X
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪
৭ আষাঢ় ১৪৩১

খেরসনে ইউক্রেনের অগ্রগতি কতটা গুরুত্বপূর্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
২১ নভেম্বর ২০২৩, ২০:৩৪আপডেট : ২১ নভেম্বর ২০২৩, ২০:৪০

টানা কয়েক মাস ধরে রুশ সেনাদের বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণে গুরুত্বপূর্ণ বিজয় অর্জন করতে না পারা ইউক্রেনীয় বাহিনীর জন্য খেরসনের পূর্ব তীরে সাম্প্রতিক অগ্রগতি একটি সাফল্য। কিন্তু এই সাফল্যকে বড় ধরনের অগ্রগতি বলার সুযোগ নেই বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি’র এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানা গেছে।

গত সপ্তাহে ইউক্রেন ও রাশিয়া উভয় দেশ বলেছে, কিয়েভের সেনারা ডিনিপ্রো নদীর পূর্ব তীরে অবস্থান নিয়েছে।

রবিবার ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী বলেছে, নদীর তীর থেকে তিন থেকে আট কিলোমিটার পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে রুশ সেনারা।

তাদের দাবি সঠিক হলে, গত কয়েক মাসের মধ্যে এটিই হবে তাদের প্রথম উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। এটি অর্জনের জন্য ছোট স্পিডবোটে ইউক্রেনীয় সেনাদের বিশাল নদী পার হতে হয়েছে।

জুন মাসে রাশিয়ার দখলে থাকা ভূখণ্ড পুনরুদ্ধারে পাল্টা আক্রমণ শুরু করে ইউক্রেন। কিন্তু প্রায় ছয় মাস ধরে তাদের অগ্রগতি একেবারে মন্থর। 

ভিলনিয়াসভিত্তিক রাশিয়ার সামরিক বিশ্লেষক মাইকেল ন্যাকে বলেছেন, পূর্ব  তীরে ইউক্রেনের মূল কাজ হলো ক্রিমিয়া যাওয়ার জন্য আক্রমণ শুরু করা। কিন্তু  ভবিষ্যতে পরিস্থিতি এমনটি হওয়ার সম্ভাবনা কম। কারণ উভয়পক্ষকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

তিনি আরও বলেছেন, পূর্ব তীরে ইউক্রেন নিজেদের একটি অগ্রবর্তী দলের অবস্থান নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়েছে। এখন তারা তা বিস্তৃত করতে লড়াই করছে। ইউক্রেনীয়দের হামলায় রুশ সেনারা ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়ছে। 

‘ছোট জয়’

মস্কোর দখলে থাকা খেরসন অঞ্চলের রাশিয়া মনোনীত শীর্ষ কর্মকর্তা ভ্লাদিমির সালডো গত সপ্তাহে বলেছিলেন, কয়েক ডজন ইউক্রেনীয় সেনা পূর্ব তীরের ক্রিঙ্কি গ্রামের বাইরে অবস্থান নিয়েছে।

ইউক্রেনের এই অগ্রগতির গুরুত্ব কমিয়ে তুলে ধরে তিনি দাবি করেছিলেন, গড়ে দুই দিনের মতো অবস্থান করেছিল ইউক্রেনীয় সেনারা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ডিনিপ্রোর পূর্ব তীরে ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রণে থাকা ভূখণ্ড আয়তনে অনেক ছোট।

সামরিক বিশেষজ্ঞ ও ফরাসি সেনাবাহিনীর সাবেক কর্নেল মাইকেল গোয়া বলেছেন, ইউক্রেনীয়দের অভিযান সীমিত ও প্রতীকী। তবু এর ফলে পাল্টা আক্রমণে ব্যর্থতার পর আমরা ছোট জয়ের দাবি করতে পারছি।

ফরাসি সেনাবাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার দুটি সূত্র মতে, ক্রিঙ্কি গ্রাম মস্কোর অগ্রাধিকারে নেই। পূর্বাঞ্চলীয় ডনেস্কের আভদিভকায় মনোযোগ দিচ্ছে রুশ সেনার।

ইউক্রেনীয় জেনারেল স্টাফের মতে, কয়েক সপ্তাহ ধরে  রুশ সেনারা শহরটি ঘিরে ফেলার চেষ্টা করছে। 

মস্কোভিত্তিক সামরিক বিশ্লেষক আলেক্সান্ডার ক্রামচিখিন বলেছেন, পূর্ব তীরে ইউক্রেনের সাফল্য একেবারে নগণ্য এবং আরও সেনা ও সরঞ্জাম মোতায়েনের মতো পর্যাপ্ত নয়। কোনও সরঞ্জাম যদি না থাকে তাহলে অভিযান সম্ভব নয়।

‘সরবরাহ রুট বিচ্ছিন্ন’

সামরিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বর্তমান  সাফল্যকে প্রকৃত অর্থে গুরুত্বপূর্ণ করে তুলতে হলে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীকে পূর্ব  তীরে আরও সেনা মোতায়েন করতে হবে। এজন্য তাদের বিশাল নদী পার হতে হবে এবং দুর্গম অঞ্চল পাড়ি দিতে হবে।

