সেকশনস

বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান: কৃচ্ছ্রসাধনই এখন লক্ষ্য হওয়া উচিত

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২০, ১৪:০৪

মামুন রশীদ সরকার এবং জনহিতৈষী প্রতিষ্ঠানগুলো যেখানে করোনা সংক্রান্ত জরুরি স্বাস্থ্যসেবা এবং দরিদ্রদের সহায়তায় ব্যস্ত, সেখানে বিশ্বের বৃহৎ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো অঙ্ক কষছে করোনা পরবর্তী দুর্দিন মোকাবিলার প্রস্তুতি নিয়ে। যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডায় ইতোমধ্যে অনেক লোক চাকরি হারিয়েছে।  অন্যান্য উন্নত দেশেও পরিস্থিতি এমনই হবে বলে আশঙ্কা। অতীতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংকটকালে বা সংকট পরবর্তী অর্থনৈতিক মন্দায় দেশে দেশে প্রচুর লোককে চাকরি হারাতে হয়েছে কিংবা প্রতিষ্ঠানগুলোর কেউই নতুন নিয়োগ দেয়নি বা কেউ চাকরি ছেড়ে গেলে সেই শূন্যস্থান পূরণ করা হয়নি। নিদেনপক্ষে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বেতন-ভাতাদি কমানো হয় এবং বোনাস স্থগিত রাখা হয়।  কিছু কিছু বিশেষ ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠান সরকার বা তাদের ব্যাংকগুলো থেকে তারল্য সহায়তা বা বহুল পরিচিত ‘বেইল আউট’ সুবিধা  নিয়ে থাকে, আবার সুদিনে রাষ্ট্রের বা সরকারের টাকা ফেরত দিয়ে দেয়। উত্তর আমেরিকায় ‘শেয়ার সোয়াপ’ বা ইকুইটি রাইটস প্রদান বা ডেট-ইকুইটি সোয়াপ একটি পরিচিত শব্দ। নব্বইয়ের দশকে এশীয় সংকটকালে হংকংয়ের অনেক কোম্পানির শেয়ার সরকার তাদের বিশেষ বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নিম্ন বাজার মূল্যে বা সস্তায় কিনে নিয়ে তাদের তারল্য সহায়তা জোগায় এবং পরবর্তীকালে ভালো সময়ে কোম্পানিগুলো তাদের শেয়ার কিছুটা বেশিদামে পুনঃক্রয় করে নেয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২০০৭-০৯ সংকটকালে সিটি গ্রুপ, এআইজি প্রমুখ ‘বেইল আউটের’ অর্থ নেয়, আবার পরবর্তী সময়ে ফেরতও দেয়। বর্তমানেও ইউরোপের অনেক বৃহৎ বাণিজ্যিক ব্যাংক আন্তঃব্যাংক তারল্যকে শুকিয়ে ফেলে নিজ নিজ গ্রাহকদের নতুন তারল্য প্রদান বা ঋণ পুনর্গঠনে অর্থায়নের জন্য আলাদা করে রাখছে।

দুনিয়ার প্রায় সব দেশেই বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো সংকটকালে অভ্যন্তরীণ খরচ কমানো বা কৃচ্ছ্রসাধনের ওপর সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়। অনেকটা সক্রেটিসের ‘হাউ মেনি থিংস আই ক্যান ডু উইদাউট’। এতদসংক্রান্ত উদ্যোগ-ইতিহাস বিবেচনায় দেখা যায় প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানই তার পরিচালন খরচের প্রায় ১০-২০ শতাংশ কমিয়ে ফেলতে পেরেছে। তার বেশিরভাগই সরবরাহকারীদের সঙ্গে চরম ‘বারগেইন’ বা দরদামের প্রতিফলন। দুর্দিনে কোম্পানিগুলোর ‘প্রকিউরমেন্ট’ বা ‘সাপ্লাই চেইন’ বা কমার্শিয়াল বিভাগের গুরুত্ব অনেক বেড়ে যায়। প্রকিউরমেন্ট বা সাপ্লাই চেইন প্ল্যানিং সামনের সারির বিবেচ্য বিষয় বা সিইও কনসার্ন বা প্রায়োরিটি হয়ে দাঁড়ায়।

