X
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

শিক্ষার্থীরাই পরিষ্কার রাখে মাদ্রাসার শৌচাগার

বেলায়েত হুসাইন
১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:০০আপডেট : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৪:০৪

দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলো স্বল্প ও সীমিত পরিসরে হলেও মাদ্রাসার শৌচাগারগুলো তুলনামূলক বেশি পরিচ্ছন্ন। কওমি মাদ্রাসার শৌচাগারগুলো পরিষ্কার করে সেখানকার শিক্ষার্থীরা। পরিষ্কারের হারপিক, ব্লিচিং পাউডার ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যবহার্য জিনিসপত্র মাদ্রাসার পক্ষ থেকে সরবরাহ করা হয়। তবে এর ব্যতিক্রমও আছে; কিছু মাদ্রাসায় ছাত্রদের এর জন্য বিশেষ ফান্ড থাকে, সেখানে তারা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দেয় এবং তা দিয়ে শৌচাগারের জুতাসহ স্যানিটাইজেশনের উপকরণ কেনা হয়।

মাদ্রাসা মারকাযুদ দিরাসাহ আল ইসলামিয়্যাহ ঢাকায় শিক্ষার্থীদের ফান্ডের সঙ্গে মাদ্রাসাও কিছু অর্থ বরাদ্দ দিয়ে থাকে। এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির নাজেমে দারুল ইকামা (হল প্রভোস্ট) মুফতি উবায়দুল্লাহ সিরাজী বলেন, ‘মাদ্রাসার শৌচাগারগুলো পরিচ্ছন্ন থাকে ঠিক আছে, তবে তা যথেষ্ট নয়; বরং এদিকটায় কর্তৃপক্ষের আরও বেশি নজর দেওয়া প্রয়োজন। এখানে অনেক শিক্ষার্থীর আবাসিক অবস্থানের কারণে শৌচাগারগুলো খুব বেশি ব্যবহার হয়, এজন্য সেগুলো অপরিচ্ছন্নও হয় বেশি। তাই নিয়মকরে দিনে অন্তত একাধিকবার তা পরিষ্কারের ব্যবস্থা রাখা উচিৎ।’ শিক্ষার্থীরাই পরিষ্কার রাখে মাদ্রাসার শৌচাগার

রাজধানীর মোহাম্মদপুরস্থ ঐতিহ্যবাহী কওমি মাদ্রাসা জামিয়া ইসলামিয়ার (লালমাটিয়া মাদ্রাসা) নাজেমে দারুল ইকামা (প্রধান হল প্রভোস্ট) মাওলানা খালেদুজ্জামান বলেন, ‘আমাদের মাদ্রাসাগুলোতে প্রথাগত পাঠদান থেকে নৈতিক জ্ঞান এবং ধর্মীয় জ্ঞানকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়। আর ইসলামে পবিত্রতা ও পরিচ্ছন্নতার গুরুত্ব অনেক বেশি। এ কারণে মাদ্রাসার একজন শিক্ষার্থী প্রাতিষ্ঠানিকভাবেই তাহারাত ও নাজাফাত তথা পরিচ্ছন্নতা ও পবিত্রতার ব্যাপারে ব্যক্তিগতভাবে বেশ সচেতন হয়ে গড়ে ওঠে।’

কিন্তু মাওলানা খালেদুজ্জামান শৌচাগার পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারটিকে বিশেষ স্পর্শকাতর আখ্যা দিলেন। তিনি বলেন, ‘হাদিসে এসেছে—প্রস্রাবের ছিটা থেকে না বাঁচার কারণে অনেক বেশি কবরের আজাব হয়। হাদিসের এরকম সতর্কতা ও মাদ্রাসায় ধর্মীয় শিক্ষার আধিক্যই মূলত শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগতভাবে পরিচ্ছন্ন থাকতে উদ্বুদ্ধ করে। তারই অংশ হিসেবে তারা শৌচাগারগুলোও পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করে এবং এ বিষয়ে দায়িত্বশীল শিক্ষকও বিষয়টি দেখভাল করেন।’ শিক্ষার্থীরাই পরিষ্কার রাখে মাদ্রাসার শৌচাগার

বিভিন্ন কওমি মাদ্রাসায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশের কওমি মাদ্রাসার শৌচাগারগুলো পরিষ্কার করে সেখানকার শিক্ষার্থীরা। যদিও কিছু মাদ্রাসায় পরিচ্ছন্নতাকর্মী থাকেন, তবে তা নামেমাত্র। শিক্ষার্থীদের ক্লাসেই বাথরুম ব্যবহারের নিয়ম-কানুন শিক্ষকরা শিখিয়ে থাকেন। বেশি বেশি পানি ব্যবহার, বের হওয়ার আগে ভেতরে থাকা জুতাগুলো পরেরজনের ব্যবহার উপযোগী করে রেখে আসা ইত্যাদি বিষয়গুলোর প্রতিও শিক্ষকরা ক্লাসে গুরুত্বারোপ করেন।

