টের কাজ, স্বাস্থ্য সেবা, ঘরের কাজসহ স্বল্প দক্ষ ও নিম্ন উৎপাদনশীল কাজে নিয়োজিত থাকায় যেকোনও ধরনের অর্থনৈতিক অভিঘাতে তারা সমস্যার সম্মুখীন হন। করোনায় বেশিরভাগ দেশে এসব কাজের চাহিদা কমে যাওয়ায় অনেক প্রবাসী শ্রমিকই চাকরি হারিয়েছেন।

বিদেশ গমন করা অধিকাংশ শ্রমিকই কোনও প্রশিক্ষণ ছাড়া বিদেশে যান। অথচ ছয় মাস কিংবা এক বছরের একটি প্রশিক্ষণ বিদেশে তাদের পারিশ্রমিক দুই থেকে তিনগুণ বাড়িয়ে দিতে সক্ষম। তাই দেশে ফেরত আসা শ্রমিকরা যাতে ফের বিদেশ গমনের পর অধিক উপার্জন করতে পারেন, সেজন্য বহির্বিশ্বের শ্রমবাজারের চাহিদা অনুযায়ী যেসব খাতে দক্ষ জনবল প্রয়োজন, সেসব খাতে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে মনোযোগ দিতে হবে। এক্ষেত্রে মনে রাখা প্রয়োজন, করোনা পরিস্থিতি শ্রমবাজারের রূপ অনেকটাই পাল্টে দিয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে প্রযুক্তি নির্ভরতা ও উদ্ভাবন এবং নতুন দক্ষতার সুযোগ সৃষ্টি কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। কোভিড-১৯ যেমন কাজের ক্ষেত্রকে বিভিন্নভাবে পরিবর্তন করেছে, একইসাথে অনেক নতুন সুযোগও সৃষ্টি করেছে। দেশের অভিবাসী শ্রমিকদের বেশিরভাগেরই ভাষাগত দক্ষতা ও প্রযুক্তি জ্ঞান কম থাকায় তারা বিদেশে কাজ করতে গিয়ে বিভিন্ন রকম সমস্যার সম্মুখীন হন।

এসব ক্ষেত্রে বিদেশ ফেরত শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে শ্রম পরিস্থিতি আরও সুসংহত করা যেতে পারে। এছাড়া, অবকাঠামো নির্মাণ সংক্রান্ত কাজ, অটোমোবাইল ও ডিজিটাল খাতের কাজে বিদেশে অধিক চাহিদা থাকায়, তাদের এসব কাজ সংশ্লিষ্ট প্রশিক্ষণ প্রদান করার ব্যাপারে নজর দেওয়া যেতে পারে। আমাদের নারী প্রবাসী শ্রমিকদের একটি বড় অংশই বিদেশে ঘরের কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তাদের যদি ভারতের কেরালা, ফিলিপাইন বা ভিয়েতনামের মতো নার্সিং কোর্স করানো হয়, অথবা দক্ষভাবে গৃহপরিচালনা সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ দেওয়া যায়, তবে তা তাদের জন্য যেমন মঙ্গলজনক হবে, তেমনি আমাদের সমতা ও অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনৈতিক কাঠামোও সুনিশ্চিত হবে।

অভিবাসীদের জন্য বৈশ্বিক মহামারি সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য সরকার কয়েক ধাপে নগদ সহায়তাসহ প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করলেও এর মাত্র পাঁচ শতাংশ প্রবাস ফেরত শ্রমিকরা কাজে লাগিয়েছেন। প্রবাসীদের সহায়তার প্রক্রিয়া ও ব্যবস্থাপনায় সুফল পেতে তাই নীতিনির্ধারকদের নতুন করে চিন্তাভাবনা করা জরুরি।  আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ তৈরির ব্যাপারে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কাকে উদাহরণ বিবেচনা করা যেতে পারে। এসব দেশ, বিদেশ ফেরত শ্রমিকদের নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদানসহ তাদের দক্ষ করে তুলতে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছে। সরকারি বিভিন্ন উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান একসঙ্গে এগিয়ে আসতে পারে।

করোনাকালীন ও পরবর্তী দেশের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে প্রশিক্ষিত দক্ষ জনবলের বিকল্প নেই। তাই, দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টি ও নতুন সম্ভাবনাময় বাজার অনুসন্ধান একসঙ্গে দুটোই চালিয়ে যেতে হবে। আর এটা করা সম্ভব হবে বহুমুখী অংশীদারিত্বের মাধ্যমেই।

লেখক: সিনিয়র সচিব, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, ‎গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।

/এসএএস/এমওএফ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সর্বশেষ

মধ্যরাতে দুই কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষে এক চালকের মৃত্যু

মধ্যরাতে দুই কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষে এক চালকের মৃত্যু

উড়োজাহাজে বোমার ভুয়া তথ্যটি আসে মালয়েশিয়ান নম্বরের ফোন কলে

উড়োজাহাজে বোমার ভুয়া তথ্যটি আসে মালয়েশিয়ান নম্বরের ফোন কলে

‘জরুরি অবতরণ করা’ বিদেশি উড়োজাহাজটিতে বোমা পাওয়া যায়নি

‘জরুরি অবতরণ করা’ বিদেশি উড়োজাহাজটিতে বোমা পাওয়া যায়নি

চিকিৎসার সুযোগ ‘উন্নত রাজনৈতিক সংস্কৃতি’র জন্য ইতিবাচক হবে

২৩ নাগরিকের বিবৃতিচিকিৎসার সুযোগ ‘উন্নত রাজনৈতিক সংস্কৃতি’র জন্য ইতিবাচক হবে

বোমা সন্দেহে শাহজালালে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ‘জরুরি অবতরণ’

বোমা সন্দেহে শাহজালালে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ‘জরুরি অবতরণ’

ভারত থেকে এলো ৪৫ লাখ ডোজ টিকা

ভারত থেকে এলো ৪৫ লাখ ডোজ টিকা

খিলগাঁওয়ে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

খিলগাঁওয়ে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

দরিদ্রদের পাশে দাঁড়ান: ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী

দরিদ্রদের পাশে দাঁড়ান: ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী

'ওমিক্রন সন্দেহে বাড়িতে লাল পতাকা অমানবিক, অনৈতিক'

'ওমিক্রন সন্দেহে বাড়িতে লাল পতাকা অমানবিক, অনৈতিক'

জানুয়ারির মধ্যেই প্রাপ্তবয়স্ক সবাইকে বুস্টার ডোজ দেবে যুক্তরাজ্য

জানুয়ারির মধ্যেই প্রাপ্তবয়স্ক সবাইকে বুস্টার ডোজ দেবে যুক্তরাজ্য

২৪ দিনে কোটি টাকা নিয়ে উধাও

২৪ দিনে কোটি টাকা নিয়ে উধাও

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের কথা বলে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে মামলা

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের কথা বলে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে মামলা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune