X
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪
১০ বৈশাখ ১৪৩১

অপরিকল্পিত শহরে বড় দুর্ঘটনার সংকেত

মো. শাহ জালাল মিশুক
০১ মার্চ ২০২৪, ২১:১০আপডেট : ০১ মার্চ ২০২৪, ২১:১৭

রাজধানী ঢাকার জনসংখ্যা দুই কোটি ছাড়িয়ে গেছে অনেক আগেই। কিন্তু এত বৃহৎ জনগোষ্ঠীর জন্য খোলা স্থান কিংবা জনপরিসরের দেখা পাওয়া বড়ই দুষ্কর। কোথাও কারও সঙ্গে দেখা করে দুটো কথা বলার জায়গার বড়ই অভাব। ঢাকার মানুষ তাহলে কোথায় যাবে?

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রেস্তোরাঁ শিল্পের বিকাশ হওয়ার পেছনে এটা একটা অন্যতম কারণ। গোছালো পরিবেশে কিছুটা সময় বন্ধু, পরিজনদের সঙ্গে দেখা করার, আড্ডা দেওয়ার, কথা বলার বা গেট টুগেদারের একটা সুযোগ তৈরি হয়েছে। আবার অনেকের আর্থিক সামর্থ্য কিংবা ব্যয় করার অভ্যস্ততা পরিবর্তন হওয়ায় নতুন ধরনের রেস্তোরাঁর শিল্প দ্রুত বিকাশ হচ্ছে। বেইলি রোড, খিলগাঁও, সাত মসজিদ রোড, ধানমন্ডি, বনানী এখন রেস্টুরেন্ট হাব। এসব এলাকার একেকটা ভবনের প্রায় পুরোটাজুড়ে রেস্টুরেন্ট। কিন্তু রেস্টুরেন্ট করার উদ্দেশ্য থেকে এসব ভবন তৈরি করা হয়েছি কি?

আবাসিক ভবনে দিব্যি রেস্টুরেন্ট চলছে। আমরা সবাই সেখানে যাচ্ছি। আমাদের ছেলেমেয়েদের সেখানে নিয়ে যাচ্ছি। সুন্দর করে সাজানো গোছানো সব রেস্টুরেন্ট। সুবেশী সব কর্মী। ইংরেজি-বাংলা মিশিয়ে আন্তরিকভাবে তারা কথা বলেন। এত এত আয়োজন, কোথাও কোনও কৃপণতা নেই। তার মাঝে শুধু মানুষের নিরাপত্তারই কোনও আয়োজন নেই। সেখানেই সব কৃপণতা।

আমাদের নগর এলাকাগুলো এখন হয়ে দাঁড়িয়েছে মৃত্যুকূপ। সড়ক-ফুটপাত, আবাসিক ভবন-শিল্পকারখানা, বাণিজ্যিক ভবন-বিপণি বিতান কিংবা খাবারের রেস্টুরেন্ট—এই নগরে কোনও কিছুই আর আমাদের জন্য নিরাপদ নয়।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নগর এলাকায় বিভিন্ন অগ্নিকাণ্ড কিংবা ভবনে বিস্ফোরণে এই চরম সত্যটা আমাদের এসব নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে।

রাজধানীর বেইলি রোডে গতকাল একটি ভবনে আগুনে ৪৬ জনের মৃত্যুর ঘটনার পর সামনে আসছে নানা মর্মস্পর্শী ঘটনা। কেউ ভবনটির রেস্তোরাঁয় খেতে গিয়েছিলেন পরিবারসহ, কেউ গিয়েছিলেন বন্ধুদের সঙ্গে। কেউ কেউ ভবনটিতে কাজ করে সংসার চালাতেন। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, ভবনটিতে আগুন লাগে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে। আজ শুক্রবার বেলা ৩টা পর্যন্ত ১৭ ঘণ্টায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন ৪৬ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আরও জানিয়েছেন, ১২ জন চিকিৎসাধীন। তাঁরা কেউ শঙ্কামুক্ত নন। অন্যদিকে ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, ভবনটিতে কোনও অগ্নিনিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল না। ঝুঁকিপূর্ণ জানিয়ে ভবন কর্তৃপক্ষকে তিনবার চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) সূত্রে জানা যায়, বেইলি রোডের যে ভবনে আগুন লেগেছে ওই ভবনের কেবল ৮ তলায় আবাসিকের অনুমোদন নেওয়া হয়েছে। বাকি এক থেকে সাত তলা পর্যন্ত বাণিজ্যিক অনুমোদন নেওয়া হলেও সেখানে কেবল অফিস কক্ষ ব্যবহারের কথা ছিল। কিন্তু রেস্টুরেন্ট শোরুম বা অন্য কিছু করার জন্য অনুমোদন নেওয়া হয়নি।

