X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

লাশ এতটাই পুড়েছে চেনা মুশকিল

আপডেট : ০৯ জুলাই ২০২১, ২২:৪২

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাসেম ফুড লিমিটেডের সেজান জুসের কারখানার চারপাশে এখন শুধু কান্নার আহাজারি। কেউ স্বজন হারিয়ে বিলাপ করছেন আবার কেউ স্বজনের খোঁজে। আগুনের শিখা নিভিয়ে ধ্বংসস্তূপে মানুষের খোঁজ করছেন উদ্ধারকর্মীরা। প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও সেখানে উপস্থিত রয়েছেন। পুরোদমে চলছে উদ্ধার কাজ।

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) বিকাল ৫টায় ঘটনার পরপরই তিন জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছিল। তারা আগুন থেকে বাঁচতে লাফিয়ে নিচে পড়ায় মারা যান। শুক্রবার (৯ জুলাই) সকাল থেকে একে একে বের করে আনা হয় ৪৯টি লাশ। ছয়তলা এ ভবনের চারতলা পর্যন্ত উদ্ধার কাজ চালিয়ে লাশগুলো উদ্ধার করা হয়। যদিও পঞ্চম ও ষষ্ঠতলায় এখনও উদ্ধার কাজ চালানো সম্ভব হয়নি।

আজ উদ্ধার হওয়া ৪৯ জনের দেহ এতটাই পুড়েছে যে পরিবারের লোকেরা দেখে লাশগুলো চিহ্নিত করতে পারেননি বলে জানিয়েছেন ফায়ার ব্রিগেডের পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান। তিনি জানান, আজ যেসব লাশ উদ্ধার হয়েছে তার প্রায় সবই এমনভাবে দগ্ধ যে সেগুলো আত্মীয়রা দেখে চিনতে পারছেন না। তাই এই লাশগুলো ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে ডিএনএ টেস্টের জন্য। টেস্টের মাধ্যমে লাশগুলো শনাক্ত করে আত্মীয়দের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

কর্নেল জিল্লুর রহমান বলেন, আগুন প্রাথমিকভাবে নিয়ন্ত্রণে আনার পর নিচতলা থেকে চতুর্থতলা পর্যন্ত খোঁজ করে ৪৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পঞ্চম ও ষষ্ঠতলার আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে এনে পুরো ভবনটিতে আমরা তল্লাশি চালাবো।

তিনি জানান, বেশিরভাগ লাশ চতুর্থতলা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। অনেকের লাশ সিঁড়িতেও পাওয়া যায়। সিঁড়িসহ অন্যান্য স্থানে বিপুল পরিমাণ ফয়েল পেপার, রাসায়নিক দ্রব্য, বিস্কুট-লজেন্স-কেক-জুস-নুডুলসের প্যাকেট মজুত ছিল। এগুলোর মাধ্যমে আগুন সিঁড়িতেও জ্বলছিল। ফলে চতুর্থ তলায় আটকে পড়া শ্রমিকরা ছাদে যেতে পারেননি এবং নিচেও নামতে পারেননি।

ফায়ার ব্রিগেডের এ পরিচালক বলেন, প্রতিটি ফ্লোরে জিআই তার দিয়ে নেটের মতো তৈরি করে রাখা হয়েছিল। এই নেটের মধ্য দিয়ে শ্রমিকদের আসা যাওয়ার ব্যবস্থা ছিল। এই আসা যাওয়ার জায়গাটি খুবই ছোট। ফলে ধোঁয়ায় যখন পুরো ভবনটি আচ্ছন্ন হয়ে যায় তখন হুড়োহুড়ি করে এ গেট দিয়ে বের হতে গিয়ে অনেকে আটকা পড়েন। ছয়-সাত হাজার শ্রমিক যে ভবনে কাজ করে সেখানে কমপক্ষে চারটি বড় আকারের সিঁড়ি থাকার কথা ছিল। কিন্তু সেখানে এ ভবনে সিঁড়ি ছিলো মাত্র দুইটি, তাও সরু। আবার এ সিঁড়ির এক পাশে বিভিন্ন পণ্য স্তূপাকারে রেখে দেওয়ায় এটি আরও সরু হয়ে গিয়েছিল।

