X
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

মেয়েদের ছেলে বন্ধু!

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৭:৪৫

রেজানুর রহমান আমাদের সময়ে পরিবারের মধ্যে ‘সান্ধ্য আইন’ নামে অলিখিত একটি আইন ছিল। পরিবারের ছেলেমেয়েদের এই আইন মেনে চলতে হতো। কী ছেলে কী মেয়ে, দু’জনকেই এই আইন মানতে হতো। সন্ধ্যার পরই পড়ার টেবিলে বসে যাও। ক্লাসের পড়া তৈরি করো। রাতের খাবার খেয়ে ঘুমাতে যাও। এমন নয় যে বাবা-মায়েরা ছেলেমেয়েদের বাধ্য করতো সন্ধ্যার পর বাসায় ফিরতে। ছেলেমেয়েরাই নিজের গরজে সন্ধ্যার আগেই বাসায় ফিরতো। না ফিরে তো উপায় ছিল না। সন্ধ্যার পর করার তো কিছু থাকতো না। সবাই যার যার পড়ার টেবিলে বসে যেতো। কাজেই আড্ডা দেওয়ার লোক কোথায়? ফলে ঘরের টানেই ছুটতো সবাই!

আজকের দিনে এই একই আইন যদি কার্যকর করতে চায় কোনও পরিবার সেটা কি সম্ভব? 'সন্ধ্যার আগেই বাসায় ফিরবি'- একথা বললেই কী ছেলেমেয়েরা শুনবে? এখন তো সন্ধ্যার পরই সবকিছু জমে ওঠে। কোচিং ক্লাস, সন্ধ্যার পর। ভার্সিটির ক্লাস, সন্ধ্যার পর। পারিবারিক আড্ডা, আচার অনুষ্ঠান, তাও সন্ধ্যার পর। বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা, তাও সন্ধ্যার পর। গানের ক্লাস, নাটকের মহড়া, তাও সন্ধ্যার পর। কাজেই সন্ধ্যার আগেই বাসায় ফিরিস, এটা এখন কথার কথা! বাস্তবে যে কথার কোনও মূল্য নেই। তাই বলে আমরা কি দিনে দিনে মূল্যহীন হয়ে যাচ্ছি? পরিবারকে কি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছি? সম্প্রতি এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনা আবারও অনেক প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। পত্রিকার খবরে প্রকাশ, টানা ৩৩ ঘণ্টা পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল মেয়েটি। এক বিকেলে ছেলেবন্ধুর স্কুটিতে চেপে বাসা থেকে বেরিয়েছিলেন ওই ছাত্রী। দিনটি ছিল বৃহস্পতিবার। সেদিন তো বটেই, শুক্রবারও মেয়ের কোনও খোঁজ পাচ্ছিলেন না বাবা-মা। শনিবার সকালে বাবা-মা খবর পান তাদের মেয়েকে একটি হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। কী ভয়াবহ দুঃসংবাদ। মেয়েটি তার বন্ধুর স্কুটিতে চেপে বাসা থেকে বেরিয়ে গিয়েছিল বেশ হাসি-খুশি মন নিয়ে। অথচ ওই বন্ধুই নাকি তার অন্য সহপাঠীসহ মেয়েটিকে মদপান করিয়ে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ উঠেছে। মারাত্মক অসুস্থ অবস্থায় মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে মেয়েটিকে বাঁচানো যায়নি।

কী এক অসহায় সময় অতিক্রম করছি আমরা? বিশ্বাস কি তাহলে উঠে গেলো? প্রতিটি মানুষের জীবনে বন্ধুর ভূমিকা অপরিসীম। একজন ভালো বন্ধু আপনার জীবনকে পজিটিভ অর্থে বদলে দিতে পারে। কিন্তু বন্ধুর মুখোশ পরা এসব কী দেখছি আমরা? মানুষ, নাকি জানোয়ার? কলাবাগানের সেই স্কুলছাত্রীর লোমহর্ষক মৃত্যুর ঘটনা এখনও অনেকের মন থেকে মুছে যায়নি। দুটি ঘটনা প্রায় একই রকম। কলাবাগানে স্কুলছাত্রীকেও একইভাবে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেছে বন্ধুরূপী কয়েকজন জানোয়ার। বন্ধু কীভাবে হয় জানোয়ার? আসলে এরা বন্ধু নয়। বন্ধুর পরিচয়ে মুখোশধারী শয়তান। সময় এসেছে মুখোশধারী বন্ধুকে শনাক্ত করার।