মাদ্রাসাগুলোয় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিশেষত শৌচাগার ও পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সতর্ক ও দেখাশোনার জন্য প্রতিটি মাদ্রাসাতেই অন্তত একজন দায়িত্বশীল থাকেন।

একজন শিক্ষক বলেন, ‘কওমি মাদ্রাসাগুলোতে শিক্ষার্থীরা বাড়ির মতোই আবাসিক অবস্থান করে, এজন্য শৌচাগারগুলো নিয়মিত পরিষ্কার না করেও তাদের উপায় নেই। যদি সেগুলো নিয়মিত পরিষ্কার করা না হয়, তাহলে পুরো মাদ্রাসার পরিবেশ নষ্ট হবে এবং তখন তা বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠবে।’ শিক্ষার্থীরাই পরিষ্কার রাখে মাদ্রাসার শৌচাগার

টয়লেটে পানি ব্যবহারের আগে টিস্যু ব্যবহার এবং পরে শিক্ষার্থীরা সাবান দিয়ে হাত ধৌত করে কিনা– জানতে চাইলে রাজধানীর মিরপুরের দারুল উলুম মাদ্রাসার সহকারি নাজেমে দারুল ইকামা (সহকারী হল প্রভোস্ট) মুফতি শাহিন মাহমুদ বলেন, ‘এক্ষেত্রে সব শিক্ষার্থীরা নিজেরাই বেশি সচেতন। আপনি খেয়াল করে কিংবা যাচাই করে দেখবেন– মাদ্রাসা সংশ্লিষ্টদের পকেটে বিশেষত টয়লেট টিস্যু সবসময়ই থাকে। তবে ছোটরা; যারা নতুন মাদ্রাসায় আসা-যাওয়া শুরু করেছে, তাদেরকে এসব ব্যাপার বোঝাতে একটু সময় লাগে। আর টয়লেটের পর সাবানও তারা নিয়মিত ব্যবহার করে। মাদ্রাসার অজুখানা ও গোসলখানায় সাবান রাখার নির্দিষ্ট স্থানে শিক্ষার্থীরাই সাবান রেখে দেয়।’

সরেজমিনে বেশিরভাগ মাদ্রাসার গোসলখানা ও অজুখানায় দেখা গেছে– সেখানকার সাবান রাখার পদ্ধতি বেশ অভিনব। সাধারণত মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ কিংবা শিক্ষার্থীদের ফান্ডের টাকা দিয়ে কেনা সাবান সেখানে রাখা হয় না; বরং তাদের ব্যবহারের অনুপযোগী অর্থাৎ ব্যবহার করতে করতে সাবান যখন খুব ছোট হয়ে আসে, তখন সেটি অজুখানার নির্দিষ্ট ওই জায়গাগুলোতে কিংবা দেয়ালে পানি দিয়ে ভিজিয়ে লাগিয়ে রাখা হয় (যদিও এটি সৌন্দর্য পরিপন্থী) এবং ওই সাবান দিয়েই তারা শৌচাগার থেকে বেরিয়ে তাদের হাত ধৌত করে। এক্ষেত্রে সাবানের কখনও অভাব হয় না। যেহেতু তারা মাদ্রাসায় আবাসিক, তাই তাদের গোসল-কাপড় ধোয়া ইত্যাদি সব কাজই মাদ্রাসার অজুখানা-গোসলখানায়-ই করতে হয়। তখন ব্যবহার অনুপযোগী সাবানটি শিক্ষার্থীরা জায়গামতো রেখে দেয়। শিক্ষার্থীরাই পরিষ্কার রাখে মাদ্রাসার শৌচাগার

তবে শিক্ষকদের জন্য আলাদা যে শৌচাগারগুলো থাকে, অনেক মাদ্রাসায় সেগুলোতে মাদ্রাসার পক্ষ থেকে সাবান ও টিস্যু দেওয়া থাকে। কিছু জায়গায় আবার ব্যক্তিগতভাবেও শিক্ষকরা এগুলোর ব্যবস্থা করেন। দারুল উলুম ঢাকায় শিক্ষকদের শৌচাগারে মাদ্রাসার পক্ষ থেকেই সাবান-টিস্যু সরবরাহ করা হয় বলে জানালেন মাদ্রাসার শিক্ষক মুফতি শাহিন মাহমুদ।

শহরের মাদ্রাসার শৌচাগারগুলো স্বাভাবিকভাবেই কিছুটা স্বাস্থ্যসম্মত। আর দেশের সর্বত্র স্যানিটেশন ব্যবস্থা উন্নত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রামের মাদ্রাসাগুলোতেও তার ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