আগুনে পুড়ে ছাই কারখানাটি সব মালামাল

প্রতিষ্ঠানটির শ্রমিক তাজুল ইসলাম ও আব্দুস সালাম জানান, এ ভবনে লিফট থাকলেও তা ব্যবহারের অনুমতি ছিল শুধু কর্মকর্তাদের জন্য। যে কারণে ঘটনার সময়ও শ্রমিকরা লিফটে উঠতে পারেননি।

মালিক যাতে না পালাতে পারে, ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে: এসপি

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেন, কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে অনেক প্রাণ ঝরেছে। এ ঘটনায় যদি মালিক পক্ষের কোনও গাফিলতি পাওয়া যায়, অবশ্যই তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। মালিক যাতে বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারে এ বিষয়ে বিমানবন্দরসহ সব জায়গাতেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় এক বা একাধিক মামলা হবে। এ প্রতিষ্ঠানে যদি শিশু শ্রমিক নিয়োগের প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে আলাদা আইনি ব্যবস্থা হবে। নিহতদের লাশ ঢাকা মেডিক্যালে পাঠানো হয়েছে। সেখানে জেলা পুলিশের একটি ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। যাতে নিহতদের স্বজনরা যোগাযোগ করে তাদের স্বজনকে শনাক্ত করতে পারে। যেসব মরদেহ শনাক্ত করা যাবে না, সিআইডি ক্রাইম সিনের মাধ্যমে তাদের নমুনা সংগ্রহ করে রাখা হচ্ছে। ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে সেগুলো শনাক্তের পর স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকার দুই জায়গায় সিআইডি ও পিআইবির একাধিক টিম কাজ করছে।

বিকাল পর্যন্ত কারখানার সার্বিক চিত্র

কারখানাটির নাম হাসেম ফুড বেভারেজ হলেও এলাকাবাসী এটাকে সেজান জুসের কারখানা হিসেবে চেনেন। সেজান জুস মূলত পাকিস্তানের একটি পণ্য। হাসেম ফুডেরই অঙ্গপ্রতিষ্ঠান সজীব করপোরেশন। বিদেশ থেকে কাঁচামাল এনে এখানে সেজান জুস তৈরি করে বাজারে সরবরাহ করে আসছিল তারা। এ কারখানার ভেতরে জুসের পাশাপাশি নুডুলস, লাচ্ছি সেমাই, চকলেট, লাচ্ছি, কেক বিস্কুটসহ বিভিন্ন পণ্য তৈরি ও প্যাকেটজাত করা হতো।

এই ভবনের নিচতলায় ছিল বিপুল পরিমাণ ফয়েল কাগজের কয়েল। বিপুল পরিমাণ কার্টন ও পরিত্যক্ত কাগজ। যেগুলো সিঁড়ির নিচে স্তূপ করা ছিল। নিচের ফ্লোরের পাশের একটি কক্ষে ছিল বড় আকৃতির একটি বিদ্যুতের ট্রান্সফর্মার। দ্বিতীয়তলায় শ্রমিকরা বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন ও প্যাকেটিংয়ের কাজ করতেন। তৃতীয়তলায় ছিলো দুটি হিট মেশিন। যেগুলো দিয়ে প্লাস্টিক গলিয়ে উৎপাদিত পণ্যের মোড়ক তৈরি করা হতো। ভবনের চারতলার উত্তর দিকে ছিল বিশাল আকৃতির স্টোর রুম। এছাড়া ছয়তলা ভবনের প্রতিটি ফ্লোরেই ছিল দাহ্য পদার্থ ও বিপুল পরিমাণ রাসায়নিক পদার্থের মজুত।

প্রত্যক্ষদর্শী শ্রমিক আবুল কাশেম জানান, নিচতলার সিঁড়ির পাশের কার্টনে আগুনের সূত্রপাত হয়ে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই আগুন দ্বিতীয় ও তৃতীয়তলায় ছড়ায়। যে কারণে দ্বিতীয়তলার শ্রমিকরা নিচে নামতে না পেরে ভবনের সামনের অংশের শাটার ভেঙে লাফিয়ে পড়ে আহত হয়।