সেটা কীভাবে সম্ভব? সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের এই বিস্ময়কর যুগে বন্ধু খুঁজে নেওয়া খুবই সহজ। ফেসবুকে সকালেই হয়তো বন্ধুত্ব হলো কারও সাথে। দুপুরেই তার সঙ্গে শুরু হলো কত যে কথা... মিষ্টি কথায় মিষ্টি সম্পর্কের সূত্রপাত্র। কয়েকদিনেই ‘তোমাকে ছাড়া আমি বাঁচবো না’ এমন নির্ভরতার সম্পর্ক তৈরি হয়ে গেলো। তারপর শুরু হলো ডেটিং। আহা! জীবন যে কত সুন্দর। কিন্তু জীবনের এই উপলব্ধিতে যখন টান পড়ে, প্রতারণার জাল যখন স্পষ্ট হয় চোখের সামনে, তখন আর করার কিছুই থাকে না।

গবেষণায় দেখা গেছে, মেয়েরাই এই প্রতারণার জালে বেশি আটকে যাচ্ছে। এর একটাই কারণ, ব্যক্তিস্বাধীনতা ও পারিবারিক অনুশাসন না মানা! বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রে মেয়েদের উচিত একটু সাবধান ও সতর্ক থাকা। ইদানীং মেয়েদের অনেকের মধ্যে এমন ভাবনার জন্ম হচ্ছে যে, ছেলেরা গভীর রাতে বন্ধুদের নিয়ে হইচই করতে পারলে মেয়েরা কেন পারবে না? ব্যক্তিস্বাধীনতায় আচ্ছন্ন অনেক মেয়ে অবাধ মেলামেশাকে তার অধিকার ভাবছে। নারী-পুরুষের অধিকার নিয়ে আমি কিছু বলতে চাই না। আধুনিক এই সময়ে পুরুষের পাশাপাশি নারীরও সমঅধিকার প্রয়োজন। নারীকে ঘরে বন্দি রেখে দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা এগিয়ে নেওয়া যাবে না। কিন্তু নারীর উচিত তার নিরাপত্তার বিষয়ে অধিকমাত্রায় সচেতন থাকা। নারীদের কেউ যদি ভাবেন পুরুষ তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে সেটা ভুল। এই ভুলের কারণেই নারীকে তার মাশুল দিতে হচ্ছে।

তাহলে আমাদের কী করা উচিত? মেয়েদের উচিত বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রে আরও সাবধানী হওয়া। সম্পর্ক তৈরির ক্ষেত্রে ‘শরীর’ যখন মুখ্য হয় তখন সে সম্পর্ক টেকে না। ছেলেদের মধ্যে অনেকেই আছে ‘শরীর পাবার জন্য' মেয়েদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করে। এমন বন্ধুত্বের হাতছানিতে দুর্বল না হওয়াই ভালো। আবার অনেক মেয়ে আছে উচ্ছৃঙ্খল জীবনাচরণের সঙ্গী করতে ছেলেদের বন্ধু বানায়। এমন সম্পর্কের ক্ষেত্রে ছেলেদের উচিত সাবধান থাকা। মনে রাখতে হবে, ‘বন্ধুত্ব’ অনেক পবিত্র সম্পর্ক। জীবনে একজন ভালো বন্ধুর ভূমিকা অনেক। আজ যারা সমাজে প্রতিষ্ঠিত, যাদের জীবন আমাদের জন্য অনুকরণীয়, তাদের সবার ক্ষেত্রেই কোনও না কোনও ভালো বন্ধুর ভূমিকা ছিল অনেক বেশি।

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম বলেছেন, এই যে আমাদের সমাজে এত ধর্ষণসহ অনৈতিক ঘটনা ঘটছে, তার পিছনে বাবা-মায়ের দায়িত্বহীনতা অনেক। কথা সত্য। সকল বাবা-মায়ের উদ্দেশে আবারও একটি পুরনো প্রশ্ন রাখতে চাই। ‘জানেন কী আপনার প্রিয় সন্তান প্রতিদিন কোথায় যায়? কার সঙ্গে মিশে? তার বন্ধু কারা? জানেন কী?