অন্যদিকে বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডের ক্ষত না কাটতেই চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়া এক্সেস রোড এলাকার একটি নির্মাণাধীন ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আজ শুক্রবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটের দিকে আগুন লাগে। ভবনটিতে কোল্ডস্টোরেজ রয়েছে। তবে এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

দেশে প্রতিবছর ছোট-বড় ২০ হাজারের বেশি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের পরিসংখ্যান মতে, ২০২২ সালে ২৪ হাজার ১০২টি, ২০২১ সালে ২১ হাজার ৬০১টি, ২০২০ সালে ২১ হাজার ৭৩টি, ২০১৯ সালে ২৪ হাজার ৭৪টি এবং ২০১৮ সালে ১৯ হাজার ৬৪২টি আগুন লাগার ঘটনা ঘটে।

২০০০ সালে ঢাকার চৌধুরী নিট ওয়্যারে আগুন, ২০০১ সালে মিরপুরের ম্যাক্রো সোয়েটারে আগুন, ২০০৫ সালে নারায়ণগঞ্জের শান নিটিং অ্যান্ড প্রসেসিং লিমিটেডে আগুন, ২০০৬ সালে চট্টগ্রামে কে.টি.এস টেক্সটাইল মিলে আগুন, ২০১০ সালে গাজীপুরের গারিব অ্যান্ড গারিব সোয়েটার ফ্যাক্টরিতে আগুন, একই বছর আশুলিয়ার হামীম গ্রুপের দ্যাটস ইট স্পোর্টস ওয়্যারে আগুন, ২০১২ সালে আশুলিয়ার তাজরীন ফ্যাশনস লিমিটেডে আগুন, ২০১৬ সালে টঙ্গীর টাম্পাকো ফয়েলস কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণ, ২০১৭ সালে গাজীপুরের মাল্টিফ্যাবস কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণ, ২০২১ সালে নারায়ণগঞ্জের হাসেম ফুড ফ্যাক্টরিতে আগুন, ২০২২ সালে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ— এগুলো বিগত কয়েক বছরের কয়েকটি উল্লেখযোগ্য অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা।

অগ্নিকাণ্ডের এক-তৃতীয়াংশ ঘটনা ঘটেছে আবাসস্থলে। শিল্পকারখানা এবং পোশাক কারখানায়ও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা কম ঘটেনি। এছাড়া ঢাকা, চট্টগ্রাম ও রংপুরে বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি অগ্নিদুর্ঘটনা ঘটেছে ঢাকা বিভাগে এবং সবচেয়ে কম সিলেট বিভাগে।

২০১৫ সালে প্রকাশিত বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর এক প্রতিবেদন অনুসারে, ১৯৭৪ সাল থেকে বাংলাদেশে প্রতি বছর গড়ে ৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ হারে নগরায়ণ হচ্ছে (রেট অব আরবানাইজেশন)। যদিও বিগত কয়েক দশকে এ হার কিছুটা কমতির দিকে, কিন্তু নগরায়ণের মাত্রা (লেভেল অব আরবানাইজেশন) এখনও আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ১৯৭৪ সালে নগরায়ণের মাত্রা ছিল মাত্র ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ (পরিকল্পনা কমিশন, ২০১৩)। ২০১১ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ২৩ দশমিক ৩০ শতাংশে উন্নীত হয় (পরিকল্পনা কমিশন, ২০১৩, বিবিএস, ২০১৪)।

আরেকটি হিসাব অনুসারে, ২০১১ সালে বাংলাদেশে নগরায়ণের মাত্রা ছিল ২৫ থেকে ২৮ শতাংশের মধ্যে (বিবিএস, ২০১৪, পরিকল্পনা কমিশন, ২০১৫)।