আগুন লাগার প্রায় ২২ ঘণ্টা পর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনলেও বিশাল ভবনটি ঘুরে দেখা যায়, আগুনে প্রতিটি ফ্লোরে মেশিনারিজসহ বিপুল পরিমাণ পণ্য পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। দ্বিতীয়তলার উত্তর পাশে বিকেল সাড়ে ৪টায়ও আগুন জ্বলতে দেখা যায়। তৃতীয়তলায়ও একই চিত্র দেখা যায়। তবে চতুর্থতলার চিত্রটি ছিলো সবচেয়ে ভয়াবহ। এখানে মানুষের শরীরের পোড়া অংশ, কোথাও পায়ের জুতা, স্যান্ডেল, মেয়েদের হ্যান্ড ব্যাগের পোড়া অংশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছিল। শুক্রবার যাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয় তাদের বেশিরভাগকে এ ফ্লোর থেকেই উদ্ধার করা হয়।

মহাসড়ক অবরোধ

আগুন নেভাতে ধীরগতির অভিযোগ তুলের সকাল সাড়ে ১০টায় হতাহত শ্রমিকদের আত্মীয় ও এলাকাবাসী প্রতিষ্ঠানের অদূরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কর্ণগোপ এলাকা লাঠিসোঁটা নিয়ে অবরোধ করে। এ সময় সাংবাদিকদের গাড়িসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাদের বাধা দিলে দুইপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ও কয়েক রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। অবরোধকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট, পাথর, রাস্তার পাশে থাকা হকারদের চকি ভেঙে ছুড়তে থাকে।

অবরোধকারীদের একজন হাশেম ফুড বেভারেজের শ্রমিকের আত্মীয় আসলাম মিয়া জানান, তার বোনের মেয়ে লিনা এ কারখানায় কাজ করে। আগুনের পর থেকে তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। লিনাসহ কারখানার আরও বেশ কয়েকজন শ্রমিকের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে তিনি দাবি করেন।

এদিকে, এ ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে ২৫ হাজার ও আহতদের ১০ হাজার টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে জেলা প্রশাসন। এছাড়া নিহতদের পরিবারের স্বজনদের আর্থিক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন রূপগঞ্জের স্থানীয় সংসদ সদস্য, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি তদন্তের জন্য এখন পর্যন্ত তিনটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

/এফআর/এমওএফ/
টাইমলাইন: নারায়ণগঞ্জে জুস কারখানায় আগুন
০৯ জুলাই ২০২১, ২০:৩৩
লাশ এতটাই পুড়েছে চেনা মুশকিল

সম্পর্কিত

চাঁদাবাজির অভিযোগে ২ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার

চাঁদাবাজির অভিযোগে ২ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার

শরীয়তপুরে আউশের বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক

শরীয়তপুরে আউশের বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক

‘আগামী সংসদ নির্বাচনও এই সরকারের অধীনে’

‘আগামী সংসদ নির্বাচনও এই সরকারের অধীনে’

জাজিরা-মাওয়া ফেরিঘাট দ্রুত চালুর দাবিতে গণঅনশন

জাজিরা-মাওয়া ফেরিঘাট দ্রুত চালুর দাবিতে গণঅনশন

বেনাপোল ইমিগ্রেশনে ভারতফেরত বাংলাদেশির মৃত্যু

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৮

ভারত থেকে চিকিৎসা নিয়ে দেশে ফেরার সময় বেনাপোল ইমিগ্রেশনে আব্দুর রহিম (৪৮) নামের এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। তিনি ঢাকার দক্ষিণখান এলাকার হোলান রোডের বাসিন্দা জহিরুল হকের ছেলে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ভারত থেকে বেনাপোল আসার পর পাসপোর্টের কার্যক্রম শেষ করেন। এরপর ইমিগ্রেশন কাস্টমস থেকে বের হওয়ার মুহূর্তে অসুস্থবোধ করলে আকস্মিক মেঝেতে পড়ে যান। এতে তিনি মাথায় আঘাত পান।

