X
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২
১৭ আশ্বিন ১৪২৯

রাজনৈতিক দলের বিদেশি ‘দোকান’ বন্ধ হোক

আনিস আলমগীর
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:০৪আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:০৪

আনিস আলমগীর বাংলাদেশের প্রথম সারির রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে প্রায় সবার বিদেশে রাজনৈতিক শাখা আছে। এসব শাখা রাজনৈতিক দলের গঠনতন্ত্র অনুসারে বেআইনি তবে কেন্দ্রীয় নেতাদের সম্মতিতেই চলছে। তারা বিদেশ শাখার অনুষ্ঠানে অংশ নেন, তাদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়। যে কথাটা অনেকে হয়তো জানেন না, সরকারি সফর না হলে নেতাদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থাও করেন ওইসব শাখার নেতাকর্মীরা। সরকারি-বেসরকারি যেকোনও সফরে তাদের ব্যাগভর্তি উপহার সামগ্রী এবং টাকা-পয়সা দেয় প্রবাসী রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা।

মূল দলের নেতারা ছাড়াও দলের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতারাও একই আদর-যত্ন পেয়ে থাকেন। অঙ্গদলের নেতারা বরং কেন্দ্রীয় নেতাদের থেকে বেশি বিদেশ ভ্রমণ করেন। যেখানে যান সংগঠনের শাখা খুলে আসেন, অনুমোদন দিয়ে আসেন। সেসব কমিটিতে স্থান পেতে স্থানীয়ভাবে চলে তীব্র প্রতিযোগিতা। বলার অপেক্ষা রাখে না, যাদের টাকা-পয়সা খরচ করার সামর্থ্য বেশি তারা উঁচু পদে আসীন হন, শিক্ষাগত যোগ্যতা, রাজনৈতিক গুণাবলি এখানে কোনও বিষয় না।

রাজনৈতিক দলের বিদেশ শাখা খোলার এই কালচার কখন থেকে চালু হয়েছে আমি জানি না। তবে এ ধরনের শাখার সঙ্গে আমি প্রথম পরিচিত হই ১৯৯৯ সালে নিউ ইয়র্কে।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন কাভার করার জন্য গিয়েছিলাম। যাওয়ার প্রধান কারণ ছিল সেবার জাতিসংঘ কর্তৃক বাংলাদেশকে স্বীকৃতিদানের ২৫ বছরপূর্তির অনুষ্ঠান ছিল জাতিসংঘ সদর দফতরে। ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল এবং ২৫ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘে প্রথমবারের মতো ভাষণ দিয়েছিলেন। এসব স্মরণ করেই ছিল অনুষ্ঠানমালা।

আমি সরকারি সফরসঙ্গী ছিলাম না। আমার পত্রিকা আজকের কাগজের পক্ষ থেকে সেটা কাভার করতে যাই। একটি বাড়তি সুবিধা পেয়েছিলাম যে বেসরকারিভাবে গেলেও প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী একই বিমানে যেতে পেরেছি। প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গীর বাইরে আমার মতো আরও কিছু যাত্রীও সেখানে ছিলেন, যাদের সঙ্গে মাঝপথে প্রধানমন্ত্রী ঘুরে-ঘুরে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। জানি না নিরাপত্তার কথা ভেবে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানে এখন বেসরকারি যাত্রী কতটা স্থান পায় এবং তিনি আগের মতো বেসরকারি যাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন কিনা।

যাক, ব্রাসেলসে বিরতি দিয়ে আমরা যখন নিউ ইয়র্ক পৌঁছি, প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানানোর জন্য ব্যানার নিয়ে আওয়ামী লীগ যুক্তরাষ্ট্র শাখার নেতারা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। পরের কয়েক দিনে তাদের সরব উপস্থিতি দেখতে পাই বিভিন্ন ভেন্যুতে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর অবস্থানস্থল হোটেলের লবিতে-বাইরে আওয়ামী লীগ কর্মীরা ভিড় করে থাকতো। দলীয় প্রধানকে তারা একটি হোটেলে সংবর্ধনা দিয়েছিল, যেখানে মূল অংশজুড়ে ছিল গৎবাধা ‘তেল প্রদান’। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যুবলীগের কিছু নেতাও গিয়েছিলেন, তাদের নিয়েও ভিড় এবং উপহার দেওয়ার ধুম লেগে ছিল।

