X
শনিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২২, ৭ মাঘ ১৪২৮
সেকশনস

শিশুরা হোক সর্বোচ্চ সুবিধাভোগী

আপডেট : ২০ নভেম্বর ২০২১, ১৬:৫৫
তুষার আবদুল্লাহ এফডিসি গেট পেরিয়ে এসে বাহন দাঁড়ালো। রেলগেট পড়েছে। আভাস পাওয়া যাচ্ছে সোনারগাঁও সিগন্যালের দীর্ঘ জটের। দুটি মুখ হেসে গাড়ির জানালায় লুটোপুটি খেতে লাগলো। ওরা গাল লাগিয়ে রেখেছে জানালার কাচে। কাকলী প্রধান তাঁর ক্যামেরা দিয়ে ওদের পোট্রেট করার চেষ্টা করছেন। আমাকে বললেন, ‘দেখেছো কী সুন্দর! কেমন মায়াবী ওদের দুজনেরই মুখ’।

আমি তাকিয়ে দেখি দুজনেই সমবয়সী। ৭/৮ বছরের হবে। রাতে ভাত খাবে বলে কিছু টাকা চাচ্ছে। কাকলী ওদের সঙ্গে কথা বলছেন। আমি ওদের দিকে তাকিয়ে বলি, কেমন ফুটফুটে দুটি শিশু। হয়তো রেললাইন বা আশপাশের কোনও বস্তিতে থাকে। না হয় এদিকের কোনও ফুটপাতে ঘুমিয়ে রাত পাড়ি দেয়। এমন কত শিশুর সঙ্গেই তো প্রতিদিন দেখা হচ্ছে। আমার এবং কাকলীর সঙ্গে ঢাকার বিভিন্ন সিগন্যালে ফুল বা অন্য পণ্য বিক্রি করা শিশুদের সখ্য আছে।

কতবার বলেছি- চলো, পড়াবো। বাড়ির কাজ করানোর কোনও মতলব ছিল না। সেটাও খোলাসা করে বলেছি। আমাদের দুই একজন বন্ধুও ওদের এরকম অফার দিয়ে সাড়া পায়নি। কারণ? প্রথমত, জন্মমুহূর্তের পর থেকেই মুক্ত পরিবেশে ওদের বেড়ে ওঠা। বাবা কিংবা মায়ের কাজের সঙ্গে পথে থাকা। তাই মুক্ত পরিবেশ ছেড়ে কোনও শৃঙ্খলায় যেতে চায় না ওরা। ওদের একটি বড় অংশ পরিবারের ভরণপোষণের জোগান দেয়। আবার এই শিশুরাই ব্যবহৃত হয় মাদক, অস্ত্র কেনাবেচাসহ বিভিন্ন অপরাধে। যে দুই সতেজ মুখ আমরা দেখছি, ধীরে ধীরে তারা জড়িয়ে পড়বে কোনও না কোনও অপরাধের সঙ্গে। খুব কম অংশই যুক্ত হবে অপরাধমুক্ত রোজগারে। ওদের স্কুলে নেওয়ারও চেষ্টা হয়েছে বহুবার। চেষ্টা চলছে সরকারি বেসরকারিভাবে। কিন্তু যাদের নেওয়া যাচ্ছে সংখ্যার তুলনায় তা অতি নগণ্য।

পথে বেড়ে ওঠা এই শিশুদের সঙ্গে ঢাকা এবং সারাদেশেই যোগাযোগ আছে কারও কারও সঙ্গে। ওদের অনেকেই এখন তারুণ্যে প্রবেশ করেছে। মন খারাপ হয়, যখন দেখি ওরা ভালো নেই। অপরাধমূলক কাজ ও নেশায় জড়িয়ে গিয়ে এক প্রকার কারাগারে বসবাস ওদের। সেখান থেকে বের হতে পারছে না ওরা। যারা বের হতে পেরেছে, তারাও ফিরতে পারছে না কোনও স্বাভাবিক জীবনে। শুধু সামাজিক জীবন নয়, পারিবারিক জীবন থেকেও বিচ্ছিন্ন তারা। ভুগছে মানসিক রোগে। এখান থেকে তাদের বের করে নিয়ে আসারও কোনও উদ্যোগ নেই। আর এই সময়ে উদ্যোগ নিয়েও খুব একটা লাভ হবে মনে হয় না। কারণ, তাদের যে মনদৈহিক ক্ষয় হয়েছে তা এই সময়ে এসে আর পূরণ করার সক্ষমতা নেই আমাদের। এই শিশুদের অনেকেই কিশোর, তরুণ পর্যায়ে আত্মহননের পথ বেছে নিচ্ছে। তাদের এই অসহায়ত্ব আমাদের মনদারিদ্র্যের প্রমাণ দেয়।

