X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

কাজে ফিরতে না পারায় ক্ষুব্ধ আফগান নারীরা

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:১৮

নারীদের কাজে যোগ না দিতে তালেবানের নির্দেশ সোমবার থেকে কার্যকর হয়েছে। হাজারো নারী শিক্ষক ও লাখো মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুলে নিষিদ্ধ করার পর সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ও দফতরের কয়েক হাজার নারী কর্মীকে কাজে যোগদানের বদলে বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নাটকীয় অধিকার হরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দেশটির নারীরা। ফরাসী বার্তা সংস্থা এএফপি এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র পর্যায়ের দায়িত্ব থেকে বরখাস্ত হওয়া এক নারী বলেন, ‘আমিও হয়ত মরে যাব। পুরো বিভাগের দায়িত্ব ছিল আমার কাঁধে। আমার সঙ্গে কাজ করতেন অনেক নারী। এখন আমরা আমাদের সব কাজ হারিয়েছি।’

তালেবানের প্রথম শাসনামলে নারীদের শিক্ষা ও কাজের অধিকার বঞ্চিত করা হয়েছিল। মার্কিন ও বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের পর গত মাসে তালেবান প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, নারী অধিকারকে শ্রদ্ধা জানানো হবে ইসলামি আইনের আওতায়। তবে তালেবান ইসলামি আইন ব্যবস্থা শরিয়াহ আইনের কঠোর ব্যাখ্যাকেই মেনে চলে।

কাবুলে তালেবানের নিযুক্ত নতুন মেয়র পৌরসভার নারী কর্মীদের ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। কাবুলের মেয়রের তথ্য অনুসারে, পৌরসভার প্রায় ৩ হাজার কর্মীই হলেন নারী। যেসব পদ পুরুষদের দিয়ে পূরণ করা যাবে সেগুলোতে কর্মরত নারীদের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, যেমন- শহরের নারী টয়লেটে পুরুষরা কাজ করতে পারবে না। তাই এসব স্থানে নারীরা কাজ করবে।

ইসলামি গোষ্ঠীটি এরই মধ্যে আফগানিস্তানের নারীবিষয়ক মন্ত্রণালয় বন্ধ করে দিয়েছে এবং কঠোর ইসলামি আইন বাস্তবায়নের জন্য নতুন একটি মন্ত্রণালয় সেখানে গঠন করেছে।

শনিবার আফগানিস্তানের মাধ্যমিক বিদ্যালয় পুনরায় চালু হয়েছে। তবে শুধু ছেলে শিক্ষার্থী ও পুরুষ শিক্ষকদের ক্লাস রুমে ফিরতে বলা হয়েছে। তালেবান জানিয়েছে, নারীদের স্কুল পুনরায় চালু করার বিষয়ে কাজ করছে তারা।

অনেক আফগান নারী আশঙ্কা করছেন তারা আরও কখনও অর্থবহ কর্মসংস্থান পাবেন না। সংখ্যায় কম হলেও গত ২০ বছরে আফগান নারীরা মৌলিক অধিকার পেয়ে আসছিলেন। নারীরা আইনজীবী, বিচারক, পাইলট ও পুলিশ কর্মকর্তা হয়েছেন। যদিও তা বড় শহরগুলোতে।

দেশটির কর্মশক্তিতে যুক্ত হয়েছেন লাখো নারী। কিছু ক্ষেত্রে বিধবা নারী কিংবা উপার্জনে অক্ষম স্বামীর কারণে নিজেরাই অর্থ সংস্থানের জন্য কাজ করছিলেন। কিন্তু ১৫ আগস্ট তালেবান দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত নারীদের কাজের অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা দেখাচ্ছে না। কেবল পুরুষদের নিয়ে গঠিত তালেবানের অন্তর্বর্তী সরকারের প্রতিবাদ করায় নারীদের বেধড়ক মারধর করেছে তালেবান যোদ্ধারা।

এই বিষয়ে তালেবান কর্মকর্তারা বলছেন, নারীদের নিরাপত্তার জন্যই তাদের বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে। উপযুক্ত ব্যবস্থা প্রবর্তন হওয়ার পর তাদের কাজে ফিরতে বলা হবে।

সোমবার এক নারী শিক্ষক প্রশ্ন তুলেন, ‘এই দিন কবে আসবে? তালেবানের আগের শাসনামলেও এমনটি ঘটেছে। তারা বারবার বলতে কাজে নারীদের কাজ করতে দেবে। কিন্তু তা কখনও ঘটেনি।’

/জেজে/এএ/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
০৫ অক্টোবর ২০২১, ২০:১০
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২৫
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:২৯
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:১২
কাজে ফিরতে না পারায় ক্ষুব্ধ আফগান নারীরা

সম্পর্কিত

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:২৯

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নিষিদ্ধ করেছে আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবান সরকার। বৃহস্পতিবার রাতে অন্তর্বর্তী সরকারের মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৈঠক শেষে তালেবানের মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।

তালেবান মুখপাত্র বলেন, অপরাধীদের শাস্তি প্রকাশ্যে কার্যকর করা নিষ্প্রয়োজন। সর্বোচ্চ আদালত যদি প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর এবং মরদেহ ঝুলিয়ে রাখার নির্দেশ না দেন, তাহলে এই শাস্তি এভাবে দেওয়ার সুযোগ নেই। তবে আদালত যদি অপরাধীদের প্রকাশ্যে শাস্তি দিতে বলেন, সেক্ষেত্রে আদালতের নির্দেশনা পালন করতে হবে।

জবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, সাজাপ্রাপ্তদের অপরাধের বিষয়টি জনসমক্ষে ব্যাখ্যা করতে হবে, যাতে লোকজন ওই অপরাধ সম্পর্কে সচেতন হতে পারে।

গত সেপ্টেম্বরে চার সন্দেহভাজন অপহরণকারীকে গুলি করে হত্যার পর তাদের মরদেহ হেরাত শহরের রাস্তার মোড়ে ঝুলিয়ে রাখে তালেবান সদস্যরা। একজন ব্যবসায়ী এবং তার ছেলেকে জিম্মি করার অভিযোগের পর বন্দুকযুদ্ধে ওই ব্যক্তিরা নিহত হয়। ওয়াজির আহমাদ সিদ্দিকি নামের স্থানীয় একজন ব্যবসায়ী বলেন, চারটি মৃতদেহ মোড়ে আনা হয়। একটি সেখানে ঝুলিয়ে রাখা হয় এবং বাকি তিনটি মরদেহ প্রদর্শনের জন্য শহরের অন্যান্য মোড়ের দিকে নিয়ে যাওয়া হয়। হেরাতের ডেপুটি গভর্নর মৌলভী শাইর বলেন, অপহরণের মতো ঘটনা যাতে আর না ঘটে তার জন্যই মৃতদেহগুলো এভাবে ঝুলিয়ে প্রদর্শন করা হয়েছে।

হেরাত শহরের ওই ঘটনা ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছিল। তালেবান মন্ত্রিসভার নতুন সিদ্ধান্ত এ ধরনের ঘটনার রাশ টানবে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

/এমপি/

সম্পর্কিত

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:২৩

মিয়ানমারের সামরিক সরকারের এক মুখপাত্র আসিয়ানের সম্মেলনে বাদ দেওয়ার ঘটনার নেপথ্যে বিদেশি হস্তক্ষেপের অভিযোগ এনেছেন। এই মাসের শেষের দিকে অনুষ্ঠিতব্য আঞ্চলিক নেতাদের সম্মেলনে মিয়ানমারের জান্তা প্রধান মিন অং হ্লাইংকে আমন্ত্রণ না জানানোর প্রতিক্রিয়ায় এই অভিযোগ করা হয়েছে। শনিবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ হওয়ায় দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ানের আসন্ন শীর্ষ সম্মেলন থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে মিয়ানমারের সেনা প্রধান মিন অং হ্লাইং-কে। শনিবার (১৬ অক্টোবর) এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে আসিয়ান। জোটের পক্ষ থেকে এমন পদক্ষেপ  বিরল ঘটনা।