সেই সময় প্রায় সব দলের স্থানীয় শাখার কথা জানতে পারি। জাসদ (রব) তখন ক্ষমতার অংশীদার ছিল। আশ্চর্য হই তাদেরও মোটামুটি জনবলের কমিটি সেখানে আছে। স্থানীয় বাংলা সাপ্তাহিকগুলোতে নানা দলের নেতাদের কার্যক্রম ছাপা হতো। শুধু রাজনৈতিক দল নয়, বিভিন্ন জেলা, উপজেলার শাখা, এমনকি হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের শাখাও দেখতে পাই। বিএনপির সমাবেশ দেখতে পাই জাতিসংঘের অদূরে ‘খোয়াড়ে’র মতো পুলিশি বেষ্টনীতে ঘেরা একটি জায়গায়, যেখানে তারা সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে স্লোগান দিচ্ছিল।

প্রথমবার আমি প্রায় দুই মাস ছিলাম। তখনকার বাংলাদেশি জনসমাজ এবং অন্যান্য দেশের জনসমাজের চিত্র দেখার সুযোগ হয়েছিল আমার। আমি স্থানীয় সাপ্তাহিক ‘বাংলা পত্রিকা’র সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে রাজনৈতিক দলের এসব ‘দোকান’ বন্ধ করার অনুরোধ করেছিলাম, যাতে বাংলাদেশিরা মূলধারার রাজনীতিতে আগ্রহী হয়। আর সেটা হলে বাংলাদেশের মান বিদেশে বাড়তো, যখন ইন্ডিয়ান-আমেরিকানদের উদাহরণ আমাদের চোখের সামনেই ছিল। অবশ্য নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার পর অনেক স্থানে ভারতীয়রাও তাকে কালো পতাকা দেখাচ্ছে। গত ১৫ আগস্ট ভারতের জাতীয় দিবসে ‘রিজাইন মোদি’ ব্যানার টানিয়েছে লন্ডনসহ অনেক শহরে।

দুর্ভাগ্য, এর পরের বার ২০০৪ সালে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের আমন্ত্রণে আমেরিকা সফরে গিয়েও দেখেছি বাংলাদেশিদের এই কালচার অব্যাহত আছে। এখন নাকি তার পরিধি আরও বেড়েছে। জাতিসংঘের ৭৬তম অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্কে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পত্রিকায় দেখলাম এরমধ্যেই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় নিউ ইয়র্কের বাংলাদেশি অধ্যুষিত জ্যাকসন হাইটস এলাকা। ১৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সফরের পক্ষে ও বিপক্ষে দিনভর কর্মসূচি চলার সময় এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় দফায় দফায় হামলা, পাল্টা হামলা, ধাক্কাধাক্কি আর কিল-ঘুসির ঘটনা ঘটেছে। একপর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করে। তবে উভয় পক্ষই পুলিশ বেষ্টনীর মধ্যে আক্রমণাত্মক স্লোগান দিতে থাকে। এর ফলে সন্ধ্যা সাড়ে ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত পুরো এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধস্তাধস্তি দেখে জ্যাকসন হাইটস এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এই অপ্রীতিকর ঘটনায় এলাকার বাসিন্দারা ভয়ে পুলিশকে ফোন করেন।

আমার সাংবাদিক বন্ধু প্রথম আলোর নিউ ইয়র্ক সংস্করণের সম্পাদক ইব্রাহিম চৌধুরীর মতে,  ‘জ্যাকসন হাইটসের সাদা বাসিন্দারা ওই এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছে। তারা বাংলাদেশিদের হৈ-হল্লা, মারামারি কালচারে অভ্যস্ত না। ৭৩ স্ট্রিটের হালচাল দেখে এমনকি এই প্রজন্মের বাংলাদেশিরাও ওই এলাকায় যেতে চায় না। ২০ মাইলেরও বেশি দূরে নিঝুম রাতে ম্যানহাটনের হোটেলে যখন প্রধানমন্ত্রী ঘুমাচ্ছেন তখন এখানে ট্যাক্সি না চালিয়ে, রেস্টুরেন্টের কাজে না গিয়ে সরকারি দলের সমর্থকরা কী সুখে কয়দিন ধরে জমায়েত করছে তারা জানে! অনেক নারী সমর্থকরাও আছে এই ভিড়ে। তবে বিএনপি রাতজাগা কর্মসূচিতে নেই, তারা ক্ষমতার ভাগ পাওয়ার কোনও আশা দেখে না।’

শনিবার যখন বাংলাদেশিরা ওই এলাকায় মারামারি করছে সেদিনই খন্দকার আবদুল্লাহ নামের এই প্রজন্মের একজন পুলিশ কর্মকর্তা কমান্ডিং অফিসার হয়েছেন নিউ ইয়র্কে, ভবিষ্যতে তার পুলিশ কমিশনার হওয়ার সম্ভাবনা আছে ওই শহরে। শাহানা হানিফ নামে আরেকজন তরুণী মূলধারার রাজনীতিতে অংশ নিয়ে সিটি কাউন্সিল হতে যাচ্ছেন, সোমা সাইদ নামের আরেকজন হতে যাচ্ছেন সিভিল বিচারক।