একই সঙ্গে প্রিয় সন্তানদের প্রতিও একটি ছোট্ট জিজ্ঞাসা- যে তোমার বন্ধু বা বান্ধবী তাকে কতটুকু চেনো? কতটুকু জানো? সম্পর্ক তৈরির ক্ষেত্রে আবেগ নয় বাস্তবতাকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত। মনে রেখো, একজন ভালো বন্ধু তোমাকে সৎ পথের ঠিকানা দেবে। কিন্তু দুষ্ট বন্ধু কখনও তোমার মঙ্গল চাইবে না। ভালো পথের ঠিকানাও দেবে না। কাজেই বন্ধু নির্বাচনে সাবধানী হও!

লেখক: কথাসাহিত্যিক, নাট্যকার, সম্পাদক- আনন্দ আলো।

/এসএএস/এমওএফ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সম্পর্কিত

পরীমণির একটি প্রশ্ন!

পরীমণির একটি প্রশ্ন!

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সময় মতো খুলবে তো?

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সময় মতো খুলবে তো?

রোজিনা কি কারও আক্রোশের শিকার?

রোজিনা কি কারও আক্রোশের শিকার?

করোনার লজ্জা পাওয়া উচিত

করোনার লজ্জা পাওয়া উচিত

হুজুরের শিক্ষা বলো না মিথ্যা...

হুজুরের শিক্ষা বলো না মিথ্যা...

ব্রাহ্মণবাড়িয়া কি বিচ্ছিন্ন কোনও দ্বীপ?

ব্রাহ্মণবাড়িয়া কি বিচ্ছিন্ন কোনও দ্বীপ?

তরুণদের বিভ্রান্ত করবেন না, প্লিজ...

তরুণদের বিভ্রান্ত করবেন না, প্লিজ...

মেলায় যাচ্ছি, বিয়েতে যাচ্ছি, শুধু যাচ্ছি না স্কুলে...

মেলায় যাচ্ছি, বিয়েতে যাচ্ছি, শুধু যাচ্ছি না স্কুলে...

যতটুকু জানি ততটুকুই কি মানি?

যতটুকু জানি ততটুকুই কি মানি?

করোনার যুগেও জনসমুদ্র!

করোনার যুগেও জনসমুদ্র!

আজ ভালোবাসার জন্মদিন

আজ ভালোবাসার জন্মদিন

ভুল মানুষের ডাকে ভুল পথে...

ভুল মানুষের ডাকে ভুল পথে...

সর্বশেষ

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

ইউরোর শেষ ষোলোয় কারা দেখে নিন

ইউরোর শেষ ষোলোয় কারা দেখে নিন

বাড়িতে হামলার প্রতিবাদে সড়কে ওবায়দুল কাদেরের দুই বোন

বাড়িতে হামলার প্রতিবাদে সড়কে ওবায়দুল কাদেরের দুই বোন

শত বছরের বোতল বন্দি চিঠিতে কী লেখা ছিলো?

শত বছরের বোতল বন্দি চিঠিতে কী লেখা ছিলো?

এইচটি ইমামের ছেলে এমপি তানভিরের নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা

এইচটি ইমামের ছেলে এমপি তানভিরের নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা

দেশের উত্তরাঞ্চলে গড়ে উঠবে গ্যাসভিত্তিক শিল্প

দেশের উত্তরাঞ্চলে গড়ে উঠবে গ্যাসভিত্তিক শিল্প

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

‘উত্তপ্ত’ ম্যাচে শেষ মুহূর্তের গোলে জিতলো ব্রাজিল

‘উত্তপ্ত’ ম্যাচে শেষ মুহূর্তের গোলে জিতলো ব্রাজিল

আফগানিস্তানে আর সেনা পাঠাবে না তুরস্ক

আফগানিস্তানে আর সেনা পাঠাবে না তুরস্ক

লায়নদের অভিনন্দন জানালেন বঙ্গবন্ধু

লায়নদের অভিনন্দন জানালেন বঙ্গবন্ধু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune