X
রবিবার, ১৪ আগস্ট ২০২২
৩০ শ্রাবণ ১৪২৯

উচ্ছ্বসিত পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের নেতারা

এমরান হোসাইন শেখ
২৫ জুন ২০২২, ০৮:৪২আপডেট : ২৫ জুন ২০২২, ০৮:৪২

১৯৮৬ সাল। প্রচারণা শুরু হলো- ‘২১ জেলার ৫ কোটি মানুষের প্রাণের দাবি পদ্মা সেতু চাই’। ধীরে ধীরে প্রচারণার ধাপ বাড়লো, নতুন নতুন পোস্টার হলো, গণসংযোগ হলো। প্রায় তিন যুগ আগে দেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট এই আন্দোলনের অনুকূলে ছিল না। প্রতিবন্ধকতা যাই আসুক, তাদের দাবি একটাই ‘পদ্মা সেতুর বাস্তবায়ন চাই’। সেই আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার। আজ স্বপ্ন পূরণ হওয়া উচ্ছ্বসিত পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের এই প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।

বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে একান্ত আলাপকালে তুলে ধরেন আন্দোলনের সময়কালের ঘটনাগুলো। আন্দোলন করতে গিয়ে অনেক সময় টিটকারিও শুনতে হয়েছে তাকে। নিজের কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় করে পোস্টার-ব্যানার ছাপিয়ে বিলি করছেন। সারা দেশে আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করেছেন। আজ সেই পদ্মা সেতু বাস্তবতায় পরিণত হওয়ায় আপ্লুত খোকা সিকদার।

তিনি জানান, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা তাকে আন্দোলনের মূল প্রেরণা দিয়েছেন। তিনি নিজে ডেকে নিয়ে আন্দোলনে উৎসাহ দিয়েছেন। তার নির্দেশনাতেই এ আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন।

তিনি বলেন, ব্যক্তিগত উদ্যোগে কষ্টার্জিত টাকা খরচ করে সেতু বাস্তবায়নে আন্দোলন করেছি। আমি যেটা করেছি প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নির্দেশনা ও পরামর্শ অনুযায়ী। আমি আন্দোলনের সামনে ছিলাম ঠিকই কিন্তু আমার মাথায় ওপরে ছিলেন তিনি।

মাওয়ায় পদ্মা সেতু নির্মাণে আশির দশকে আন্দোলন শুরু করেছিলেন উল্লেখ করে শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার বলেন, ‘এরশাদ, খালেদা জিয়া কেউই এই সেতু নির্মাণ করতে সক্ষম হননি। আমাদের নেত্রী জাতীয়-আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে দেখিয়েছেন আমরা পারি। আমাদের দক্ষিণবঙ্গের ২১টি জেলার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।’

এই অঞ্চলের মানুষ দীর্ঘদিন অবহেলিত ও বঞ্চিত ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের সেই বঞ্চনা আর থাকছে না।  ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করে চরম ভোগান্তির মধ্য দিয়ে রাজধানীতে আসতে হতো সেই কষ্ট আর থাকছে না।’

আন্দোলনের সময়কালে নানা প্রতিবন্ধকতার কথা তুলে ধরে খোকা বলেন, ‘আমিই সর্বপ্রথম পদ্মা সেতু নির্মাণের দাবি তুলেছিলাম এবং আন্দোলন করেছিলাম। তখন মানুষ আমাকে পাগল বলেছে। তারা বলতো পদ্মা সেতু করা নাকি অসম্ভব। আজকে আমার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। দৃশ্যমান হয়েছে পুরো পদ্মা সেতু। এজন্য আমি আনন্দিত এবং গর্বিত। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আছে বলেই আজকে জাজিরা-মাওয়া পয়েন্টে পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়েছে। এজন্য শরীয়তপুরবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি চিরকৃতজ্ঞ। তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকার কারণে আমরা এই সেতুর বাস্তবায়ন দেখতে পেয়েছি।’

আন্দোলনের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের ব্যানারে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা শহরে বিভিন্ন নেতার সঙ্গে কথা বলেছি। পদ্মার ভাঙন থেকে শুরু করে বিভিন্ন কষ্টের কথা বলেছি। পদ্মা সেতুর প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেছি। বিভিন্ন প্রান্তে সভা-সমাবেশ করেছি। ব্যানার-পোস্টার বানিয়েছি।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রেরণাতেই ১৯৮৬ সালে তারা পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদ গঠন করেন বলে জানান। ২১ সদস্যের এই পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ইত্তেফাকের আব্বাস উদ্দিন আনসারী। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদ গঠনের পর তারা এ কার্যক্রম সবখানে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন। বড় বড় ব্যানার করে ফেরি ও লঞ্চে এবং ঘাটগুলোতে টাঙিয়ে দেন।

পরে খুলনা, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলাভিত্তিক কমিটি ঘোষণা করা হয় বলেও তিনি জানান।

/ইউএস/
টাইমলাইন: পদ্মা সেতু টাইমলাইন
২৬ জুন ২০২২, ১০:০০
২৫ জুন ২০২২, ১৩:১৮
২৫ জুন ২০২২, ১১:৫৯
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ঘাতক ট্যাংকের পথে আলোর মিছিল
ঘাতক ট্যাংকের পথে আলোর মিছিল
আমার বাড়িতে সিবিআই গেলে কী করবেন, প্রশ্ন মমতার
আমার বাড়িতে সিবিআই গেলে কী করবেন, প্রশ্ন মমতার
ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গ্রেফতার
ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গ্রেফতার
এ বিভাগের সর্বশেষ
কঠোর অবস্থানে পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ
কঠোর অবস্থানে পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ
কৌশলে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল
কৌশলে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল
পদ্মা সেতুতে প্রথম দিনে টোল আদায় দুই কোটি টাকা
পদ্মা সেতুতে প্রথম দিনে টোল আদায় দুই কোটি টাকা
জয়পুরহাট থেকে পদ্মা সেতু দেখতে এলেন বৃদ্ধ মোজাহার আলী
জয়পুরহাট থেকে পদ্মা সেতু দেখতে এলেন বৃদ্ধ মোজাহার আলী
পদ্মা সেতুতে সাড়ে ৩ কিলোমিটার যানজট
পদ্মা সেতুতে সাড়ে ৩ কিলোমিটার যানজট