আত্মহননের দুঃখবোধ এখন সমাজের সব শ্রেণিতেই ছড়িয়ে পড়েছে। মূল কারণ সমাজ ও পারিবারিক বিচ্ছিন্নতা। লেখাপড়ার চাপ। কাঙ্ক্ষিত বিষয়ে পড়তে না পারা। পড়ার সঙ্গে মিল রেখে কাজ না পাওয়া। কাজ চলে যাওয়া।

পরিবারের সদস্যদের মধ্যকার বিচ্ছিন্নতা। সাংস্কৃতিক ও সৃজনশীল কাজ থেকে শিশু, কিশোর ও তরুণদের দূরে রাখার কারণে শিশুকাল থেকেই তাদের মধ্যে বিষণ্নতা তৈরি হচ্ছে। এখন তো প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে পড়ছে সবাই। মোবাইল, অনলাইন আসক্তি, মাদকের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ার কারণেও শিশুরা কৈশোর, তারুণ্যে যাত্রা করছে অবসাদ নিয়ে। করোনাকাল সেই অবসাদ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা, বন্ধু, সহপাঠীদের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হওয়া যেমন এই অবসাদের কারণ, তেমনই পরিবারে বাবা, মা এবং উপার্জনক্ষম সদস্যের কাজ হারানোর প্রভাবও পড়ছে শিশু থেকে তরুণ সবার মাঝে।

শিশুদের প্রতি আমাদের যেমন যত্নবান হওয়ার দরকার ছিল, সেটা শুধু বাংলাদেশই নয়, পৃথিবীই পারেনি। পারেনি বলেই স্কুল থেকে ঝরে পড়ার সংখ্যা কমেনি; বরং বাড়ছে। শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ঊর্ধ্বমুখী। শিশু মৃত্যুর হার, বাল্যবিবাহ কমানো যাচ্ছে না। মুশকিল হলো, আমাদের ভাবা দরকার ছিল– দেশ এবং পৃথিবীর সবচেয়ে সুবিধাভোগী শ্রেণি হবে শিশুরা। এমনকি সমাজতান্ত্রিক দেশেও একটি শ্রেণিই বিশেষ সুবিধা পাবে, অগ্রসর হবে, সেই শ্রেণিটি হচ্ছে শিশু। আমরা যদি শিশুদের অগ্রাধিকার শ্রেণির বলে মর্যাদা দিতে পারি ভাবনায় ও কাজে, তবে আমার বিশ্বাস তখন তারুণ্যের হতাশা ও বিষণ্ন তার মেঘও কেটে যাবে।
 
লেখক: গণমাধ্যমকর্মী
/এসএএস/এমওএফ/
সম্পর্কিত
নারায়ণগঞ্জ: ইশতেহার হোক পর্যটনের
নারায়ণগঞ্জ: ইশতেহার হোক পর্যটনের
দুর্নীতি ও করোনামুক্ত হোক পৃথিবী
দুর্নীতি ও করোনামুক্ত হোক পৃথিবী
বিশ্বাস রাখি আপন সংস্কৃতিতে
বিশ্বাস রাখি আপন সংস্কৃতিতে
আসুক শুভ দিন
আসুক শুভ দিন

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

রায়েরবাজারে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত
রায়েরবাজারে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সশরীরে ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সশরীরে ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত
নারায়ণগঞ্জে গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার, অভিযুক্ত গ্রেফতার
নারায়ণগঞ্জে গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার, অভিযুক্ত গ্রেফতার
সেন্টমার্টিন দ্বীপের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ডিক্যাপ্রিওর অভিনন্দন
সেন্টমার্টিন দ্বীপের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ডিক্যাপ্রিওর অভিনন্দন
রংপুরে একদিনে শনাক্ত ১৬৪, আইসিইউতে ৮
রংপুরে একদিনে শনাক্ত ১৬৪, আইসিইউতে ৮
বিএড কোর্সে অনলাইনে ভর্তির আবেদন শুরু
বিএড কোর্সে অনলাইনে ভর্তির আবেদন শুরু
ফেনীতে অটোরিকশা চালককে পিটিয়ে হত্যা, গ্রেফতার ৩
ফেনীতে অটোরিকশা চালককে পিটিয়ে হত্যা, গ্রেফতার ৩
হয়ে গেল রাজ-পরীর গায়েহলুদ, শনিবার বিয়ে
হয়ে গেল রাজ-পরীর গায়েহলুদ, শনিবার বিয়ে
লন্ডনে জয়নুল আবেদীনকে ছাতক যুব সংস্থার সংবর্ধনা
লন্ডনে জয়নুল আবেদীনকে ছাতক যুব সংস্থার সংবর্ধনা
‘কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখেছেন, এখানে মানার কী আছে’
‘কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখেছেন, এখানে মানার কী আছে’
শেকৃবিতে সশরীরে ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত
শেকৃবিতে সশরীরে ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত
হাবিপ্রবির ক্লাস-পরীক্ষা চলবে অনলাইনে, খোলা থাকবে হল
হাবিপ্রবির ক্লাস-পরীক্ষা চলবে অনলাইনে, খোলা থাকবে হল
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2022 Bangla Tribune