কুলি আকবার আলী বলেন, ‘‘ভারত থেকে বেনাপোল চেকপোস্টের নো ম্যান্সল্যান্ডে এলে ওনার লাগেজ নিয়ে ইমিগ্রেশন আসছিলাম। তখন তিনি আমাকে বলেছিলেন, ‘শরীরটা ভালো লাগছে না’। দুই মিনিট বিশ্রাম নিয়ে ইমিগ্রেশনে এসে নিজের পাসপোর্টের অফিসিয়াল কাজ করে বের হয়ে আসছিলেন। হঠাৎ মেঝেতে পড়ে যান তিনি। এর কিছুক্ষণ পরেই তিনি মারা যান।’’

বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহসান হাবিব বলেন, ‘রবিবার দুপুরে ভারত থেকে চিকিৎসা নিয়ে আব্দুর রহিম নামের এক বাংলাদেশি দেশে ফেরেন। ইমিগ্রেশনে আসার পর তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে ইমিগ্রেশনে কার্যক্রম শেষ করে বের হওয়ার সময় মেঝেতে পড়ে যান এবং ওই সময় তার মৃত্যু হয়।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

সোমবার খুলনা বিভাগের ৯৫ কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট

সোমবার খুলনা বিভাগের ৯৫ কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট

বাগেরহাটে ইউপি নির্বাচনে সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

বাগেরহাটে ইউপি নির্বাচনে সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

দেড় বছর পর দর্শনা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম শুরু

দেড় বছর পর দর্শনা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম শুরু

যশোরে তিন ফুট উচ্চতার বর-কনের ধুমধামে বিয়ে

যশোরে তিন ফুট উচ্চতার বর-কনের ধুমধামে বিয়ে

হিলির ২১ মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৭

কয়েকদিন পরই শারদীয় দুর্গাপূজা। এ উপলক্ষে দিনাজপুরের হিলিতে মন্দিরে মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। গতবার সীমিত পরিসরে হলেও এবার করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় বড় পরিসরে পূজা উদযাপনের আশা করছে কমিটি। গতবারের চেয়ে কাজ বাড়ায় খুশি প্রতিমা তৈরির কারিগররা।

হিলিতে গত বছর ২০ মন্দিরে সীমিত পরিসরে পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এবার ২১ মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। ইতোমধ্যে অনেক মন্দিরে প্রতিমা শুকানোর কাজ চলছে। এরপর চলবে রংয়ের কাজ।

প্রতিমা তৈরির কারিগর স্বপন পাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বর্তমানে খড়, মাটি ও পাটের সংমিশ্রণে বিভিন্ন আকৃতির প্রতিমা তৈরি করছি। গত বছর করোনার কারণে কিছুটা ছোট আকারের প্রতিমা তৈরি করেছি। এবার ভক্তদের চাহিদা অনুযায়ী প্রতিমায় আনা হয়েছে ভিন্নতা। আকার হয়েছে বড়। প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এখন হাতের আঙুলসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক যে কাজ আছে, কয়েকদিনের মধ্যে শেষ হবে। এরপর রংয়ের কাজ হবে। পূজার আগেই সবশেষ করে কমিটির কাছে প্রতিমা বুঝিয়ে দেবো।

তিনি আরও বলেন, আমরা বছরে ৩-৪ মাস প্রতিমা তৈরির কাজ করে যা আয় হয় তা দিয়ে সারা বছর সংসার চলে। গত বছর করোনার কারণে আয় অর্ধেকে নেমেছে। এতে পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছি। এবার করোনা পরিস্থিতি শিথিল হওয়ায় কাজ বেড়েছে। গতবারের চেয়ে বাড়তি আয়ের আশা করছি।

ইতোমধ্যে অনেক মন্দিরে প্রতিমা শুকানোর কাজ চলছে

প্রতিমা তৈরির কারিগর শ্রিদাম পাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমি গত নয় বছর ধরে হিলিতে প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। কিন্তু করোনার কারণে আমরা যারা এই পেশায় জড়িত তারা চাহিদা মোতাবেক কাজ না পাওয়ায় উপার্জন কমে দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছি। জীবিকার তাগিদে অনেকে পেশা ছেড়ে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত হয়েছেন। যে প্রতিমা আমরা তৈরি করতাম ৮০ হাজার টাকায়; শুধুমাত্র করোনার কারণে গত বছর সেই প্রতিমার কাজ ৩০ হাজার টাকায় করেছি। আবার যেটি এক লাখ ছিল, সেটি হয়েছে ৪০ হাজার টাকায়। আমাদের মজুরি অর্ধেকও পাইনি। এবারও পরিস্থিতি খুব একটা ভালো নয়। তবে আগের চেয়ে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় কাজের চাহিদা বেড়েছে। আমি ছয়টি প্রতিমা তৈরির কাজ পেয়েছি। তবে প্রতিমা তৈরির স্বাভাবিক সময়ে যে মূল্য পেতাম এবারও সেটি পাচ্ছি না।