সংকটকালে সাঁতরে ভেসে থাকতে পারা একটি বিরাট গুণ। ২০০৭-০৯ সংকটকালে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস এক বিরাট নজির স্থাপন করে। তাদের যখন রুট র‍্যাশনালাইজেশনের ফলে প্রতিষ্ঠানকে ছোট করে আনার তাগিদের মুখে লোক ছাঁটাইয়ের ব্যাপারটি চলে আসে, তখন তাদের সিইও সকল সহকর্মীকে নিয়ে লোক ছাঁটাইয়ের পরিবর্তে ২০ শতাংশের ওপর বেতন কর্তনের সিদ্ধান্ত নেন। তা সবাই সাদরে মেনে নেয় এবং এতে প্রতিষ্ঠান ও ছোট ছোট চাকরিজীবী উভয়ই বেঁচে যান।

আমাদের দেশেও ইদানীংকালে বড় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালন ব্যয় দেশি- বিদেশি দক্ষ লোক নিয়োগ ও তাদের প্রণোদনা, সরকারের বা সরকারের নিকটবর্তী লোকজনদের চাঁদা বা ঘুষসহ বিভিন্ন কারণে অনেক বেড়ে গিয়েছে এবং নিট মুনাফা এমনকি অভ্যন্তরীণ ক্যাশ জেনারেশন বা নগদ অর্থায়ন অনেক কমে গেছে। তার ওপরে ‘মরার উপর খাঁড়ার ঘা’ হিসেবে এসেছে করোনা অভিঘাত।

ঋণ রিশিডিউল করা ইতিহাসের কোম্পানিগুলোকে যেমন ভালো ব্যাংকগুলো নতুন ঋণ দিতে চায় না, তেমনি সংকটকাল উত্তরণে ব্যর্থ বা লাগামহীন কোম্পানিগুলোকেও ব্যাংক ভালোবাসে না। তাই বাংলাদেশের ভালো বাণিজ্যিক কোম্পানিগুলোকে সংকটে ভেসে থাকার কৌশল রপ্ত করতে হবে। সেক্ষেত্রে কৃচ্ছ্রসাধন বা ‘জিততে হয় কেনায়’ সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করতে হবে। ‘কস্ট অপটিমাইজেশন’ বা ‘বিজনেস প্রসেস রিইঞ্জিনিয়ারিং’ও হতে পারে আকাঙ্ক্ষিত পথ। আর এটি শুরু হতে হবে বড়দের দিয়েই। অফিসের টাকায় ব্যক্তিগত খরচ নির্বাহের অভ্যাসকে কবর দিতে হবে। ১ কোটি টাকা খরচের কোম্পানিও যদি ১০ শতাংশ খরচ অভিনব উপায়ে কমাতে পারে, তাহলে ১০ লাখ টাকা বাঁচবে, বাঁচবে অনেক জুনিয়র অফিসারের বা পিওনের চাকরি।  মনেপ্রাণে বিশ্বাস করতে হবে প্রতিষ্ঠান বাঁচলে আমি বাঁচবো। সংকটে তাই ব্যয় ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন ও কৃচ্ছ্রসাধনই মোক্ষম অস্ত্র।

লেখক: অর্থনীতি বিশ্লেষক।

/এসএএস/এমএমজে/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সম্পর্কিত

মিতব্যয়িতা মূল্যবোধেরই অংশ হওয়া উচিত

মিতব্যয়িতা মূল্যবোধেরই অংশ হওয়া উচিত

সব কিছু নষ্টদের অধিকারে যাবে?

সব কিছু নষ্টদের অধিকারে যাবে?