২০১৭ সালে তা ছিল ৩৫ দশমিক ৮ শতাংশ (ওয়ার্ল্ড ব্যাংক, ২০১৮)। এ ধারাবাহিকতা অনুসারে ধারণা করা হচ্ছে যে ২০২৫ সালের মধ্যে এ দেশে নগরায়ণের মাত্রা ৫০ শতাংশে পৌঁছবে (বাংলাদেশ আরবান ফোরাম, ২০১২)। ২০৫০ সালের মধ্যে শহরে বসবাসরত জনগণের সংখ্যা ৫৬ শতাংশে উন্নীত হবে (ইউএন, ২০১৪)। উল্লেখ্য, একটি নির্দিষ্ট সময়ে একটি দেশের নগরগুলোয় বসবাসরত জনগণের সংখ্যার গড় পরিবর্তনকে বলা হয় নগরায়ণের হার (রেট অব আরবানাইজেশন)। অন্যদিকে একটি দেশের মোট জনসংখ্যা এবং নগরগুলোয় বসবাসরত নাগরিকদের অনুপাতকে নগরায়ণের মাত্রা (লেভেল অব আরবানাইজেশন) বলা হয়।

রাজধানীতে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠা শহর এলাকায় অনিয়ন্ত্রিত ভবনের মিশ্র ব্যবহারের কারণে একই ভবনের বিভিন্ন তলায় রেস্টুরেন্ট, পোশাক শোরুম, রাসায়নিক গুদাম, শিল্পকারখানা ও আবাসিক বসবাস। সব মিলিয়ে যেকোনও মুহূর্তেই যেকোনও ধরনের অগ্নিকাণ্ডে জীবন ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতির শঙ্কা আছে ভয়ানক।

বিগত বছরগুলোতে জলাশয়-জলাভূমি ভরাট করে এবং ইমারত নির্মাণের আইন ও বিধিবিধান উপেক্ষা করে ভবন নির্মিত হয়েছে। এসব ভবনে বসবাসকারী মানুষেরা ভূমিকম্প বা ভূমিধসসহ যেকোনও দুর্যোগে জীবনের ঝুঁকিতে রয়েছেন।

অন্যদিকে ধরুন ঢাকা শহরের মধ্যে ভয়াবহ আগুন লেগেছে। ফায়ার ব্রিগেড পৌঁছে কোথাও পানির উৎস খুঁজে পাচ্ছে না। ভাবছেন শহরজুড়ে পানি আছে, আসলে কিন্তু নেই। পুকুর নেই, খাল নেই, কোথাও কোথাও ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি ঢোকার রাস্তা নেই। পরিস্থিতি কল্পনা করার কথা বলা হলেও, এই ঢাকা শহরে অহরহ ঘটছে এমন ঘটনা। কোনও একটি আগুনের ঘটনা একটু তীব্র হলেই নিয়ন্ত্রণে না আনতে পারার কারণ হিসেবে প্রথম শোনা যায় ‘পানি সংকট’-এর কথা।

ফলে, কাছাকাছি কোথাও পানির সহজলভ্য উৎস না পেয়ে আগুন নেভাতে সময় লেগে যায় ফায়ার সার্ভিসের।

বাংলাদেশে বেশিরভাগ ভবন ও বাসাবাড়িতে অগ্নিনিরাপত্তার বিষয়টিকে প্রাধান্য দেওয়া হয় না এবং এ কারণেই এ ধরনের দুর্ঘটনার সময় ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা যায় না। অগ্নিনিরাপত্তা বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেকোনও ভবন বা বাসাবাড়িতে অগ্নিদুর্ঘটনা ঠেকাতে বা এর ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে হলে ভবন নির্মাণ পর্যায় থেকেই নিতে হবে প্রস্তুতি। এ ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিশ্চিত করতে পারলে অনেকাংশেই ভবনে অগ্নিনিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

ডাক্ট লাইন ও ক্যাবল হোল সিল করা: আধুনিক বহুতল ভবনগুলোতে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, হিটিং, বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সংযোগের জন্য যে পাইপগুলো টানা হয়, সেগুলো যায় ডাক্ট লাইন এবং ক্যাবল হোলের ভেতর দিয়ে। এই ডাক্ট লাইন ও গর্ত দিয়ে ধোঁয়া এবং আগুন খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। এজন্য ডাক্ট লাইন ও ক্যাবল হোলগুলো আগুন প্রতিরোধক উপাদান দিয়ে ভালো করে বন্ধ করে দিতে হবে।