হিলির চন্ডিপুর সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক পলাশ কুমার বসাক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, গত বছর করোনার সংক্রমণ বেশি থাকায় আমরা অনেকটা ঘরোয়া পরিবেশে দুর্গাপূজা উদযাপন করেছি। এবার করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় ইতোমধ্যে সরকার স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছে। যার কারণে আমরা মনে করছি, এবার ভালোভাবে দুর্গাপূজা উদযাপন করতে পারবো। সরকারি নির্দেশনা ও আমাদের কমিটি যে সিদ্ধান্ত দেয়, সে অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উদযাপন করবো। গত বছর প্রতিমার আকার কিছুটা ছোট হলেও এবার বড় আকারের প্রতিমা তৈরি করেছি। করোনার কারণে সবার অর্থনৈতিক সমস্যা আছে। বিষয়টি বিবেচনা করেই পূজা উদযাপন করা হবে।

হাকিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হিলি যেহেতু সীমান্তবর্তী এলাকা সেহেতু সনাতন ধর্মের লোকজন যাতে সুন্দরভাবে পূজা উদযাপন করতে পারে, সে জন্য পুলিশ সব ধরনের ব্যবস্থা নেবে।

/এএম/

সম্পর্কিত

অপকর্মে জড়িতদের আ.লীগে স্থান নেই: তথ্যমন্ত্রী 

অপকর্মে জড়িতদের আ.লীগে স্থান নেই: তথ্যমন্ত্রী 

মোটরসাইকেলে ৩ জন, ট্রাকের ধাক্কায় রাজস্ব কর্মকর্তা নিহত

মোটরসাইকেলে ৩ জন, ট্রাকের ধাক্কায় রাজস্ব কর্মকর্তা নিহত

ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা গ্রেফতার

ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা গ্রেফতার

সোমবার খুলনা বিভাগের ৯৫ কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:১৫

খুলনা বিভাগের ১০ ইউনিয়ন পরিষদে প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট অনুষ্ঠিত হবে সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর)। ইতোমধ্যে এসব ইউনিয়নের ভোটকেন্দ্রে মক ভোটিং অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খুলনার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ইউনুচ আলী জানান, খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা জেলার সাতটি উপজেলায় ১০টি ইউপির ৯৫টি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

তিনি আরও জানান, খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার গংগারামপুর ইউনিয়নের ১০টি ভোট কেন্দ্রের ৪৯ ভোটকক্ষে, দিঘলিয়া উপজেলার বারাকপুর ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ৫৭ ভোটকক্ষে, বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার বেতাগা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ৩৭ ভোটকক্ষে, রামপাল উপজেলার বাইনতলা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ৩৭ ভোটকক্ষে, মোংলা উপজেলার বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ৩৭ ভোটকক্ষে, সোনাইল তলা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ২৫ ভোটকক্ষে, সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ৪৪ ভোটকক্ষে এবং তালা উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের ৫১ ভোটকক্ষে, তালা ইউনিয়নের ১১টি কেন্দ্রের ৭৭ ভোটকক্ষে ও খলিলনগর ইউনিয়নের ১১টি কেন্দ্রের ৬৪ ভোটকক্ষে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে।

খুলনার সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এম মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘দিঘলিয়া উপজেলার বারাকপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে পাঁচ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের একজন, ইসলামী আন্দোলনের একজন এবং তিন জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন। এ ছাড়া সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য পদে ১৩ জন, সাধারণ ওয়ার্ডে ৪৫ জন প্রার্থী রয়েছেন। ইউনিয়নের ৯টি ভোট কেন্দ্রে ১৯ হাজার ৪৮৫ জন ভোটার রয়েছেন। এ ছাড়া বটিয়াঘাটা উপজেলার গংগারামপুর ইউনিয়ন পরিষদে ছয় জন চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ ও ইসলামী আন্দোলনের একজন করে এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য পদে ১১ জন প্রার্থী ও সাধারণ ওয়ার্ডে ৪২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ইউনিয়নের ১০টি ভোট কেন্দ্রে ১৬ হাজার ১৪৭ জন ভোটার রয়েছেন।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