জান্তা মুখপাত্র ঝাও মিন তুন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা চেয়েছেন আসিয়ান সম্মেলনে মিয়ানমারের সামরিক নেতাদের বাদ দিতে। এজন্য তারা আসিয়ান নেতাদের দলে ভিড়িয়েছে।

তিনি বলেন, এখানেও বিদেশি হস্তক্ষেপ রয়েছে। এই সিদ্ধান্তের আগে কয়েকটি দেশের প্রতিনিধিরা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক করেছেন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে চাপ দেওয়া হয়েছে।

চলতি মাসের ২৬ থেকে ২৮ অক্টোবর আসিয়ানের ভার্চুয়াল সম্মেলন বসতে যাচ্ছে। ওই সম্মেলনে মিয়ানমারের সেনা প্রধানকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়। তার আগে মিয়ানমারে শান্তি ফিরিয়ে আনতে গত এপ্রিলে আসিয়ানের সঙ্গে পাঁচ দফা একটি পরিকল্পনায় সম্মত হয় জান্তা সরকার। কিন্তু এই পাঁচ দফার কোনটিই মানা হয়নি। এ নিয়ে শুক্রবার বৈঠকে বসেন আসিয়ানের সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

পরে এক বিবৃতিতে মিন অং হ্লাইনকে বাদ দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে মিয়ানমার থেকে একটি অরাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিকে আসিয়ান সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:২৩

অবশেষে দলের শীর্ষ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করেছে তালেবান। ২০২১ সালের ১৫ আগস্ট তালেবান কাবুল দখলের পর থেকেই ঘুরেফিরে বার বার সামনে আসছিল তার নাম। তবে ২০ বছরের মার্কিন আগ্রাসনের অবসান ঘটিয়ে দল সরকার গঠন করলেও জনসমক্ষে দেখা যায়নি তাকে। অনলাইনেও তার মাত্র একটি ছবি পাওয়া যায়। এমন পরিস্থিতিতে তার মৃত্যুর গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়লেও দলের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।

দীর্ঘ নীরবতার পর বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছে তালেবান। দলের প্রবীণ নেতা আমিরুল মুমিনিন শেখ সিএনএন নিউজ এইটিন-কে বলেছেন, ‘২০২০ সালে পাকিস্তানি বাহিনীর পরিকল্পনায় সংঘটিত একটি আত্মঘাতী হামলায় শহীদ হয়েছেন হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা।’

২০১৬ সালে তৎকালীন নেতা মোল্লা আখতার মনসুর ড্রোন হামলায় নিহত হলে নতুন তালেবান প্রধানের দায়িত্ব নেন হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা। এরপর থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তালেবানের যে কোনও রাজনৈতিক, সামরিক বা ধর্মীয় ক্ষেত্রে শেষ কথা বলতেন অতি মাত্রায় রক্ষণশীল হিসেবে পরিচিত এই নেতা। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস।

/এমপি/

সম্পর্কিত

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪১

তালেবান নেতৃত্বাধীন আফগান সরকার পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন (পিআইএ) ও কাম এয়ারকে ভাড়া কমানোর জন্য হুঁশিয়ারি জানিয়েছে। কাবুল থেকে ইসলামাবাদের ফ্লাইটের ভাড়া না কমালে তাদের আফগানিস্তানে অবতরণ নিষিদ্ধ করার হুমকি দিয়েছে ইসলামি গোষ্ঠীটি। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন এখবর জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার আফগান মন্ত্রণালয় থেকে একটি নোটিস ইস্যুত করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ইসলামাবাদ ও কাবুলের টু-ওয়ে টিকিটের জন্য অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে পিআইএ ও কাম এয়ারের বিরুদ্ধে। তাদের বিরুদ্ধে প্রায় এই টিকিটের দাম ২ লাখ পাকিস্তানি রুপি নেওয়ার অভিযোগ আছে।

