X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

বাংলাদেশের ফ্লাইং স্টার্ট

আপডেট : ০৬ জানুয়ারি ২০২২, ২২:৫২

প্রভাষ আমিন ২০২২ সাল যেন বাংলাদেশের জন্য সৌভাগ্যের বারতা নিয়ে এসেছে। বছরের প্রথম দিনেই সৌভাগ্যের শুরুটা হয়েছে বাংলাদেশ থেকে অনেকদূরে নিউজিল্যান্ডের মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে। নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট শুরু হয় বছরের প্রথম দিন। বাংলাদেশ এর আগে কখনোই নিউজিল্যান্ডে টেস্ট জেতেনি। বাংলাদেশের জয়ের মাহাত্ম্য আরও বাড়বে, যখন জানবেন– গত ১১ বছরে উপমহাদেশের কোনও দল নিউজিল্যান্ডের মাটিতে জয় পায়নি। আর কোন নিউজিল্যান্ড? পূর্ণশক্তির টেস্ট চ্যাম্পিয়ন। যেখানে টেস্টে বাংলাদেশের অবস্থান নবম। দেশের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর নিউজিল্যান্ড সফরে আরেকটি বিপর্যয়ের জন্য সবাই মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলেন! পূর্ণশক্তির নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের মাটিতে বাংলাদেশ মান-ইজ্জত বাঁচালেই খুশি হতেন অনেকে। সেখানে বাংলাদেশ জিতে গেছে ৮ উইকেটে। তবে নিছক ৮ উইকেটের জয় বললে এর পুরো মাহাত্ম্য বোঝানো যাবে না। সাধারণত টেস্টে দিনে দিনে সেশনে সেশনে ম্যাচের রঙ বদলায়। সেখানে পাঁচ দিনই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশের হাতেই ছিল। বোলাররাই ম্যাচ জিতিয়েছেন। তবে ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তাও ছিল বিস্ময় জাগানিয়া। ম্যাচটি দেখার পর বাংলাদেশ টেস্ট খেলতে পারে না, সেই বদনাম আর কেউ দেবেন না আশা করি। জয়টি আরও গুরুত্ব পাওয়ার কারণ, এই টেস্টে বাংলাদেশের ভবিষ্যতের আসল ‘টেস্ট’ হয়েছে। বাংলাদেশের সেরা পারফরমার এবং স্বঘোষিত এক নম্বর পাণ্ডব সাকিব আল হাসান ছুটিতে। তামিম ইকবাল ইনজুরির কারণে দলে নেই। মাশরাফি অনেকদিন ধরেই দলের বাইরে। মাহমুদুল্লাহ সম্প্রতি অভিমানে টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছেন। পঞ্চপাণ্ডবের মধ্যে একমাত্র মুশফিক ছিলেন বটে, তবে দুই ইনিংসে তার অবদান ১২ আর অপরাজিত ৫। তার মানে এই জয় তারুণ্যের। বোলিংয়ে এবাদত, শরিফুল, মিরাজ আর ব্যাটিংয়ে মাহমুদুল হাসান, নাজমুল হোসেন, মুমিনুল হক ও লিটন দাসের দৃঢ়তায় এসেছে এই জয়, যা এক অদম্য টিম বাংলাদেশের ভবিষ্যতের ছবি আরও সুন্দর করে। কে কত রান করেছেন, তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, কে কত বল খেলেছেন। মাহমুদুল হাসান ৭৮ রান করেছেন ২২৮ বলে, মুমিনুল ৮৮ রান করেছেন ২৪৪ বলে। 

 

বাংলাদেশের জয় সবসময়ই আনন্দের। তবে বছরের শুরুতেই এমন একটি অসাধারণ জয় সমালোচনার তীরে বিদ্ধ ক্রিকেটারদের মনোবলকে চাঙা করবে। আর বাংলাদেশকে অনুপ্রাণিত করবে।

সুখবর শুধু ক্রিকেট মাঠেই নয়, এসেছে অর্থনীতির সূচকেও। ২০২১ ছিল নানান কারণে বাংলাদেশের মাইলফলক। মর্যাদা ও গৌরবের স্বাধীনতা ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীর পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে বছরটি পালিত হয়েছে। ২০২১ সালেই বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি পেয়েছে। এর ফলে অনেক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে বাংলাদেশকে। উন্নয়নশীল দেশ হলে অনেক সুবিধাই আর পাবে না বাংলাদেশ। সেই চ্যালেঞ্জে উতরে যেতে হলে বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে আরও সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। সেই চ্যালেঞ্জ আরও কঠিন করে দিয়েছে করোনা। দুই বছর ধরেই বিশ্বের আরও অনেক দেশের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিও গতি হারিয়েছে। কিন্তু নতুন বছরেই অর্থনীতির অন্তত তিনটি সূচকে এসেছে দারুণ স্বস্তির খবর। বছরের দ্বিতীয় দিনেই আসা তিনটি খবর আমাদের সামনের পথচলায় অনুপ্রেরণা জোগাবে। 