বাগেরহাটে ইউপি নির্বাচনে সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

বাগেরহাটে ইউপি নির্বাচনে সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

দেড় বছর পর দর্শনা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম শুরু

দেড় বছর পর দর্শনা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম শুরু

যশোরে তিন ফুট উচ্চতার বর-কনের ধুমধামে বিয়ে

যশোরে তিন ফুট উচ্চতার বর-কনের ধুমধামে বিয়ে

বাগেরহাটে ইউপি নির্বাচনে সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:১৪

বাগেরহাটের ৯ উপজেলার ৬৫ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আগামীকাল সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে সহিংসতার আশঙ্কায় এসব ইউনিয়নের ৫৯৯টি কেন্দ্রের সবকটিকেই ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

জানা গেছে, নির্বাচনটি শান্তিপূর্ণ করতে নেওয়া হয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ইতোমধ্যেই জেলার ৬৫ ইউনিয়নের ৩৮টিতে চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নৌকার প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিপক্ষে দলটির বিদ্রোহীরা স্বতন্ত্র হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় সহিংসতার আশঙ্কা করছেন অনেকে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর থেকেই জেলার ৯ উপজেলার সদর থেকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে নির্বাচনি সরঞ্জাম। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশ ও আনসারের ২২ সদস্যের পাশাপাশি তিন প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের তিনটি টহল টিম, চার জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ২৫ জন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে।

বাগেরহাট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফারাজি বেনজির আহমেদ বলেন, ‘জেলায় প্রথম ধাপে ৭৫টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৭০টিতে তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। করোনার কারণে দুই দফা পেছানো (স্থগিত) হয়। এ অবস্থায় তিন ইউনিয়নের প্রার্থীর মৃত্যু, একটিতে মামলা ও একটি ইউনিয়নের সব পদের একক প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভোটের আগেই নির্বাচিত হওয়ায় এই পাঁচ ইউনিয়নে ভোট হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘৬৫ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১০০, সদস্য পদে দুই হাজার ২৫৫ ও সংরক্ষিত সদস্য পদে ৭৬৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। নির্বাচনে ৫৯৯টি কেন্দ্রে বুথ সংখ্যা দুই হাজার ৮১৯টি। জেলার সব কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে নির্বাচন শান্তিপূর্ণ করতে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

সোমবার খুলনা বিভাগের ৯৫ কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট

সোমবার খুলনা বিভাগের ৯৫ কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট

দেড় বছর পর দর্শনা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম শুরু

দেড় বছর পর দর্শনা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম শুরু

যশোরে তিন ফুট উচ্চতার বর-কনের ধুমধামে বিয়ে

যশোরে তিন ফুট উচ্চতার বর-কনের ধুমধামে বিয়ে

অপকর্মে জড়িতদের আ.লীগে স্থান নেই: তথ্যমন্ত্রী 

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৪৩

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মাদক, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসীসহ নানা অপকর্মে জড়িতদের আওয়ামী লীগে স্থান নেই। ত্যাগী, পরিশ্রমী ও দুর্দিনের নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে, তারাই দলের নেতৃত্ব দেবেন। তবে যারা আওয়ামী লীগের নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম চালাচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে সজাগ থাকতে হবে দলের নেতাকর্মীদের। 

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে গাইবান্ধায় জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় যোগদানের আগে সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, এখন খালি পায়ে কেউ হাঁটেন না, না খেয়ে থাকেন না। দেশের সাধারণ মানুষের জীবন-জীবিকা আজ অনেক উন্নত। দেশের উন্নয়ন ও অবকাঠামোর পরিবর্তন ঘটেছে। এসব সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার সরকারের নেতৃত্বের কারণে। 