তালেবানের হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলে বৃহস্পতিবার পিআইএ কাবুলে ফ্লাইট পরিচালনা স্থগিত রাখার পর আফগান মন্ত্রণালয় এসব তথ্য জানালো।

আফগান বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের এক সিনিয়র কর্মকর্তা জানান, কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসকে বিষয়টি জানানোর পর কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় তালেবান একতরফাভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, আমরা পিআইএ, কাম এয়ার লাইন্সের কাছে দাবি জানাচ্ছি আগের ভাড়ায় টিকিট বিক্রি করতে। না হলে তাদের আফগানিস্তানে অবতরণ নিষিদ্ধ করা হবে।

আফগান কর্মকর্তা আরও জানান, অতিরিক্ত ভাড়ায় টিকিট বিক্রি করে আফগানদের সঙ্গে অবিচার করছে পিআইএ।

/এএ/

সম্পর্কিত

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

রাশিয়ায় করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩১

রাশিয়ায় করোনায় একদিনে সহস্রাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। মহামারি শুরুর পর দেশটিতে এটিই একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।

শনিবার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৩৩ হাজার ২০৮ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে মৃত্যু হয়েছে এক হাজার দুই জনের।

এ নিয়ে রাশিয়ায় টানা তৃতীয় দিনের মতো করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ও সংক্রমণের তথ্য রেকর্ড করা হলো।

দেশটিতে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে শুরু করে গত সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে। নিজেরা করোনার কয়েকটি টিকা উৎপাদন ও বিপণন করলেও রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত মাত্র ৩১ শতাংশ নাগরিককে পূর্ণ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে।

দেশের অর্থনীতি সচল রাখতে সংক্রমিত এলাকাগুলোতে যাতায়াত বা চলাচলের ওপরও কঠোর কোনও বিধিনিষেধ আরোপ করেনি কর্তৃপক্ষ। কর্মকর্তারা বলছেন, তারা লকডাউনের পক্ষে নন। সংক্রমণ রোধে প্রয়োজনে আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে।

/এমপি/

সম্পর্কিত

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

এম‌পি খুনে সন্দেহে জ‌ঙ্গিবাদ, মুসলিম কমিউনিটিতে উদ্বেগ

মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে তাড়িয়ে দেওয়ার দাবি রাশিয়ার

মার্কিন ডেস্ট্রয়ারকে তাড়িয়ে দেওয়ার দাবি রাশিয়ার

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ছুরিকাঘাতে নিহত ব্রিটিশ এমপি

ব্রিটিশ এমপিকে একাধিক ছুরিকাঘাত

ব্রিটিশ এমপিকে একাধিক ছুরিকাঘাত

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছাড়া প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নয়: তালেবান

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

আসিয়ানের সিদ্ধান্তের নেপথ্যে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ’: মিয়ানমার জান্তা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তানের হামলায় আখুন্দজাদা নিহত হয়েছেন: তালেবান নেতা

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

কাশ্মিরে চিরুনি অভিযান ভারতীয় বাহিনীর

কাশ্মিরে চিরুনি অভিযান ভারতীয় বাহিনীর

কাবুলে ড্রোন হামলায় নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণের প্রস্তাব ওয়াশিংটনের

কাবুলে ড্রোন হামলায় নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণের প্রস্তাব ওয়াশিংটনের

সর্বশেষ

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

‘এ’ ইউনিটে প্রতি আসনে লড়বেন ১১ শিক্ষার্থী

কাল থেকে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু‘এ’ ইউনিটে প্রতি আসনে লড়বেন ১১ শিক্ষার্থী

ভ্যাপসা গরমের পর বৃষ্টিতে স্বস্তি

ভ্যাপসা গরমের পর বৃষ্টিতে স্বস্তি

টিকার লাইনে দাঁড়ানো নারীর চেইন ছিনতাই, আটক ৫

টিকার লাইনে দাঁড়ানো নারীর চেইন ছিনতাই, আটক ৫

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

© 2021 Bangla Tribune