জামিয়া ইসলামিয়া আজিজিয়া বাহিরদিয়া (বাহিরদিয়া মাদ্রাসা) ফরিদপুরের অন্যতম প্রাচীন একটি কওমি মাদ্রাসা। ১৫-২০ বছর আগে, এখানে কিছু শৌচাগারের অবস্থা ছিল ভয়াবহ। সারিবদ্ধ প্রায় ১০-১২টি শৌচাগারের মলমূত্র সরাসরি গিয়ে পড়তো পেছনের একটি কুয়ায়। সেটি ছিল খোলা। তার দুর্গন্ধে আশপাশের পরিবেশ অসহ্যরকমের খারাপ অনুভব হতো। সবচেয়ে বেশি খারাপ হতো বর্ষার সময়ে। মলের ওই কুয়ার পাশেই ছিল ফসলি জমি। বর্ষায় যখন পানি বাড়তো, তখন কুয়ার মল পাঠ চাষের ওই ফসলি জমিতে ভেসে বেড়াতো। সে এক ভয়াবহ দৃশ্য। তবে সুখবর হচ্ছে– তেমনটি এখন আর নেই। কুয়ার স্থলে এখন বড় বড় হাউজ করা হয়েছে। ময়লা সেখানে গিয়ে জমা হয় এবং স্বাস্থ্যকর উপায়ে সময়মতো সেগুলো পরিষ্কার করা হয়।

বাহিরদিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক মুফতি ফখরুদ্দিন বলেন, ‘আমাদের মাদ্রাসার মতো একেবারে গ্রামের ভেতর যেসব মাদ্রাসা অবস্থিত, একসময় সেখানে নানারকম সংকট ও সীমাবদ্ধতা থাকতো। তবে সর্বত্র বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া ও যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হওয়ার পর সেসব সংকট অনেকটাই কেটে গেছে।’ তার দাবি–বর্তমানে শহরের মাদ্রাসার শৌচাগারগুলোর চেয়ে তাদের মাদ্রাসার শৌচাগার ব্যবস্থা খুব বেশি মন্দ নয়। তবে মুফতি উবায়দুল্লাহ সিরাজীর মতো মুফতি ফখরুদ্দিনও এতেই সন্তুষ্ট হতে চান না। তার কথায়, ‘যেহেতু মাদ্রাসার শৌচাগারগুলোতে অনেক বেশি মানুষের আনাগোনা, তাই সেগুলো আরও বেশি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা দরকার।’

লেখক: গণমাধ্যমকর্মী; শিক্ষক, মারকাযুদ দিরাসাহ আল ইসলামিয়্যাহ, ঢাকা।

/আরআইজে/
টাইমলাইন: নাগরিক শৌচাগার চিত্র
১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:০০
শিক্ষার্থীরাই পরিষ্কার রাখে মাদ্রাসার শৌচাগার
২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১০:০১
সম্পর্কিত
আসন্ন বাজেটে ওয়াশ খাতের বরাদ্দে অগ্রাধিকার দেওয়ার আহ্বান
রাজধানীতে প্রতি ৭৫ হাজার মানুষের জন্য একটি টয়লেট
এক কারাগারে ধারণক্ষমতার তিনগুণ বন্দি, শৌচাগার সংকটে ভোগান্তি
সর্বশেষ খবর
ভারতীয় পেঁয়াজে রফতানি মূল্য নির্ধারণ, বিপাকে আমদানিকারকরা
ভারতীয় পেঁয়াজে রফতানি মূল্য নির্ধারণ, বিপাকে আমদানিকারকরা
টিভিতে আজকের খেলা (১৯ মে, ২০২৪)
টিভিতে আজকের খেলা (১৯ মে, ২০২৪)
উত্তরা ইউনিভার্সিটিতে রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিকেশন অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠিত
উত্তরা ইউনিভার্সিটিতে রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিকেশন অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠিত
চট্টগ্রামে লরি চাপায় মৃত্যু বেড়ে তিন
চট্টগ্রামে লরি চাপায় মৃত্যু বেড়ে তিন
সর্বাধিক পঠিত
মামুনুল হক ডিবিতে
মামুনুল হক ডিবিতে
৩০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি তৃতীয় শ্রেণির সরকারি কর্মচারীদের
৩০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি তৃতীয় শ্রেণির সরকারি কর্মচারীদের
আমেরিকা যাচ্ছেন ৩০ ব্যাংকের এমডি
আমেরিকা যাচ্ছেন ৩০ ব্যাংকের এমডি
মোবাইল আনতে ডিবি কার্যালয়ে মামুনুল হক
মোবাইল আনতে ডিবি কার্যালয়ে মামুনুল হক
গরমে সুস্থ থাকতে কোন কোন পানীয় খাবেন? ইলেক্ট্রোলাইট পানীয় কখন জরুরি?
গরমে সুস্থ থাকতে কোন কোন পানীয় খাবেন? ইলেক্ট্রোলাইট পানীয় কখন জরুরি?