আব্দুল আজিজ ও বাজেটে উদ্ভাবনী চিন্তার প্রতিফলন

আব্দুল আজিজ ও বাজেটে উদ্ভাবনী চিন্তার প্রতিফলন

মি. বিশ্বাসকে কে খুন করলো?

মি. বিশ্বাসকে কে খুন করলো?

সামাজিক অবক্ষয়ই আমাদের অগ্রগতির পথে প্রধান বাধা

সামাজিক অবক্ষয়ই আমাদের অগ্রগতির পথে প্রধান বাধা

বাংলাদেশে দুর্নীতি কমানো কি সম্ভব?

বাংলাদেশে দুর্নীতি কমানো কি সম্ভব?

দেশপ্রেমের দোহাই দিয়ে পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনা যাবে না

দেশপ্রেমের দোহাই দিয়ে পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনা যাবে না

এ খাঁচা ভাঙবো আমি কেমন করে?

এ খাঁচা ভাঙবো আমি কেমন করে?

বাংলাদেশে নাগরিক সমাজের ভূমিকা কি ফুরিয়ে গিয়েছে?

বাংলাদেশে নাগরিক সমাজের ভূমিকা কি ফুরিয়ে গিয়েছে?

শুধু বাজেটে বরাদ্দ বাড়িয়ে স্বাস্থ্যখাতের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা যাবে না

শুধু বাজেটে বরাদ্দ বাড়িয়ে স্বাস্থ্যখাতের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা যাবে না

লকডাউন তুলে নিলে কী হবে?

লকডাউন তুলে নিলে কী হবে?

করোনায় কৃষি ও দরিদ্রদের সহায়তা

করোনায় কৃষি ও দরিদ্রদের সহায়তা

সর্বশেষ

শিশু গৃহকর্মীর গায়ে গরম খুন্তির ছ্যাঁকা!

শিশু গৃহকর্মীর গায়ে গরম খুন্তির ছ্যাঁকা!

হারানো টাকা উদ্ধারে ‘চালপড়া’ খাইয়ে সন্দেহ, নারী শিক্ষকের জিডি

হারানো টাকা উদ্ধারে ‘চালপড়া’ খাইয়ে সন্দেহ, নারী শিক্ষকের জিডি

হ্যান্ডকাপ খুলে পালিয়েছে মাদক ব্যবসায়ী, চলছে চিরুনি অভিযান

হ্যান্ডকাপ খুলে পালিয়েছে মাদক ব্যবসায়ী, চলছে চিরুনি অভিযান

কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যু, মধ্যরাতে বিক্ষোভ

কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যু, মধ্যরাতে বিক্ষোভ

আপত্তির মুখে দেশে বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা খোলার অনুমোদন

আপত্তির মুখে দেশে বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা খোলার অনুমোদন

সংকট সামলাতে এলএনজি সরবরাহ বাড়ছে

সংকট সামলাতে এলএনজি সরবরাহ বাড়ছে

নির্বাচন থেকে মুখ ফিরিয়েও এবার তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বী তারা

ডিরেক্টরস গিল্ড নির্বাচন ২০২১নির্বাচন থেকে মুখ ফিরিয়েও এবার তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বী তারা

৬ বছর পর রাণীনগর আ. লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

সভাপতি হেলাল সা. সম্পাদক দুলু৬ বছর পর রাণীনগর আ. লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

ভেঙে পড়া গাছচাপায় নিহত ২

ভেঙে পড়া গাছচাপায় নিহত ২

প্রক্টর কার্যালয়ে শিক্ষার্থীকে পেটালো ছাত্রলীগকর্মী

প্রক্টর কার্যালয়ে শিক্ষার্থীকে পেটালো ছাত্রলীগকর্মী

ভবনের প্ল্যান পাস করিয়ে দেওয়ার নামে প্রতারণা

ভবনের প্ল্যান পাস করিয়ে দেওয়ার নামে প্রতারণা

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১১ কোটি ৩২ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১১ কোটি ৩২ লাখ ছাড়িয়েছে

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.