করোনার ধাক্কা সামলে রফতানিতে অগ্রগতি হচ্ছিল কয়েক মাস ধরেই। কিন্তু গত ডিসেম্বরে সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। ডিসেম্বরে রফতানি হয়েছে ৪৯০ কোটি ডলার বা ৪২ হাজার ১৪০ কোটি টাকার পণ্য। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনও এত বিপুল পরিমাণ রফতানি হয়নি। আগের রেকর্ডও টাটকা। গত অক্টোবরে সর্বোচ্চ ৪৭২ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি হয়েছিল। এটা ঠিক, রফতানির বড় অংশই এসেছে তৈরি পোশাক খাত থেকে। তৈরি পোশাকের পাশাপাশি বাংলাদেশ যদি রফতানি পণ্যে বৈচিত্র্য আনতে পারে এবং নতুন বাজার খুঁজে বের করতে পারে তাহলে ‘উন্নয়নশীল’ থাকার ফাঁদে আটকে যাওয়ার আশঙ্কা সত্যি নাও হতে পারে।

তৈরি পোশাকের পর বাংলাদেশের অর্থনীতির বড় খেলোয়াড় হলো রেমিট্যান্স। প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাঠানো অর্থে আমাদের বৈদেশিক মূদ্রার রিজার্ভে নতুন নতুন রেকর্ড হয়। করোনার শুরুর দিকে রেমিট্যান্সের ঢেউ লাগলেও পরে আবারও তা কমে যায়। এ কারণে কিছুটা শঙ্কাও তৈরি হয়েছিল। করোনার কারণে শ্রমিকদের বিদেশে যাওয়া কমে গিয়েছিল। কিন্তু ২০২১ সালের শেষ দিকে এই সমস্যাও কেটে যায়। বাংলাদেশের শ্রমিকদের জন্য মালয়েশিয়ার বাজার খুলে যাওয়ার খবর চাঞ্চল্য আনে এই খাতে। গত ডিসেম্বরে রেমিট্যান্স এসেছে ১৬৩ কোটি ডলার, যা নভেম্বরে ছিল ১৫৫ কোটি ডলার। যেখানে পিছিয়ে যাওয়ার শঙ্কা সেখানে এই অগ্রগতি বাংলাদেশের অর্থনীতিকে গতিশীল রাখবে নিঃসন্দেহে। রেমিট্যান্স খাতের অগ্রগতি ধরে রাখতে সরকার প্রণোদনা ২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২ দশমিক ৫ শতাংশ করেছে। 

এরপরের সুখবরটি এসেছে রাজস্ব খাত থেকে। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ। এ সময় শুল্ক-কর আদায় হয়েছে ১ লাখ ৫৭৩ কোটি টাকা। গতবছরের এই সময়ের সঙ্গে তুলনা করলে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ।

অন্য সূচকের সঙ্গে তুলনীয় হয়তো নয়। তবে নতুন বছরে শেয়ারবাজারেও নতুন হাওয়া লেগেছে। গত বছরের শুরুতে সূচকে দারুণ উল্লম্ফন ঘটলেও শেষটা ছিল মন্দার। কিন্তু নতুন বছরের প্রথম চার কার্যদিবসেই শেয়ারবাজারে সূচক বেড়েছে। সামগ্রিক অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানোর প্রভাবই হয়তো পড়েছে শেয়ারবাজারে।

সব মিলিয়ে বলা যায়, ২০২২ সালে বাংলাদেশের ফ্লাইং স্টার্ট হয়েছে। ‘মর্নিং শোজ দ্য ডে’ কথাটি যদি সত্যি হয়, বাংলাদেশের জন্য বছরটি দারুণ কাটবে। আমরা জানি, এ বছরেই বাংলাদেশের তিনটি মেগা প্রকল্প চালু হবে। পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল এবং কর্ণফুলী নদীতে বঙ্গবন্ধু টানেল চালু হলে তা অর্থনীতিতে দারুণ মোমেন্টাম তৈরি করতে পারে। সব ঠিক থাকলে ২০২২ হতে পারে বাংলাদেশের সৌভাগ্যের বছর।

লেখক: হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ

/এসএএস/জেএইচ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সাপের বিষ থেকে বাঁচতে ট্যাবলেট, কলকাতায় মিলছে সাফল্য
সাপের বিষ থেকে বাঁচতে ট্যাবলেট, কলকাতায় মিলছে সাফল্য
ষষ্ঠ ওয়ালটন প্রেসিডেন্ট কাপ গলফ টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ
ষষ্ঠ ওয়ালটন প্রেসিডেন্ট কাপ গলফ টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ
সুন্দরবনে মাছ ধরা ও পর্যটক প্রবেশে তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা
সুন্দরবনে মাছ ধরা ও পর্যটক প্রবেশে তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা
পশ্চিমা নীতির কারণেই বৈশ্বিক খাদ্য সংকট: পুতিন
পশ্চিমা নীতির কারণেই বৈশ্বিক খাদ্য সংকট: পুতিন
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