X
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২
১৬ আষাঢ় ১৪২৯

স্বার্থহীন ভালোবাসার দিন হোক প্রতিদিন

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:০৭

সালেক উদ্দিন
প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি ১৪ তারিখে সারা বিশ্বজুড়ে পালিত হয় ‘বিশ্ব ভালোবাসা দিবস’ বা ‘ভ্যালেনটাইনস্ ডে’। নব-দম্পতি, তরুণ-তরুণী, প্রেমিক-প্রেমিকার জন্য এই যেন এক মহা উৎসবের দিন। লক্ষ্য ভালোবাসা এবং অনুরাগের মধ্য দিয়ে এ দিনের চমৎকার সময় অতিবাহিত করা। একে অপরের জন্যে পছন্দের উপহার, সাজগোজ, খানাপিনা, ঘোরাফেরা মোট কোথায় ভালোবাসাময় সময় কাটানোর জন্যে যা যা প্রয়োজন তার কোনোটাই অসম্পূর্ণ রাখতে চায় না তারা।

পশ্চিমা বিশ্বে উদযাপনের ইতিহাস দীর্ঘদিনের হলেও ১৯৯৩ সাল অথবা তারপর থেকে বাংলাদেশে ভালোবাসা দিবস উদযাপন শুরু হয়। সেই সূত্র ধরে আমাদের কাছে ভ্যালেন্টাইনস্ ডে নতুন হলেও এর ইতিহাস অনেক পুরনো। আর এত পুরনো বলেই হবে হয়তো সেই ইতিহাসের ক্ষেত্রে কিছু কিছু মত পার্থক্যও রয়েছে।

তবে এই ইতিহাস নিয়ে যে মতটি সবচেয়ে বেশি প্রচলিত তা সংক্ষেপে এরকম। ইতালির রোমে সাম্রাজ্যবাদী রক্তপিপাসু রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্লোডিয়াসের শাসনামলে সেনাবাহিনীতে সেনা সংকট দেখা দেয়। সম্রাটের ধারণা ছিল যুবকরা বিয়ে বা যুগলবন্দী হওয়ার কারণে যুদ্ধে যেতে চায় না। ২৬৯/২৭০ সালে কথা। সম্রাট তার সাম্রাজ্যে যুবকদের বিয়ে কিংবা যুগলবন্দী হওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। এতে যুবক-যুবতীদের মধ্যে অসন্তোষের সৃষ্টি হয়। যুবক ধর্মযাজক সেন্ট ভ্যালেন্টাইনও এটাকে মেনে নিতে পারেন না। তিনি গোপনে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা চালিয়ে যেতে লাগলেন এবং অতি অল্প সময়েই যুবক-যুবতীদের মধ্যে পরিচিতি পেলেন ভালোবাসার বন্ধু হিসেবে। সম্রাটের নির্দেশ অমান্যের কারণে রাষ্ট্রদ্রোহীতার দায়ে আটক হলেন তিনি। জেলে থাকাকালীন অবস্থায় প্রেমিক যুগলেরা তাকে দেখতে আসতো এবং ভালোবাসাময় শ্রদ্ধা জানাতে ফুল উপহার দিত। এদের মধ্যে ছিল জেল রক্ষকের অন্ধ মেয়েটিও। ধর্মযাজক সেন্ট ভ্যালেন্টাইন তার আধ্যাত্মিক ক্ষমতা বলে সেই অন্ধ মেয়েটির দৃষ্টি ফিরিয়ে দেন। একসময় এই মেয়েটিই যুবক ধর্মযাজক ভ্যালেন্টাইনের প্রেমে জড়িয়ে পড়েন।


এইসব কারণে সম্রাট ক্ষুব্ধ হয়ে ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেন। ২৬৯ সালে,কারো মতে ২৭০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সহস্র প্রেমিক যুগলকে কাঁদিয়ে প্রেম পুরুষ ধর্মযাজক সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করা হয়। মৃত্যুর ঠিক পূর্ব মুহূর্তে ভ্যালেন্টাইন তাঁর প্রেমিকা সেই মেয়েটির উদ্দেশ্যে একটি চিরকুট লিখে যান। তাতে লেখা ছিল– ফ্রম ইউর ভ্যালেন্টাইন।