আমেরিকার মূলধারার রাজনীতিতে বাংলাদেশিদের অবদান ক্ষীণ হলেও দ্বিতীয় প্রজন্মের অনেক স্কলার সুনাম কামাচ্ছেন অন্য সেক্টরে। তৃতীয় প্রজন্মও এগিয়ে আসছেন। কিছু দিন আগে বিখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিনে ৩০ বছরের কম বয়সী ৩০ উদ্যোক্তার তালিকায় স্থান পেয়েছেন (Forbes 30 Under 30 list) বাংলাদেশি নাবিল আলমগীর। তাকে নিয়ে আমেরিকান পত্রিকায় সংবাদ বেরিয়েছে। বাংলাদেশে ঢাকা ট্রিবিউন তার একটি সংবাদ প্রকাশ করেছে। নাবিলের ‘লাঞ্চবক্স’ নামের একটি অ্যাপ রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের লাভের মার্জিন বাড়িয়ে দিয়েছে। আগে একশ’ ডলারের অর্ডার থার্ডপার্টিকে দিয়ে কাস্টমারের বাসায় পৌঁছিয়ে যখন তাদের লাভ হতো ৫ ডলার, সেটা এখন হচ্ছে ২৫ ডলার। আর করোনাকালে নানা চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও, তার কোম্পানির ২০২০ সালের রাজস্ব আয় সাতগুণ বেড়েছে।

বাংলাদেশি-আমেরিকানদের এ ধরনের সাফল্যের খবর কিংবা যেকোনও দেশ থেকে প্রবাসীদের সাফল্যের খবর বাংলাদেশে এলে আমরা অভিভূত হয়ে পড়ি। আমাদের গর্ব হয়। অথচ আমাদের পড়তে হয় তাদের নেতিবাচক খবর, বিদেশে গিয়েও দেশি রাজনীতি নিয়ে মারামারির খবর। আমি বিশ্বাস করি, দল-মত নির্বিশেষে প্রবাসীদের এসব কর্মকাণ্ড দেশের মানুষ ভালো চোখে দেখে না। এই সংক্রান্ত খবরগুলোর নিচে মানুষের মতামত দেখলেই প্রবাসীরা বুঝতে পারবেন সেটা।

আমাদের দেশটি ছোট। জাতিসংঘের পূর্বাভাস অনুসারে এই দশকের শেষে, মানে ২০৩০ সালে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের অষ্টম জনবহুল রাষ্ট্র এবং আমাদের প্রতিবেশী ভারত হবে বিশ্বের প্রধান জনবহুল রাষ্ট্র। এত সংখ্যক মানুষের জায়গা দেশের মাটিতে হবে না। এই জনগণকে জনশক্তিতে রূপান্তরিত করে বিদেশে পাঠাতে হবে। আর এই দায়িত্ব পালনে সরকার এবং সরকারি দলের ভূমিকাই বেশি। সরকারের কাছ থেকে দেশে ব্যাংক-বিমা খোলার লাইসেন্স, পাওয়ার প্ল্যান্ট বা কোনও বিদেশি টেন্ডারের কমিশন পায় বলেই এরা বিদেশে বসেও দেশের রাজনীতির দোকান খুলে বসে আছে। আগের সরকার আমলেও তা-ই হয়েছে। এসব প্রবাসী নেতা দেশি দুর্নীতিবাজ নেতাদের তাদের ব্যবসায়িক পার্টনার দেখিয়ে দেশের টাকা বিদেশে পাচার করতে সহায়তা করে আসছে। তাই সব দলের উচিত প্রবাসীদের দেশি রাজনীতিতে যুক্ত না করা এবং শুধু কাগজে-কলমে নয়, বাস্তবে রাজনৈতিক দলগুলোর ‘বিদেশি দোকান’ বন্ধ করা।

লেখক: সাংবাদিক ও কলামিস্ট, ইরাক ও আফগান যুদ্ধ-সংবাদ সংগ্রহের জন্য খ্যাত।
[email protected]

/এসএএস/এমওএফ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
হেফাজতে ইসলাম নেতা মাওলানা জুনায়েদের জামিন
হেফাজতে ইসলাম নেতা মাওলানা জুনায়েদের জামিন
রাতে ভক্তদের ভিড় পূজামণ্ডপে
রাতে ভক্তদের ভিড় পূজামণ্ডপে
৭ ম্যাচের সিরিজ ইংল্যান্ডের
৭ ম্যাচের সিরিজ ইংল্যান্ডের
ঘটনাবহুল ম্যাচ জিতে সিরিজ ভারতের
ঘটনাবহুল ম্যাচ জিতে সিরিজ ভারতের
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