X
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২
২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ধ্যানের ওপর ভ্যাট নয়

সালেক উদ্দিন
১৮ জুন ২০২২, ১৯:৪৩আপডেট : ১৮ জুন ২০২২, ১৯:৪৩

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হঠাৎ করেই বেশ প্রচার পাচ্ছে একটি গানের স্থায়ীর অংশ। গীতিকাব্য লিখি বলেই হয়তো ভালো বিষয়ের ওপর ভালো কথায়, ভালো সুরের মিশ্রণ হলে শত জরুরি কাজ ছেড়ে সেই গানটি শুনি এবং অনুভব করি। সত্যিকার অর্থে এমন একটি বৈষয়িক অতি জরুরি কাজের মাঝে এই গানটি কানে ভেসে এলো আমার এবং সত্যিই আমি আবেগ আপ্লুত হলাম। গানের কথা লিখেছেন দেলোয়ার আরজুদা শরফ, সুর করেছেন জাহিদ বাশার পংকজ এবং কণ্ঠ দিয়েছেন মোহনা।

গানের কথাগুলো এ রকম- ধ্যানের ওপর কোনও ভ্যাট নয়/ ধ্যানি মানুষ জ্ঞানী-গুণী হয়/নিমগ্ন চিত্তে সত্যের বৃত্তে করি বিচরণ/ ভেতর থেকে হয় আত্মজাগরণ/  No VAT on meditation।

গানটি শুনে বুঝতে আর বাকি রইলো না এবারও মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বাজেটে মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। এবারও শব্দটি বললাম এ কারণেই যে এর আগেও দু-তিনটি বাজেটে মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছিল এবং চুলচেরা বিশ্লেষণের পর তা উঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট প্রস্তাবের অর্থই হলো এখন থেকে মেডিটেশনের শেখা ও চর্চার কার্যক্রমে অংশগ্রহণের জন্য ভ্যাট বা অতিরিক্ত অর্থ দিতে হবে। এতে সাধারণ মানুষের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং মেডিটেশনের মাধ্যমে দেশের মানুষ শারীরিক, মানসিক, নৈতিক ও আত্মিকভাবে উপকৃত হতে পারতো– তা থেকে তারা বঞ্চিত হবে।

ইতোপূর্বে মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব হলে- এটা যে ঠিক নয়, সে বিষয়ে কিছু যুক্তি আমার লিখনীতে বারবার তুলে ধরার চেষ্টা করেছিলাম।  বাংলা ট্রিবিউনেও ‘শিক্ষা ও মেডিটেশনকে ভ্যাটমুক্ত রাখুন’ মর্মে ২০১৬ সালের  ১৪ জুন আমার একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছিল।

বাংলাদেশের-২০১৫-১৬ অর্থ বাজেটে মেডিটেশন সেবার ওপর ভ্যাট আরোপের যৌক্তিকতা পর্যালোচনা করে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছিল। সে সময়ে প্রত্যাহারের কারণ হিসেবে মাননীয় অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন যে মেডিটেশন সেবা গ্রহণ করে হতাশাগ্রস্ত অনেক মানসিক ও শরীরের ব্যাধিগ্রস্ত  মানুষ মুক্তির প্রয়াস পায়। সে কারণে মেডিটেশন সেবার ওপর প্রযোজ্য ভ্যাট প্রত্যাহারের প্রস্তাব করা হলো। এর পরবর্তী অর্থ বাজেটে পুনরায় মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয় এবং যৌক্তিকতা বিবেচনা করে যথারীতি তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

এ বছরের অর্থ বাজেটে মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। জানি না এটা এবারও প্রত্যাহার হবে নাকি মেডিটেশনের ওপর ভ্যাটের ভূত চেপে বসবে!

মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবি রাখে বলে আমরা বিশ্বাস করি। কারণ, মেডিটেশন হচ্ছে মনের ব্যায়াম। সচেতনভাবে দেহ মন ও মস্তিষ্ককে শিথিল করার প্রক্রিয়া। এতে মানুষের মনোযোগ সচেতনতা ও সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পায়। মনের জট খুলে যায়। হতাশা ও নেতিবাচকতা দূর করে মানুষকে ইতিবাচক করে গড়ে তোলে মেডিটেশন। শুধু তাই নয়, টেনশনের কারণে মানবদেহে যে শতকরা ৭৫ ভাগ রোগ হয় তা মেডিটেশন নিরাময় করার সক্ষমতা রাখে বলে বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি পেয়েছে। হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, অনিদ্রা ইত্যাদি মারাত্মক রোগ থেকে মানুষকে মুক্ত রাখার মুখ্য মাধ্যম হিসেবে মেডিটেশনকে বিবেচনা করা হয়। যার জন্য পৃথিবীর বহু দেশে মেডিটেশনকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের অংশ হিসেবে ধরা হয়ে থাকে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ মেডিটেশনের অপরিহার্যতা বিবেচনা করে এর সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। ব্রিটিশ পার্লামেন্ট ২০১১ সালে মেডিটেশনের ওপর থেকে ভ্যাট প্রত্যাহার করে নেয় এবং মেডিটেশন প্রশিক্ষণের জন্য ১০ মিলিয়ন পাউন্ড বরাদ্দের প্রস্তাব পেশ করা হয় তাদের পার্লামেন্টে। ইংল্যান্ডের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস মেডিটেশনকে মূল ধারার চিকিৎসা ব্যবস্থার অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ভারত সরকার মেডিটেশনের ওপর পূর্বে আরোপিত ভ্যাট স্থায়ীভাবে প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট শুধু আমাদের দেশেই নয়, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছিল এবং বিভিন্ন দেশ থেকে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। মেডিটেশন কার্যক্রম থেকে ভ্যাট ট্যাক্স পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ যখন প্রত্যাহার করে  নিয়েছে বা নিচ্ছে তখন আমাদের অর্থ বাজেটে মেডিটেশনের ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রস্তাবিত এই ভ্যাট স্থায়ীভাবে অব্যাহতি প্রদান করা উচিত বলে আমরা মনে করি।

মেডিটেশনের ওপর প্রস্তাবিত ভ্যাট প্রত্যাহারই শেষ কথা নয় বরং সারা দেশে মেডিটেশন কার্যক্রম ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য সরকারি উদ্যোগ অত্যাবশ্যক বলে মনে করছি। দেশে বর্তমানে যারা মেডিটেশন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তাদের অগ্রণী ভূমিকার জন্য পুরস্কৃত করা উচিত, যাতে তারা এই সেবাকে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পারে। উপহার দিতে পারে সুস্থ প্রশান্ত অসাম্প্রদায়িক প্রত্যয়ী জনশক্তি, যা জাতীয় সমৃদ্ধির জন্য এখন বড় বেশি প্রয়োজন।

সবশেষে প্রত্যাশা করছি মেডিটেশন যেহেতু একটি পরিপূরক স্বাস্থ্যসেবা তাই এই কার্যক্রমকে সমাজকল্যাণ কাজ হিসেবে বিবেচনা করা হোক এবং ভ্যাট আদায় করা হোক ভ্যাটের জন্য প্রযোজ্য লাভজনক খাত থেকে; মেডিটেশনের মতো সেবামূলক কার্যক্রম থেকে নয়।

লেখক: কথাসাহিত্যিক

/এসএএস/এমওএফ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
করোনায় একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৬
করোনায় একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৬
কিস্তিতে ওয়ালটনের পণ্য ক্রয়কারীদের জন্য সুরক্ষা নীতি
কিস্তিতে ওয়ালটনের পণ্য ক্রয়কারীদের জন্য সুরক্ষা নীতি
রাজধানীতে ডিএমপির বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ২৫৫
রাজধানীতে ডিএমপির বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ২৫৫
‘মালয়েশিয়া থেকে বাণিজ্য-রেমিট্যান্স বাড়ার সুযোগ আছে’
‘মালয়েশিয়া থেকে বাণিজ্য-রেমিট্যান্স বাড়ার সুযোগ আছে’
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