হাছান মাহমুদ বলেন, গত সাড়ে ১৩ বছর ধরে যারা আওয়ামী লীগ করছেন; তারা আওয়ামী লীগের দুঃসময় দেখেননি। আওয়ামী লীগে আসা অতিথি পাখিদের ওপর নজর রাখতে হবে দলের নেতাকর্মীদের। সেই সঙ্গে দেশ এবং মানুষের স্বার্থে কাজ করতে হবে।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শফিক, জাতীয় সংসদের হুইপ ও গাইবান্ধা-১ আসনের এমপি মাহাবুব আরা বেগম গিনি, গাইবান্ধা-৩ আসনের এমপি ও কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম স্মৃতি ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদুল হাসান রিপন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ ছামছুল আলম হিরু ও সাধারণ সম্পাদক আবুবক্কর সিদ্দিক। 

এদিকে, বর্ধিত সভায় যোগ দিতে জেলা, উপজেলা, তৃণমূল আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ সংগঠনের হাজারো নেতাকর্মী বিভিন্ন যানবাহনে মিছিল নিয়ে শহরে আসেন। 

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সড়কপথে সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে গাইবান্ধা সার্কিট হাউসে এসে পৌঁছান তথ্যমন্ত্রী।

/এএম/

সম্পর্কিত

মোটরসাইকেলে ৩ জন, ট্রাকের ধাক্কায় রাজস্ব কর্মকর্তা নিহত

মোটরসাইকেলে ৩ জন, ট্রাকের ধাক্কায় রাজস্ব কর্মকর্তা নিহত

ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা গ্রেফতার

ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা গ্রেফতার

কুড়িগ্রাম সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে আটক ২

কুড়িগ্রাম সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে আটক ২

ফেসবুক লাইভে গাঁজা সেবন, যুবককে খুঁজছে পুলিশ

ফেসবুক লাইভে গাঁজা সেবন, যুবককে খুঁজছে পুলিশ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

চাঁদাবাজির অভিযোগে ২ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার

চাঁদাবাজির অভিযোগে ২ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার

শরীয়তপুরে আউশের বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক

শরীয়তপুরে আউশের বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক

‘আগামী সংসদ নির্বাচনও এই সরকারের অধীনে’

‘আগামী সংসদ নির্বাচনও এই সরকারের অধীনে’

জাজিরা-মাওয়া ফেরিঘাট দ্রুত চালুর দাবিতে গণঅনশন

জাজিরা-মাওয়া ফেরিঘাট দ্রুত চালুর দাবিতে গণঅনশন

১৮ কেজির কাতল ২৫ হাজারে বিক্রি 

১৮ কেজির কাতল ২৫ হাজারে বিক্রি 

স্কুলের শিক্ষার্থীরা পাবে ফাইজারের টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

স্কুলের শিক্ষার্থীরা পাবে ফাইজারের টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

ছাত্রলীগের পদ পেতে অছাত্র ও হত্যা মামলার আসামির দৌড়ঝাঁপ

ছাত্রলীগের পদ পেতে অছাত্র ও হত্যা মামলার আসামির দৌড়ঝাঁপ

সেতুর পাটাতন ভেঙে টাঙ্গাইল-আরিচা সড়কে যান চলাচল বন্ধ

সেতুর পাটাতন ভেঙে টাঙ্গাইল-আরিচা সড়কে যান চলাচল বন্ধ

ছয় বছর ধরে পানিবন্দি ফতুল্লার ওসমান আলী স্টেডিয়াম 

ছয় বছর ধরে পানিবন্দি ফতুল্লার ওসমান আলী স্টেডিয়াম 

সর্বশেষ

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ : ছাত্র ও যুব অধিকারের ২০ নেতাকর্মীর জামিন

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ : ছাত্র ও যুব অধিকারের ২০ নেতাকর্মীর জামিন

বেনাপোল ইমিগ্রেশনে ভারতফেরত বাংলাদেশির মৃত্যু

বেনাপোল ইমিগ্রেশনে ভারতফেরত বাংলাদেশির মৃত্যু

হিলির ২১ মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ

হিলির ২১ মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ

বাঁশপাতার ভেতরে ভেসে যাবার প্রাক্কালে

বাঁশপাতার ভেতরে ভেসে যাবার প্রাক্কালে

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

© 2021 Bangla Tribune