এই শোকগাঁথাকে কেন্দ্র করে সেই থেকে বিশ্বব্যাপী ১৪ ফেব্রুয়ারির দিনটি ভ্যালেন্টাইন ডে বা ভালোবাসা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। দিনটি আমাদের দেশে এখন প্রেমিক যুগলরা যেমন পালন করে তেমনি সকল বয়সের দম্পতিরাও পালন করে। এটা একটি ভালো লক্ষণ। উদ্দেশ্য ভালোবাসাকে ভালো লাগার মানুষের মাঝে বিলিয়ে দেওয়া। উদ্দেশ্য যে মহৎ তাতে কোনও সন্দেহ নেই। তবে ভালোবাসার মোরগ থেকে বের হয়ে পশুবৃত্তি,বেহায়াপনা এই দিবসের মহত্ত্বকে যে কলঙ্কিত করেছে এমন উদাহরণও কম নেই। সে কারণেই হবে হয়তো ১৯৭৬ সালে ফ্রান্সে সরকারিভাবে ভালোবাসা দিবস নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। এছাড়াও অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরি জার্মানি পাকিস্তানসহ বেশ কিছু দেশে বিভিন্ন সময়ে এ দিবস প্রত্যাক্ষিত হয়েছে।

তারপরও ভালোবাসার মহিমায় মহিমান্বিত হয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভ্যালেন্টাইন দিবস মহাসমারোহে উদযাপিত হয়। ভালোবাসা দিবসের কার্ড, ফুল ও উপহার সামগ্রী কিনতে এই দিনে পৃথিবীজুড়ে প্রায় ১০০ কোটি পাউন্ড ব্যয় হয় বলে ধারণা করা হয়। আমরাও পিছিয়ে নেই। করোনা কালের এই মহামারির মধ্যেও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এদেশেও যে প্রেমময় মানুষের মেলা বসবে এতে সন্দেহ নেই।

সে যাই হোক ভালোবাসা স্রষ্টা প্রদত্ত সবচেয়ে বড় মানবিক গুন। ভালোবাসা এবং স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রত্যাশা দুটো জিনিস রাত এবং দিনের মতো। একসঙ্গে মিশতে পারে না। ভালোবাসার কাছে কোনও স্বার্থের সংশ্লিষ্টতা থাকতে নেই, প্রত্যাশা থাকতে নেই। ভালোবাসা প্রতিদান যা দেবার এমনিতেই দেয়। প্রত্যাশা যখন ভালোবাসার সামনে এসে দাঁড়ায় তখন সৃষ্টি হয় অকল্যাণের। পৃথিবীর সকল কল্যাণের উৎস স্থল হলো ভালোবাসা। প্রতিটি মানুষের ভেতরে এর লালন অত্যাবশ্যক।

শুধু ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস্ ডেতে এই ভালোবাসার প্রকাশ বা বিকাশ নয় বরং এই দিবসকে উপলক্ষ করে প্রতিদিন হোক মানুষের স্বার্থহীন ভালোবাসার দিন। দূর হোক নোংরামি, হীনমন্যতা আর প্রতিহিংসার মানসিকতা। মানুষ মানুষের জন্যে নিতে নয় দিতে শিখুক এবং এটাই হোক ভালোবাসা দিবসের স্লোগান। 

/এসএএস/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ছাত্রীর কাছে হিরো সাজতে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা করে জিতু
ছাত্রীর কাছে হিরো সাজতে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা করে জিতু
ড্রোনের মাধ্যমে মশার উৎস শনাক্তে অভিযান শনিবার থেকে
ড্রোনের মাধ্যমে মশার উৎস শনাক্তে অভিযান শনিবার থেকে
টি-টোয়েন্টি দলে যুক্ত হলেন তাসকিন-মিরাজ
টি-টোয়েন্টি দলে যুক্ত হলেন তাসকিন-মিরাজ
শিক্ষককে হত্যার পর বন্ধুর বাসায় লুকিয়ে ছিল জিতু
শিক্ষককে হত্যার পর বন্ধুর বাসায় লুকিয়ে ছিল জিতু
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