আগুন প্রতিরোধী উপাদান ব্যবহার: ভূমিকম্প এবং আগুন লাগার মতো দুর্ঘটনা ঠেকাতে এ ধরনের উপাদান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এক্ষেত্রে দরজা এবং দেয়াল আগুন প্রতিরোধী হলে ভালো হয়। এছাড়া ঘরের সিলিং, রান্নাঘরের আসবাবপত্র আগুন প্রতিরোধী পদার্থে নির্মাণ এবং আগুন প্রতিরোধী তার ব্যবহার করলে আগুন লাগলেও সেটি ছড়িয়ে পড়ার ভয় থাকে না।

অ্যালার্ম সিস্টেম বসানো: প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেওয়ার পরও যদি কোনও ভবনে আগুন লাগে তাহলে সেক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার একটা উপায় হচ্ছে ফায়ার এবং স্মোক অ্যালার্ম সিস্টেম বসানো এবং সেটি ঠিকমতো কাজ করে কিনা তা নিয়মিত পরীক্ষা করা।

জরুরি বহির্গমন পথ নিশ্চিত করা ও ব্যবহার: যেকোনও ভবনেই আগুন লাগলে সেটি থেকে বের হয়ে আসার জন্য বাইরে একটা জরুরি বহির্গমন পথ থাকতে হবে। এটা হতে হবে এমন একটি পথ, যেখানে আগুন এবং ধোয়া প্রবেশ করতে পারবে না। কারণ কোনও ভবনে আগুন লাগলে বা ভূমিকম্প হলে ওই ভবনের লিফট ব্যবহার না করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

ফায়ার এক্সটিংগুইশার রাখা ও ব্যবহার করা: প্রতিটি ভবনেই অগ্নিনির্বাপণ সিলিন্ডার বা ফায়ার এক্সটিংগুইশার থাকাটা নিশ্চিত করতে হবে। সেই সঙ্গে এগুলো ব্যবহার করতে জানতে হবে ভবনে। কোনও একটি ভবনে আগুন লাগার পর সেটি ছড়িয়ে পড়তে কিছুটা হলেও সময় লাগে। এই সময়ের মধ্যে যদি অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা দিয়ে সেটি নিভিয়ে ফেলা যায় তাহলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব।

মোদ্দাকথা হলো, আমাদের জীবনকে নিরাপদ করতে ভবন মালিক কিংবা ব্যবসায়ী ও শিল্প মালিকদের আইন প্রতিপালনে বাধ্য করার জন্য রাষ্ট্রের আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার কোনও বিকল্প নেই। পাশাপাশি বিভিন্ন সেবাদানকারী সংস্থা, উন্নয়ন কর্তৃপক্ষগুলোকে দায়িত্ব পালনে বাধ্য করাও রাষ্ট্র ও সরকারের দায়িত্ব।

বিভিন্ন ভবনে বিস্ফোরণ, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ভবন মালিকের দায় নিয়ে অনেক আলাপ-আলোচনা হয়, কিন্তু সরকারি সংস্থাগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারী, যাদের তদারকির গাফিলতিতে আমাদের জীবন এভাবে অনিরাপদ ও মূল্যহীন হয়ে পড়েছে, তাদের চিহ্নিত করে জবাবদিহির আওতায় আনাও অত্যন্ত জরুরি।

লেখক: সহকারী অধ্যাপক, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

/এসএএস/এমওএফ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
তাইওয়ানে আবারও ভূমিকম্প
তাইওয়ানে আবারও ভূমিকম্প
পাঁচ ম্যাচ বাকি থাকতেই শিরোপা জিতলো ইন্টার মিলান 
পাঁচ ম্যাচ বাকি থাকতেই শিরোপা জিতলো ইন্টার মিলান 
টিভিতে আজকের খেলা (২৩ এপ্রিল, ২০২৪)
টিভিতে আজকের খেলা (২৩ এপ্রিল, ২০২৪)
গরমে বাড়ছে চর্ম রোগ, প্রতিরোধের উপায় কী?
গরমে বাড়ছে চর্ম রোগ, প্রতিরোধের উপায় কী?
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