সামরিক বিশ্লেষক মাইকেল ন্যাকে বলেছেন, কিয়েভের জন্য জরুরি কাজ হলো রাশিয়ার সরবরাহ রুট বিচ্ছিন্ন করা। এটি করা সম্ভব।  এটি করাই জন্যই তারা অগ্রবর্তী দলকে বড় করছে। খেরসনের দক্ষিণাঞ্চলে বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়েছে রাশিয়া।

প্রায় এক বছরের বেশি সময় ডিনিপ্রো নদীর দুই তীরে অবস্থান নিয়েছে ইউক্রেন ও রাশিয়ার সেনারা। গত বছর নভেম্বরে পশ্চিম তীর থেকে রাশিয়া সেনা প্রত্যাহার করলে ইউক্রেন নিয়ন্ত্রণ ফিরে পায়। এরপর থেকে পশ্চিম তীরের খেরসন শহরে নিয়মিত গোলাবর্ষণ করে আসছে রুশ সেনারা।

ফরাসি সেনাবাহিনীর সাবেক কর্নেল মাইকেল গোয়ার মতে, ইউক্রেনের এই অভিযান রুশদের ওপর চাপ বজায় রাখছে। অপর রণক্ষেত্রগুলোতে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে রিজার্ভ সেনাদের কিছু অংশ ডিনিপ্রোতে স্থানান্তর করতে বাধ্য  তারা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ক্রিমিয়া অভিমুখে সরাসরি পথ উন্মুক্ত করতে হলে পূর্ব তীরে হাজারো সেনা ও ভারী সামরিক যান প্রয়োজন হবে ইউক্রেনের। 

ইউক্রেনীয় বিশ্লেষক মিকোলা বিয়েলিয়েসকভ বলেন, ইউক্রেনের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ হলো কোম্পানি পর্যায়ের চেয়ে বৃহত্তর সামরিক কাঠামোর সেনাদের নিয়ে একটি টেকসই অভিযান নিশ্চিত করা। সমরাস্ত্র ও ডিনিপ্রোতে লজিস্টিক সেতু আবশ্যক। যেকোনও অস্থায়ী সেতু রাশিয়ার বিমান ও কামানের হামলার ঝুঁকিতে থাকবে। এগুলো পুরোপুরি নিষ্ক্রিয় করা সম্ভব হয়নি।

 

/এএ/
টাইমলাইন: ইউক্রেন সংকট
সম্পর্কিত
উত্তর কোরিয়াকে অস্ত্র দিতে পারে রাশিয়া: পুতিন
পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের অনানুষ্ঠানিক বৈঠক
ইউক্রেনের সীমান্তবর্তী রুশ ভূখণ্ডে মার্কিন অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে কিয়েভ
সর্বশেষ খবর
হবিগঞ্জে রাস্তা ভেঙে ঢুকছে পানি, ভেসেছে ১০ সড়ক
হবিগঞ্জে রাস্তা ভেঙে ঢুকছে পানি, ভেসেছে ১০ সড়ক
মধুপুরে প্রাইভেটকার-থ্রি হুইলার সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৮
মধুপুরে প্রাইভেটকার-থ্রি হুইলার সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৮
ফ্রান্স ম্যাচকে কঠিন পরীক্ষা মানছেন নেদারল্যান্ডস কোচ
ফ্রান্স ম্যাচকে কঠিন পরীক্ষা মানছেন নেদারল্যান্ডস কোচ
দ্রুত পচে যাচ্ছে লিচু? জেনে নিন ৬ টিপস
দ্রুত পচে যাচ্ছে লিচু? জেনে নিন ৬ টিপস
সর্বাধিক পঠিত
‘রাজস্ব কর্মকর্তা মতিউরই ছাগলকাণ্ডে আলোচিত সেই ইফাতের বাবা’
‘রাজস্ব কর্মকর্তা মতিউরই ছাগলকাণ্ডে আলোচিত সেই ইফাতের বাবা’
শেখ হাসিনার দিল্লি সফরের তিন প্রধান কারণ
শেখ হাসিনার দিল্লি সফরের তিন প্রধান কারণ
ব্যাংক খাতে তারল্যের সংকট কোন পর্যায়ে
ব্যাংক খাতে তারল্যের সংকট কোন পর্যায়ে
তেড়ে কামড়ায় না ‘রাসেলস ভাইপার’, আতঙ্ক না ছড়ানোর আহ্বান
তেড়ে কামড়ায় না ‘রাসেলস ভাইপার’, আতঙ্ক না ছড়ানোর আহ্বান
‘বর্তমানের কোর্টে বিচার চলে নোটে’: আলী হাসানকে লিগ্যাল নোটিশ
‘বর্তমানের কোর্টে বিচার চলে নোটে’: আলী হাসানকে লিগ্যাল নোটিশ